Manbhum Sanskriti: মানভূমের কৃষিকেন্দ্রিক ব্যঙ্গাত্মক প্রবাদ

ড. নিমাইকৃষ্ণ মাহাতো

প্রবাদে ব্যঙ্গ  আসে মূলত স্বভাব সংশোধনের  প্রয়োজনে। অনেক সময় সমাজ সমালোচনা ব্যঙ্গাত্মক প্রবাদের উদ্দেশ্য হয়। মানভূমের কৃষক সমাজেও এই ধরনের ব্যঙ্গাত্মক প্রবাদ  লক্ষ্য করা যায়। যেমন – 

 বাপের কালে নাইকো চাষ,

              ধানকে বলে দুর্বা ঘাস।

এখানে কৃষিকাজ সম্পর্কে অনভিজ্ঞ ব্যক্তিদের চরম ব্যঙ্গ করে বলা হয়েছে যে, তারা কৃষিজ ফসলের  অন্যতম প্রধান  ধান গাছকেও দুর্বা ঘাস বলে মনে করে। প্রবাদটিতে ঘুরিয়ে বলা হয়েছে যে, কৃষকেরাই কৃষিসংক্রান্ত বিষয়গুলি  ভালোভাবে বুঝতে পারে এবং কৃষিকাজ দক্ষতার সঙ্গে সম্পন্ন করতে পারে।

প্রবাদটির বাস্তব সমাজজীবনে প্রাসঙ্গিকতা 

বাস্তব সমাজজীবনে দেখা যায়, অনেক ব্যক্তি আছেন যাঁরা যে বিষয়ে অনভিজ্ঞ সেই বিষয়ে এমন কিছু বলেন বা ধারণা পোষণ করেন যা মূল বিষয় থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন। অনভিজ্ঞ ব্যক্তিদের সংশ্লিষ্ট বিষয়ে মন্তব্য করতে যাওয়া বা মতামত দেওয়ার প্রবণতাকে আলোচ্য প্রবাদটিতে তীব্র ব্যঙ্গ করা হয়েছে।

       শ্রাবণে জ্বরে অঘ্রানে ঘরে, 

      সে পুত হয়ে কেনে না মরে। 

শব্দার্থ : ঘরে – এখানে ‘ঘরে’ বলতে নিষ্কর্মা হয়ে বাড়িতে বসে থাকাকে বোঝানো হয়েছে।

পুত – পুত্র । এখানে ‘পুত’ বলতে মূলত চাষিকে বোঝানো হয়েছে। 

ব্যাখ্যা : কৃষকদের জীবন জীবিকায় শ্রাবণ ও অগ্রহায়ণ মাস অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সময়। পুরুলিয়া জেলা ও তৎসংলগ্ন অঞ্চলে ধান চাষ হিসাবে মূলত আমন ধানের চাষই করা হয়। এই আমন ধান রোপণের উৎকৃষ্ট সময় হলো শ্রাবণ মাস। তাই, শ্রাবণ মাসে কোন চাষি যদি শারীরিক অসুস্থতার কারণে বা কোন অজুহাতে ঘরে বসে অলস নিষ্কর্মার জীবন যাপন করে তাহলে তার চাষের কাজে বিঘ্ন ঘটে এবং আগামী দিনগুলি ফসল প্রাপ্তির অভাবে হেতু কষ্টকর হয়ে ওঠে।

অনুরূপভাবে,  অগ্রহায়ণ মাসে আমন ধান কাটার সময় কোন চাষি যদি ফসল কাটার কাজে নিযুক্ত না থেকে বাড়িতে অলসভাবে জীবন কাটায়,  তাহলে সেই চাষির জীবনও অভাব ও দারিদ্র্যের আঘাতে জর্জরিত হয়। তখন যেন তার বেঁচে থাকাই নিরর্থক হয়ে যায়। সেই পরিস্থিতিতে, এরকম অলস চাষির বেঁচে থাকার নৈতিক অধিকারও যেন থাকে না।

আলোচ্য প্রবাদটির প্রাসঙ্গিকতা কৃষক সমাজের মধ্যেই গভীরভাবে দেখা যায়। কঠিন কৃষকজীবনে অবসর খুব কম। তাই, নির্দয় হলেও এই সত্য মেনে নেওয়া দরকার যে কাজের সময় ঘরে বসে থাকার চেয়ে মৃত্যুই শ্রেয়।

        শুবার সময় রুবার কথা ,

            কোন ক্ষেতটা হবেক কাদা ?

 শব্দার্থ : শুবার সময় – ‘শুবার সময়’ বলতে এখানে রাত্রিতে ঘুমোবার সময়কে বোঝানো হয়েছে।  রুবার – রোপণ করার।

ব্যাখ্যা : কৃষিকাজে সঠিক সময়ে সঠিক পরিকল্পনা ও ভাবনা-চিন্তার বিশেষ প্রয়োজন হয়। কৃষকেরা অনুকূল সময়ে এই ভাবনাচিন্তা বা পরিকল্পনা করেন। কৃষিকাজ দিনের বেলা হয়। চাষিরা সারাদিন পরিশ্রম করে ক্লান্ত হয়ে পড়ে। তাই, রাত্রিতে ঘুমোবার সময় তারা দ্রুত ঘুমে আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। সুতরাং, ঘুমোবার সময় পরবর্তী দিনের চাষের কাজের পরিকল্পনা করা চাষির কাছে কখনোই অনুকূল সময় নয়। বরং এই আলোচনা তার কাছে সেই সময় নিরর্থক।

সুতরাং আলোচ্য প্রবাদটিতে পরোক্ষভাবে বলা হয়েছে চাষের কাজে সঠিক সময়ে সঠিক পরিকল্পনা প্রয়োজন। কৃষকের বাস্তব জীবনে সময় পরিকল্পনাকে আলোচ্য প্রবাদে সুন্দরভাবে তুলে ধরা হয়েছে। এই বিশ্বাসে বিশ্বাসী কৃষকেরা শ্রমের ক্লান্তি মেটানোর সময় বা ঘুমের সময় ব্যাঘাত ঘটবে না। এতে পরবর্তী দিনের জন্য কৃষক শারীরিক ক্ষমতাকে সম্পূর্ণভাবে অর্জন করতে পারে। 

বাপের কালে  চাষ নাই, বেনামুড়ে জিহুড় ।

শব্দার্থ : জিহুড় – মূলত পুরুলিয়া জেলা ও তৎসংলগ্ন অঞ্চলের কৃষক সমাজে আশ্বিন মাসের সংক্রান্তির দিনটিকে ‘ জিহুড় ‘ বলা হয়। ধান গাছকে আসন্ন প্রসবা লক্ষ্মী মনে করে কৃষকেরা ওই দিন ‘স্বাদ অন্ন’ অনুষ্ঠান করে থাকে। 

ব্যাখ্যা : কৃষক সমাজে ধান গাছকে লক্ষ্মী স্বরূপা বলে গণ্য করা হয় । আশ্বিন মাসের শেষ দিকে ধান গাছে ( আমন ধান ) থোড় (ধানের শীষ ) আসতে শুরু করে। মূলত পুরুলিয়া জেলা ও তৎসংলগ্ন অঞ্চলের কৃষক সমাজে আশ্বিন মাসের সংক্রান্তির দিনটিকে জিহুড় বলা হয়। ওই দিন এই অঞ্চলের কৃষকেরা ধান গাছকে আসন্ন প্রসবা লক্ষ্মী মনে করে বিশেষ আচার অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে স্বাদ-ভক্ষণ করায়। জিহুড় হলো এখানকার কৃষক সমাজে প্রচলিত একটি গুরুত্বপূর্ণ কৃষিকেন্দ্রিক আচার অনুষ্ঠান।

কিন্তু যাদের চাষবাস নেই তাদের কাছে জিহুড়ের আচার-অনুষ্ঠান গুরুত্বহীন। আলোচ্য প্রবাদটিতে কিছুটা ব্যঙ্গাত্মক ভঙ্গিতেই বলা হয়েছে যাদের চাষবাস নেই তারা যেন ধান গাছের পরিবর্তে বেনা ঘাসের উপরেই জিহুড়ের অনুষ্ঠান করেন অর্থাৎ তাদের কাছে জিহুড়ের অনুষ্ঠান যে নিরর্থক- সে কথায় এখানে বলা হয়েছে।   

সমাজে ব্রাহ্মণ শ্রেণীকে তার কৃষিকাজে অনভিজ্ঞতা ও কুড়েমির জন্য প্রবাদে ব্যঙ্গ করা হয়েছে। যেমন – 

 ক ) বামুন চাষা, বতর নাশা।

   ( শব্দার্থ :  বতর – অনুকূল অবস্থা, সুযোগ )

 খ ) বামুন ঘরের আঁইড়া গরু ।

এই প্রবাদ গুলিতে যেমন একদিকে বামুন চাষার অলস ও শ্রমবিমুখ জীবনযাপনকে ব্যঙ্গবিদ্ধ করা হয়েছে, অন্যদিকে তেমনি বামুন চাষার আঁইড়া গরুর নিষ্কর্মা জীবনের কথাও তুলে ধরা হয়েছে। এইভাবে সমাজের কোন বিশেষ শ্রেণী সম্পর্কে একটি বিশেষ ধারণা কৃষক সমাজের মধ্যে গড়ে ওঠে।  

এই ধরনের ব্যঙ্গাত্মক প্রবাদগুলি কাউকে ব্যক্তিগত আক্রমণের জন্য রচিত হয়নি। এগুলি প্রচলিত হয়েছে মূলত সমাজ সংশোধনের জন্য এবং ব্যক্তি চরিত্রের স্বভাব সংশোধনের জন্য। এখানেই এগুলির গুরুত্ব।

এই লেখকের অন্যান্য প্রবন্ধ: লিরন মাসে (বৈশাখ ও জ্যৈষ্ঠ মাস) মানভূমের লোক- পার্বণ, মানভূমে প্রচলিত কৃষিপদ্ধতি সংক্রান্ত প্রবাদ, মানভূমে প্রচলিত রাত কহনি

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


কানারা ব্যাঙ্কের উপর ২.৯২ কোটি জরিমানা করল আরবিআই

উত্তরাপথ: সম্প্রতি ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক বিভিন্ন নিয়ম লঙ্ঘনের জন্য কানারা ব্যাঙ্কের উপর ২.৯২ কোটি টাকা জরিমানা করেছে। ২০২০ সালের জুলাই মাসে আরবিআই দ্বারা ব্যাঙ্কের একটি স্ক্রুটিনি করা হয়েছিল,তাতে যাচাই-বাছাইয়ের পরে, আরবিআই দেখতে পেয়েছে যে ব্যাঙ্ক ফ্লোটিং রেট খুচরা ঋণ এবং এমএসএমই-কে ঋণের সুদকে একটি বাহ্যিক বেঞ্চমার্কের সাথে সংযুক্ত করতে কানারা ব্যাঙ্ক ব্যর্থ হয়েছে এবং ২০২০-২১ আর্থিক বছরে অনুমোদিত ও পুনর্নবীকরণকৃত ফ্লোটিং রেট রুপি ঋণের সুদকে তার প্রান্তিক খরচের সাথে সংযুক্ত করতে ব্যর্থ হয়েছে।আরবিআই বলেছে, অযোগ্য সংস্থার নামে বেশ .....বিস্তারিত পড়ুন

রাহুলের ভারতজোড় সাফল্য পেলেও, অভিষেক কি পারবে ?

উত্তরাপথ: রাহুল গান্ধীর ১৪৬ দিনের প্রায় ৩৮৫০ কিলোমিটার ভারতজোড় যাত্রার সাফল্য কংগ্রেস ঘরে তুলতেই তৃনমূলের নতুন উদ্যোগ জনসংযোগ যাত্রা।এই যাত্রায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ৬০ দিনে ৩,৫০০ কিলোমিটার দীর্ঘ " জনসংযোগ " করবেন। উত্তরবঙ্গের কোচবিহার জেলার দিনহাটা থেকে শুরু হওয়া এই যাত্রা রাজ্যের সবচেয়ে দক্ষিণ প্রান্ত দক্ষিণ ২৪ পরগণার কাকদ্বীপে শেষ হবে। এই পুরো যাত্রায় অভিষেক মোট ২৫০টি সমাবেশে ভাষণ দেবেন। এখন প্রশ্ন তৃণমূল তথা অভিষেকের জনসংযোগ যাত্রার প্রাসঙ্গিকতা নিয়ে। কংগ্রেস তথা রাহুল গান্ধীর ভারতজোড় যাত্রার উদ্দেশ্য .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top