Diabetes রাখুন খুব সহজেই নিয়ন্ত্রনে

উত্তরাপথ

Diabetes রোগীর রক্ত পরীক্ষা করা হচ্ছে । ছবি- সংগৃহীত

ডায়াবেটিসের (Diabetes) সমস্যা সারা বিশ্বের লোকেদের এক প্রধান  সমস্যা । ন্যাশানাল ইনস্টিটিউট অফ হেলথ এর একটি রিপোর্ট অনুসারে ২০১৯ সালের ভারতে ৭৭ মিলিয়ন ব্যক্তির ডায়াবেটিস ছিল, যা ২০৪৫ সালের মধ্যে ১৩৪ মিলিয়ন ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। সবচেয়ে আশ্চর্যের কথা এই ব্যক্তিদের প্রায় ৫৭% জানতেননা তাদের ডায়াবেটিসের সমস্যা রয়েছে ।

একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারা ডায়াবেটিসে (Diabetes )আক্রান্ত ব্যক্তিদের গ্রহণ করা একান্ত প্রয়োজন সেই সাথে সুষম খাদ্য গ্রহণ, নিয়মিত শারীরচর্চা  এবং নিজের শারীরিক অবস্থার উপর নজর দেওয়া অত্যন্ত প্রয়োজন।আজ আমরা ডায়াবেটিস (Diabetes) রোগীদের একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারা গ্রহণের জন্য কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করব।

১. সুষম খাদ্য:

ক কার্বোহাইড্রেট ম্যানেজমেন্ট: কার্বোহাইড্রেট গ্রহণের উপর নজর রাখুন এবং নিয়ন্ত্রণ করুন, কারণ এগুলো রক্তে শর্করার মাত্রার উপর সরাসরি প্রভাব ফেলে। মিহি শর্করা এবং চিনিযুক্ত খাবার সীমিত করুণ ।সেই সাথে গোটা শস্য, লেবু এবং শাকসবজির মতো জটিল কার্বোহাইড্রেট যুক্ত খাবার গুলিতে মনোযোগ দিন।

খ সঠিক মাত্রা: অতিরিক্ত খাওয়া প্রবণতা এড়াতে আপনার ঠিক কতটা খাদ্য দরকার সে সম্পর্কে সচেতন হন। আপনার খাদ্যতালিকাগত চাহিদা অনুসারে একটি ব্যক্তিগতকৃত খাবার পরিকল্পনা তৈরি করতে একজন বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন।

গ. স্বাস্থ্যকর চর্বি: বাদাম, বীজ, অ্যাভোকাডো এবং জলপাই তেলের মতো স্বাস্থ্যকর চর্বি বেছে নিন। স্যাচুরেটেড এবং ট্রান্স ফ্যাট সীমিত করুন, যা হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

ঘ,প্রোটিনের উৎস: আপনার খাদ্যতালিকায় চর্বিহীন প্রোটিনের উৎস যেমন মুরগি, মাছ, টফু এবং লেবুস অন্তর্ভুক্ত করুন। প্রোটিন রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে এবং তৃপ্তি বাড়ায়।

২. নিয়মিত শারীরচর্চা :

ক একজন পেশাদার  বিশেষজ্ঞকে পরামর্শ করুন: যেকোনো ব্যায়াম রুটিন শুরু করার আগে, আপনার শারীরিক অবস্থার মূল্যায়ন করতে এবং কার্যকলাপের উপযুক্ত স্তর নির্ধারণ করতে আপনার বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন।

খ. বায়বীয় ব্যায়াম: দ্রুত হাঁটা, সাইকেল চালানো, সাঁতার কাটা বা নাচের মতো শারীরিক ব্যায়ামে প্রতি সপ্তাহে কমপক্ষে ১৫০ মিনিটের জন্য করুন । এই ক্রিয়াকলাপগুলি ইনসুলিন সংবেদনশীলতা উন্নত করতে এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।

গ. শক্তি প্রশিক্ষণ: পেশী ভর তৈরি করতে, বিপাক বাড়াতে এবং ডায়াবেটিস উন্নত করতে ওজন ব্যবহার করে শক্তি প্রশিক্ষণ মূলক ব্যায়াম অন্তর্ভুক্ত করুন।

ঘ, সারাদিন সক্রিয় থাকুন: দীর্ঘক্ষণ বসে থাকা বা বসে থাকা আচরণ এড়িয়ে চলুন এবং সারা দিন শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকার চেষ্টা করুন।

৩. ব্লাড সুগার মনিটরিং:

ক নিয়মিত পরীক্ষা: আপনার বিশেষজ্ঞ Diabetes চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত রক্তে শর্করার মাত্রা নিরীক্ষণ করুন। এটি বুঝতে সাহায্য করবে কিভাবে বিভিন্ন খাবার, শারীরিক কার্যকলাপ এবং ওষুধ আপনার রক্তে শর্করার মাত্রাকে প্রভাবিত করছে।

খ. রেকর্ড রাখা: আপনার রক্তে শর্করার রিডিং, খাদ্য গ্রহণ, শারীরিক কার্যকলাপ এবং যেকোনো উল্লেখযোগ্য পর্যবেক্ষণের রেকর্ড রাখুন। এই তথ্য আপনার চিকিৎসকে ডায়াবেটিস ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনায় প্রয়োজনীয় সমন্বয় করতে সহায়তা করতে পারে।

৪. ঔষধ ব্যবস্থাপনা:

ক নির্দেশিত ওষুধগুলি অনুসরণ করুন: আপনার চিকিৎসকের দ্বারা নির্ধারিত ডায়াবেটিসের ওষুধ সেবন করুন। তাদের পরামর্শ ছাড়া ডোজ এড়িয়ে যাবেন না বা পরিবর্তন করবেন না।

খ. ইনসুলিন ব্যবস্থাপনা: আপনার যদি ইনসুলিনের প্রয়োজন হয়, আপনার চিকিৎসকের দ্বারা প্রদত্ত প্রস্তাবিত ইনজেকশন কৌশল, স্টোরেজ নির্দেশিকা এবং সময় নির্দেশাবলী অনুসরণ করুন।

৫. স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট:

ক স্ট্রেস কমানোর কৌশল: স্ট্রেস ম্যানেজমেন্টের কৌশলগুলি অনুশীলন করুন যেমন গভীর শ্বাসের ব্যায়াম, ধ্যান,বা যোগব্যায়াম । স্ট্রেস বা উচ্চ চাপ রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণকে প্রভাবিত করতে পারে।

খ. পর্যাপ্ত ঘুম: সামগ্রিক  ভাবে সুস্থ থাকতে এবং রক্তে শর্করার মাত্রা স্থিতিশীল রাখতে প্রতি রাতে ৭-৮ ঘন্টা  ঘুমনোর চেষ্টা করুণ।

নিয়মিত মেডিকেল চেক-আপ:

ক নিয়মিত ডাক্তারের ভিজিট: আপনার ডায়াবেটিস (Diabetes)অবস্থা নিরীক্ষণ করতে, ওষুধের পর্যালোচনা করতে এবং যেকোনো উদ্বেগ বা জটিলতার সমাধান করতে আপনি চিকিৎসকের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করুন।

খ. চোখ এবং পা পরীক্ষা: ডায়াবেটিস(Diabetes )-সম্পর্কিত জটিলতা সনাক্ত করতে এবং প্রতিরোধ করতে নিয়মিত চোখ পরীক্ষা এবং পায়ের চেক-আপের ব্যবস্থা করুন।

এটি মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে ডায়াবেটিস(Diabetes) চিকিৎসা সবসময় আপনার ব্যক্তিগত প্রয়োজন অনুসারে হওয়া উচিত। আপনার নির্দিষ্ট প্রয়োজনীয়তা অনুসারে একটি পরিকল্পনা তৈরি করতে ডাক্তার, ডায়েটিশিয়ান এবং ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করুন। সেই সাথে স্বাস্থ্যকর জীবনধারা গ্রহণ করে এবং  ডায়াবেটিসের প্রভাব কমিয়ে পরিপূর্ণ জীবনযাপন করুন।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


SAFF Final: কুয়েতকে হারিয়ে সাফ চ্যাম্পিয়ন ভারত

উত্তরাপথ: SAFF Final (সাফ) ফুটবলের শিরোপা হাতছাড়া করেনি এবারও ভারত। শ্বাসরুদ্ধকর লড়াই শেষে শিরোপা নিজেদের কাছেই রেখে দিল Blue Tigers -রা। এই নিয়ে রেকর্ড ৯ম বার এই শিরোপা নিজেদের কাছে রাখল সুনিল ছেত্রীরা। টাইব্রেকারে তারা কুয়েতকে হারিয়েছে ৫-৪ ব্যবধানে । তবে এই জয় খুব সহজে পায়নি সুনিল ছেত্রীরা। বেঙ্গালুরুর শ্রী কান্তিরাভা স্টেডিয়ামে কুয়েতের বিপক্ষে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই শেষে শিরোপা দখলে নিল ভারত। নির্ধারিত সময়, অতিরিক্ত সময় অতঃপর টাইব্রেকার; তবুও নিষ্পত্তি হয়নি শিরোপার। অবশেষে ভারত শিরোপা বুঝে পায় সাডেন ডেথে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top