পেনিসিলিন অ্যালার্জি নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করতে তৈরি PALACE

উত্তরাপথঃ যুগান্তকারী উন্নয়নে, গবেষকরা বিশ্বে-প্রথম ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরু করতে প্রস্তুত যা পেনিসিলিন অ্যালার্জি আক্রান্ত লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনে বিপ্লব ঘটাতে পারে৷  এই অধ্যয়নের লক্ষ্য একটি নতুন চিকিৎসা পদ্ধতির সুরক্ষা এবং কার্যকারিতা নির্ধারণ করা, যারা বর্তমানে তাদের অ্যালার্জি প্রতিক্রিয়ার কারণে সীমিত অ্যান্টিবায়োটিক বিকল্পগুলির মুখোমুখি তাদের জন্য এই নতুন অধ্যায়ন আশার আলো। এই উদ্ভাবনী ট্রায়ালটিকে  চিকিৎসা পদ্ধতিতে  রূপান্তরিত করতে পারলে বিশ্বব্যাপী রোগীদের জীবনযাত্রার মান উন্নত করার সম্ভাবনা রয়েছে।

পেনিসিলিন অ্যালার্জি হল সবচেয়ে সাধারণ ওষুধের অ্যালার্জি, যা বিশ্বব্যাপী লক্ষ লক্ষ মানুষকে প্রভাবিত করে। যদিও অনেক ব্যক্তি বিশ্বাস করেন যে তাদের পেনিসিলিন থেকে অ্যালার্জি রয়েছে,কিন্তু পরীক্ষার পর দেখা গেছে যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক রিপোর্ট করা অ্যালার্জি হয় ভুল বা সময়ের সাথে সাথে সমাধান হয়ে গেছে। ন্যাশানাল ইনস্টিটিউট অফ হেলথ এর একটি রিপোর্ট অনুসারে আমাদের দেশে প্রতি ১০,০০০এর মধ্যে ১-৫ শতাংশ রোগী পেনিসিলিন অ্যালার্জিতে আক্রান্ত ।এই সম্পর্কে মানুষের ভুল ধারণা এবং সঠিক রোগ নির্ণয়ের সমস্যার ফলে প্রায়ই রোগীদের বিকল্প, কম কার্যকর অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়, যার ফলে স্বাস্থ্যসেবার খরচ বেড়ে যায় এবং বিকল্প  অ্যান্টিবায়োটিকটির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যায় ।

বিখ্যাত গবেষকদের একটি দলের নেতৃত্বে পেনিসিলিন অ্যালার্জি ক্লিনিকাল ডিসিশন রুল (PALACE) নামে একটি ক্লিনিকাল ট্রায়াল  অধ্যয়ন শুরু করা হচ্ছে , যার লক্ষ্য একটি ক্লিনিকাল সিদ্ধান্তের নিয়ম তৈরি করা যাতে রোগীদের সঠিকভাবে অ্যালার্জি সনাক্ত করা যায় এবং রিপোর্টে অ্যালার্জি সত্ত্বেও নিরাপদে পেনিসিলিন গ্রহণ করতে পারে।এই গবেষণাটি পেনিসিলিন অ্যালার্জির সাথে যুক্ত চ্যালেঞ্জগুলি মোকাবেলা করার চেষ্টা করবে। PALACE অধ্যয়নের লক্ষ্য একটি বিকল্প পদ্ধতির বিকাশ করা যা প্রকৃত পেনিসিলিন অ্যালার্জি এবং অন্যান্য প্রতিকূল প্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে পার্থক্য করতে পারে।

PALACE অধ্যয়নের প্রাথমিক উদ্দেশ্য হল একটি ক্লিনিকাল সিদ্ধান্তের নিয়ম তৈরি করা এবং এমন ব্যক্তিদের সনাক্ত করা যারা পেনিসিলিন অ্যালার্জিটিক হওয়া সত্ত্বেও নিরাপদে পেনিসিলিন গ্রহণ করতে পারবে। এটি রোগীর ইতিহাস, ক্লিনিকাল লক্ষণ এবং ডায়াগনস্টিক পরীক্ষার একটি ব্যাপক মূল্যায়নের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হবে।

PALACE গবেষণায় নথিভুক্ত পেনিসিলিন অ্যালার্জি রোগীদের একটি বড় দল জড়িত থাকবে। অংশগ্রহণকারীদের একটি বিশদ চিকিৎসা ইতিহাস পর্যালোচনা, শারীরিক পরীক্ষা এবং অ্যালার্জি পরীক্ষা সহ একাধিক পুঙ্খানুপুঙ্খ বিষয় মূল্যায়ন করা হবে। গবেষণা দলটি অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়াগুলির প্রকৃতি এবং তীব্রতার তথ্য সংগ্রহ করবে, সেইসাথে ত্বকের পরীক্ষাও করবে। পেনিসিলিন অ্যালার্জির ধরন এবং ঝুঁকির কারণগুলি  বিস্তারিত সনাক্ত করতে সংগৃহীত ডেটা ভালোভাবে পরিসংখ্যানগত বিশ্লেষণ করা হবে।

পেনিসিলিন অ্যালার্জি সঠিকভাবে নির্ণয়ের মাধ্যমে রোগীদের জন্য চিকিৎসার বিকল্পগুলিকে প্রসারিত করতে পারে, বিকল্প অ্যান্টিবায়োটিকের প্রয়োজনীয়তা হ্রাস করতে পারে এবং অ্যান্টিবায়োটিকের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। এই গবেষণায় রোগীর  স্বাস্থ্যর ব্যাপারে যেমন নজর দেওয়া হবে তেমনি পেনিসিলিন সহ অন্যান্য অ্যান্টিবায়োটিকের অপ্রয়োজনীয় প্রযোগ বন্ধ করার ব্যাপারেও চিন্ত-ভাবনা করা হবে।এই গবেষণাটি সফল হলে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত চিকিৎসার খরচ অনেকটা কমানো যেতে পাররে। ।

PALACE এর অধ্যয়ন এই অ্যালার্জির সমস্যা সমাধানে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপের সূচনা করবে ।এই নতুন গবেষণার ফলে লোকে নিশ্চিন্তে এবং নিরাপদে পেনিসিলিন গ্রহণ করতে পারবে ।এছাড়াও PALACE অধ্যয়নের লক্ষ্য হল চিকিৎসকদের  পেনিসিলিন ব্যবহারের বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য একটি নির্ভরযোগ্য হাতিয়ার প্রদান করা, যা শেষ পর্যন্ত রোগীদের এবং সামগ্রিকভাবে জনস্বাস্থ্যের জন্য উপযোগী ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে একটি নতুন দ্বীপের জন্ম হয়েছে

উত্তরাপথঃ হঠাৎ করেই একটি নতুন দ্বীপের জন্ম হয়েছে।২০২৩ এর ৩০ অক্টোবর  প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে একটি মৃত আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত একটি নতুন দ্বীপের জন্ম দিয়েছে। বিস্ফোরণের পর জাপানের ওগাসাওয়ারা দ্বীপ চেইনের কাছে বিশাল বিশাল পাথরের টুকরো দেখা গেছে। এ বিষয়ে জাপানি গবেষক বলেন, গত মাসে প্রশান্ত মহাসাগর জলের নিচে আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণের পর টোকিও থেকে প্রায় ১২০০ কিলোমিটার দক্ষিণে ইওটো দ্বীপের কাছে একটি ছোট নতুন দ্বীপের উদ্ভব হয়েছে।টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমিকম্প গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ফুকাশি মায়েনো জানিয়েছেন যে নতুন দ্বীপ, এখনও যার নাম নেই প্রশান্ত মহাসাগরের ইওটো দ্বীপ থেকে ১ কিলোমিটার দূরে ১০০ মিটার ব্যাসের একটি পাথুরে দ্বীপে একটি phreatomagmatic বিস্ফোরণ ঘটেছে। টোকিও থেকে প্রায় ১২০০ কিলোমিটার দক্ষিণে বিস্ফোরণটি দেখা গেছে। ভূপৃষ্ঠের নীচে জলের সাথে লাল গরম ম্যাগমা সংঘর্ষের কারণে প্রতি কয়েক মিনিটে বিস্ফোরণ ঘটে।গত ২১ অক্টোবর, ২০২৩-এ অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়েছিল, যা আগে ইও জিমা নামে পরিচিত ছিল এবং এটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অন্যতম রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের স্থান ছিল। প্রায় ১০ দিন ধরে অগ্ন্যুৎপাত চলার পর, আগ্নেয়গিরির উপাদান অগভীর সমুদ্রতলের উপর জমা হয় এবং প্রায় ১৬০ ফুট পর্যন্ত উচ্চতায় বড় বড় পাথরের আকারে সমুদ্র পৃষ্ঠের উপরে উঠে আসে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Electoral Bond এর গোপনীয়তা সরিয়ে রাজনৈতিক দলগুলিকে, জানাতে হবে প্রাপ্ত অনুদানের পরিমাণ

উত্তরাপথঃ বুধবার, নির্বাচনী বন্ড (Electoral Bond)প্রকল্পের আইনি বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে আবেদনের শুনানি হয়। শীর্ষ আদালত তার মন্তব্যে বলেছে, 'নির্বাচনী বন্ডগুলি রাজনৈতিক দলগুলিকে বেনামী অর্থ প্রদান করে, কারণ তাদের কেনাকাটা সম্পর্কিত রেকর্ডগুলি স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার কাছে উপলব্ধ যা শুধুমাত্র তদন্তকারী সংস্থাগুলি অ্যাক্সেস করতে পারে৷ এর আগে নির্বাচনী বন্ড’ (Electoral Bond) সংক্রান্ত মামলায় সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court) কেন্দ্র দাবি করেছিল, রাজনৈতিক দলগুলির আয়ের উৎস জানার অধিকার নেই জনতার।এবার সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তৎপর হল নির্বাচন কমিশন (Election Commission of India)।বুধবার বিকেল ৫টার মধ্যে যাবতীয় হিসেব জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে কমিশনের তরফে।নির্বাচনী বন্ডের (Electoral Bond)মামলায় কেন্দ্রের আর্জি সত্বেও সুপ্রিম কোর্ট রাজনৈতিক দলগুলিকে আয়ের উৎস জানাতে বলেছিল। আদলত নির্দেশ দিয়েছিল, গত ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কোন রাজনৈতিক দল কত অনুদান মিলেছে, সেই তথ্য বন্ধ খামে জানাতে হবে।এর আগেও নির্বাচনী বন্ডের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে একাধিক মামলা হয়েছে শীর্ষ আদালতে। মামলাকারীরা অভিযোগ করেছিলেন, রাজনৈতিক দলগুলি এই নির্বাচনী বন্ডের মাধ্যমে অবৈধ অর্থ বিদেশ থেকে পেতে পারে এর ফলে গণতন্ত্র ধ্বংস হবে। যদিও কোনও রাজনৈতিক দলই এই দাবি মানতে চায়নি। ৩ অক্টোবর মামলার শুনানিতে প্রধান বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ নির্দেশ দেয়, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে সব তথ্য দিতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। এই রায়ের পরেই তৎপর হল কমিশন। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়-  রাজনৈতিক সহিংসতা ও আমাদের গণতন্ত্র

সেই দিনগুলো চলে গেছে যখন নেতারা তাদের প্রতিপক্ষকেও সম্মান করতেন। শাসক দলের নেতারা তাদের বিরোধী দলের নেতাদের কথা ধৈর্য সহকারে শুনতেন এবং তাদের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতেন।  আজ রাজনীতিতে অসহিষ্ণুতা বাড়ছে।  কেউ কারো কথা শুনতে প্রস্তুত নয়।  আগ্রাসন যেন রাজনীতির অঙ্গ হয়ে গেছে।  রাজনৈতিক কর্মীরা ছোটখাটো বিষয় নিয়ে খুন বা মানুষ মারার মত অবস্থার দিকে ঝুঁকছে। আমাদের দেশে যেন রাজনৈতিক সহিংসতা কিছুতেই শেষ হচ্ছে না।আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার চেয়ে রাজনৈতিক সংঘর্ষে বেশি মানুষ নিহত হচ্ছেন।  ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) অনুসারে, ২০১৪ সালে, রাজনৈতিক সহিংসতায় ২৪০০ জন প্রাণ হারিয়েছিল এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় ২০০০ জন মারা গিয়েছিল।  আমরা পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র হিসেবে আমাদের দেশের গণতন্ত্রের জন্য গর্বিত হতে পারি, কিন্তু এটা সত্য যে আমাদের সিস্টেমে অনেক মৌলিক সমস্যা রয়েছে যা আমাদের গণতন্ত্রের শিকড়কে গ্রাস করছে, যার জন্য সময়মতো সমাধান খুঁজে বের করা প্রয়োজন। .....বিস্তারিত পড়ুন

NASA Carbon Emission: পৃথিবী কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করার চেয়ে বেশি নির্গত করছে

উত্তরাপথঃ কার্বন নির্গমন (NASA Carbon Emission) সম্পর্কে নাসার সর্বশেষ আবিষ্কার পৃথিবীর জন্য এক সতর্কতা সংকেত। মহাকাশ সংস্থার মতে, পৃথিবী কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করার চেয়ে বেশি নির্গত করছে, যার ফলে গ্রিনহাউস গ্যাসের বায়ুমণ্ডলীয় ঘনত্ব উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। NASA এর এই আবিষ্কারটি জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য কারণ হিসাবে দেখা যেতে পারে, সেইসাথে কার্বন নিঃসরণ কমানোর জন্য জরুরি পদক্ষেপের প্রয়োজনীয়তার উপর আলোকপাত করেছে।নাসার সর্বশেষ গবেষণায় যে তথ্য উঠে এসেছে তাতে পৃথিবীর মহাসাগর এবং ভূমি-ভিত্তিক বাস্তুতন্ত্র আগের চেয়ে কম কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করছে। গবেষণায় দেখা গেছে যে গত এক দশকে ভূমি এবং মহাসাগর দ্বারা শোষিত কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ ৫% হ্রাস পেয়েছে, যার ফলে গ্যাসের বায়ুমণ্ডলীয় ঘনত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top