অসংখ্য স্মরণীয় মুহূর্ত উপভোগ করেছি ছাত্রছাত্রীদের কল্যাণে-অধ্যাপক ডঃ নিমাই চন্দ্র দে

পরিবারের সাথে অধ্যাপক ডঃ নিমাই চন্দ্র দে

আজ আমরা যাকে নিয়ে লিখতে চলেছি তিনি হলেন বাঁকুড়া শালডিহা কলেজের প্রাক্তন অধ্যাপক ডঃ নিমাই চন্দ্র দে। তিনি কোনও রাষ্ট্রপতি পুরষ্কার প্রাপ্ত বা নিদেনপক্ষে রাজ্যসরকারের পুরষ্কার প্রাপ্ত কোনও অধ্যাপক নন। তবে তাঁর বিপুল জনপ্রিয়তা বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, আসানসোল, রানিগাঞ্জ, রঘুনাথপুর, বর্ধমান, দুর্গাপুর, আরামবাগ, বিষ্ণুপুর সহ দক্ষিণবঙ্গের বিস্তীর্ণ অঞ্চলের ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকদের মধ্যে। তাঁর এই বিপুল জনপ্রিয়তা যে কোনও ব্যক্তির ঈর্ষার কারণ হতে পারে ।

শোনা যায় ডঃ দে’র জনপ্রিয়তার প্রধান কারণ তিনি এমন একজন অধ্যাপক যিনি ভৌত রসায়নের (Physical Chemistry) মত জটিল বিষয়কে খুব সহজ ভাবে ছাত্রছাত্রীদের কাছে উপস্থাপন করতেন। তারফলে ভৌত রসায়ন তাঁর ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে খুব জনপ্রিয় বিষয় হয়ে উঠেছিল। এখনও বাঁকুড়ায় রসায়ন নিয়ে আলোচনা করতে হলে ডঃ নিমাই চন্দ্র দে’র নাম অবশ্যই আলোচনায় আসবে ।

তাঁর প্রাক্তন ছাত্রদের কথায় আজ থেকে প্রায় ২০-২৫ বছর আগে থেকে দক্ষিণবঙ্গের এক বিস্তীর্ণ অঞ্চলের ছেলেমেয়েরা দেশে ও বিদেশে ভৌত রসায়নে তাদের উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছে। তাদের এই কৃতিত্বের বড় অংশের দাবীদার ডঃ দে। তাদের মতে স্যার চাইলেই শহরের কোনও বড় কলেজে অধ্যাপনা করতে চলে যেতে পারতেন,কিন্তু স্যার গ্রামের ছাত্রদের কথা ভেবে কথাও যাননি

আজ ডঃ দে’র তৈরি ছাত্ররা দেশের বিভিন্ন স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান যেমন DRDO, ISRO, BARC, IIT, NIPER, IISER, NIT, CSIR, NISER সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় এবং গবেষণা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত। এছাড়া তাঁর বহু ছাত্রছাত্রী সরাসরি শিক্ষকতার সাথে যুক্ত।

আজ ডঃ দে’র সাথে তাঁর কর্মজীবন সহ তাঁর ব্যক্তিগত জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে কথা বলেছেন উত্তরাপথের প্রধান সম্পাদক গার্গী আগরওয়ালা মাহাতো

উত্তরাপথঃ আপনি কেন শিক্ষকতাকে পেশা হিসাবে বেছে নিয়েছিলেন?

ডঃ দেঃ আমি ছাত্রাবস্থা থেকেই নীচু ক্লাসের ছাত্রছাত্রীদের প্রাইভেট কোচিং দিতে শুরু করি পরিবারের কিছু আর্থিক বাধ্যবাধকতার কারণে। এরপর আমি যখন M.Sc. পড়তে শুরু করি তখন আমার সহপাঠীদের কিছু অর্থের বিনিময়ে কঠিন বিষয়গুলো বুঝিয়ে দিই এর আগে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করে একটি বিদ্যালয়ে সাম্মানিক শিক্ষক হিসাবে কাজ করি এবং তখন থেকেই শিক্ষকতা পেশার উপর আমার আগ্রহ বাড়তে থাকে। এছাড়া আমার সংগ্রামী জীবনে আমার শিক্ষকেরা আমার জীবন গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। তারা আমাকে নানাভাবে পরামর্শ দিয়ে, ভালোবাসা দিয়ে,সহানুভূতি দিয়ে আমার পাশে থেকেছেন। আমিও সেই সময়েই প্রতিজ্ঞা করি আমি শিক্ষক হয়ে আমার ছাত্রছাত্রীদের পাশেও চিরকাল এই ভাবেই থাকব। সেই ভালোবাসা থেকেই আমার এই শিক্ষকতার পেশায় আসা।

উত্তরাপথঃ শুনেছি আপনি পুরুলিয়ার এক প্রত্যন্ত গ্রামে জন্মগ্রহন করেন, তারপর দীর্ঘ সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে আপনি বাঁকুড়া শালডিহা কলেজের রসায়নের অধ্যাপক হন। আপনার জার্নি সম্পর্কে যদি কিছু বলেন যাতে আগামী দিনে অন্যরাও অনুপ্রেরণা পায়।

ডঃ দেঃ হ্যাঁ, আমার জন্ম ২৭সেপ্টেম্বর ১৯৪৬ সালে পরাধীন ভারতে পুরুলিয়ার এক গ্রামে। আমি যখন ছোট সেই সময় আমার বাবা মারা যান।আমার মা কে সংসারের সমস্ত দায়িত্ব পালন করতে হয়। সেই সময় দেশ সদ্য স্বাধীন হয়েছে দেশে পর্যাপ্ত  পরিকাঠামো তৈরি হয়নি। সবনিয়ে এক কঠিন পরিস্থিতির মধ্যদিয়ে আমাকে বড় হতে হয়েছে। তবে আমার মা আমাকে পড়াশুনার ব্যাপারে সবসময় উৎসাহ দিয়েছেন,আমার পাশে থেকেছেন এবং অনুপ্রেরণা দিয়েছেন তাঁর সীমিত সামর্থ্য দিয়ে। এরপর ষষ্ঠ শ্রেণীতে পরার সময় আমি একটি বৃত্তি পাই। এরপর আমি অনার্স পাশ করি সেখানেও মাস্টারমশায়রা আমাকে  অনেক সাহায্য করেন এরপর M.Sc.পাশ করি এবং তাতে ভালো ফল করি। তারফলে তৎকালীন শালডিহা কলেজের সম্পাদক মহাশয় স্বর্গত আশ্বিনী কুমার পতি মহাশয় আমাকে শালডিহা কলেজে যোগদান করার জন্য আমন্ত্রণ জানান এবং আমি শালডিহা কলেজে অধ্যাপক হিসেবে যোগদান করি। ১৯৭১ সালের ১লা এপ্রিল থেকে ২০০৬ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আমি শালডিহা কলেজে অধ্যাপনা শুরু করি। কিন্তু আমার অধ্যাপনার জীবনও অত সহজ ছিল না। কিন্তু আমি বরাবর নিজের লক্ষ্যে স্থির থেকে অধ্যাপনার জগতে নিজের কিছু অবদান রাখার চেষ্টা করেছি। তাই আমি বাকিদেরও বলব তোমরা যে কাজই কর মন দিয়ে কর তাতেই সফলতা আসবে।

উত্তরাপথঃ অধ্যাপনার জীবনে আপনার গর্বের মুহূর্ত কোনটি?

ডঃ দেঃ আমার জীবনে Ph D করার খুব ইচ্ছে ছিল কিন্তু চাকুরি করার জন্য তা সম্ভব হচ্ছিলনা। ১৯৭৬ সালে UGC-র একটা স্কিম আসে, সেই স্কিমে আমি PhD করার জন্য ১৯৭৬ সাল থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত ৪ বছর সবেতন ছুটি পাই। সেই সমই আমি Indian schools of mines ধানবাদ থেকে গবেষণা করি এবং ১৯৮০ সালে  PhD ডিগ্রী পাই। আমার অধ্যাপনার জীবনে এটি আমার এক বিশেষ গর্বের মুহূর্ত।

উত্তরাপথঃ আপনি যখন নিজে ছাত্র ছিলেন সেই সময়ের আপনার বিশেষ কোনও অভিজ্ঞতা?

ডঃ দেঃ আমার ছাত্র জীবন অসংখ্য তিক্ত অভিজ্ঞতায় ভরা কারণ দারিদ্র মানুষকে পদে পদে অপমানিত করে। আমার ছাত্র জীবনে আমি রান্না করে, বাজার করে অসম্ভব কষ্ট করে লেখাপড়া চালিয়ে গেছি। আমি অনার্স পড়ার জন্য যখন বিষ্ণুপুর রামানন্দ কলেজে ভর্তি হয় সেখানেও অনার্সের কোনও পরিকাঠামো ছিলনা কারণ আমরাই অনার্সের প্রথম ব্যাচ ছিলাম। সেই সময় আমি অনেক পরিশ্রম করে অনার্সেও ভালো ফল করি। যারা আমাকে সেই সময় সাহায্য করেছিলেন তাদের মধ্যে ছিলেন গুনিয়াদা স্কুলের মাস্টার মশায় যামিনী মোহন পন্ডা, বিষ্ণুপুর রামানন্দ কলেজের অধ্যক্ষ রমাপতি ভট্টাচার্য মহাশয় এবং আরও কয়েকজন শিক্ষক আমার জীবনের উন্নতিতে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন।

উত্তরাপথঃ বতর্মান শিক্ষার ক্ষেত্রে কোন বিষয়টি আপনাকে সবচেয়ে বেশী হতাশ করে?

ডঃ দেঃ বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থায় চাকুরিহীনতা আমাকে সবচেয়ে বেশী ব্যথিত করে। যখন ভালো ভালো ছাত্র ছাত্রীরা Ph.D. এবং Post doc.করে এসে আমাকে বলে স্যার কোনও চাকুরির অফার পাচ্ছিনা এটি আমাকে খুব ব্যথিত করে ।

উত্তরাপথঃ আপনি কিভাবে আপনার ছাত্রদের মূল্যায়ন করবেন? আপনার ছাত্রদের কে কোথায় প্রতিষ্ঠিত?

ডঃ দেঃ আমার প্রথম দিকের ছাত্রছাত্রীদের বেশীর ভাগ প্রত্যন্ত গ্রামের পরিকাঠামো বিহীন অবস্থার মধ্যদিয়ে বড় হয়েছে। তারপর তারা যখন এই কলেজে ভর্তি হয় সেই সময় দেখেছি তাদের প্রচণ্ড সংগ্রাম করে এগিয়ে যেতে। বর্তমানে আমার ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে সবাই দেশে – বিদেশের বিভিন্ন উচ্চপদে প্রতিষ্ঠিত। আমার ছাত্রছাত্রীদের তালিকা খুব দীর্ঘ। তবে এই মুহূর্তে আমি দুই – এক জনের কথা বলতে পারি একজন হলেন ডঃ সুশান্ত ব্যানার্জী আই আই টি খড়গপুরের প্রফেসর এবং অন্যজন ডঃ আদিনাথ মাঝি বিশ্ব ভারতীর কেমিস্ট্রি ডিপার্টমেন্টের বিভাগীয় প্রধান।

উত্তরাপথঃ আপনার শিক্ষকতার যাত্রাকে আপনি কিভাবে ব্যাখ্যা করবেন?

ডঃ দেঃ আমার শিক্ষকতার জীবন খুব একটা সহজ ছিল না। ১৯৭১ সালে কলেজে যোগদান করার পর ১৯৭২ সালে কলেজের সহযোগী শিক্ষকদের সহযোগিতায় রসায়ন বিভাগের অনার্স কোর্স খুলতে সক্ষম হই এবং খুব কম সময়ের মধ্যে আমরা এটিকে কলেজের একটি প্রাইম সাবজেক্টের বিভাগ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হই । আমি যখন ক্লাসে পড়াতাম এবং ছাত্রছাত্রীরা তা বুঝতে পারত সেটা আমাকে খুব আনন্দ দিত। আমাদের কেমিস্ট্রি বিভাগ থেকে বহু ছাত্র ভালো রেজাল্ট করে বেরিয়েছে।

উত্তরাপথঃ এই দীর্ঘ অধ্যাপনার জীবনে কোনও উল্লেখযোগ্য স্মরণীয় মুহূর্ত?

ডঃ দেঃ আমি খুব এই দিক থেকে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করি যে আমি আমার অধ্যাপনার জীবনে একটি নয়,অসংখ্য স্মরণীয় মুহূর্ত উপভোগ করতে পেরেছি আমার প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীদের কল্যাণে। আমি যখন শুনি তারা বড় বড় পদে প্রতিষ্ঠিত এটা আমার কাছে খুব আনন্দের এবং খুব স্মরণীয় মুহূর্ত।

উত্তরাপথঃ শিক্ষকতা একটি সহজ না কঠিন কাজ। আপনি কিভাবে এটিকে দেখেন?

ডঃ দেঃ আমার মতে শিক্ষকতা একটি কঠিন কাজ, এটি অন্য আর পাঁচটি কাজের মত নয়। এখানে একজন শিক্ষককে সব সময় তাঁর চালচলন, পোশাক-আশাক, কথাবার্তা মার্জিত রাখতে হয় যাতে অন্যরা তা অনুকরণ করে নিজেকে একজন দায়িত্ববান এবং আদর্শ নাগরিক হিসাবে গড়ে তুলতে পারে। তাই আমি এটিকে একটি দায়িত্বপূর্ণ কঠিন কাজ বলে মনে করি।

উত্তরাপথঃ রসায়নে আপনি বাঁকুড়া তথা দক্ষিণ বঙ্গের একজন জনপ্রিয় অধ্যাপক ছিলেন। বর্তমানে আপনি কিভাবে সময় কাটান?

ডঃ দেঃ ২০০৬ সালে অবসর গ্রহণের পর আমি কেমিস্ট্রি অনার্সের ছাত্রছাত্রীদের সুবিধার জন্য আমার সমস্ত কেমিস্ট্রি অনার্সের নোটপত্রগুলিকে টাইপ করে এবং প্রায় ৯৬ টির মত রসায়নের সাম্মানিক স্তরের উপযোগী ভিডিও লেকচার ইউ টিউবে আপলোড করেছি। এছাড়া আমি একটি বই লিখেছি Thermodynamics- Principles and Applications নামে যেটি New Central Book Agency প্রকাশ করেছে।

উত্তরাপথঃ আমাদের বতর্মান শিক্ষক বা আগামীদিনের শিক্ষক বা ছাত্রদের জন্য বিশেষ কোন বার্তা?

ডঃ দেঃ আমাদের বতর্মান শিক্ষক বা আগামীদিনের শিক্ষক বা ছাত্রদের কাছে একটি বার্তা  ছাত্রশিক্ষক সম্পর্ক যেন মধুর থাকে। যাতে শিক্ষকও ছাত্রকে স্নেহ দিয়ে কাছে টেনে নেয় আর ছাত্রও শিক্ষকের প্রতি তাদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা দিতে পারে।

উত্তরাপথঃ আমাদের সময় দেওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

ডঃ দেঃ আপনাদেরকেও ধন্যবাদ।

ডঃ দে’র সাথে সাক্ষাৎকারের মাঝে

ডঃ দে’র সম্পর্কে তার ছাত্রছাত্রীদের মতামত জানতে দেখুন সাহিত্য ও শিল্পের পাতায়।

খবরটি শেয়ার করুণ

4 thoughts on “অসংখ্য স্মরণীয় মুহূর্ত উপভোগ করেছি ছাত্রছাত্রীদের কল্যাণে-অধ্যাপক ডঃ নিমাই চন্দ্র দে”

  1. Dr. Dibyendu Sekhar Bag

    Dear Editor-in-Chief,
    I must appreciate your effort and thank you much for your initiative for highlighting our well respected professor, Dr. Nimai Chandra Dey. I also got a chance to remember my old days, remembrance with sir and his blessings to me. Also you gave us the opportunity to express our feelings which is merely small with respect to his calibre and potential to be appreciated. He is more than a Rastrapati Awardee and he is an example of it in my opinion.
    Finally I wish your Uttarapath to highlight many more of similar kind and it’s popularity and progress.

    Regards,
    Dr Dibyendu Sekhar Bag
    DMSRDE (DRDO), Ministry of Defence, Govt. Of India
    Kanpur-208013

  2. Respected Sir,
    প্রণাম জানাই সুদূর ব্যাঙ্গালোর থেকে I নিজেকে গর্বিত অনুভব করি যখন মনে হয়, কম দিনের জন্যে হলেও আমিও আপনার ছাত্র I আপনার সান্নিধ্য এবং আশীর্বাদ না পেলে বুঝতে পারতাম না আপনি কতটা ইউনিক I আপনার কোনো তুলনা হ়না না স্যার I আপনার কোনো দ্বিতীয় হয় না I পুরস্কারের অনেক উর্ধে আপনি I আপনি ভালো থাকুন, আপনি সুস্থ থাকুন স্যার I অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই উওরাপথ.com কে তাদের এইরকম একটি প্রতিবেদন উপস্থাপনার জন্য I

    With best regards !
    Sunil Mandal
    Joint Director
    (Strategic Missilrs System)
    Min of Defence
    Govt of India
    Bangalore/560013

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


বিশ্বকাপ ২০২৩: পাকিস্তানকে হারিয়ে Afghanistan এ ঈদের মতো পরিস্থিতি

আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০২৩-এর ২২ তম ম্যাচে আফগানিস্তান পাকিস্তানকে বিশাল ব্যবধানে পরাজিত করেছে। সেই ম্যাচে পাকিস্তানকে ৮ উইকেটে হারিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করে আফগানিস্তান। এই প্রথম ওয়ানডেতে পাকিস্তানকে হারাল আফগানিস্তান আর এই পাকিস্তানকে হারিয়ে আফগানিস্থানে(Afghanistan)এখন ঈদের মতো পরিস্থিতি।এক আফগানিস্থানি সমর্থকের মতে এটি ছিল আমাদের ইতিহাসের একটি বিরল মুহূর্ত যখন পুরো জাতি খুশি ছিল এবং নিজেদের মত করে তারা তাদের এই খুশী উদযাপন করেছেন। এক্স হ্যান্ডেলে এক সমর্থকের মতে, সেদিন উদযাপন ছিল, পার্টি ছিল। এটি ছিল আমাদের ইতিহাসের একটি বিরল মুহূর্ত যখন পুরো জাতি খুশি ছিল এছাড়াও, এটি ছিল ২০২৩ বিশ্বকাপের তৃতীয় বড় আপসেট । টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বাবর আজমের দল। প্রথমে ব্যাট করে পাকিস্তান দল ২৮২ রান করে। জবাবে আফগানিস্তান দল ২৮৩ রান তাড়া করে ৪৯ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্য অর্জন করে। এই ম্যাচে হারের পর বেশ ক্ষুব্ধ দেখাচ্ছিল অধিনায়ক বাবর আজমকে। ম্যাচ-পরবর্তী উপস্থাপনার সময়, তিনি দলের ত্রুটিগুলি তালিকাভুক্ত করেছিলেন এবং পরাজয়ের জন্য নিজেদের দায়ী করেছিলেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Fructose: নতুন গবেষণায় ফ্রুক্টোজকে স্থূলতার কারণ বলা হয়েছে

উত্তরাপথঃ একটি সাম্প্রতিক গবেষণায় জোরালো প্রমাণ দেওয়া হয়েছে যে ফ্রুক্টোজ (Fructose), সাধারণত প্রক্রিয়াজাত খাবার এবং পানীয়গুলিতে থাকা এক ধরনের চিনি, যা স্থূলতার প্রাথমিক চালক। বছরের পর বছর ধরে, পুষ্টি বিশেষজ্ঞরা , পাশ্চাত্য খাদ্যে, স্থূলতার মূল কারণ নিয়ে বিতর্ক করেছেন, কেউ কেউ অত্যধিক ক্যালোরি গ্রহণের দিকে ইঙ্গিত করেছেন, অন্যরা কার্বোহাইড্রেট বা চর্বি জাতীয় খাবারকে দায়ী করেছেন। Obesity জার্নালে সাম্প্রতিক একটি গবেষণাপত্রে ফ্রুক্টোজকে স্থূলতার প্রকৃত চালক হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে।The University of Colorado Anschutz Medical Campus এর Dr. Richard Johnson এবং তার দলের মতে, ফ্রুক্টোজ হল একটি সাধারণ চিনি যা ফল এবং মধুর প্রাথমিক পুষ্টি। .....বিস্তারিত পড়ুন

Karar Oi Lauh Kapat: কাজী নজরুলের এই গানকে ঘিরে  বিতর্কে এ আর রহমান

উত্তরাপথঃ বিতর্কে 'পিপ্পা' ছবির সঙ্গীত পরিচালক অস্কারজয়ী সুরকার এ আর রহমান।সম্প্রতি কবি কাজী নজরুল ইসলামের পরিবার একটি হিন্দি ছবিতে কবির জনপ্রিয় গান 'করার ঐ লৌহ কাপাত...' (Karar Oi Lauh Kapat )।কিন্তু এ আর রহমানের সঙ্গীত পরিচালনায় ওই গানটি যেভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে তাতে আপত্তি জানিয়েছে নজরুল পরিবার।বিতর্কের পর যে চুক্তির আওতায় ওই গানটি ছবিতে ব্যবহার করা হয়েছে তা প্রকাশ্যে আনার দাবি তুলেছে কবির পরিবার।'পিপ্পা' শিরোনামের হিন্দি চলচ্চিত্রটি যেখানে (Karar Oi Lauh Kapat )গানটি ব্যবহার করা হয়েছে তা বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেওয়া একজন ভারতীয় সেনা সৈনিককে কেন্দ্র করে একটি সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত। ছবির সঙ্গীত পরিচালক অস্কারজয়ী সুরকার এ আর রহমান। গানের কথা ঠিক রেখেও সুর পাল্টানোর অভিযোগে ভারত ও বাংলাদেশে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে।কবির পরিবারের অভিযোগ, গানটি ব্যবহারের অনুমতি দিলেও সুর পরিবর্তনের অনুমতি দেওয়া হয়নি।পরিবারের সদস্যরাও ছবিটি থেকে গানটি বাদ দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Roop Kishor Soni: একটি আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য তুলে ধরেছেন

উত্তরাপথঃ রাজস্থান মানেই ওজনদার রূপার গহনা ,আর তার উপর কারুকাজ। প্রচলিত এই ধারনা ভেঙ্গে আজ রূপোর গহনাকে আধুনিকতার সাথে শিল্পের এক অপূর্ব মেলবন্ধন ঘটিয়েছেন যে ব্যক্তি তিনি হলেন রূপ কিশোরী সোনী(Roop Kishor Soni)।তিনি ২০১৬ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির কাছ থেকে তার অসাধারণ শিল্প কর্মের জন্য জাতীয় পুরুস্কার পান। রাজস্থানের জয়সলমেরের শহরের এই শিল্পী ৩.৮ গ্রাম ওজনের ০.৯ সেমি চওড়া রৌপ্য আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য খোদাই করেছেন।এই ছোট রূপার আংটিতে শিল্পী তাজমহল, সিডনি অপেরা হাউস, স্ট্যাচু অফ লিবার্টি, চীনের গ্রেট ওয়াল, আইফেল টাওয়ার, বিগ বেন, পিসার হেলানো টাওয়ার এবং মিশরীয় পিরামিডের চিত্র এক সাথে ফুটিয়ে তুলেছেন।এছাড়াও তিনি আরও দুটি পৃথক ডিজাইনের অত্যাশ্চর্য আংটি  তৈরি করেছেন।৮.৬ গ্রাম ওজনের একটি রিংয়ে তিনি সূর্যাস্তের সময় ভারতীয় উট সাফারি সহ ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন ভারতীয় বিশেষত্ব ফুটিয়ে তুলেছেন,এবং অন্যটিতে বিভিন্ন হিন্দু দেব-দেবী ছবি এবং মন্দির খোদাই করেছিলেন। শিল্পী বলেছেন যে তিনি তার বাবার কাছ থেকে তার শৈল্পিক দক্ষতা উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছেন। সেই সাথে তিনি বলেন "আমার বাবাও একজন জাতীয় পুরুস্কার প্রাপ্ত শিল্পী ছিলেন। তিনি আমাকে শিল্পের এই দক্ষতা শিখিয়েছিলেন কারণ তিনি পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যে শিল্পের ফর্মটিকে বাঁচিয়ে রাখতে চেয়েছিলেন।" .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top