রাজস্থানের মনসুন প্যালেস: প্রকৃতির মাঝে এক রাজকীয় আয়োজন

মনসুন প্যালেস , রাজস্থান । ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

উত্তরাপথ; রাজস্থানের উদয়পুর শহরের বিখ্যাত পর্যটন কেন্দ্রগুলি সম্পর্কে কথা বললে,মনসুন প্যালেস সেরা পর্যটন স্থানগুলির মধ্যে একটি। মনসুন প্যালেসের পূর্ব নাম ছিল সজ্জনগড় প্রাসাদ । এটি মূলত শহরের একটি পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থিত। সজ্জনগড় প্রাসাদটি ১৮৮৪ খ্রিস্টাব্দে মহারানা সজ্জন সিং তৈরি করেছিলেন। তিনি ছিলেন মেওয়ার রাজবংশের ৭২ তম রাজা এবং তার নামানুসারে প্রাসাদটির নামকরণ করা হয়েছিল। যেহেতু প্রাসাদটি ‘বর্ষা’ মেঘ দেখার জন্য তৈরি করা হয়েছিল, তাই ইদানীং এর নাম মনসুন প্যালেস দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও, স্থানীয় মতে মনে করা হয় যে মহারানা সজ্জন সিং এত উচ্চতায় এই প্রাসাদটি তৈরি করেছিলেন যাতে পৈতৃক বাড়ি চিতোরগড়ের দৃশ্য তিনি দেখতে পান।

মহারানা ফতেহ সিং ও মহারানা সজ্জন সিং । ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

সাদা মার্বেল দিয়ে নির্মিত প্রাসাদটি ৯৪৪ মিটার (৩১০০ ফুট) উচ্চতায় আরাবল্লী পর্বতমালার বাঁশদারা চূড়ায় অবস্থিত। মহারানা সজ্জন সিংয়ের উদ্দেশ্য ছিল একটি নয় তলা কমপ্লেক্স তৈরি করা, যা মূলত তিনি একটি জ্যোতির্বিদ্যা কেন্দ্র হিসাবে ব্যবহার করতে চেয়েছিলেন সেইসাথে তিনি এটিকে বর্ষার মেঘের গতিবিধি দেখার জন্য ব্যাবহার করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তার অকাল মৃত্যুর কারণে, তার উত্তরাধিকারী মহারানা ফতেহ সিং দ্বারা প্রাসাদটির নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছিল, যিনি এটিকে বর্ষার মেঘ দেখার জন্যই ব্যবহার করেছিলেন।সেইসময় রাজপরিবারও এই ভবনটিকে শিকারের লজ হিসেবে ব্যবহার করত।

ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

বর্তমানে মনসুন প্যালেসটি একটি আইকনিক ল্যান্ডমার্ক হয়ে উঠেছে, যা সারা বিশ্বের পর্যটকদের আকর্ষণ করে। বর্ষাকালে এই প্রসাদটির  অত্যাশ্চর্য প্রাকৃতিক দৃশ্য দেখার জন্য দেশ-বিদেশ থেকে বহু পর্যটক এখানে আসেন। মনসুন প্রাসাদটি মেওয়ার রাজবংশের স্থাপত্যের এক অপূর্ব নিদর্শন। সাদা মার্বেল দিয়ে নির্মিত এবং অপূর্ব কারুকার্য দ্বারা সজ্জিত, প্রাসাদটি রাজকীয় আভিজাত্যের প্রতীক । এর নকশায় রাজপুত এবং মুঘল স্থাপত্যের উপাদান রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে গম্বুজ, বারান্দা এবং ঝাড়োখা (ঘেরা ঝুলানো বারান্দা)।এই প্রাসাদের কৌশলগত অবস্থান প্রাকৃতিক বায়ুচলাচলের জন্য আদর্শ ,যার ফলে গ্রীষ্মের মাসগুলিতেও এর অভ্যন্তরীণ ঠান্ডা থাকে।

ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

মনসুন প্যালেসের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ হল এটি অফার করে বিস্ময়কর প্যানোরামিক দৃশ্য। প্রায় ৯৪৪ মিটার উচ্চতা থেকে পর্যটকরা উদয়পুর শহর, পিচোলা হ্রদ এবং আশেপাশের আরাবল্লী পাহাড়ের মনোরম দৃশ্য দেখতে পাবেন । এই প্রাসাদ থেকে সূর্যাস্তের দৃশ্যটি বিশেষভাবে মন্ত্রমুগ্ধ করে, কারণ অস্তগামী সূর্যের সোনালি আভা পুরো প্রসাদের উপর এক জাদুকরী আভা ছড়িয়ে দেয়।

মনসুন প্যালেস ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

এর স্থাপত্য জাঁকজমক এবং প্রাকৃতিক দৃশ্য ছাড়াও, মনসুন প্রাসাদটি তার জীববৈচিত্র্যের জন্যও বিখ্যাত। আশেপাশের এলাকাটি বিভিন্ন বন্যপ্রাণী প্রজাতির জন্য একটি অভয়ারণ্য, যার মধ্যে রয়েছে ময়ূর, বন্য শূকর এবং বিভিন্ন ধরনের পাখি। প্রকৃতিপ্রেমীদের জন্য এটি একটি আদর্শ স্থান ,এখানে তারা যেমন সবুজ অন্বেষণ করতে পারবে, তেমনি প্রাসাদের আশেপাশের প্রশান্তি উপভোগ করতে পারবে।এটি পাখি দেখার এবং প্রকৃতির মধ্যে হাঁটার জন্য একটি আদর্শ গন্তব্য ।

ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

মনসুন প্যালেস বলিউড এবং হলিউড উভয় ক্ষেত্রেই একটি জনপ্রিয় চিত্রগ্রহণের স্থান হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। এর চিত্তাকর্ষক সৌন্দর্য এবং মনোরম পরিবেশ তার সাথে রাজস্থানের রাজকীয় ঐতিহ্য চলচ্চিত্র নির্মাতাদের আকৃষ্ট করেছে। “জেমস বন্ড: অক্টোপসি” এবং “দ্য ফল” এর মতো চলচ্চিত্রগুলি প্রাসাদের অত্যাশ্চর্য প্রাকৃতিক দৃশ্য প্রদর্শন করেছে, এর বৈশ্বিক আবেদনকে  সারা বিশ্বে আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

মনসুন প্রাসাদে পৌঁছানোর জন্য, পর্যটকরা নিজেরা গাড়ি নিয়ে পাহাড়ে উঠতে পারেন বা গাড়ি ভাড়া নিয়েওপাহাড়ে উঠতে পারেন ।প্রাসাদটি সারা বছর দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকে, কিন্তু বর্ষা মৌসুমে, জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত,আদর্শ সময় মনসুন প্রাসাদটি ভ্রমণের জন্য।বর্ষার মেঘের  কুয়াশা প্রাসাদটিকে আবৃত করে  একটি নৈসর্গিক পরিবেশ তৈরি করে ।

ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

সবমিলিয়ে রাজস্থানের রাজকীয় ঐতিহ্যের সাথে এক নৈসর্গিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপলব্ধি করার জন্য এই স্থানের কোনও বিকল্প নেই । এই স্থানে ভ্রমণ আপনাকে সারা জীবন মনে রাখার মত একটি মনোমুগ্ধকর অভিজ্ঞতা প্রদান করবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Renewable Energy: জাপানি প্রধানমন্ত্রী সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে নবায়নযোগ্য শক্তি প্রযুক্তির প্রস্তাব করেছেন

উত্তরাপথ: সম্প্রতি জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগা, সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) সাথে নবায়নযোগ্য শক্তিতে (Renewable Energy) দেশের উন্নত প্রযুক্তি ভাগ করার প্রস্তাব করেছেন। মূলত  জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমিত করার এবং জীবাশ্ম জ্বালানীর উপর নির্ভরতা হ্রাস করার ক্ষেত্রে এই পদক্ষেপ বলে মনে করা হচ্ছে । সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত দীর্ঘদিন ধরে তাদের তেল এবং প্রাকৃতিক গ্যাসের বিশাল মজুদের জন্য পরিচিত, যা তাদের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ও উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। বর্তমানে উভয় দেশ তাদের কার্বন পদচিহ্ন (Carbon Emission) কমাতে এবং পরিবর্তিত পরিস্থিতির সাথে খাপ খাইয়ে নিতে তাদের শক্তির উৎসগুলির পরিবর্তনে আগ্রহী .....বিস্তারিত পড়ুন

ICC টুর্নামেন্ট জিতলে পুরুষ ও মহিলাদের দল একই অর্থ পাবে

উত্তরাপথ: এবার থেকে ICC টুর্নামেন্ট জিতলে পুরুষ ও মহিলা দলের প্রাইজ মানি একই। ডারবানে বসেছে আইসিসি-র (ICC) বার্ষিক বৈঠক সেখানেই স্থির হয়েছে ।  ICC-র চেয়ারম্যান গ্রেগ বার্কলে বলেছেন, ”ক্রিকেটের ইতিহাসে তাৎপর্যপূর্ণ মুহূর্ত এটি। আমি অত্যন্ত খুশি যে পুরুষ ও মহিলাদের দল আইসিসি-র ইভেন্টে এবার প্রাইজ মানি হিসেবে একই অর্থ পাবে।” তিনি আরও বলেন, ”২০১৭ সাল থেকে প্রতি বছর আমরা মহিলাদের ইভেন্টের প্রাইজ মানি বাড়িয়ে এসেছি, উদ্দেশ্য ছিল একটাই। মহিলাদের বিশ্বকাপ জয় এবং পুরুষদের বিশ্বকাপ জয়ের আর্থিক পুরস্কার এক হবে .....বিস্তারিত পড়ুন

Skin Ageing: ত্বকের বার্ধক্যের জন্য একটি প্রোটিন দায়ী বলছেন বিজ্ঞানীরা

উত্তরাপথ: ত্বকের বার্ধক্য একটি প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া যা আমরা বড় হওয়ার সাথে সাথে ঘটে থাকে,এক্ষেত্রে বিভিন্ন কারণ এই প্রক্রিয়াটিকে ত্বরান্বিত করতে পারে। তাদের মধ্যে, সাম্প্রতিক গবেষণায় ত্বকের বার্ধক্যে অবদান রাখার ক্ষেত্রে IL-17 নামক প্রোটিনের ভূমিকার উপর বিজ্ঞানীরা আলোকপাত করেছেন। IL-17, একটি প্রো-ইনফ্ল্যামেটরি সাইটোকাইন ,যা ইমিউন প্রতিক্রিয়াতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।এখন আমরা ত্বকের বার্ধক্যের ক্ষেত্রে IL-17 প্রোটিনের কি এবং ত্বকের উপর এর  প্রভাব সহ ত্বকের যত্ন এবং অ্যান্টি-এজিং চিকিৎসার সম্ভাব্য প্রভাবগুলি অন্বেষণ করব। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top