স্বাস্থ্য রক্ষায় তিসি বীজ

প্রীতি গুপ্তা

আজ আমরা আলোচনা করব তিসি বীজ সেবনের সুবিধা ও অসুবিধার দিক নিয়ে —

ফ্ল্যাক্স সিডস বা তিসি বীজকে তার গুনমানের জন্য আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে একে গুনের ভান্ডার বলে বর্ণনা করা হয়েছে ।  এর রঙ বাদামী, হলুদ বা সোনালী।  এই বীজ থেকে তেল বের করা হয়, যাকে তিসির তেলও বলা হয়।  তিসি  বীজে অনেক পুষ্টি ও খনিজ রয়েছে যেমন স্বাস্থ্যকর চর্বি, খনিজ, ভিটামিন সি, ই, কে, প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট, আয়রন, ফসফরাস, ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, পটাসিয়াম, জিঙ্ক ইত্যাদি।  এতে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড বেশি পরিমাণে রয়েছে যা মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য এবং বিকাশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।  শুধু তাই নয়, তিসি  বীজে রয়েছে ফাইবার, যা ওজন কমাতে সাহায্য করে। এর ঔষধি গুণের কথা বললে, এর মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিফাঙ্গাল, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টিটিউমার, অ্যান্টিডায়াবেটিক ইত্যাদি বৈশিষ্ট্য।  এতে উপস্থিত এই সমস্ত গুণাগুণ আমাদের অনেক বিপজ্জনক রোগ থেকে রক্ষা করে।  এর বীজ এবং তেল নিয়মিত সেবন করলে আপনি ক্যান্সার, টিউমার, ডায়াবেটিস, ছত্রাক সংক্রমণ, উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ কোলেস্টেরল মাত্রা, উচ্চ রক্তে শর্করার মতো সমস্যাগুলি এড়াতে পারেন।

 তিসি বীজ স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী, তবে এর অতিরিক্ত সেবনের কারণে আমাদের কিছু শারীরিক সমস্যাও হতে পারে। তিসি বীজ অত্যধিক খাওয়ার ফলে সৃষ্ট প্রধান অসুবিধাগুলি হল –

তিসি বীজ অত্যধিক সেবনের কারণে, আমাদের হজমের সমস্যা হতে পারে ।তিসিতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকায় এটি কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে, তবে এটি অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে ডায়রিয়া বা লুজ মোশনও হতে পারে।  তিসি বীজে উপস্থিত রেচক পেটের সমস্যা যেমন ডায়রিয়া, বুকজ্বালা, বদহজমের জন্ম দিতে পারে।  আপনি যদি চান যে আপনার কোন সমস্যা না হয়, তাহলে আপনি এটি কাঁচা, ভাজা তিসির  বীজ বা রোস্টেড ফ্ল্যাক্স সিডের গুঁড়ো করে জল দিয়ে খেতে পারেন।আপনি যদি অতিরিক্ত পরিমাণে ফ্ল্যাক্সসিড খান, তাহলে রক্ত ​​জমাট বাঁধার প্রক্রিয়া ধীর হতে পারে ।ফ্ল্যাক্সসিড রক্ত ​​জমাট বাঁধার প্রক্রিয়া কমায়। এমন অবস্থায় কাটা স্থানে রক্ত ​​প্রবাহিত হলে দ্রুত প্রবাহ বন্ধ হয় না।যারা ইতিমধ্যে রক্ত ​​পাতলা করার ওষুধ সেবন করছেন তাদের একেবারেই খাওয়া উচিত নয়।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


বেতন, মাসে ৩০,০০০ আর সম্পত্তির মালিকানা ৭ কোটির বেশী

উত্তরাপথ: এ এক দুর্নীতির অনন্য নজির যা পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিবিদদের দুর্নীতি কে লজ্জায় ফেলবে । দুর্নীতির এই অভিযোগটি উঠেছে মধ্যপ্রদেশ পুলিশ হাউজিং কর্পোরেশনের সহকারী প্রকৌশলী ইনচার্জ হেমা মীনার বিরুদ্ধে।মধ্যপ্রদেশের সরকারি কর্মকর্তা দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের পর হেমা মীনা প্রচার মাধ্যমের নজরে আসে । এখন প্রশ্ন কে এই হেমা মীনা ? মধ্যপ্রদেশ পুলিশ হাউজিং কর্পোরেশনের চুক্তির ভিত্তিতে নিয়োজিত সহকারী প্রকৌশলী ইনচার্জ যিনি মাসে ৩০,০০০ টাকা আয় করেন । দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে তার বাড়ি থেকে সাতটি বিলাসবহুল গাড়ি, ২০,০০০ বর্গফুট .....বিস্তারিত পড়ুন

AFC এশিয়ান কাপ ২০২৩: সুনীলদের Blue Tiger অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি

উত্তরাপথ: অস্ট্রেলিয়া, উজবেকিস্তান এবং সিরিয়ার পাশাপাশি এএফসি এশিয়ান কাপ ২০২৩-এর বি গ্রুপে সুনীলদের Blue টাইগাররা। Blue টাইগাররা ১৩ জানুয়ারী, ২০২৪-এ আহমেদ বিন আলী স্টেডিয়ামে গ্রুপ পর্বের তাদের প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে।ভারতীয় পুরুষ ফুটবল দল এএফসি এশিয়ান কাপ কাতার ২০২৩-এ ১৩ জানুয়ারি আহমদ বিন আলি স্টেডিয়ামে গ্রুপ বি-তে প্রাক্তন চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করবে। এশিয়ার শীর্ষ ২৪ টি দল দোহার কাটরা অপেরা হাউসে তাদের গ্রুপ পর্বে অংশ গ্রহণ করেছে। এএফসি এশিয়ান কাপ কাতার ১২ জানুয়ারী .....বিস্তারিত পড়ুন

মণিপুরের সামগ্রিক উন্নয়ন বর্তমান সমস্যার সমাধান হতে পারে

উত্তরাপথ: মণিপুরের মেইতি সম্প্রদায় তফসিলি উপজাতির তালিকায় তাদের অন্তর্ভুক্তির দাবি অব্যাহত রাখবে এবংআন্দোলন তীব্রতর করবে বলে খবর। অন্যদিকে ট্রাইবাল সলিডারিটি মার্চ, কিছু পাহাড়ি উপজাতির একটি তড়িঘড়ি তৈরি করা ছাতা সংগঠন,তারা মেইতি সম্প্রদায়ের দাবির বিরোধিতা করার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তাই পরিস্থিতি আরও অস্থির হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।অন্যদিকে আরেকটি সূত্র বলছে মণিপুরের পরিস্থিতি আবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসছে। যদিও এখন পর্যন্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেনাবাহিনীর সহায়তা নিচ্ছে রাজ্য সরকার।  কিন্তু এ ধরনের স্পর্শকাতর বিষয়ে দীর্ঘ .....বিস্তারিত পড়ুন

প্রয়াত "কালবেলা"-র স্রষ্টা সাহিত্যিক সমরেশ মজুমদার

উত্তরাপথ: সাহিত্য একাডেমি পুরুষ্কার প্রাপ্ত প্রখ্যাত সাহিত্যিক সমরেশ মজুমদার কলকাতার এক বেসরকারী হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৯ বছর।বেশ কিছুদিন ধরে তিনি ফুসফুস ও শ্বাসনালীর সংক্রামণের কারনে তিনি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। ১৯৪২ সালে উত্তরবঙ্গের গয়েরকাটায় জন্ম এই বিখ্যাত লেখকের।ষাটের দশকের গোড়ায় তিনি কলকাতায় এসেছিলেন। ভর্তি হয়েছিলেন স্কটিশ চার্চ কলেজের বাংলা (সাম্মানিক) স্নাতক বিভাগে৷ এর পর স্নাতকোত্তর  সম্পন্ন করেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। সমরেশ মজুমদারের উল্লেখযোগ্য .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top