সম্পাদকীয়

বিশ্ব উষ্ণায়ন এবং জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় আমরা কি মন্থর ?

বিশ্ব উষ্ণায়ন এবং জলবায়ু পরিবর্তন বর্তমান সময়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সমস্যাগুলির মধ্যে একটি। মানুষের ক্রিয়াকলাপের কারণে পৃথিবীর জলবায়ু দ্রুত পরিবর্তিত হচ্ছে, যার ফলে আমাদের পরিবেশ, বাস্তুতন্ত্র এবং ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য মারাত্মক পরিণতির সৃষ্টি হচ্ছে। গ্লোবাল ওয়ার্মিং এর প্রভাব প্রশমিত করতে এবং সবার জন্য একটি সুরক্ষিত ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে বেশ কিছু জরুরি পদক্ষেপের প্রয়োজন।

বিশ্ব উষ্ণায়ন বা গ্লোবাল ওয়ার্মিং বলতে পৃথিবী পৃষ্ঠের তাপমাত্রার দীর্ঘমেয়াদী বৃদ্ধিকে বোঝায়।প্রাথমিকভাবে বায়ুমণ্ডলে গ্রিনহাউস গ্যাস জমা হওয়ার কারণে ২০২২ সালে পৃথিবীর পৃষ্ঠের তাপমাত্রা প্রায় ০.৯১ ডিগ্রি সেলসিয়াস  উষ্ণ ছিল গত ২০ শতকের তুলনায় । জলবায়ু পরিবর্তন বৈশ্বিক উষ্ণায়নের পরিণতি, যার মধ্যে রয়েছে আবহাওয়ার ধরণ পরিবর্তন, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, বরফ গলে যাওয়া এবং চরম আবহাওয়ার মত ঘটনা।

মানুষের ক্রিয়াকলাপ, বিশেষ করে জীবাশ্ম জ্বালানী পোড়ানো, বন উজাড় করা এবং শিল্পাঞ্চলের দূষণ বায়ুমণ্ডলের গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমন বাড়াতে প্রধান সাহায্যকারী । কার্বন ডাই অক্সাইড (CO2), মিথেন (CH4), এবং নাইট্রাস অক্সাইড (N2O) হল সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য গ্রীনহাউস গ্যাস,যা  তাপ আটকে রাখে এবং পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি করে।

গ্লোবাল ওয়ার্মিং এবং জলবায়ু পরিবর্তনের পরিণতি সুদূরপ্রসারী এবং আমাদের গ্রহের জন্য অত্যন্ত আশঙ্কার কারণ। ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রা জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি, বাস্তুতন্ত্রের ব্যাঘাত, এবং হারিকেন, খরা এবং তাপপ্রবাহের মতো চরম আবহাওয়ার ঘটনাগুলির কম্পাঙ্ক (Frequency) এবং তীব্রতা বৃদ্ধি করে। সমুদ্রপৃষ্ঠের ক্রমবর্ধমান বৃদ্ধি উপকূলীয় সম্প্রদায় এবং নিচু এলাকার,লক্ষ লক্ষ মানুষকে বাস্তুচ্যুত করছে এবং এক বিশাল অংশের লোককে অর্থনৈতিক ক্ষতির সম্মুখীন করছে।

 সরকার এবং শিল্প সংস্থাগুলিকে অবশ্যই জীবাশ্ম জ্বালানী থেকে সৌর, বায়ু এবং জলবিদ্যুতের মতো নবায়নযোগ্য শক্তির  উৎসগুলিতে রূপান্তরকে অগ্রাধিকার দিতে হবে৷ এই পরিবর্তন গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাস করবে এবং দীর্ঘস্থায়ী  উন্নয়নকে উৎসাহিত করবে।

 জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমিত করার জন্য দীর্ঘমেয়াদি কৃষি পদ্ধতি গ্রহণ এবং বন উজাড় হ্রাস প্রচেষ্টাকে তুলে ধরা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। দীর্ঘমেয়াদি ভূমি সংস্কার পদ্ধতি গ্রহণ  কার্বন ডাই অক্সাইডকে আলাদা করতে এবং জীববৈচিত্র্য রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে।

 পরিবেশগত ভারসাম্য বজায় রাখা এবং জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমনের জন্য বন, জলাভূমি এবং সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্র সহ প্রাকৃতিক আবাসস্থল রক্ষা ও সংরক্ষণ করা অপরিহার্য। এই অঞ্চলগুলি কার্বনের এক সঞ্চয় ভাণ্ডার হিসাবে কাজ করে, প্রচুর পরিমাণে কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করে এবং সঞ্চয় করে।

 বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করার জন্য আন্তর্জাতিক সহযোগিতা প্রয়োজন। সরকার, সংস্থা এবং ব্যক্তিদের অবশ্যই যৌথভাবে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা করে এমন নীতি এবং উদ্যোগগুলি বিকাশ ও বাস্তবায়ন করতে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। প্যারিস চুক্তি বৈশ্বিক জলবায়ু কাঠামো বজায় বজায় রাখার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ কাঠামো হিসাবে কাজ করে।

জলবায়ু পরিবর্তনের তাৎক্ষণিক এবং এর সুদূর প্রসারী প্রভাব সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা অত্যাবশ্যক। শিক্ষা এবং সচেতনতা মূলক প্রচার ব্যক্তিদের তাদের দৈনন্দিন জীবনে পরিবেশ সচেতনতা মূলক অনুশীলন গ্রহণ করতে সাহায্য করতে পারে।তবে এখনও পর্যন্ত বিশ্ব উষ্ণায়ন এবং জলবায়ু পরিবর্তনকে মোকাবেলায় আমরা যেভাবে মন্থর গতিতে এগোচ্ছি তাতে দ্রুত কোনও কার্যকর পদক্ষেপ সম্মিলিত ভাবে গ্রহণ না করলে পরিস্থিতি আমাদের হাতের বাইরে চলে যাবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


West Bengal Panchayet Election 2023: পশ্চিমবঙ্গ পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপির পারফরম্যান্স বিশ্লেষণ

উত্তরাপথ: এ যেন অনেকটা প্রত্যাশিত ফলাফল । সদ্য সমাপ্ত পশ্চিমবঙ্গ Panchayet Election 2023 ফলাফল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) জন্য আগামী ২০২৪ লোকসভা নির্বাচনের পরিপ্রেক্ষিতে যথেষ্ট হতাশাবাঞ্জক । এই নির্বাচনের আগে বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব তাদের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে যে আশার বাণী শুনিয়েছিল বাস্তবে তা অশ্বডিম্ব প্রসব করল । গত বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফলের পরিপ্রেক্ষিতে জঙ্গলমহল,উত্তরবঙ্গ সহ নন্দিগ্রামে যে বিশাল গেরুয়া ঝড়ের আশা করেছিল শুধুমাত্র নন্দিগ্রামে ছাড়া পুরটাই হাতছাড়া হল বিজেপির । .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top