আমাদের সুপ্রিম কোর্ট নির্ভর বিচার ব্যবস্থা

উত্তরাপথঃ সম্প্রতি গুজরাট হাইকোর্টের বিচারককে সুপ্রিম কোর্ট দ্বারা বিহার উচ্চ আদালতে বদলির মামলাটি যথেষ্ট বিতর্কের জন্ম দিয়েছে এবং ভারতের বিচার বিভাগের স্বাধীনতা এবং কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন উত্থাপন করেছে৷ বিচারকদের স্থানান্তর একটি নিয়মিত প্রশাসনিক প্রক্রিয়া যার লক্ষ্য দক্ষতা এবং কাজের চাপ বন্টন নিশ্চিত করা।কিন্তু যখন এই ধরনের বদলিকে বিচার বিভাগের সততা ও নিরপেক্ষতা বাজায় রাখার জন্য করা হয়, তখন তা উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়ায়।

সম্প্রতি মোদী পদবি নিয়ে  রাহুল গান্ধীর ‘অবমাননাকর’ মন্তব্যের অভিযোগের জেরে সুরাতের ম্যাজিস্ট্রেট আদালত রাহুলকে দু’বছরের জেলের সাজা দিয়েছিল। পরে সুরাত জেলা দায়রা আদালতের দেওয়া  সেই সাজা বহাল রেখেছিল গুজরাত হাই কোর্ট ।রাহুল গান্ধীকে সাজা দেওয়া সুরাত ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারকের ‘বেআইনি পদোন্নতি’র উপর স্থগিতদেশ আগেই দেওয়া হয়েছিল । এ বার রাহুলের সাজা বজায় রাখা গুজরাত হাই কোর্টের বিচারপতিকে বদলি করল সুপ্রিম কোর্ট । শীর্ষ আদালতের প্রধান বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বাধীন কলেজিয়াম গুজরাত হাই কোর্টের বিচারপতি হেমন্ত প্রচ্ছককে পটনা হাই কোর্টে বদলি করেছে। বিচারপতি প্রচ্ছকের সঙ্গেই বদলি করা হয়েছে দেশের বিভিন্ন হাই কোর্টের আরও আট জন বিচারপতিকে

সুপ্রিম কোর্ট দ্বারা এক সাথে এতজন বিচারপতির স্থানান্তর মামলা বিচার বিভাগের সততা নিয়ে উদ্বেগ তৈরি করেছে।বিচার বিভাগ যা গণতন্ত্রের ভিত্তি যেখানে একজন সাধারণ নাগরিক আইনের শাসন, ন্যায়বিচার এবং নাগরিকদের অধিকার পাওয়ার জন্য নির্ভর করে । বিচারব্যবস্থায় রাজনৈতিক হস্তক্ষেপের ঘটনা শুধুমাত্র বিচার ব্যবস্থার প্রতি জনগণের আস্থা নষ্ট করছে তা নয় এটি গণতন্ত্রের নীতিকেও ক্ষুন্ন করছে।

একটি রাজ্যের উচ্চ আদালত রাজ্যের মানুষের ন্যায় পাওয়া সহ নিরপেক্ষ বিচার পাওয়ার শেষ আশ্রয় স্থল। কারণ আমাদের বেশীর ভাগ মানুষের সাধ্য নেই প্রতিটা মামলা সুপ্রিম কোর্ট এ এসে লড়বার । সেই উচ্চ আদালতের বিচারকরা যদি বাহ্যিক চাপের কাছে নতি স্বীকার করে ন্যায়সঙ্গত  বিচার প্রদান থেকে বিরত থাকে তাহলে জনগণ বিচার ব্যবস্থার উপর আস্থা হারাতে বাধ্য।  

সুপ্রিম কোর্টের একটি অপরিহার্য কাজ হল বিচারিক পর্যালোচনার ক্ষমতা।অর্থাৎ সুপ্রিম কোর্টের ভারতের সমস্ত কোর্ট এর আইন এবং নির্বাহী কর্মের সাংবিধানিকতা পরীক্ষা করার কর্তৃত্ব রয়েছে । এই ক্ষমতা প্রয়োগ করে,সুপ্রিম কোর্ট ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর অধিকার রক্ষার ক্ষেত্রে  সুরক্ষা হিসাবে কাজ করে এবং এটি নিশ্চিত করে যে সরকার  সহ দেশের সমস্ত বিচার বিভাগ এক গণতান্ত্রিক কাঠামোর মধ্যে কাজ করছে। কিন্তু বর্তমানে সুপ্রিম কোর্টকে যেভাবে বিচার ব্যবস্থাকে বাঁচাতে যেভাবে বারবার হস্তক্ষেপ করতে হচ্ছে তা গভীর উদ্বেগের ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


শারদোৎসবের প্রস্তুতি শুরু কলকাতা পুরসভা এবং বন্দর কতৃপক্ষের

উত্তরাপথঃ শারদোৎসবের প্রস্তুতি শুরু প্রশাসনের, প্রতিমা বিসর্জনে এ বার বিশেষ বন্দোবস্ত করছে কলকাতা পুরসভা।এ বছর ২১ অক্টোবর দুর্গা পুজা শুরু এবং ২৪ অক্টোবর বিজয়া দশমী। বিজয়া দশমীর পর আরও দু’দিন প্রতিমা বিসর্জন করা যাবে বলে প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে। তাই সেই প্রতিমা বিসর্জন পর্ব মসৃণ করতে কলকাতা বন্দর এবং পুরসভা কর্তৃপক্ষ বেশ কিছু পদক্ষেপ নিতে চলেছে। সোমবার কলকাতা পুরসভায় প্রাক্‌-পুজোর বৈঠকে পুরসভার বিভিন্ন বিভাগের আধিকারিকদের পাশাপাশি, ছিলেন কলকাতা পুলিশ, সিইএসসি-সহ একাধিক সরকারি দফতরের আধিকারিকেরা। .....বিস্তারিত পড়ুন

রবি কিরণে “আদিত্য”

ড. সায়ন বসুঃ বীর "বিক্রমে" চাঁদের মাটিতে পা রাখার পর এবার ভারতীয় মহাকাশ গবেষণাকেন্দ্র (ISRO)-এর লক্ষ্য সূর্য | আমাদের ৮টি গ্রহ (প্লুটো এখন বামন গ্রহের তালিকায়) যাকে কেন্দ্র করে ঘুরছে সেই সূর্যের দিকে পাড়ি দিয়েছে "আদিত্য" ২রা সেপ্টেম্বর| চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে অবতরণের ১০ দিনের মাথায় আদিত্যকে সূর্যের উদ্দেশ্যে পাঠিয়ে দিয়ে ISRO বাকি বিশ্বের মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্রগুলির কাছে যে একটি শক্তিশালী বার্তা পৌঁছে দিতে পেরেছে তা বলাই বাহুল্য| আদিত্য মিশনের সূচনা ২০০৮ সালের জানুয়ারী মাসে মহাকাশ বিজ্ঞান সম্পর্কিত একটি উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে|প্রাথমিকভাবে ঠিক করা হয় যে একটি ছোট এবং কম ওজনের (৪০০ কেজি) কৃত্রিম উপগ্রহকে low Earth orbit (LEO ;লিও) যে কক্ষপথের উচ্চতা ১,২০০ কিলোমিটারের থেকে কম সেখানে পাঠানো হবে এবং তার কাজ হবে সূর্যের একদম যে বাইরের স্তর যাকে আমরা সৌর-করোনা বলি তার সম্বন্ধে তথ্য পাঠানো। .....বিস্তারিত পড়ুন

মহারানী পদ্মাবতী এবং জোহরের ঐতিহ্য: সাহস ও আত্মত্যাগের এক গল্প

উত্তরাপথঃ ভারতের ইতিহাসে, এমন অনেক গল্প রয়েছে যা সময়কে অতিক্রম করে আমাদের সম্মিলিত চেতনায় এক অমোঘ চিহ্ন রেখে যায়। তেমনই একটি গল্প মহারানী পদ্মাবতী ও জোহরের ঐতিহ্য। সাহস, সম্মান এবং ত্যাগের এই গল্প প্রজন্মের পর প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করেছে এবং আমাদের কল্পনাকে মুগ্ধ করে চলেছে।ভারতীয় ইতিহাসের পাতায় অত্যন্ত সুন্দরী ও সাহসী মহারানী পদ্মাবতী'র উল্লেখ আছে।  রানী পদ্মাবতী রানী পদ্মিনী নামেও পরিচিত।  রানী পদ্মাবতীর পিতা ছিলেন সিংহল প্রদেশের (শ্রীলঙ্কা) রাজা গন্ধর্বসেন।ইতিহাসে রানী পদ্মিনী তার ব্যতিক্রমী সৌন্দর্য, বুদ্ধিমত্তা এবং বীরত্বের জন্য পরিচিত হলেও, তিনি করুণা এবং শক্তির প্রতীক হিসেবেও পরিচিত ছিলেন। দিল্লির শক্তিশালী শাসক আলাউদ্দিন খিলজি তার অতুলনীয় সৌন্দর্যের কথা শুনে তাকে অধিকার করার সংকল্প করেছিলেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

চাকরি ছাড়ার পর ফেরত দিতে হলো অফিসে খাওয়া চায়ের দাম

উত্তরাপথঃ চা কে আমরা যতই বলি স্ট্রিট ফুড বলি না কেন আসলে এটি এমন একটি পানীয় যা বিশ্ব অর্থনীতির বিশ্বায়নকে চালিত করেছিল। দীর্ঘক্ষণ কাজ করার ফলে কর্মীদের মধ্যে ক্লান্তি কিংবা বিরক্তি কাজ করে, তা কাটাতেই প্রায় প্রতিটি সরকারি-বেসরকারি অফিসেই কম বেশি চা-কফি খাওয়ার সুযোগ থাকে। কিন্তু একটি প্রতিষ্ঠানের চাকরি ছাড়ার পর দুই কর্মীকে অফিসে যত কাপ চা খেয়েছেন, তার বিল পরিশোধ করতে হয়েছে। এই বিরল কাণ্ড ঘটেছে চীনে।ঘটনা চীনের আনহুই প্রদেশের। সেখানে দুই কর্মী চাকরি ছেড়েছিলেন। খুবই স্বাভাবিক ঘটনা, আমরা অনেকেই চাকরি ছেড়ে থাকি। কিন্তু পরের ধাপে যা ঘটলো, তা কোনভাবেই স্বাভাবিক নয়। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top