স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নিয়ে কড়া বার্তা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

উত্তরাপথঃ স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নিয়ে বেসরকারি নার্সিং হোমের বিরুদ্ধে অভিযোগ সাধারণ মানুষের দীর্ঘদিনের । এবার সেই অভিযোগকে মান্যতা দিয়ে বেসরকারি নার্সিং হোমের বিরুদ্ধে কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন রাজ্যের প্রতিটি নার্সিং হোমকে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড গ্রহণ করতে হবে। আর তা না করলে বাতিল করা হবে ওই বেসরকারি হাসপাতালগুলির লাইসেন্স। সোমবার রাজ্যের বিধানসভা অধিবেশন থেকে তেমনটাই জানালেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সঙ্গে সংক্রামক রোগীদের সঠিক চিকিৎসা ব্যবস্থা করতে উত্তরবঙ্গে একটি আইডি হাসপাতাল তৈরি করার কথাও ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত রাজ্যের বিধানসভা অধিবেশনে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড থাকা রোগীদের ভর্তি করা নিয়ে বেসরকারি হাসপাতালগুলির বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ উঠেছে। সেই সংক্রান্ত একটি প্রশ্ন তোলেন শিলিগুড়ির বিজেপি বিধায়ক শংকর ঘোষ।সেই প্রশ্নের জবাবে মুখ্যমন্ত্রীর সাফ জানিয়ে দেন, সরকারি হাসপাতালগুলি স্বাস্থ্যসাথী কার্ড গ্রহণ না করলে তাদের লাইসেন্স বাতিল করা হবে।

কিন্তু এই কার্ড নিয়ে চলতে থাকা এই বিতর্ক নতুন কিছু নয়। এই কার্ড চালু হওয়ার পর থেকেই প্রায়ই নানা অভিযোগের কথা শোনা যায়। বিশেষ করে বেসরকারি হাসপাতাল তথা স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানগুলির দিকেই অভিযোগের আঙুল ওঠে।এই কার্ডে চিকিৎসা পরিষেবা পেতে সাধারণ মানুষকে বেসরকারি হাসপাতালে যে অবস্থার মধ্যে দিয়ে যেতে হ্যতা ভুক্তভোগী মাত্র জানেন। তবে এই বিষয়ে চলতি সমস্যার সমাধান করতে এই বছরের মার্চ মাসে ‘প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট ইউনিট’ (পিএমইউ) গড়ার কথাও ঘোষণা করেছিল রাজ্য সরকার। এই পিএমইউ গঠন হয়ে গেলে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড ফিরিয়ে দেওয়া নিয়ে যে সমস্ত হাসপাতালের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠছে, তাদের বিরুদ্ধে চটজলদি ব্যবস্থা নিতে পারবে রাজ্য সরকার। কোনও হাসপাতালে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নেওয়া না হলে তা কেন নেওয়া হচ্ছে না, তাও জানতে চাইবে এই পিএমউই। অনলাইন ও অফলাইন দু’টি পদ্ধতিতে নিজেদের অভিযোগ জানাতে পারবে আম জনতা। ইতিমধ্যেই সেই নিয়ে কাজ অনেকখানি এগিয়েছে বলে সরকারি সূত্রে খবর।

তবে  বাস্তবে  ‘প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট ইউনিট” কতটা সফল হবে তা সময় বলবে। এর আগেও মুখ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্যসাথী কার্ড গ্রহণ না করা নিয়ে  বহুবার বেসরকারি হাসপাতালগুলির বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ দিয়েছেন ,কিন্তু বাস্তবে তেমন তার ফল পাওয়া যায়নি ।অন্যদিকে এই কার্ড নিয়ে পরিষেবা দেওয়ার ব্যাপারে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে বেসরকারি হাসপাতালগুলি একাধিক অভিযোগ তুলেছেন।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


বেতন, মাসে ৩০,০০০ আর সম্পত্তির মালিকানা ৭ কোটির বেশী

উত্তরাপথ: এ এক দুর্নীতির অনন্য নজির যা পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিবিদদের দুর্নীতি কে লজ্জায় ফেলবে । দুর্নীতির এই অভিযোগটি উঠেছে মধ্যপ্রদেশ পুলিশ হাউজিং কর্পোরেশনের সহকারী প্রকৌশলী ইনচার্জ হেমা মীনার বিরুদ্ধে।মধ্যপ্রদেশের সরকারি কর্মকর্তা দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের পর হেমা মীনা প্রচার মাধ্যমের নজরে আসে । এখন প্রশ্ন কে এই হেমা মীনা ? মধ্যপ্রদেশ পুলিশ হাউজিং কর্পোরেশনের চুক্তির ভিত্তিতে নিয়োজিত সহকারী প্রকৌশলী ইনচার্জ যিনি মাসে ৩০,০০০ টাকা আয় করেন । দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে তার বাড়ি থেকে সাতটি বিলাসবহুল গাড়ি, ২০,০০০ বর্গফুট .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top