শুভেন্দুর, ‘স্ট্র্যাটেজি’ খারিজ সুকান্তর

উত্তরাপথ

শুভেন্দুর, ‘স্ট্র্যাটেজি’খারিজ সুকান্তর, পঞ্চায়েত ভোটকে সামনে রেখে তৃণমূলকে আটকাতে বিজেপির সঙ্গে কংগ্রেস-সিপিএমকে আসার আহ্বান জানিয়েছিলেন শুভেন্দুর, আর সেই স্ট্র্যাটেজি খারিজ করে দিয়েছেন বিজেপির রাজ‌্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার।এখন প্রশ্ন রাজ্য বিজেপির প্রধান দায়িত্বে কে? বিরোধী দলনেতা না রাজ্য সভাপতি ? শুভেন্দু (Suvendu Adhikari) তার বিতর্কিত কথার জন্য রাজ্যে বিশেষ পরিচিত, তবে তিনি কি পারেন রাজ‌্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদারের (ম্মঞ্জ) সাথে আলোচনা ছাড়া কোনও সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত একক ভাবে নিতে ?

পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে তৃণমূলকে আটকাতে বিজেপির সঙ্গে কংগ্রেস-সিপিএমকে আসার আহ্বান জানিয়েছিলেন শুভেন্দু। শুভেন্দুর, ‘স্ট্র্যাটেজি’খারিজ করে সুকান্তর বক্তব‌্য, ‘‘বাংলায় রাজনৈতিকভাবে কোনও জোট হবে না সেটা আমরা চাইছি। বিজেপিই প্রধান বিরোধী। আমাদের পতাকার তলায় সমস্ত ভোটারদের এক হতে হবে। হয় তৃণমূল করুন, নয়তো বিজেপির পতাকাতলে এসে বিজেপি করুন।‘

এদিকে পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলাফলের পর এ রাজ্যে তৃণমূলের প্রধান বিরোধী কারা, তা নিয়ে তরজা শুরু হয়ে গিয়েছে বিজেপি ও সিপিএমের মধ্য়ে। বিজেপি এবার ভোট পেয়েছে ২২.৮৮ শতাংশ। ২০২১-এর বিধানসভা থেকে এবার পদ্ম শিবিরের ভোট কমেছে ১৬ শতাংশ। ৩৮ শতাংশ থেকে ভোট নেমে এসেছে ২২ শতাংশে। সিপিএম বলছে, গত বিধানসভা ভোটে তারা ১০ শতাংশ ভোট পেয়েছিল কংগ্রেস ও আইএসএফকে নিয়ে। এবার পঞ্চায়েতে তাদের সম্মিলিত ভোট ২১ শতাংশ। অর্থাৎ, একুশের নিরিখে ১‌১ শতাংশ ভোট বেড়েছে বাম-কংগ্রেস জোটের। তাই সিপিএমের দাবি, প্রাপ্ত ভোট শতাংশের নিরিখে প্রধান বিরোধী তারাই।রাজ্য বিজেপির এক সদস্যের বক্তব্য ,ভোটের আগে শুভেন্দুর, ‘স্ট্র্যাটেজি’মত তৃণমূলকে আটকাতে বিজেপির সঙ্গে কংগ্রেস-সিপিএমকে আসার আহ্বান জানিয়েছিলেন তাতেই তৃণমূল বিরোধী ভোট তিনটি দলের মধ্যে ভাগাভাগি হয়ে যায় ,আর তার লাভ পায় তৃণমূল।

বিজেপির রাজ‌্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদারের আবার দাবি, ‘‘এটা প্রহসনের ভোট। এই ভোট দিয়ে শতাংশের বিচার করা যাবে না। লোকসভা ও বিধানসভা ভোটের সঙ্গে পঞ্চায়েতের তুলনা চলে না।’’ সুকান্ত বলেন, ‘‘২০১৮-র পঞ্চায়েতের থেকে এবার আমাদের আসন বেড়েছে। গ্রাম পঞ্চায়েতে প্রায় ১১ হাজার আসন জিতেছি আমরা। ভোটও বেড়েছে ৬ শতাংশ।’’ সিপিএমের তরফে একুশের বিধানসভার সঙ্গে তুলনা তুলে ধরা হলেও বিজেপির যুক্তি, আঠারোর পঞ্চায়েতের সঙ্গেই তুলনা হবে। বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষের বক্তব‌্য, ‘‘সিপিএম যতই গায়ের জোরে বলুক মানুষ ঠিক করবে, আসল বিরোধী কে। তিনবার মানুষ ওদের সব ভোটে হারিয়েছে। তবে হ্যাঁ, ওরা (সিপিএম) যে এখনও আছে তার প্রমাণ দিতে পেরেছে।’’

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


যুক্তিবাদী আন্দোলনের পথিকৃৎ প্রবীর ঘোষও আমি

ড. জীবনকুমার সরকার: ৭ এপ্রিল ২০২৩ প্রয়াত হলেন যুক্তিবাদী আন্দোলনের পথিকৃৎ প্রবীর ঘোষ। তাঁর প্রয়াণে দেশ ভারাক্রান্ত। যুক্তিবাদীরা চরম মর্মাহত। আমিও। তাঁর সঙ্গে কীভাবে জড়িয়েছিলাম সে এক ইতিহাস। ১৯৯৪ সালে মাধ্যমিক পাস করে গাজোল হাইস্কুলে সবে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছি। নতুন বইয়ের মধ্যে ডুবে আছি। আর নিয়মিত ক্লাস করছি। এইভাবে পুজোর ছুটি এসে যায়। পুজোর ছুটির আগের দিন অর্থাৎ যেদিন স্কুল হয়ে এক মাসের জন্য বন্ধ থাকবে স্কুল, সেইদিন আমি আর রাজেন লাইব্রেরীতে যাই। রাজেন আমার ছাত্রজীবনের সেরা বন্ধু। দুজনে কী বই নেবো, কী ধরনের বই নিয়ে .....বিস্তারিত পড়ুন

মণিপুরের সামগ্রিক উন্নয়ন বর্তমান সমস্যার সমাধান হতে পারে

উত্তরাপথ: মণিপুরের মেইতি সম্প্রদায় তফসিলি উপজাতির তালিকায় তাদের অন্তর্ভুক্তির দাবি অব্যাহত রাখবে এবংআন্দোলন তীব্রতর করবে বলে খবর। অন্যদিকে ট্রাইবাল সলিডারিটি মার্চ, কিছু পাহাড়ি উপজাতির একটি তড়িঘড়ি তৈরি করা ছাতা সংগঠন,তারা মেইতি সম্প্রদায়ের দাবির বিরোধিতা করার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তাই পরিস্থিতি আরও অস্থির হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।অন্যদিকে আরেকটি সূত্র বলছে মণিপুরের পরিস্থিতি আবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসছে। যদিও এখন পর্যন্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেনাবাহিনীর সহায়তা নিচ্ছে রাজ্য সরকার।  কিন্তু এ ধরনের স্পর্শকাতর বিষয়ে দীর্ঘ .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়

এ যেন বহুদিন পর বিজেপির চেনা ছন্দের পতন। হিমাচল প্রদেশের পর কর্ণাটক কংগ্রেস নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে বিজেপির বিজয়রথকে থামিয়ে দিল ।২০১৮ পর থেকে লাগাতার হারতে থাকা একটি দল আবার ২০২৪ সাধারণ নির্বাচনে প্রাসঙ্গিক হয়ে গেল । ২২৪ সদস্যের কর্ণাটক বিধানসভায় সরকার গঠন করতে গেলে প্রয়োজন ১১৩টি আসন সেখানে কংগ্রেস একাই পেয়েছে ১৩৬টি আসন, বিজেপি পেয়েছে ৬৫ টি এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী দেবগৌড়ার জেডিএস পেয়েছে ১৯টি এবং অন্যান্য ৪ টি আসন পেয়েছে। যা গতবারের তুলনায় বিজেপির ৩৯ টি আসন কমেছে এবং কংগ্রেসের বেড়েছে ৫৭টি আসন এবং জেডিএসের কমেছে ১৮ টি আসন।   কর্ণাটকে কংগ্রেসের এই সাফল্য কি রাজ্যে কংগ্রেসের শক্তিশালী সংগঠনের ফল না কি কর্ণাটকের আগের ক্ষমতাশীল বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে মানুষের ক্ষোভ । কর্ণাটকে কংগ্রেসে অনেক বড় নেতা রয়েছে।  প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি শিবকুমার দক্ষ সংগঠক। আগের মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধারামাইয়ার ব্যাপক জনভিত্তি রয়েছে।  ভোটের আগে বিজেপির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জগদীশ শেট্টার এবং উপমুখ্যমন্ত্রী সাভাড়ি কংগ্রেসে যোগ দিয়ে নির্বাচনে লড়েছেন। অন্যদিকে বিজেপির প্রচারের সবচেয়ে বড় মুখ ছিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। বিজেপির প্রচারে সব নেতারাই মোদীর নাম করেই ভোট চেয়েছিলেন কিন্তু শেষ রক্ষা হল না ।কর্ণাটকের বিজেপি সরকারের ব্যাপক দুর্নীতি সেই সাথে কংগ্রেসের লাগাতার প্রচার যা প্রতিষ্ঠান বিরোধিতার সুরকে আরও তীব্র করেছে। তাই শুধুমাত্র মোদী ম্যাজিকের উপর ভর করে নির্বাচন জেতা যে  আর বিজেপির পক্ষে সম্ভব নয় কর্ণাটকের জনগণ চোখে হাত দিয়ে তাই দেখিয়ে দিল। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top