সু-স্বাস্থের জন্য ক্যালোরি গ্রহণ প্রয়োজন,কিন্তু সমস্ত খাবারে ক্যালোরির মাত্রা সমান থাকে না

সু-স্বাস্থের জন্য ক্যালোরি ছবি সৌজন্যে- উত্তরাপথ

উত্তরাপথঃসু-স্বাস্থের জন্য ক্যালোরি গ্রহণ প্রয়োজন ,কিন্তু কিভাবে একজন ব্যক্তি তার সঠিক ওজন এবং সামগ্রিক স্বাস্থ্যর মধ্যে ভারসাম্য রাখতে পারে । অনেক লোক বিশ্বাস করে যে ক্যালোরি গণনা সাফল্যের চাবিকাঠি। এক্ষেত্রে একটি বিষয় গুরুত্বপূর্ণ তা হল সঠিক মাপে ক্যালোরি গ্রহণ , কিন্তু সমস্ত খাবারে ক্যালোরির মাত্রা সমান থাকে না।আমরা যে খাবার গ্রহণ করি তা আমাদের শরীর প্রক্রিয়া করে সেটিকে ক্যালোরিতে রুপান্তরিত করে । পরে আমরা সেই ক্যালোরিকে ব্যবহার করে বিভিন্ন কাজ করে থাকি।এই বিষয়ে কথা বলার জন্য, আমরা একজন নিবন্ধিত ডায়েটিশিয়ানের কাছে প্রশ্ন রাখি  আমরা যে ধরনের খাবার খাই তা আমাদের শরীরের জন্য কেন গুরুত্বপূর্ণ।

ক্যালোরি, সহজভাবে বলতে গেলে, শক্তির একক। তারা আমাদের শরীরকে সঠিকভাবে কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় জ্বালানী প্রদান করে। যাইহোক, এই ক্যালোরির উৎস আমাদের স্বাস্থ্যকে বিভিন্ন উপায়ে প্রভাবিত করতে পারে। ডায়েটিশিয়ানদের মতে, খাবারকে তিনটি প্রধান গ্রুপে ভাগ করা যায়: কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন এবং চর্বি।

কার্বোহাইড্রেট, যেমন ফল, শাকসবজি, গোটা শস্য এবং শস্য, শরীরের শক্তির প্রাথমিক উৎস। তারা প্রয়োজনীয় পুষ্টি, ফাইবার এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সরবরাহ করে। যখন তাদের সম্পূর্ণ এবং অপ্রক্রিয়াজাত আকারে খাওয়া হয়, কার্বোহাইড্রেট রক্তে শর্করার মাত্রা স্থিতিশীল করতে, তৃপ্তি বাড়াতে এবং সামগ্রিক স্বাস্থ্যকে রক্ষা করতে সাহায্য করতে পারে। অন্যদিকে, চিনিযুক্ত পানীয়, সাদা পাউরুটি এবং পেস্ট্রির মতো অতিরিক্ত পরিমাণে পরিশোধিত কার্বোহাইড্রেট খাওয়ার ফলে রক্তে শর্করার বৃদ্ধি, ওজন বৃদ্ধি এবং দীর্ঘস্থায়ী রোগের ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে।

চর্বিহীন মাংস, মাছ, ডিম, দুধ,ডাল এবং বাদামের মতো উৎসগুলিতে পাওয়া প্রোটিনগুলি টিস্যু তৈরি এবং মেরামত করতে, এনজাইম এবং হরমোন তৈরি করতে এবং একটি স্বাস্থ্যকর ইমিউন সিস্টেম বজায় রাখতে প্রয়োজনীয়। পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন গ্রহণ করলে ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারে, পেশী বৃদ্ধিতে সহায়তা করতে পারে এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করতে পারে। যাইহোক, চর্বিহীন প্রোটিনের উৎসগুলি বেছে নেওয়া যেমন গুরুত্বপূর্ণ ,তেমনি অত্যধিক গ্রহণ এড়ানোও গুরুত্বপূর্ণ, কারণ উচ্চ প্রাণীজ প্রোটিন গ্রহণ কিছু কিছু ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যগত সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে।

অ্যাভোকাডোস, জলপাই তেল, বাদাম এবং চর্বিযুক্ত মাছের মতো উৎস সহ ফ্যাটগুলি হরমোন উৎপাদন, পুষ্টি শোষণ এবং শক্তি সরবরাহের জন্য প্রয়োজনীয়। পরিমিত পরিমাণে স্বাস্থ্যকর চর্বি গ্রহণ তৃপ্তি বাড়াতে, মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বাড়াতে এবং হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে পারে। যাইহোক, অস্বাস্থ্যকর চর্বি যেমন ট্রান্স ফ্যাট এবং প্রক্রিয়াজাত খাবার এবং ভাজা খাবারে পাওয়া সম্পৃক্ত চর্বি খাওয়া সীমিত করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এগুলো কার্ডিওভাসকুলার স্বাস্থ্যের উপর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে।

ডায়েটিশিয়ান ভালো স্বাস্থ্যের জন্য একটি সুষম খাদ্যের গুরুত্বের উপর জোর দেন যাতে উপযুক্ত অনুপাতে তিনটি ম্যাক্রোনিউট্রিয়েন্ট অন্তর্ভুক্ত থাকে। বিভিন্ন ধরণের ফল, শাকসবজি, চর্বিহীন প্রোটিন এবং স্বাস্থ্যকর চর্বি সহ সম্পূর্ণ, প্রক্রিয়াবিহীন খাবার সমৃদ্ধ একটি খাদ্য, সর্বোত্তম কার্যকারিতার জন্য শরীরকে প্রয়োজনীয় পুষ্টি সরবরাহ করে।

খাদ্যের গুণমান শরীরের শক্তি ব্যয়কে প্রভাবিত করতে পারে, যাকে খাদ্যের তাপীয় প্রভাবও বলা হয়।  উদাহরণস্বরূপ, একটি সমীক্ষায়,দেখা গেছে যে সমস্ত লোকেরা প্রতিদিন একই পরিমাণ ক্যালোরি গ্রহণ করছে কিন্তু তাদের শক্তি ব্যয়ের পরিমাণে পার্থক্য ছিল।যারা খুব কম কার্বোহাইড্রেটযুক্ত খাবার খান তারা সবচেয়ে বেশি শক্তি ব্যবহার করেন, যখন কম চর্বিযুক্ত খাবার খান তারা সবচেয়ে কম শক্তি ব্যবহার করেন।

অতিরিক্তভাবে,সু-স্বাস্থের জন্য ক্যালোরি গ্রহণ শুধু প্রয়োজন নয় সেই সাথে ডায়েটিশিয়ান মননশীল খাওয়ার উপকারিতাও কথাও তুলে ধরেন। এটি কেবল আমরা কী খাই তা নয়, আমরা কীভাবে খাই তাও গুরুত্বপূর্ণ । খাবারের স্বাদ নেওয়া এবং উপভোগ করার জন্য সময় নেওয়া, ক্ষুধা এবং পূর্ণতার ইঙ্গিতগুলিতে মনোযোগ দেওয়া এবং কতটা খাবার খওয়া উচিত সেই ব্যাপারেও খেয়াল রাখা অপরিহার্য।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ব্যয় বৃদ্ধির কারণে বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম, প্রভাব রাজ্যেও

উত্তরাপথঃ বাংলাদেশ ও ইলিশ এই দুটি নাম একে অপরের পরিপূরক মনে হলেও বাস্তব কিন্তু বলছে অন্য কথা। সূত্র মাধ্যমে পাওয়া খবরে জানা যাচ্ছে  প্রকৃতির অপার দান হলেও শিকার থেকে শুরু করে বাজারজাত হওয়া পর্যন্ত ব্যয় বৃদ্ধির কারণেই বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম। এর সঙ্গে মধ্যস্বত্বভোগীদের লাভের অঙ্ক যোগ হয়ে তা চলে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।পরিস্থিতি এমন যে গরিব তো দূর থাক মধ্যবিত্তের পাতেও এখন আর জুটছে না ইলিশ। বুধবার বরিশালের পাইকারি বাজারে এক কেজি সাইজের ইলিশ বিক্রি হয় ৬০ হাজার টাকা মন দরে। ৪২ কেজিতে মন হিসাবে প্রতি কেজির দাম পড়ে প্রায় সাড়ে ১৪শ টাকা। খুচরা বাজারে গিয়ে যা বিক্রি হয় ১৬ থেকে ১৮শ টাকা। যে কারণে জাতীয় এই মাছ এখন শুধু বিত্তশালীদের খাদ্যে পরিণত হয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়

বিশ্ব উস্নায়ন এবং তাকে কেন্দ্র করে জলবায়ু পরিবর্তন একবিংশ শতাব্দীর অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ। এটি  ধীরে ধীরে একাধিক উপায়ে মানব সমাজকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করছে এবং অদূর ভবিষ্যতে এটি প্রায় অনিয়ন্ত্রিত হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।ইতিমধ্যে এটি আমাদের পরিবেশ, অর্থনীতি এবং আমাদের জীবন যাত্রার উপর ব্যাপক ভাবে প্রভাব দেখাতে শুরু করেছে ।সদ্য হয়ে যাওয়া হিমাচল প্রদেশের বন্যা আমাদের সামনে বেশ কিছু প্রশ্ন তুলে দিল । এবছর হিমাচল প্রদেশে বর্ষাকালে রেকর্ড পরিমাণে বৃষ্টিপাত হয়েছে ,যা বিগত কয়েক বছরের তুলনায় বহু গুণ বেশী।  ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, হিমাচল প্রদেশে ১ জুলাই থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত গড় বৃষ্টিপাত হয়েছে ২৪৯.৬ মিমি যা স্বাভাবিক গড় ৭৬.৬ মিমি থেকে প্রায় ৭০% বেশী .....বিস্তারিত পড়ুন

লোকসংস্কৃতির আলোকে মালদার শতাব্দী প্রাচীন গম্ভীরা  

মৈত্রেয়ী চৌধুরীঃ পশ্চিমবঙ্গের উত্তরের একটি জেলা মালদা। আমের জন্য এই জেলাটি পরিচিতি লাভ করলেও এই জেলা আর ও একটি কারণে বিখ্যাত, তা হল গম্ভীরা । মালদার নিজস্ব লোকসংস্কৃতি।গম্ভীরা শব্দটি প্রকোষ্ট, গৃহ বা মন্দির অর্থের সঙ্গে আভিধানিক মিল থাকলেও এই অনুষ্ঠানটি উন্মুক্ত আকাশের নিচে বা কোথাও চাঁদোয়া বা ত্রিপল  দিয়ে ঢেকে অনুষ্ঠিত হয়। এই উৎসবের মূল কেন্দ্রবিন্দু হলেন স্বয়ং দেবাদিদেব। এই উৎসবের তিনি 'নানা' নামে পরিচিত।একজন শিবের সাজে থাকেন, আর দেবাদিদেবের চেলার মতো কিছু সংখ্যক সেই নানার ভক্ত হয়ে খোল, করতাল হাতে উনার সঙ্গী হন। বাস্তব জগতের এবং পারিপার্শ্বিক যা মা সমস্যা থাকে তা  চেলার নানার কাছে অভিযোগ জানান, যেন নানা সেই অভিযোগ শুনে তার সমাধান করেন।শিশু থেকে বৃদ্ধ সকলেই ভিড় করে জমায়েত .....বিস্তারিত পড়ুন

এবার থেকে সংসদের কর্মীরা নতুন ইউনিফর্ম সহ ভারতীয় ঐতিহ্য প্রদর্শন করবে

উত্তরাপথঃ আগামী ১৮ থেকে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সংসদের বিশেষ অধিবেশনের ঘোষণা ৩১ আগস্ট সংসদীয় বিষয়ক মন্ত্রী প্রহলাদ যোশী করেছিলেন। অধিবেশন চলাকালীন কেন্দ্রের দ্বারা ভারতের নাম পরিবর্তন করে ভারত রাখার প্রস্তাবও আনা হতে পারে।সংসদের বিশেষ অধিবেশন এগিয়ে আসার সাথে সাথে, কর্মীদের পরের সপ্তাহে নতুন ভবনে যাওয়ার সময় সংসদ কর্মীদের নতুন ইউনিফর্ম পরতে হবে।এই ইউনিফর্মগুলিতে ভারতীয় সংস্কৃতির উপাদানগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে । নেহেরু জ্যাকেট' এবং খাকি রঙের প্যান্ট অন্তর্ভুক্ত থাকবে। নতুন ড্রেস কোড সংসদের উভয় কক্ষে কার্যকর করা হবে।ইউনিফর্মটি তৈরি করেছে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ফ্যাশন টেকনোলজি (NIFT)। তবে নতুন সংসদ ভবনে আনুষ্ঠানিক প্রবেশের জন্য ১৯ সেপ্টেম্বর নির্ধারিত হয়েছে,সেদিন গণেশ চতুর্থীর একটি ছোট 'পূজা' অনুষ্ঠান হবে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top