বাংলার প্রাচীন রাজধানী ও ঐতিহাসিক শহর গৌড়

উত্তরাপথ

বারদুয়ারী মসজিদ

প্রাচীন বাংলার রাজধানী এবং হিন্দু মুসলিম সংস্কৃতির এক অপূর্ব মেলবন্ধন এই গৌড়।  এটি পশ্চিমবঙ্গের মালদা জেলায় অবস্থিত। মালদা শহর থেকে মাত্র ১৬ কিলোমিটার দূরে  প্রাচীন বাংলার রাজধানীর ধ্বংসস্তূপের শহর গৌড়।  ১২ থেকে ১৬ শতাব্দীর মধ্যে বাংলার রাজধানী  ছিল গৌড়।।চার শতাব্দীর বেশি সময় ধরে একডজনের বেশি রাজবংশ এখানে শাসন করেছেন। গৌড়ে বাংলার ইসলামিক আমলের বহু দর্শনীয় ধ্বংসাবশেষ আজও বিরাজমান। ইতিহাস এবং তার সাথে স্থাপত্যকলা মিলে মিশে রয়েছে এই প্রাচীন শহরের  ধ্বংসস্তূপে। পঞ্চম শতাব্দীতে গৌড় মৌর্য সাম্রাজ্যের অধীনে ছিল। সপ্তম শতাব্দীতে  গৌড়  ছিল বাংলার  শক্তিশালী রাজা শশাঙ্কের অধীনত্ব।  । অষ্টম শতাব্দী থেকে  গৌড়  পাল রাজবংশের শাসনের অধীনে ছিল। পাল রাজাদের শাসনের পরে সেন রাজবংশের শাসন শুরু হয়।  এরপর সেন রাজাদের হারিয়ে  মুঘল এবং আফগানরা দ্বাদশ শতাব্দীতে  গৌড় দখল করে।এরপর যথাক্রমে খিলজি বংশ, মামলুক সলতানত, বলবান রাজবংশ এবং তুঘলক সলতানতের রাজধানী শহর হিসাবে গৌড়  পরিচিত হয়।  আলাউদ্দিন আলী শাহের রাজত্বকালে তিনি তার  রাজধানী পান্ডুয়ায় স্থানান্তরিত করেন । তবে পান্ডুয়াতে বেশীদিন রাজধানী থাকেনি। তারপর বেশ কয়েক বছর ধরে একের পর এর রাজা গৌড়ে রাজত্ব করেছেন। শেষ পর্যন্ত ১৫৭৫ সালের অক্টোবর মাসে মুনিম খানকে প্লেগ মহামারীর কারনে  মৃত্যুর কবলে পড়তে হয়।  এই  মহামারীর পর শহরটিকে পরিত্যাক্ত করে দেওয়া হয়েছিল। একসময়ের সমৃদ্ধ শহরে তখন প্রকৃতি ছাড়া আর কারও বসবাস ছিলনা। এরপর অনেক বছর পেরিয়ে যায়, প্রথমে স্থানীয়রা এবং পরে ব্রিটিশ আধিকারিক দ্বারা গৌড়ের ধ্বংসাবশেষ বহুবার ভাঙচুর করা হয়। ধ্বংসাবশেষ থেকে মূল্যবান জিনিষপত্র লুঠ করে তারা চলে যায়। গৌড়ের হিন্দু সভ্যতার প্রায় কিছুই এখন অবশিষ্ট নেই। পর্যটকরা আজ যে সমস্ত ধ্বংসাবশেষ পরিদর্শন করে সেগুলির বেশিরভাগই পরের সাম্রাজ্যকালের মানে ইসলামিক আমলের। এখনও সেসব ধ্বংসাবশেষ দেখলে তাদের স্থাপত্যকলার নিদর্শন কিছুটা হলেও পাওয়া যায়।

দাখিল দরওয়াজা

বর্তমানে যেসব ভগ্নাবশেষ গুলি রয়েছে তারমধ্যে দাখিল দরওয়াজা অন্যতম।    আক্ষরিক অর্থে  যা ‘প্রবেশদ্বার’ নামে পরিচিত।  মালদহের দাখিল দরওয়াজা হল বাংলার সুলতানি আমলে নির্মিত প্রাচীনতম এবং মহিমান্বিত স্থাপত্য কাঠামোর মধ্যে একটি। এই  দাখিল দরওয়াজা   যা আজও দর্শকদের মন্ত্রমুগ্ধ করে ।  এটি আবার ‘সালামি দরওয়াজা’ নামেও বিখ্যাত, কারণ এখান থেকে কামান ছোড়া হত । দুর্গের এই প্রাচীন প্রবেশদ্বারটি ২১ মিটার দীর্ঘ এবং ৩৪.৫ মিটার চওড়া।

বোরোসোনা মসজিদ

ফিরোজ মিনারটি দাখিল দরওয়াজা থেকে এক কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।  সুলতান সাইফুদ্দিন ফিরোজ শাহের শাসনকালে  নির্মিত, এই পাঁচ তলা টাওয়ারটি ।

চামচিকে মসজিদ

বল্লাল বাটি হল বাইশ গাজী প্রাচীরের ঘেরের মধ্যে একটি অপেক্ষাকৃত নতুন খননকৃত স্থান যেখানে বল্লাল সেনের একটি রাজকীয় প্রাসাদ বিদ্যমান ছিল বলে মনে করা হচ্ছে ।

চামচিকা মসজিদটি ১৪৭৫ সালে সুলতান ইউসুফ শাহের পৃষ্ঠপোষকতায় নির্মিত হয়েছিল। মসজিদটির নামকরণ করা হয়েছিল চামচিকা কারণ এটি ছিল বাদুড়ের সুরক্ষিত আশ্রয়স্থল, স্থানীয়ভাবে চিকাস নামে পরিচিত।  মসজিদটিতে একটি একক গম্বুজ বিশিষ্ট ভবন রয়েছে, যা প্রায় ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে।

বারদুয়ারী মসজিদ (বামদিকে) ও ফিরোজ মিনার (ডানদিকে)

বারোদুয়ারি মসজিদ,৫০.৪ মি বাই  ২২.৮ মিটার এবং ১২ মিটার।  উচ্চতায়,   ইট এবং পাথরের একটি বিশাল আয়তাকার কাঠামো, এই মসজিদটি গৌরের বৃহত্তম স্মৃতিস্তম্ভ।  যদিও নামের অর্থ বারোটি দরজা, এই স্মৃতিস্তম্ভটি আসলে এগারোটি দরজা রয়েছে।  বাংলার সুলতান আলাউদ্দিন হোসেন শাহ দ্বারা শুরু করেছিলেন এবং ১৫২৬ খ্রিস্টাব্দে তার পুত্র নাসিরুদ্দিন নাসরত শাহ এটি সম্পন্ন করেছিলেন।  ইন্দো-আরবি স্থাপত্য শৈলী এবং অলঙ্কৃত পাথরের খোদাই বারোদুয়ারীকে পর্যটকদের জন্য একটি বিশেষ আকর্ষণ করে তুলেছে। 

বল্লাল বাটি

এছাড়াও রয়েছে রামকেলিধাম।  এর ইতিহাস ৫০০ বছরের বেশি পুরোনো । ইতিহাসে রয়েছে  চৈতন্য মহাপ্রভু নীলচল  যাওয়ার উদ্দেশ্যে যাত্রা করার সময়ে ১৫১৫ খ্রিস্টাব্দে ১৫ জুন জৈষ্ঠ সংক্রান্তির দিন তৎকালীন বাংলার রাজধানী এই গৌড়ের রামকেলিতে পদার্পন করেছিলেন এবং একটি তমাল গাছের নিচে টানা ৩ দিন ধ্যান করেছিলেন, এখানেই শ্রী চৈতন্যদেবের পদ যুগলের চিহ্ন আছে। চৈতন্যদেবের আগমনের খবর  যায় বাংলার নবাব  আলাউদ্দিন হুসেন শাহ এর কাছে। গৌড় ছিলো তখন গোটা বাংলা-বিহার-ওড়িশারার রাজধানী। চৈতন্যদেবের আগমনের খবরেই তার রাজসভার দুজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য দবিরখাস ও সাকির মল্লিক কে চৈতন্যদেবের কাছে পাঠান। এই দবির খাস ও সাকির মল্লিকই পরবর্তীকালে চৈতন্যদেবের কাছ থেকে বৈষ্ণবধর্মে দীক্ষা লাভ করে রূপ গোস্বামী এবং সনাতন গোস্বামী নামে পরিচিতি লাভ করেন । চৈতন্যদেবের কথামত  রূপ এবং সনাতন গোস্বামী রামকেলিকে  বৃন্দাবন মতো গড়ে তোলার চেষ্টা করেন। বৃন্দাবনের মতো এখানেও শ্যাম কুণ্ড, রাধা কুণ্ডের মত অষ্টসখী নির্মাণ করা হয় পুরো রামকেলী জুড়ে। চৈতন্যদেবের আগমনকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য আজও প্রতিবছর  ৭ দিন ব্যাপী মেলার আয়োজন করা  হয়। এই মেলা বৈষ্ণব সম্প্রদায়ের মানুষের কাছে খুবই গুরুত্ব পূর্ণ।  মেলায় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রচুর লোকজনের সমাগম হয়।

এইভাবে আজও গৌড়ে হিন্দু ও মুসলিম সংস্কৃতি এক সাথে বিরাজ করছে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Camel Cloning: দুবাই ‘উট' ক্লোনিং‘এর জন্য খবরের শিরোনামে

উত্তরাপথ: দুবাই, তার ঐশ্বর্য এবং জাঁকজমকের জন্য পরিচিত হলেও এবার দুবাই তার ‘উট ক্লোনিং ‘এর জন্য খবরের শিরোনামে।এবার আশা যাক ক্লোনিং কি তা নিয়ে আলোচনায়। ক্লোনিং হল প্রাকৃতিক বা কৃত্রিম উপায়ে অভিন্ন জিনোম সহ পৃথক জীব উৎপাদনের প্রক্রিয়া অর্থাৎ জীবের অভিন্ন অনুলিপি তৈরি করার প্রক্রিয়া।২০০৯সালে বিশ্বের প্রথম উটের ক্লোনিংয়ের নেতৃত্ব দেওয়া, নিসার ওয়ানি এখন দুবাইয়ের একটি ল্যাবে বছরে কয়েক ডজন উটের প্রতিলিপি তৈরি করছেন যা উপসাগরীয় অঞ্চলের এখন একটি বড় ব্যবসা যেখানে উট লালন-পালন করা হয় সৌন্দর্য ও রেসিং .....বিস্তারিত পড়ুন

উত্তর ভারত জুড়ে প্রবল বৃষ্টি ও ভূমিধস

উত্তরাপথ: উত্তর ভারত জুড়ে প্রবল বৃষ্টিতে অন্তত ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে, এই অঞ্চলে ভূমিধস এবং আকস্মিক বন্যা হয়েছে, যা কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত বলে সরকারি রিপোর্টে বলা হয়েছে। সপ্তাহান্তে জাতীয় রাজধানীতে ভারী বৃষ্টিপাতের পরে দিল্লির স্কুলগুলি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, এবং হিমাচল প্রদেশ এবং উত্তরাখণ্ডে রাজ্যের লোকেদের প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বের না হতে বলেছে কর্তৃপক্ষ। হিমাচল প্রদেশ, উত্তরাখণ্ড, উত্তর প্রদেশ, জম্মু ও কাশ্মীর এবং পাঞ্জাব রাজ্যের উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্যগুলিতে বন্যা ও ভূমিধসে অন্তত .....বিস্তারিত পড়ুন

West Bengal Panchayet Election 2023: পশ্চিমবঙ্গ পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপির পারফরম্যান্স বিশ্লেষণ

উত্তরাপথ: এ যেন অনেকটা প্রত্যাশিত ফলাফল । সদ্য সমাপ্ত পশ্চিমবঙ্গ Panchayet Election 2023 ফলাফল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) জন্য আগামী ২০২৪ লোকসভা নির্বাচনের পরিপ্রেক্ষিতে যথেষ্ট হতাশাবাঞ্জক । এই নির্বাচনের আগে বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব তাদের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে যে আশার বাণী শুনিয়েছিল বাস্তবে তা অশ্বডিম্ব প্রসব করল । গত বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফলের পরিপ্রেক্ষিতে জঙ্গলমহল,উত্তরবঙ্গ সহ নন্দিগ্রামে যে বিশাল গেরুয়া ঝড়ের আশা করেছিল শুধুমাত্র নন্দিগ্রামে ছাড়া পুরটাই হাতছাড়া হল বিজেপির । .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top