আইপিএল (IPL) কি ভারতীয় ক্রিকেটের উন্নতির সহায়ক ?

IPL-র মুহূর্ত। ছবিটি X-একাউন্ট থেকে গৃহীত।

উত্তরাপথঃ আইপিএল (IPL) কি ভারতীয় ক্রিকেটের উন্নতির সহায়ক না কি এটি ভারতীয় ক্রিকেটকে আরও আবনতির দিকে নিয়ে যাচ্ছে এই প্রশ্নটা অনেকের।সম্প্রতি ওয়েস্ট ইন্ডিজের অলরাউন্ডার ডোয়াইন ব্রাভো বৃহস্পতিবার বলেছেন, ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ খেলোয়াড়দের দক্ষতা বাড়ায় এবং প্রতিটি দলেরই কিছু হাই প্রোফাইল কোচ থাকে যারা খেলোয়াড়দের ত্রুটিগুলো দূর করতে সাহায্য করে।সেই সাথে তিনি আরও বলেন  আমি মনে করি আইপিএল দেশীয় খেলোয়াড়দের সাহায্য করে।এটি আন্তর্জাতিক খেলোয়াড়দেরও সাহায্য করে।এখানে একজন ক্রিকেটারকে  বিশ্বের সেরা কিছু কোচের দ্বারা কোচিং করানো হয়।

নিঃসন্দেহে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (IPL) বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় এবং আর্থিকভাবে পুরস্কৃত টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট লিগ হয়ে উঠেছে। এটি যে পরিমাণ গ্ল্যামার, অর্থ এবং বিনোদন প্রদান করে, তাতে স্বাভাবিক ভাবেই এই প্রশ্নটি প্রায়ই উত্থাপিত হয় যে সত্যই কি আইপিএল ভারতীয় ক্রিকেটারদের দক্ষতার উন্নতিতে সাহায্য করছে। সমালোচকরা যুক্তি দেন যে আইপিএল খেলোয়াড়দের উন্নয়নের চেয়ে বিনোদনকে অগ্রাধিকার দেয়, আবার আইপিএলএর সমর্থকরা দাবি করেন যে এটি অমূল্য এক্সপোজার এবং অভিজ্ঞতা নতুন নতুন খেলোয়াড়দের দিচ্ছে,যার ফলে বহু নতুন প্রতিভা সামনে আসার সুযোগ পাচ্ছে।আজ এই নিবন্ধে, আমরা তর্কের উভয় দিকই অন্বেষণ করব এবং ভারতীয় ক্রিকেটারদের দক্ষতার উপর IPL-এর প্রভাব বিশ্লেষণ করব।

আইপিএলের পক্ষে প্রাথমিক যুক্তিগুলির মধ্যে একটি হল এখানে তরুণ ভারতীয় প্রতিভারাও সেরা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারদের সাথে একই প্ল্যাটফর্মে খেলার সুযোগ পাচ্ছে। সেই সাথে খেলার বিভিন্ন শৈলী, কৌশল বড় বড় ক্রিকেটারদের দেখে শিখতে পারছে এই নবাগত ক্রিকেটাররা।তরুণ ক্রিকেটাররা বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা এবং এবি ডি ভিলিয়ার্সের মতো ক্রিকেটারদের সাথে ড্রেসিং রুম শেয়ার করতে পারছে  যা তাদের অনেকের কাছে এতদিন কল্পনার অতীত ছিল।

এছাড়াও, আইপিএলে একজন ক্রিকেটারের উপর ধারাবাহিকভাবে ভালো পারফর্ম করার একটা করার একটা চাপ থাকে, যা তাকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের উপযুক্ত করা তোলে। এই চাপ নেওয়ার ক্ষমতা পরবর্তী কালে একজন খেলোয়াড়কে আন্তর্জাতিক মঞ্চে দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করার জন্য উপযুক্ত করে তোলে।  

আইপিএলকে প্রায়ই উদীয়মান প্রতিভাদের প্রজনন ক্ষেত্র হিসাবে উল্লেখ করা হয়। আইপিএলে খেলার সময় অনেক তরুণ ভারতীয় ক্রিকেটার তাদের দক্ষতা উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নতি করেছেন। উল্লেখযোগ্য উদাহরণগুলির মধ্যে রয়েছে হার্দিক পান্ড্য, জাসপ্রিত বুমরাহ এবং ঋষভ পন্থ, যারা আইপিএলে তাদের স্থান তৈরি করার পরে বিশ্ব-মানের খেলোয়াড় হিসাবে আবির্ভূত হয়েছেন।

আইপিএলে খুব দ্রুত উচ্চ স্কোর করতে হয় যা খেলোয়াড়দের ক্রমাগত বিভিন্ন পরিস্থিতিতে মানিয়ে নিতে এবং তাদের দক্ষতা বাড়াতে সাহায্য করে। ব্যাটসম্যানদের নিত্য নতুন কৌশল অর্জন করতে হয় নিজেদের প্রাসঙ্গিকতা বজায় রাখতে,আবার বোলারদের নতুনত্ব বল করার ধরন রপ্ত করতে হয় এবং ফিল্ডারদের চটপটে এবং নির্ভুল হতে হয়। এই অতিরিক্ত পেশাদারিত্ব খেলোয়াড়দের তাদের দক্ষতা বাড়াতে এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের জন্য আরও ভালোভাবে প্রস্তুত হতে সাহায্য করে।

আইপিএল (IPL) এমন একটি পরিবেশ দেয় যা একজন ক্রিকেটারকে প্রেসার হ্যান্ডলিং করতে শেখায়। খেলোয়াড়রা কেবল তাদের ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলির প্রত্যাশাই নয়, জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক ফ্যান বেসেরও মুখোমুখি হয় এর খেলার মাধ্যমে। এই চাপ মোকাবেলা করতে শেখা ভারতীয় ক্রিকেটারদের দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করার সময় আন্তর্জাতিক মঞ্চে বিশেষ উপকৃত করে।

ভারত বৈচিত্র্যময় জলবায়ু এবং বিভিন্ন ধরনের পিচ অবস্থার একটি বিশাল দেশ। আইপিএল-এর খেলোয়াড়রা বিভিন্ন শহরে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে এবং প্রতিটি শহরের নিজস্ব জলবায়ু রয়েছে। এই বৈচিত্রটি তরুণ ক্রিকেটারদের জন্য একটি দুর্দান্ত শেখার সুযোগ। যা তাদের বিভিন্ন জলবায়ুর সাথে মানিয়ে নিতে এবং সেই অনুযায়ী তাদের দক্ষতা বাড়াতে সাহায্য করে।

যদিও আইপিএল (IPL)  নিঃসন্দেহে অনেক সুবিধা দেয়, তবু এটি সমালোচনা ছাড়া নয়। কেউ কেউ যুক্তি দেন যে টুর্নামেন্টটি খেলোয়াড়দের উন্নয়নের চেয়ে বিনোদনকে অগ্রাধিকার দেয়।তাৎক্ষণিক ফলাফলের চাহিদা, বিনোদন মূল্য, এবং ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকদের চাপ খেলোয়াড়দের একটি আক্রমণাত্মক শৈলী গ্রহণ করতে বাধ্য করতে পারে যা সবসময় ক্রিকেটের ঐতিহ্যগত ফর্ম, বিশেষ করে টেস্ট ক্রিকেটের জন্য অনুকূল নাও হতে পারে।

আইপিএল-এর কঠিন সময়সূচীও খেলোয়াড়দের বার্নআউটের দিকে নিয়ে যেতে পারে, যা আন্তর্জাতিক ম্যাচে তাদের পারফরম্যান্সকে প্রভাবিত করতে পারে। আইপিএলে অংশগ্রহণ এবং জাতীয় দায়িত্ব পালনের জন্য খেলোয়াড়দের সংরক্ষণের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখা অপরিহার্য।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


SAFF Final: কুয়েতকে হারিয়ে সাফ চ্যাম্পিয়ন ভারত

উত্তরাপথ: SAFF Final (সাফ) ফুটবলের শিরোপা হাতছাড়া করেনি এবারও ভারত। শ্বাসরুদ্ধকর লড়াই শেষে শিরোপা নিজেদের কাছেই রেখে দিল Blue Tigers -রা। এই নিয়ে রেকর্ড ৯ম বার এই শিরোপা নিজেদের কাছে রাখল সুনিল ছেত্রীরা। টাইব্রেকারে তারা কুয়েতকে হারিয়েছে ৫-৪ ব্যবধানে । তবে এই জয় খুব সহজে পায়নি সুনিল ছেত্রীরা। বেঙ্গালুরুর শ্রী কান্তিরাভা স্টেডিয়ামে কুয়েতের বিপক্ষে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই শেষে শিরোপা দখলে নিল ভারত। নির্ধারিত সময়, অতিরিক্ত সময় অতঃপর টাইব্রেকার; তবুও নিষ্পত্তি হয়নি শিরোপার। অবশেষে ভারত শিরোপা বুঝে পায় সাডেন ডেথে। .....বিস্তারিত পড়ুন

 সম্পাদকীয়

পশ্চিমবঙ্গের ছোট-বড় যে কোনও নির্বাচন মানেই রাজনৈতিক হিংসা । সদ্য অনুষ্ঠিত পঞ্চায়েত নির্বাচনও তার ব্যতিক্রম নয়।রাজনৈতিক হিংসা যাতে না হয় নির্বাচনে তার জন্য যাবতীয় উদ্যোগ গ্রহণ করার পরও হিংসা অব্যাহত থাকল, সারা রাজ্যজুরে ঘটল তেরোটি মৃত্যুর ঘটনা ।পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে  ঘট হিংসা রাজ্যের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া সহ নাগরিকদের ভোটাধিকার নিয়ে আমাদের সামনে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে। আমাদের রাজ্যে চলতে থাকা রাজনৈতিক হিংসার পেছনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ একাধিক কারণ থাকলেও বেকারত্ব সহ দুর্বল গ্রামীন অর্থনীতি এর প্রধান কারণ । দুর্বল গ্রামীন অর্থনীতির কারণে বেশীরভাগ গ্রামীন এলাকার মানুষদের অর্থনৈতিক উপার্জনের সুযোগ খুব কম। বিশেষত স্বল্প শিক্ষিত সেই সব মানুষদের যারা না পায় সরকারি চাকুরি না পারে ঠিকা শ্রমিকের কাজ করতে, গ্রামীন অর্থনীতিতে বিশাল সংখ্যক মানুষ এই শ্রেনীর অন্তর্গত .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top