সম্পাদকীয়-  রাজনৈতিক সহিংসতা ও আমাদের গণতন্ত্র

রাজনৈতিক সহিংসতার প্রভাব থেকে মুক্ত নয় আমাদের গণতন্ত্রের পীঠস্থানও । ছবি- এক্স হ্যান্ডেল

সেই দিনগুলো চলে গেছে যখন নেতারা তাদের প্রতিপক্ষকেও সম্মান করতেন। শাসক দলের নেতারা তাদের বিরোধী দলের নেতাদের কথা ধৈর্য সহকারে শুনতেন এবং তাদের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতেন।  আজ রাজনীতিতে অসহিষ্ণুতা বাড়ছে।  কেউ কারো কথা শুনতে প্রস্তুত নয়।  আগ্রাসন যেন রাজনীতির অঙ্গ হয়ে গেছে।  রাজনৈতিক কর্মীরা ছোটখাটো বিষয় নিয়ে খুন বা মানুষ মারার মত অবস্থার দিকে ঝুঁকছে।

আমাদের দেশে যেন রাজনৈতিক সহিংসতা কিছুতেই শেষ হচ্ছে না।আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার চেয়ে রাজনৈতিক সংঘর্ষে বেশি মানুষ নিহত হচ্ছেন।  ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) অনুসারে, ২০১৪ সালে, রাজনৈতিক সহিংসতায় ২৪০০ জন প্রাণ হারিয়েছিল এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় ২০০০ জন মারা গিয়েছিল।  আমরা পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র হিসেবে আমাদের দেশের গণতন্ত্রের জন্য গর্বিত হতে পারি, কিন্তু এটা সত্য যে আমাদের সিস্টেমে অনেক মৌলিক সমস্যা রয়েছে যা আমাদের গণতন্ত্রের শিকড়কে গ্রাস করছে, যার জন্য সময়মতো সমাধান খুঁজে বের করা প্রয়োজন।

কয়েক দশক আগেও লোকেরা তাদের উজ্জ্বল ক্যারিয়ার ছেড়ে রাজনীতিতে যোগ দিতেন দেশ সেবা করার জন্য, কিন্তু এখন রাজনীতি নিজেই একটি পেশা।  এটি একটি লাভজনক ব্যবসা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।বর্তমানে একজন ব্যক্তি জনপ্রতিনিধি হওয়ার সাথে সাথেই তার সম্পদের অস্বাভাবিক বৃদ্ধি ঘটে।  এ কারণে রাজনীতিতে ঢোকা ও থাকার প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে।এমনকি বিরোধীদের মনোবল ভাঙতে ক্ষমতাশীল রাজনৈতিক দল রাজনৈতিক সহিংসতার আশ্রয় নেওয়ার ঘটনা এক নিত্যদিনের ব্যপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।  সহিংসতা বজায় রাখতে প্রতিটি দলই অভিযুক্তদের দলে অন্তর্ভুক্ত করছে। মুখে  রাজনীতিতে অপরাধীকরণের বিরোধীতা করলেও প্রায় সব দলেই অপরাধ প্রবণতা রয়েছে এমন বিপুল সংখ্যক লোক রয়েছে।  শুধু তাই নয়, এমনকি বড় বড় নেতারাও সময়ে সময়ে এমন বক্তব্য করে থাকেন যা সমাজকে জাতপাত বা সাম্প্রদায়িক আন্দোলনের দিকে নিয়ে যাচ্ছে এবং উত্তেজনার সৃষ্টি করছে।

 সমাজের বৃহত্তর সমস্যাগুলি নিয়ে রাজনীতি করে ক্ষমতা দখল হবে সেই আস্থা নেই নেতাদের।  সমাজকে সংযুক্ত করার ইতিবাচক রাজনীতি এখন আমাদের ব্যবস্থায় একটি বিরল বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।  উন্নয়নের কথা বলতে গিয়েও নেতারা জাতি-ধর্মের বিভাজন নিয়ে কথা বলছেন । এখন বিধানসভা এমনকি সংসদের কার্যক্রম চলাকালে রাজনৈতিক সহিংসতা শুরু হয়েছে এবং শিক্ষিত ও সম্মানিত নেতারাও এতে জড়িত।

নেতাদের আচরণ সাধারণ কর্মীদের ওপর কী প্রভাব ফেলবে তা ধারণা করা যায়।  নির্বাচন কমিশনের মতো একটি সংস্থা এক্ষেত্রে অনেক কাজ করেছে । কিন্তু বর্তমানে কমিশনের নিরপেক্ষতা নিয়েও অনেক প্রশ্ন উঠছে।এই অবস্থায় ভারতীয় গণতন্ত্র এখন সুপ্রিম কোর্ট এর মুখাপেক্ষী। রাজনৈতিক সহিংসতা থেকে নির্বাচনে অর্থের অপব্যবহার বন্ধে একাধিক পদক্ষেপ সুপ্রিম কোর্ট এর নজরদারিতে চলছে । আমাদের গণতন্ত্রকে পুনপ্রতিষ্ঠা করতে হলে রাজনৈতিক ব্যবস্থার ব্যাপক সংস্কার প্রয়োজন।যার জন্য পুরো সমাজকে এগিয়ে আসা দরকার।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


যুক্তিবাদী আন্দোলনের পথিকৃৎ প্রবীর ঘোষও আমি

ড. জীবনকুমার সরকার: ৭ এপ্রিল ২০২৩ প্রয়াত হলেন যুক্তিবাদী আন্দোলনের পথিকৃৎ প্রবীর ঘোষ। তাঁর প্রয়াণে দেশ ভারাক্রান্ত। যুক্তিবাদীরা চরম মর্মাহত। আমিও। তাঁর সঙ্গে কীভাবে জড়িয়েছিলাম সে এক ইতিহাস। ১৯৯৪ সালে মাধ্যমিক পাস করে গাজোল হাইস্কুলে সবে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছি। নতুন বইয়ের মধ্যে ডুবে আছি। আর নিয়মিত ক্লাস করছি। এইভাবে পুজোর ছুটি এসে যায়। পুজোর ছুটির আগের দিন অর্থাৎ যেদিন স্কুল হয়ে এক মাসের জন্য বন্ধ থাকবে স্কুল, সেইদিন আমি আর রাজেন লাইব্রেরীতে যাই। রাজেন আমার ছাত্রজীবনের সেরা বন্ধু। দুজনে কী বই নেবো, কী ধরনের বই নিয়ে .....বিস্তারিত পড়ুন

ইঞ্জিনিয়ারড ব্যাকটেরিয়া জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা রাখে

উত্তরাপথ: লরেন্স বার্কলে ন্যাশনাল ল্যাবরেটরি এবং ইউসি বার্কলে এর সহযোগিতামূলক গবেষণায় গবেষকরা একটি অভিনব ব্যাকটেরিয়া ইঞ্জিনিয়ারড করেছেন যা জ্বালানি, ওষুধ এবং রাসায়নিক উত্পাদনের সময় উত্পন্ন গ্রিনহাউস গ্যাসের নির্গমনকে উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করতে ডিকার্বনাইজশন এর মাধ্যমে। সম্প্রতি Nature জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এই আবিষ্কারটি । আর এটি "Carbene Transfer Chemistry in Biosynthesis" নামে পরিচিত । একটি অভিনব প্রতিক্রিয়ার সাথে প্রাকৃতিক এনজাইমেটিক বিক্রিয়াকে সংহত করতে ব্যাকটেরিয়াকে কাজে লাগায়। আর যা সাধারণত জীবাশ্ম .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top