রাজস্থানের মনসুন প্যালেস: প্রকৃতির মাঝে এক রাজকীয় আয়োজন

মনসুন প্যালেস , রাজস্থান । ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

উত্তরাপথ; রাজস্থানের উদয়পুর শহরের বিখ্যাত পর্যটন কেন্দ্রগুলি সম্পর্কে কথা বললে,মনসুন প্যালেস সেরা পর্যটন স্থানগুলির মধ্যে একটি। মনসুন প্যালেসের পূর্ব নাম ছিল সজ্জনগড় প্রাসাদ । এটি মূলত শহরের একটি পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থিত। সজ্জনগড় প্রাসাদটি ১৮৮৪ খ্রিস্টাব্দে মহারানা সজ্জন সিং তৈরি করেছিলেন। তিনি ছিলেন মেওয়ার রাজবংশের ৭২ তম রাজা এবং তার নামানুসারে প্রাসাদটির নামকরণ করা হয়েছিল। যেহেতু প্রাসাদটি ‘বর্ষা’ মেঘ দেখার জন্য তৈরি করা হয়েছিল, তাই ইদানীং এর নাম মনসুন প্যালেস দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও, স্থানীয় মতে মনে করা হয় যে মহারানা সজ্জন সিং এত উচ্চতায় এই প্রাসাদটি তৈরি করেছিলেন যাতে পৈতৃক বাড়ি চিতোরগড়ের দৃশ্য তিনি দেখতে পান।

মহারানা ফতেহ সিং ও মহারানা সজ্জন সিং । ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

সাদা মার্বেল দিয়ে নির্মিত প্রাসাদটি ৯৪৪ মিটার (৩১০০ ফুট) উচ্চতায় আরাবল্লী পর্বতমালার বাঁশদারা চূড়ায় অবস্থিত। মহারানা সজ্জন সিংয়ের উদ্দেশ্য ছিল একটি নয় তলা কমপ্লেক্স তৈরি করা, যা মূলত তিনি একটি জ্যোতির্বিদ্যা কেন্দ্র হিসাবে ব্যবহার করতে চেয়েছিলেন সেইসাথে তিনি এটিকে বর্ষার মেঘের গতিবিধি দেখার জন্য ব্যাবহার করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তার অকাল মৃত্যুর কারণে, তার উত্তরাধিকারী মহারানা ফতেহ সিং দ্বারা প্রাসাদটির নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছিল, যিনি এটিকে বর্ষার মেঘ দেখার জন্যই ব্যবহার করেছিলেন।সেইসময় রাজপরিবারও এই ভবনটিকে শিকারের লজ হিসেবে ব্যবহার করত।

ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

বর্তমানে মনসুন প্যালেসটি একটি আইকনিক ল্যান্ডমার্ক হয়ে উঠেছে, যা সারা বিশ্বের পর্যটকদের আকর্ষণ করে। বর্ষাকালে এই প্রসাদটির  অত্যাশ্চর্য প্রাকৃতিক দৃশ্য দেখার জন্য দেশ-বিদেশ থেকে বহু পর্যটক এখানে আসেন। মনসুন প্রাসাদটি মেওয়ার রাজবংশের স্থাপত্যের এক অপূর্ব নিদর্শন। সাদা মার্বেল দিয়ে নির্মিত এবং অপূর্ব কারুকার্য দ্বারা সজ্জিত, প্রাসাদটি রাজকীয় আভিজাত্যের প্রতীক । এর নকশায় রাজপুত এবং মুঘল স্থাপত্যের উপাদান রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে গম্বুজ, বারান্দা এবং ঝাড়োখা (ঘেরা ঝুলানো বারান্দা)।এই প্রাসাদের কৌশলগত অবস্থান প্রাকৃতিক বায়ুচলাচলের জন্য আদর্শ ,যার ফলে গ্রীষ্মের মাসগুলিতেও এর অভ্যন্তরীণ ঠান্ডা থাকে।

ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

মনসুন প্যালেসের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ হল এটি অফার করে বিস্ময়কর প্যানোরামিক দৃশ্য। প্রায় ৯৪৪ মিটার উচ্চতা থেকে পর্যটকরা উদয়পুর শহর, পিচোলা হ্রদ এবং আশেপাশের আরাবল্লী পাহাড়ের মনোরম দৃশ্য দেখতে পাবেন । এই প্রাসাদ থেকে সূর্যাস্তের দৃশ্যটি বিশেষভাবে মন্ত্রমুগ্ধ করে, কারণ অস্তগামী সূর্যের সোনালি আভা পুরো প্রসাদের উপর এক জাদুকরী আভা ছড়িয়ে দেয়।

মনসুন প্যালেস ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

এর স্থাপত্য জাঁকজমক এবং প্রাকৃতিক দৃশ্য ছাড়াও, মনসুন প্রাসাদটি তার জীববৈচিত্র্যের জন্যও বিখ্যাত। আশেপাশের এলাকাটি বিভিন্ন বন্যপ্রাণী প্রজাতির জন্য একটি অভয়ারণ্য, যার মধ্যে রয়েছে ময়ূর, বন্য শূকর এবং বিভিন্ন ধরনের পাখি। প্রকৃতিপ্রেমীদের জন্য এটি একটি আদর্শ স্থান ,এখানে তারা যেমন সবুজ অন্বেষণ করতে পারবে, তেমনি প্রাসাদের আশেপাশের প্রশান্তি উপভোগ করতে পারবে।এটি পাখি দেখার এবং প্রকৃতির মধ্যে হাঁটার জন্য একটি আদর্শ গন্তব্য ।

ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

মনসুন প্যালেস বলিউড এবং হলিউড উভয় ক্ষেত্রেই একটি জনপ্রিয় চিত্রগ্রহণের স্থান হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। এর চিত্তাকর্ষক সৌন্দর্য এবং মনোরম পরিবেশ তার সাথে রাজস্থানের রাজকীয় ঐতিহ্য চলচ্চিত্র নির্মাতাদের আকৃষ্ট করেছে। “জেমস বন্ড: অক্টোপসি” এবং “দ্য ফল” এর মতো চলচ্চিত্রগুলি প্রাসাদের অত্যাশ্চর্য প্রাকৃতিক দৃশ্য প্রদর্শন করেছে, এর বৈশ্বিক আবেদনকে  সারা বিশ্বে আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

মনসুন প্রাসাদে পৌঁছানোর জন্য, পর্যটকরা নিজেরা গাড়ি নিয়ে পাহাড়ে উঠতে পারেন বা গাড়ি ভাড়া নিয়েওপাহাড়ে উঠতে পারেন ।প্রাসাদটি সারা বছর দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত থাকে, কিন্তু বর্ষা মৌসুমে, জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত,আদর্শ সময় মনসুন প্রাসাদটি ভ্রমণের জন্য।বর্ষার মেঘের  কুয়াশা প্রাসাদটিকে আবৃত করে  একটি নৈসর্গিক পরিবেশ তৈরি করে ।

ছবি সৌজন্য – উত্তরাপথ

সবমিলিয়ে রাজস্থানের রাজকীয় ঐতিহ্যের সাথে এক নৈসর্গিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপলব্ধি করার জন্য এই স্থানের কোনও বিকল্প নেই । এই স্থানে ভ্রমণ আপনাকে সারা জীবন মনে রাখার মত একটি মনোমুগ্ধকর অভিজ্ঞতা প্রদান করবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Vijay Stambh : চিতোরগড় দুর্গে বিজয় স্তম্ভ হিন্দু – মুসলিম সহাবস্থানের প্রতীক

উত্তরাপথঃ খ্রিস্টীয় ৭ম শতাব্দীতে মৌর্য রাজবংশ কর্তৃক স্থাপিত চিতোরগড় দুর্গ সাহস ও আত্মত্যাগের প্রতীক হিসেবে আজও দাঁড়িয়ে আছে। এই দুর্গ তার বিশাল কাঠামো, রাজপ্রাসাদ, একাধিক  সুদৃশ্য মন্দির সহ সুন্দর জলাশয়ের জন্য বিখ্যাত।৭০০-একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত, এই দুর্গটিতে প্রায় ৬৫টি ঐতিহাসিক স্থাপত্য নিদর্শন রয়েছে যা রাজপুত এবং ইসলামিক স্থাপত্য শৈলীর সূক্ষ্মতার প্রমান দেয়। বিজয় স্তম্ভ (Vijay Stambh)) হল এই দুর্গে অবস্থিত,সবচেয়ে মনোমুগ্ধকর কাঠামো।এই আশ্চর্য-অনুপ্রেরণামূলক স্তম্ভটি কেবল তার উচ্চতার জন্য বিখ্যাত নয়,এটি রাজপুতদের অদম্য সাহস এবং অধ্যবসায়ের গল্পও বলে যা চিতোরগড় দুর্গেরই সমার্থক হয়ে উঠেছে।বিজয় স্তম্ভ (Vijay Stambh), নাম থেকে বোঝা যায়, বিজয়ের প্রতীক।  প্রাচীনকালে যে কোনো যুদ্ধ অভিযানের সাফল্যের পর সেই বিজয়কে স্মরণীয় করে রাখতে রাজারা মন্দির, স্তূপ, স্মৃতিস্তম্ভ ও স্তম্ভ নির্মাণ করতেন।  ৯ তলা এই বিজয় স্তম্ভটি ১৯৪০ থেকে ১৪৪৮ সালের মধ্যে মহারানা কুম্ভ দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। .....বিস্তারিত পড়ুন

Fried rice syndrome: আগের দিনের রান্না করা ভাত খেলে হতে পারে এই বিশেষ অসুখটি

উত্তরাপথঃ আপনার কি বাসী ভাত বা পান্তা খাওয়ার অভ্যেস আছে? সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম (Fried rice syndrome) নিয়ে আমরা প্রায়ই অবশিষ্ট খাবার গরম করে আবার খাই। কিন্তু জানেন কি এই অভ্যাস আপনাকে অসুস্থ করে তুলতে পারে। অনেক সময় পর আগের রান্না করা  ভাত খাওয়ার ফলে পেট সংক্রান্ত সমস্যা হয়। কেউ কেউ মনে করেন যে খাবার পুনরায় গরম করলে এতে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া মারা যায়, কিন্তু তা নয়। যে খাবারেই স্টার্চ থাকে না কেন, এতে উপস্থিত টক্সিন তাপ প্রতিরোধী। অর্থাৎ খাবার গরম করার পরও ব্যাকটেরিয়া নষ্ট হয় না। ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম নামে এই সমস্যা সম্পর্কিত একটি অবস্থা রয়েছে। আজ আমরা এই ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম অবস্থার লক্ষণ, কারণ এবং প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করব। ভাত রান্না করার পর, যখন অবশিষ্ট ভাত কয়েক ঘন্টা বা সারারাত ঘরের তাপমাত্রায় রেখে দেওয়া হয় এবং তাতে ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে শুরু করে, তখন এই অবস্থার নাম দেওয়া হয়েছে ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়-  রাজনৈতিক সহিংসতা ও আমাদের গণতন্ত্র

সেই দিনগুলো চলে গেছে যখন নেতারা তাদের প্রতিপক্ষকেও সম্মান করতেন। শাসক দলের নেতারা তাদের বিরোধী দলের নেতাদের কথা ধৈর্য সহকারে শুনতেন এবং তাদের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতেন।  আজ রাজনীতিতে অসহিষ্ণুতা বাড়ছে।  কেউ কারো কথা শুনতে প্রস্তুত নয়।  আগ্রাসন যেন রাজনীতির অঙ্গ হয়ে গেছে।  রাজনৈতিক কর্মীরা ছোটখাটো বিষয় নিয়ে খুন বা মানুষ মারার মত অবস্থার দিকে ঝুঁকছে। আমাদের দেশে যেন রাজনৈতিক সহিংসতা কিছুতেই শেষ হচ্ছে না।আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার চেয়ে রাজনৈতিক সংঘর্ষে বেশি মানুষ নিহত হচ্ছেন।  ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) অনুসারে, ২০১৪ সালে, রাজনৈতিক সহিংসতায় ২৪০০ জন প্রাণ হারিয়েছিল এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় ২০০০ জন মারা গিয়েছিল।  আমরা পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র হিসেবে আমাদের দেশের গণতন্ত্রের জন্য গর্বিত হতে পারি, কিন্তু এটা সত্য যে আমাদের সিস্টেমে অনেক মৌলিক সমস্যা রয়েছে যা আমাদের গণতন্ত্রের শিকড়কে গ্রাস করছে, যার জন্য সময়মতো সমাধান খুঁজে বের করা প্রয়োজন। .....বিস্তারিত পড়ুন

রাতের ঘামের সমস্যা এবং এ সম্পর্কে আপনি কি করতে পারেন  

উত্তরাপথঃ রাতের ঘামের সমস্যা শরীরের কুলিং সিস্টেমের একটি স্বাভাবিক অংশ, তাপ মুক্তি এবং সর্বোত্তম শরীরের তাপমাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করে।তবে রাতের ঘাম একটি সাধারণ সমস্যা যা বিভিন্ন কারণে হতে পারে।এর  অস্বস্তিকর অনুভূতির জন্য ঘুম ব্যাহত হতে পারে, যার ফলে ক্লান্তি এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। আপনি যদি রাতে অতিরিক্ত ঘাম অনুভব করেন, তাহলে তার অন্তর্নিহিত কারণটি চিহ্নিত করা এবং এটি মোকাবেলার জন্য কিছু ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। এখানে রাতের ঘামের কিছু সম্ভাব্য কারণ নিয়ে আলোচনা করা হল।মেনোপজ: যে কেউ, বয়স বা লিঙ্গ নির্বিশেষে, রাতের ঘাম অনুভব করতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top