Green Washing থেকে সাবধান

প্রিয়াঙ্কা দত্ত, রঘনাথপুর

আপনি নিশ্চয়ই একজন পরিবেশ সচেতন নাগরিক? যদি নাও হন তবুও বাজার চলতি ভোগ্যপণ্য খরিদ করার সময় আপনি কি এখন একশ শতাংশ প্রাকৃতিক দ্রব্য কিনতেই পছন্দ করেন? এবং কেনেন? প্রসাধন দ্রব্য কেনার সময় কি আপনি নিম ,তুলসী, চন্দন বা গোলাপের নির্যাস যুক্ত জিনিসই কেনেন ? আর জামাকাপড়? একশ শতাংশ পচনশীল পদার্থ দিয়ে তৈরী? টুথ পেস্ট থেকে আরম্ভ করে তেল, সাবান, শাম্পু কিংবা ভোজ্য তেল , ফ্রুট জুস বা খাবার জিনিস! সব কিছুতেই আপনি পরিবেশে বান্ধব প্যাকেজিং এবং সম্পূর্ন প্রাকৃতিক এই লেবেল দেখেই কিনছেন। তাই না? বর্তমান যুগের ট্রেন্ড কিন্তু তাই বলছে। আপনি প্রাকৃতিক বা ভেষজ উপাদান থেকে তৈরি জিনিসপত্র বা কীটনাশক বর্জিত ১০০% প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে উৎপন্ন খাদ্যদ্রব্য কিনতে নিশ্চয়ই দিনকে দিন বেশি আগ্রহী হয়ে উঠছেন। আর সেটাই তো স্বাভাবিক। কারণ আমরা আদার ব্যাপারি হলেও এই পৃথিবীর ভালো মন্দে আমাদেরও ভালো মন্দ এসে যায়। কিন্তু আপনি কি একেবারে নিশ্চিত যে ওই প্যাকেট দ্রব্যের গায়ে যেসব দাবি করা থাকে, তা সম্পূর্ণ সত্য! আপনার কি জিনিস গুলো ব্যবহার করে একবারও মনে হয়নি যে যতটা দাবি করা হয় ততটা ঠিক সত্যি নয়। আর যদি তা হয়ে থাকে, তবে আপনি নিশ্চিত ভাবে ‘গ্রীন ওয়াশিং’ এর শিকার। 

ঘটনার সূচনা ১৯৮৬ সাল নাগাদ হলেও গ্রীন ওয়াশিং কথাটির অক্সফোর্ডের ডিকশনারি তে ঠাঁই হয়েছে মাত্র দুই দশক আগে (১৯৯৯ সালে)। আর বাংলায় এর সঠিক পরিভাষা, এখনো আমাদের করায়ত্ত হয়নি । 

তাহলে কী এই গ্রীন ওয়াশিং যা থেকে আমাদের অবিলম্বে সাবধান হওয়া দরকার ? আসুন জেনে নিই।
এখন হয়তো সকলে লক্ষ্য করেছেন যে পৃথিবীর বেশিরভাগ ভোগ্যপণ্যই পরিবেশ বান্ধব হিসেবে নিজেদের প্রতিপন্ন করছে। তাদের প্রতিটা দ্রব্যের মোড়কে পরিবেশে সচেতনতার কথা ফুটে উঠেছে।  বিজ্ঞাপনে প্রচার করা হচ্ছে কীভাবে সেই সব দ্রব্য কীভাবে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় এগিয়ে আছে। এতো সুন্দর ও বিশ্বাসযোগ্য ভাবে সেসব কথা বলা হচ্ছে যে আমরা সহজেই প্রলোভিত হয়ে পড়ছি। বিভিন্ন কোম্পানি বর্তমান সমাজের মনোভাব খুব ভালো করে পর্যেক্ষণ করে এইভাবেই ক্রেতাদের কাছে টানছে। কিন্তু আদপেও কী সেসব দাবীর কোনও প্রামাণ্য নথি তাদের আছে? বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এর উত্তর ‘ না ‘।
আপনি যদি এমন কোন জিনিস নির্বাচন করেন যার আবরণে  ‘সম্পূর্ন প্রাকৃতিক’ বা তার মোড়কে ‘পুনর্বব্যবহারযোগ্য ‘ লেখা আছে তাহলে আপনি হয়তো সম্পূর্ণ সত্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। কিছু কিছু কোম্পানি অতিরিক্ত  মুনাফা লাভের জন্য বিভিন্ন দ্রব্য, তা যতটা স্থিতিশীল নয় ততটা দাবি করছে। কিংবা আগের একই দ্রব্য শুধুমাত্র প্যাকেটের লেভেল বদলে মানুষের কাছে পৌঁছে দিচ্ছে। কিছু ক্ষেত্রে তো সেসব দাবী সম্পূর্ন মিথ্যে প্রতিপন্ন হয়েছে। বিভিন্ন কোম্পানি সম্পূর্ন জেনেশুনে এই কাজটি করছে। কারণ তারা জানে যে বর্তমানের পরিবেশ সচেতন নাগরিক বেশি দাম দিয়েও এই ধরনের জিনিস কিনতে প্রস্তুত কারণ তারা তাদের স্বাস্থ্য এবং পৃথিবীর মঙ্গল দুটোই কামনা করেন। 

আপনি শুনলে অবাক হবেন যে, বড় বড় কোম্পানিগুলো আপনাকে কিভাবে বোকা বানাচ্ছে। ভারতবর্ষের মত উন্নয়নশীল দেশে তো বটেই এমনকি আমেরিকার মত উন্নত দেশের নাগরিকরাও এর শিকার।
খুব নাম করা কোম্পানি যারা দাবী করে যে, তাদের ঠান্ডা পানীয় সম্পূর্ন সুগার ফ্রী বা সেসব বোতল পুনর্ব্যবহার যোগ্য, সেটা কিন্তু আদৌ নয়। বিজ্ঞাপনের চটকে বা সুন্দর প্যাকেটিং এর চক্করে পড়ে আমরা কিন্তু সম্পূর্ন বিভ্রান্ত হচ্ছি। সম্প্রতি ইনোসেন্ট, কেউরিং, আইকে, উইন্ডেক্স, H&M, ইউনিলিভার, নেস্টলে, কোকাকোলা প্রভৃতি অগণিত নামজাদা কোম্পানি হাতে নাতে এই অপরাধে ধরা পড়েছে। অথচ ব্র্যান্ডেড বলে এদের জিনিসপত্র আমরা চোখ বন্ধ করে কিনি। P&G কোম্পানি পরিবেশে বান্ধব টয়লেট টিস্যু বানাতে গিয়ে অন্যায় ভাবে অরণ্য ধ্বংস করে চলেছে। Mac Donald যে পুনর্ব্যবহার যোগ্য পেপার স্ট্র বাজারে এনেছিল তা কিন্তু আদৌ সম্পূর্ন রূপে মাটিতে মেশে না। Volkswagen তো তার গাড়ির দুষণমাত্রা নির্বিচারে কম দেখিয়ে লোক ঠকিয়েছে। বিভিন্ন নামি জামাকাপড়ের ব্র্যান্ড তাদের দ্রব্য সম্পূর্ন জৈব পচনশীল বলে বেমালুম মিথ্যা প্রচার চালাচ্ছে।
Rya air নামের বিমান সংস্থার বায়ু দূষণ কম ছড়ানোর দাবী করে সম্পূর্ন মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে। আমরাও নিশ্চিন্তে BPA free বলে জলের বোতলে দেদার জল খাচ্ছি। সার্ফ, সাবান সম্পূর্ন প্রাকৃতিক ও ক্ষতিকর নয় ভেবে নিশ্চিন্তে ব্যবহার করছি। জৈব প্রযুক্তি দ্বারা উৎপাদিত বলে নিশ্চিন্তে খাদ্য দ্রব্য মুখে তুলছি। কিন্তু সেখানেও বিরাট ফাঁকি। তাহলে আমরা কাকে বিশ্বাস করবো? শুধুমাত্র ব্যবসায়ীক লাভের জন্য জন সাধারণের এতো বড় ক্ষতি করার মানসিকতাকে কী নামে অভিহিত করা যায়? শুধুমাত্র লোক ঠকিয়ে কী ভাবে আইনের চোখকে ফাঁকি দিয়ে দিনের পর দিন এই করবার চলছে তার হিসাব কে রাখে?

উন্নত দেশ গুলোতে না হয় এসব জালিয়াতি ধরা পড়ে শাস্তিও হয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশের কী শোচনীয় অবস্থা? Yale University Environmental Performance Index 2022 অনুসারে ১৮০ দেশের মধ্যে ভারতের অবস্থান সর্বশেষ। এমন কি এখনো পর্যন্ত ভারতবর্ষে এ বিষয়ে কোনও সুস্পষ্ট আইন নেই।
আশার কথা এই যে, ২৪ শে নভেম্বর ২০২২ সালে SEBI এই নিয়ে প্রথম সার্কুলার জারি করেছে। বিভিন্ন কোম্পানি কে ঋণ দানের ক্ষেত্রে বা পন্য দ্রব্যের সঠিক মানদণ্ড নির্ধারণ করার ক্ষেত্রেও নির্দিষ্ট নিয়ম নীতি অনুসরণ করার ক্ষেত্রে জোর দেওয়া হয়েছে।২০২৩ সালের ৩রা ও ৬ই ফেব্রুয়ারি আবার সে বিষয়ে নতুন নির্দেশিকা জারি হয়েছে। তাও আশার কথা। কিন্তু আমরা সাধারণ জনগণ এ বিষয়ে আরও সতর্কতা অবলম্বন করলে এই ধরণের জালিয়াতি থেকে  কিছুটা রেহাই পেতে পারি। এর মধ্যেও খুব সীমিত সংখ্যক কোম্পানি মানুষের কাছে সত্যিই ভালো জিনিস পৌঁছে দেবার চেষ্টা করছে। তাই সম্পূর্ন নিরাশ হওয়ার কোনও কারন নেই।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


মানুষে মানুষে ঐক্য কীভাবে সম্ভব

দিলীপ গায়েন: হিন্দু,মুসলমান,ব্রাহ্মণ,তফসিলি।সকলেই মানুষ।কিন্তু এদের মধ্যে যে ব্যবধান তা হলো ধর্ম ও সাংস্কৃতিক। এই ব্যবধান মুছতে পারলে একাকার হওয়া সম্ভব। যারা বলছে আর্থিক সমতা প্রতিষ্ঠা হলে ব্যবধান মুছে যাবে, তাদের কথাটি বোধ হয় সঠিক নয়।তার প্রমাণ গরিব ও শ্রমিক শ্রেণীর মধ্যে আর্থিক ব্যবধান নেই। অথচ জাতিভেদ রয়ে গেছে। তেমনি কিছু ব্যতিক্রমী ঘটনা ব্যতীত ধনী ও শিক্ষিত সমাজে আর্থিক সচ্ছলতা থাকলেও জাতিভেদ রয়ে গেছে। একমাত্র হাসপাতালে বা চিকিৎসা ব্যবস্থায় জাতিভেদ নেই।কারণ সেখানে তো প্রচলিত ধর্মজাত প্রভেদ বা পরিচয় নেই। আছে মেডিসিন, যা সম্পূর্ণ বিজ্ঞান। কারোর ধর্ম বা জাত দেখে প্রেসক্রিপশন হয় কি? এখানে মানুষের একমাত্র এবং শেষ পরিচয় সে মানুষ। .....বিস্তারিত পড়ুন

৩৬ হাজার প্রাথমিক শিক্ষকের চাকরি বাতিল: হাইকোর্ট ও পর্ষদের টানাপড়েন অব্যাহত   

উত্তরাপথ: সম্প্রতি কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের প্রাথমিকের ৩৬ হাজার শিক্ষকের চাকরি বাতিলের নির্দেশ দিয়েছে আর তাই নিয়ে শুরু হয়েছে যুক্তি ও পাল্টা যুক্তির খেলা। বিচারপতির বক্তব্য পশ্চিমবঙ্গের এই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগের সময় এই শিক্ষকেরা অপ্রশিক্ষিত ছিলেন আর এই 'অপ্রশিক্ষিত প্রাথমিক শিক্ষকদের' নিয়োগ করা হয়েছিল পশ্চিমবঙ্গের সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা এবং সাহায্যপ্রাপ্ত বিদ্যালয়ে। এই পদ্ধতির ত্রুটির কারণে এই শিক্ষকদের নিয়োগ বাতিল করা হল। .....বিস্তারিত পড়ুন

২০২৩ নির্বাচন কি সত্যি ২০২৪ এর সেমিফাইনাল ?

উত্তরাপথ: ২০২৩ নির্বাচন কি সত্যি ২০২৪ এর সেমিফাইনাল ? না  কি কংগ্রেসের কাছে আবার একটু - একটু  করে ঘুরে দাঁড়াবার প্রচেষ্টা এবং বিজেপির কাছে মোদী ম্যাজিক যে এখনও অব্যাহত সেটা প্রমান করা। বিজেপির এখন প্রচারের একমাত্র মুখ নরেন্দ্র মোদী। সদ্য সমাপ্ত কর্ণাটক নির্বাচনের পুরো প্রচার হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে কেন্দ্র করে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ, বিজেপির জাতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা সহ মুখ্যমন্ত্রী বাসভরাজ বোমাই নিজেও প্রধানমন্ত্রী মোদির নামে ভোট চাইলেন। তার  উপরে, প্রধানমন্ত্রী মোদি নিজে .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top