Flower Leather: “ফ্লেদার”ভারতের লেদার ইন্ডাস্ট্রির নতুন বিকল্পের নাম

ফুল থেকে তৈরি, ফ্লেদার ছবি –ইনস্টাগ্রাম

উত্তরাপথঃ “ফ্লেদার” ভারতে  সম্প্রতি গড়ে উঠা এক অনন্য  পরিবেশ বান্ধব শিল্প । ফেলে দেওয়া ফুল থেকে তৈরি, ফ্লেদার শুধুমাত্র দূষণ সমস্যা থেকে আমাদের স্বস্তি দেবে না,সেই সাথে ফুলের বর্জ্যের সমস্যাও সমাধান করবে।সম্প্রতি ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি (আইআইটি) কানপুর- দ্বারা সমর্থিত বায়োমেটেরিয়াল স্টার্টআপ এই ‘ফ্লেদার’ তৈরি করেছে।’ফ্লেদার যা সম্পূর্ণভাবে মন্দিরের ফেলে দেওয়া ফুল থেকে তৈরি।এক কথায় এটি ফুলের চামড়া শিল্প।

ফুলের চামড়া শিল্পের সূচনা হয়েছিল ভারত জুড়ে মন্দিরগুলিতে দেওয়া প্রচুর পরিমাণে ফুলের পুনঃ ব্যবহারের ধারণার সাথে। এই ফুলগুলি, প্রথমে ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানের জন্য ব্যবহার করা হত ,তারপর এই ফুলগুলিকে যত্রতত্র ফেলে দেওয়া হত, যা নদী দূষণ সহ পরিবেশগত উদ্বেগের সৃষ্টি করত। এই নতুন স্টার্টআপের, দূরদর্শী উদ্যোক্তারা এই বর্জ্য ফুলকে একটি মূল্যবান সম্পদে রূপান্তরিত করেছেন।

“ফ্লেদার” উৎপাদন প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে মন্দির থেকে ফেলে দেওয়া ফুল সংগ্রহ করা, সেগুলিকে সাজানো এবং সেই ফুল থেকে অ-বায়োডিগ্রেডেবল উপাদানগুলি অপসারণ করা। অবশিষ্ট জৈব পদার্থ থেকে তারপর প্রাকৃতিক তন্তু নিষ্কাশন প্রক্রিয়া করা হয়। এই ফাইবারগুলিকে অন্যান্য প্রাকৃতিক উপাদানের সাথে একত্রিত করা হয়, যেমন উদ্ভিদ-ভিত্তিক রজন এবং প্রাকৃতিক তেল,যা চামড়ার মতো একটি নমনীয় এবং টেকসই উপাদান তৈরি করতে পারে।

ফুলের চামড়া শিল্প ল্যান্ডফিল থেকে মন্দিরের ফুলগুলিকে সরিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে, তাদের নিষ্পত্তির সাথে সম্পর্কিত পরিবেশগত প্রভাব কমাতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি একদিকে যেমন বর্জ্যের পুনব্যবহারের সূচনা করে তেমনি এটি উল্লেখযোগ্য পরিমাণে  বর্জ্য হ্রাস করে।

 ঐতিহ্যগত চামড়ার বিপরীতে, ফুলের চামড়া বায়োডিগ্রেডেবল এবং সিন্থেটিক উপাদানের কারণে সৃষ্ট দূষণে অবদান রাখে না। এটি প্রাকৃতিকভাবে নষ্ট হয়ে যায়, এটি পরিবেশগত পদচিহ্নকে হ্রাস করে ল্যান্ডফিলগুলির উপর বোঝা হ্রাস করে।

 ফুলের চামড়ার উৎপাদন প্রক্রিয়া ক্ষতিকারক রাসায়নিক এবং বিষাক্ত পদার্থের ব্যবহার এড়ায় যা সাধারণত প্রাণীর চামড়ার ট্যানিং প্রক্রিয়ার সাথে যুক্ত থাকে। ফুলের চামড়াতে বিষাক্ত পদার্থের ব্যবহার না হওয়ার কারণে এটি একটি নিরাপদ এবং পরিবেশ বান্ধব বিকল্প।

ফুলের চামড়া শিল্পে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করার সম্ভাবনা রয়েছে, বিশেষ করে গ্রামীণ এলাকায় যেখানে মন্দিরের ফুল সংগ্রহ ও প্রক্রিয়াকরণ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এটি স্থানীয় লোকেদের জন্য অর্থ উপার্জনের এক মাধ্যম হতে পারে,যা তাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদান রাখবে।

 দীর্ঘস্থায়ী এবং পরিবেশ বান্ধব পণ্যের জন্য ক্রমবর্ধমান বিশ্বব্যাপী চাহিদার সাথে, ফুলের চামড়ার একটি উল্লেখযোগ্য বাজার পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। উপাদানটির অনন্য টেক্সচার, নান্দনিকতা এবং পরিবেশগত সুবিধা এটিকে ফ্যাশন এবং আনুষাঙ্গিক শিল্পের জন্য একটি আকর্ষণীয় পছন্দ করে তোলে যা ঐতিহ্যগত চামড়ার দীর্ঘস্থায়ী বিকল্প হতে পারে।

ভারতের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য এবং উৎপাদন প্রক্রিয়ায় মন্দিরের ফুলের ব্যবহার ফুলের চামড়াকে একটি আলাদা পরিচয় দেবে। এই স্বতন্ত্রতা ভারতীয় ফুলের চামড়াজাত পণ্যকে আন্তর্জাতিক বাজারে এক বিশেষ চাহিদার পণ্য হিসেবে স্থান দিতে পারে। যা আন্তর্জাতিক বাজারে রপ্তানি বাড়াতে এবং অর্থনৈতিক বৃদ্ধি তৈরি করতে পারে।

যদিও ভারতে ফুলের চামড়া শিল্পে প্রচুর সম্ভাবনা রয়েছে,কিন্তু কিছু ক্ষেত্রে এর সামনে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ রয়েছে,যেগুলিকে মোকাবেলা করা প্রয়োজন।

বর্তমানে, ফুলের চামড়া শিল্প তুলনামূলকভাবে ছোট পরিসরে কাজ করে। এর পূর্ণ সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে, উৎপাদন ক্ষমতা প্রসারিত করার জন্য বিনিয়োগ এবং অবকাঠামোগত উন্নয়নের প্রয়োজন রয়েছে।

 ফুলের চামড়ার সুবিধা সম্পর্কে ভোক্তাদের শিক্ষিত করা এবং এই দীর্ঘস্থায়ী বিকল্পটির জন্য বাজারের চাহিদা তৈরি করা শিল্পের বৃদ্ধির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিপণন ও সচেতনতামূলক প্রচারণা ফুলের চামড়াজাত পণ্য জনপ্রিয় করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

 ফুলের চামড়ার গুণমান, স্থায়িত্ব এবং বহুমুখিতা উন্নত করার জন্য ক্রমাগত গবেষণা এবং উন্নয়ন প্রচেষ্টা প্রয়োজন। প্রক্রিয়াকরণ কৌশলের  অগ্রগতি এর বাজারের আবেদনকে আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে।

ভারতে ফুলের চামড়া শিল্প বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবং চামড়া উৎপাদনের জন্য একটি উদ্ভাবনী এবং দীর্ঘস্থায়ী পদ্ধতির প্রতিনিধিত্ব করে। ফেলে দেওয়া মন্দিরের ফুলগুলিকে  চামড়ার মতো উপকরণে রূপান্তর করে, এই শিল্প অনন্য পরিবেশগত সুবিধা এবং অর্থনৈতিক সম্ভাবনা প্রদান করে।  

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


রাজা মহম্মদ ও সি সেল মিউজিয়াম

প্রিয়াঙ্কা দত্তঃ রাজা মহম্মদ, এমন একজন মানুষের নাম, যার ব্যাক্তিগত ইচ্ছার কাছে হেরে যায় সব বাধা। ইচ্ছার চেয়ে বলা ভালো নেশা। সামুদ্রিক প্রাণীদের খোল সংগ্রহের নেশা। যা তাঁকে ছোটবেলা থেকেই ছুটিয়ে নিয়ে বেরিয়েছে প্রায় তিরিশ বছর ধরে। আর সেই দীর্ঘ পথের শেষে , তিনি সম্পূর্ন ব্যক্তিগত উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন এশিয়ার বৃহত্তম ও পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম ব্যাক্তিগত সংগ্রহশালা। তাঁর প্রতিষ্ঠিত সি সেল মিউজিয়ামটি বর্তমানে চেন্নাইয়ের মহাবলিপূরম মন্দিরের সন্নিকটে অবস্থিত একটি জনপ্রিয় ট্যুরিস্ট স্পট। রাজা মহম্মদ ছোট্ট বেলা থেকেই  সমুদ্র তট থেকে সংগ্রহ করতেন বিভিন্ন সামুদ্রিক প্রাণীর দেহাংশ। কুড্ডালোর থেকে রামেশ্বরম এর সমুদ্রতট, সেখান থেকে জাপান, ইন্দোনেশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, ফিলিপিন্স প্রভৃতি দেশে গিয়েছেন ব্যাক্তিগত উদ্যোগে। সংগ্রহ করেছেন অসাধারণ সব সামুদ্রিক .....বিস্তারিত পড়ুন

জলবায়ু পরিবর্তন আমাজনের রেইনফরেস্টের কিছু অংশকে সাভানাতে রূপান্তরিত করতে পারে

উত্তরাপথঃ আমাজন রেইনফরেস্ট, যাকে "পৃথিবীর ফুসফুস" হিসাবে উল্লেখ করা হয়। এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বাস্তুত্তন্ত্র যা বিশ্বব্যাপী জলবায়ু নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।সম্প্রতি প্রসিডিংস অফ দ্য ন্যাশনাল একাডেমি অফ সায়েন্সেসের বৈজ্ঞানিক জার্নালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে একটি নতুন তত্তের বর্ণনা করা হয়েছে ,সেখানে বলা হয়েছে কীভাবে বর্ষার মৌসুমে বিকল্প বন্যা এবং শুষ্ক মৌসুমে খরা, যাকে ডবল-স্ট্রেস বলা হয়, বন প্রতিষ্ঠাকে সীমিত করছে।উদ্বেগজনক গবেষণাতে আরও বলা হচ্ছে যে, জলবায়ু পরিবর্তন-প্ররোচিত খরা আমাজন রেইনফরেস্টের কিছু অংশকে সাভানাতে রূপান্তরিত করতে পারে, যা জীববৈচিত্র্য এবং সামগ্রিকভাবে গ্রহের জন্য সম্ভাব্য ধ্বংসাত্মক পরিণতি আনতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

এক নজরে টি-টোয়েন্টিতে বিশ্বের এক নম্বর ব্যাটসম্যান সূর্যকুমার যাদব

উত্তরাপথঃ  টি-টোয়েন্টিতে বিশ্বের এক নম্বর ব্যাটসম্যান সূর্যকুমার যাদব আজ তার ৩৩তম জন্মদিন উদযাপন করছেন।  তিনি বর্তমানে টিম ইন্ডিয়ার সাথে শ্রীলঙ্কায় রয়েছেন এবং এশিয়া কাপ খেলছেন।  সূর্য, যাকে ৩৬০ ডিগ্রি ব্যাটসম্যান বলা হয়, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দেরিতে প্রবেশ করেছিলেন, কিন্তু অল্প সময়ের মধ্যেই তিনি এমন সব কিছু অর্জন করেছিলেন যা অনেক ক্রিকেটার দীর্ঘ সময় ধরে খেলেও স্বপ্নেও দেখতে পারেন না।  চলুন জেনে নেওয়া যাক তার সবচেয়ে বিশেষ ৫টি রেকর্ড সম্পর্কে- T-20 আন্তর্জাতিকে দ্রুততম ১২টি ম্যান অফ দ্য ম্যাচের পুরস্কার সূর্যকুমার যাদবকে টি-টোয়েন্টির সবচেয়ে ধ্বংসাত্মক ব্যাটসম্যান হিসেবে বিবেচনা করা হয়।  একই বলে অনেক শট খেলতে পারেন তিনি। তাঁর ৫৩ টি ম্যাচে .....বিস্তারিত পড়ুন

ছৌশিল্পী পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো ও বিশ্ব মঞ্চে ভারতের লোকনৃত্য

গার্গী আগরওয়ালা মাহাতোঃ আমাদের চারিদিকে বিশ্ব দ্রুত বিকশিত হচ্ছে,পরিবর্তিত হচ্ছে শিল্প সাধনার প্রকৃতি। এই পরিবর্তিত শিল্প সাধনার যুগে আমাদের সেই সমস্ত ব্যক্তিদের স্বীকৃতি দেওয়া এবং সম্মান করা অপরিহার্য যারা সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও প্রচারে তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন। এমনই একজন উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব হলেন ছৌশিল্পী পদ্মশ্রী নেপাল মাহতো। নেপাল মাহাতো, যার ছৌনৃত্যের জগতে  দেশে ও বিদেশে অতুলনীয় অবদান তাকে ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান ‘পদ্মশ্রী´এনে দিয়েছে। নেপাল মাহতোর জন্ম ১৭ জুন ১৯৫৪ সালে পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়া জেলার বরাবাজার থানার আদাবনা নামে একটি ছোট গ্রামে। তার পিতা স্বর্গীয় নগেন্দ্রনাথ মাহাতো ও মাতা তুষ্ট মাহাতো। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top