Dirac Medalist Prof. Sen: অগ্রগামী ভারতীয় তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞানী

উত্তরাপথ

Prof. Ashok Sen and Edward Witten ছবি সংগৃহীত

আজ বিশ্ববরেণ্য ফান্ডামেন্টাল ফিজিক্স পুরষ্কার প্রাপ্ত পদার্থবিজ্ঞানী তথা বাংলার কৃতি সন্তান অশোক সেনের জন্মদিন। উত্তরাপথের পক্ষ থেকে তাঁর প্রতি রইল শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।  অশোক সেন, একজন বিশিষ্ট তাত্ত্বিক ভারতীয় পদার্থবিদ যিনি ,স্ট্রিং তত্ত্ব এবং উচ্চ-শক্তি পদার্থবিদ্যার ক্ষেত্রে যুগান্তকারী অবদান রেখেছেন। তার অগ্রগামী কাজ তাকে কেবল আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিই দেয়নি বরং মহাবিশ্বের মৌলিক আইন সম্পর্কে আমাদের বোঝার ক্ষেত্রে আরও অগ্রগতির পথ তৈরি করেছে।

অশোক সেন ১৫ জুলাই, ১৯৫৬ কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন।কলকাতার শৈলেন্দ্র সরকার বিদ্যালয় থেকে স্কুলের পড়াশোনা শেষ করার পর, তিনি ১৯৭৫ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে বিজ্ঞানের স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন এবং এক বছর পরে ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি কানপুর থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। প্রেসিডেন্সিতে স্নাতক অধ্যয়নকালে, তিনি অমল কুমার রায়চৌধুরীর কাজ এবং শিক্ষার দ্বারা ব্যাপকভাবে অনুপ্রাণিত হন। তিনি স্টনি ব্রুক ইউনিভার্সিটিতে পদার্থবিদ্যায় ডক্টরেট করেন ।

অশোক সেনের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য অবদান স্ট্রিং তত্ত্বের ক্ষেত্রে নিহিত, একটি তাত্ত্বিক কাঠামো যা প্রকৃতির মৌলিক শক্তিকে একত্রিত করতে চায়। ১৯৮০ এর দশকের শেষের দিকে তার প্রথম সাফল্য আসে যখন তিনি ব্ল্যাক হোল পদার্থবিদ্যায় “সেন কনজেকচার” বা “সেনের এনট্রপি ফাংশন” নামে পরিচিত ঘটনাটি আবিষ্কার করেন। এই অনুমানটি ব্ল্যাক হোল এনট্রপির মাইক্রোস্কোপিক উৎস সম্পর্কে একটি নতুন দৃষ্টিভঙ্গি প্রদান করেছিল, যা আগে একটি দীর্ঘস্থায়ী ধাঁধা ছিল।

সেনের কাজের মধ্যে “সেনের অনুমান” আবিষ্কারও রয়েছে যা ডি-ব্রেন (স্ট্রিং থিওরির মধ্যে থাকা বস্তু) আচরণ সম্পর্কে একটি নতুন উপলব্ধি প্রদান করে। এই অনুমানটি অ্যাডএস/সিএফটি (অ্যান্টি-ডি সিটার/কনফর্মাল ফিল্ড থিওরি) চিঠিপত্রের ভিত্তি স্থাপন করেছিল, একটি শক্তিশালী গাণিতিক কাঠামো যা মহাকর্ষ এবং কোয়ান্টাম ক্ষেত্র তত্ত্বের মধ্যে পারস্পরিক বোঝাপড়াকে আরও গভীর করেছে।

তাত্ত্বিক পদার্থবিদ্যায় অশোক সেনের যুগান্তকারী অবদানের জন্য তিনি অসংখ্য প্রশংসা ও স্বীকৃতি প্রদান পেয়েছেন। ১৯৯৪ সালে, তিনি ভারতের সর্বোচ্চ বৈজ্ঞানিক সম্মানগুলির মধ্যে একটি মর্যাদাপূর্ণ শান্তি স্বরূপ ভাটনগর পুরস্কারে ভূষিত হন। এছাড়াও তিনি ২০০৯ সালে ভৌত বিজ্ঞানে ইনফোসিস পুরস্কারে ভূষিত হন। সেন ইন্ডিয়ান একাডেমি অফ সায়েন্সেস এবং ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্সেস, ভারতের একজন ফেলো। উপরন্তু, তিনি এই ক্ষেত্রে তার অসামান্য অবদানের জন্য বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার এবং ফেলোশিপের প্রাপক হয়েছেন।

অশোক সেনের কাজ তাত্ত্বিক পদার্থবিদ্যার ক্ষেত্রে গভীর প্রভাব ফেলেছে, বিশেষ করে স্ট্রিং থিওরি এবং ব্ল্যাক হোল নিয়ে গবেষণায়। তার যুগান্তকারী ধারণাগুলি কেবল মহাবিশ্বের মৌলিক নিয়ম সম্পর্কে আমাদের বোঝার ক্ষমতাকে প্রসারিত করেনি বরং গবেষণা এবং অন্বেষণের জন্য নতুন পথও উন্মুক্ত করেছে। সেনের কাজ ভারতে এবং সারা বিশ্বের পরবর্তী প্রজন্মের পদার্থবিদদের অনুপ্রাণিত ও গাইড করে চলেছে।

অশোক সেনের কলকাতা থেকে বিশ্বব্যাপী বিখ্যাত তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞানী হয়ে ওঠার অসাধারণ যাত্রা তার ব্যতিক্রমী বুদ্ধি এবং বৈজ্ঞানিক অন্বেষণে তার অবদানের প্রমাণ। স্ট্রিং থিওরি এবং ব্ল্যাক হোল ফিজিক্সে তার যুগান্তকারী অবদান মহাবিশ্ব সম্পর্কে আমাদের বোঝার নতুন মাত্রা দিয়েছে। একজন ভারতীয় বিজ্ঞানী হিসেবে, সেন শুধু তার দেশকেই গর্বিত করেননি, আন্তর্জাতিক বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়ের ওপরও তার কাজের ছাপ রেখেছেন। আগামীতে তার কাজ ভবিষৎ বিজ্ঞানীদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে কাজ করবে ।

খবরটি শেয়ার করুণ

6 thoughts on “Dirac Medalist Prof. Sen: অগ্রগামী ভারতীয় তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞানী”

  1. Sudipta Mitra

    অশোক সেনের কাজ সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারলাম

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


বৈধ নথি ছাড়া প্লেনে ওঠার চেষ্টা এটি কি নিছক কৌতুহল মেটানো

উত্তরাপথঃ এটি কি নিছক কৌতুহল না কি কিশোর দুস্ক্রিয়তা। সম্প্রতি বাংলাদেশ এর শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পাসপোর্ট, টিকিট বা বোর্ডিং পাশ কোনও কিছু ছাড়াই জুনায়েদ নামের ১২ বছরের এক শিশু বৈধ নথি ছাড়া বিনা বাধায় কুয়েত এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে উঠে পড়ে। তবে এবারই প্রথম নয়, এর আগেও প্লেনে চড়তে ব্যর্থ হয়ে বাড়িতে ফিরে গেছে। এবার কৌশল পালটে বিমানবন্দরে ঢোকে শিশুটি। এ ঘটনায় বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন ও সিকিউরিটি বিভাগের ১০ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে কারণ দর্শাতে বলা  হয়েছে। গঠন করা হয়েছে পাঁচ সদস্যের একটি উচ্চপর্যায়ের তদন্ত কমিটি। যে এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে এ ঘটনা ঘটে, সেই কুয়েত এয়ারলাইন্সকেও শোকজ করা হয়েছে।  বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান বলেছেন, ছেলেটি ব্রোকেন ফ্যামেলি .....বিস্তারিত পড়ুন

গ্লোবাল ওয়ার্মিং রিপোর্ট: ২০২৩ বৈশ্বিক উষ্ণতা নিয়ে উদ্বেগজনক প্রতিবেদন

উত্তরাপথঃ সারা বিশ্ব যখন বিশ্ব উষ্ণায়নের কেন্দ্র করে শুরু হওয়া জলবায়ু সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে সেই সময়, ২০২৩ বৈশ্বিক উষ্ণতা নিয়ে একটি উদ্বেগজনক প্রতিবেদন আমাদের সামনে নিয়ে এসেছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের জলবায়ু পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র ৮ আগস্ট যে পরিসংখ্যান আমাদের সামনে তুলে ধরেছেন,তাতে আগামী দিনের ভয়াবহ পরিণতির জন্য বিশ্ববাসীকে সতর্কবাণী শুনিয়েছেন।এখনও পর্যন্ত সারা বিশ্বে তাপ তরঙ্গ এবং দাবানলের জন্য ২০১৯ সালের জুলাই মাসটিকে চিহ্নিত করা হত । কিন্তু এবছর জুলাই মাসের তাপমাত্রা গত ২০১৯ সালের থেকেও ০.৩৩ সেন্টিগ্রেড বেশি ছিল EU-এর কোপার্নিকাস ক্লাইমেট চেঞ্জ সার্ভিসের ডেপুটি ডিরেক্টর সামান্থা বার্গেস বলেছেন, "গত ১২০,০০০ বছর ধরে পর্যবেক্ষণমূলক রেকর্ড এবং প্যালিওক্লাইমেট রেকর্ড এক সাথে সমন্বয় করে বিশ্লেষণ করলেও এত গরম ছিল না।" .....বিস্তারিত পড়ুন

মিশন ইম্পসিবল ডেড রেকনিং পার্ট ওয়ান রিভিউ: ৬১ বছর বয়সী টম ক্রুজের আবারও অনবদ্য

উত্তরাপথঃ মিশন ইম্পসিবল দর্শকদের একটি রোমাঞ্চকর যাত্রায় নিয়ে যায়। যেখানে সিনেমাটি  তিন ঘণ্টা দেখা অতিক্রান্ত হওয়ার পরও দর্শক এটি দেখতে চান। আর এটিই টম ক্রুজ এবং পরিচালক ক্রিস্টোফার ম্যাককোয়ারির আসল সাফল্য।গত বছর হলিউড সুপারস্টার টম ক্রুজ 'টপ গান ম্যাভেরিক' দিয়ে দর্শকদের মন্ত্রমুগ্ধ করার পর, এখন টম ক্রুজ এজেন্ট হান্টের চরিত্রে শক্তিশালী অ্যাকশন নিয়ে দর্শকদের সামনে এসেছেন। টম ক্রুজের 'মিশন ইম্পসিবল' ফিল্ম সিরিজের সপ্তম কিস্তি 'মিশন ইম্পসিবল- ডেড রেকনিং পার্ট ওয়ান' সদ্য ভারতে মুক্তি পেয়েছে । টম ক্রুজ এই ছবিতে তার জনপ্রিয় ইমেজ ধরে রেখেছেন এবং এই ছবিতে দর্শকদের অ্যাকশনের একটি বড় অংশ উপহার দিয়েছেন। মিশন ইম্পসিবল মুভিগুলি শুধুমাত্র টম ক্রুজের জন্য দেখা হয় এবং এই মুভিটি দেখা আবশ্যকও বটে৷ .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top