করম পরবঃ আদিবাসী জাতির একটি কৃষি ভিত্তিক ঐতিহ্যবাহী উৎসব

বলরাম মাহাতোঃ আদিবাসী যেমন – কুড়মি, ওঁরাও, সাঁওতাল, মুন্ডা, পাহান, ভূমিজ সহ প্রায় ৩৮ টি জাতির মানুষ করম পরব পালন করে । প্রতি বছর ভাদ্র মাসের শুক্ল একাদশী তিথিতে করম পরব উৎসব হয়ে থাকে। এর সাত / পাঁচ / তিন দিন আগে মেয়েরা ভোরবেলায় শালের দাঁতন কাঠি ভেঙে নদী বা পুকুরে স্নান করে বাঁশ দিয়ে বোনা ছোট টুপা ও ডালায় বালি দিয়ে ভর্তি করেন। তারপর গ্রামের প্রান্তে একস্থানে ডালাগুলিকে রেখে জাওয়া গান গাইতে গাইতে তিন পাক ঘোরে। এরপর তাতে তেল ও হলুদ দিয়ে মটর, মুগ, বুট, জুনার ও কুত্থির বীজ মাখানো হয়। অবিবাহিত মেয়েরা স্নান করে ভিজে কাপড়ে ছোট শাল পাতার থালায় বীজগুলিকে বুনে দেন ও তাতে সিঁদুর ও কাজলের তিনটি দাগ টানা হয়, যাকে জাওয়া ডালি বলা হয়। এরপর ডালাতে ও টুপাতে বীজ বোনা হয়। এরপর প্রত্যেকের জাওয়া চিহ্নিত করার জন্য কাশকাঠি পুঁতে দেওয়া হয়। একে জাওয়া পাতা বলা হয়। যে সমস্ত কুমারী মেয়েরা এই কাজ করেন, তাঁদের জাওয়ার মা বলা হয়। ডালার জাওয়াগুলিকে নিয়ে তাঁরা গ্রামে ফিরে আসেন।

করম পুজোর দিন গ্রামের বয়স্কদের একটি নির্দিষ্ট স্থানে দুইটি করম ডাল এনে পুঁতে রাখা হয়, যা সন্ধ্যার পরে করম ঠাকুর এবং ধরম ঠাকুর হিসেবে পূজিত হন। কুমারী মেয়েরা সারাদিন উপোষ করে সন্ধ্যার পরে থালায় ফুল, ফল সহকারে নৈবেদ্য সাজিয়ে এই স্থানে গিয়ে পূজা করেন। করম ডালে ভেঁট (আলিঙ্গন) নেন, যা বৃক্ষের প্রতি ভালবাসার প্রতীক । এরপর করম ডাল ও জাওয়া ডালি কে ঘিরে নাচ-গান চলে। পরদিন সকালে মেয়েরা জাওয়া থেকে অঙ্কুরিত বীজগুলিকে উপড়ে নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নিয়ে বাড়িতে বিভিন্ন স্থানে সেগুলিকে ছড়িয়ে দেন। এরপর করম ডালটিকে জলে ভাসিয়ে দেওয়া হয় জলাশয়ে।এই জাওয়া উঠানোর মধ্য দিয়ে কৃষি উৎসবকে লক্ষ্য করে মেতে ওঠে পশ্চিমবঙ্গ, ঝাড়খন্ড, ছোট-নাগপুর ,উড়িষ্যার এমনকি সুদূর আসামের আদিবাসী ভাই বোনেরা।এটি সাত দিন ধরে বীজ থেকে অঙ্কুরোদগম হওয়ার উৎসব গ্রামে গঞ্জে আদিবাসী ও অ-আদিবাসীর মনে দামামা বাজায় যার শেষ হয় ধুমসা,মাদল, নাচগান ও গীতের মধ্য দিয়ে।

পশ্চিমবঙ্গের বিশেষ করে পুরুলিয়া জেলায় ছোট বড় প্রায় সব গ্রামে এই করম পরব কে উপলক্ষ করে সমস্ত আচার লোকাচার মেনে কুমারী মেয়েরা জাওয়া পাতায় পূজা করে। ছোট নাগপুরের কৃষি সভ্যতার সঙ্গে যুক্ত অতি প্রাচীন এই সংস্কৃতি রক্ষার্থে প্রতিবছরই করম পরব বিভিন্ন এলাকায় আনুষ্ঠানিক রূপে উদযাপিত হয়। শুধু মাত্র পুরুলিয়াতেই নয় পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলাতে এবং ভিন রাজ্য ঝাড়খন্ড, উড়িষ্যা ও আসামে কৃষি সভ্যতার সূচনার এই উৎসব পালন করা হয় গ্রামে গ্রামে অঙ্কুরোদগম প্রক্রিয়াকে সম্পূর্ণ সাংস্কৃতিক রূপ দিয়ে সভ্যতার বিকাশে তা কতটা তাৎপর্য পূর্ণ তা বিকশিত হয় করম নাচ ও জাওয়া গানের মধ্য দিয়ে।এই রকম একটি করম গান হলো -“আজ রে করম ঠাকুর ঘরে দুয়ারে রে ঘরে দুয়ারে আর কালরে করম ঠাকুর কাশনদীর পাড়ে”

মেয়েরা নিজেদের জীবনের সুখ দুঃখ কাহিনী তুলে ধরে এই জওয়া গানের মধ্য দিয়ে।ব্যক্তিগত সুখ-দুঃখকে বাইরে রেখে সংযোগের এই সার্বজনীন উৎসবকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন জায়গায় বসে করম আকড়ার আসর। করম উৎসব সাধারণত কুমারী মেয়েরা তাদের ভাই ও পরিবারের মঙ্গল কামনার্থে পালন করে থাকে। যার সূচনা কবে হয়েছিল তা বলা সম্ভব নয়। প্রাচীন যুগে যখন মানুষের শিকার একমাত্র জীবনের অবলম্বন ছিল, মানুষরা কৃষিকাজের ব্যবহার জানতোনা।সেইসময় ঘরের বাচ্চা বাচ্চা মেয়েরা ফলের বীজ ও ঘাসের বীজ নিয়ে খেলা করতো এবং যখন খেলা শেষ হয়ে যেত তখন সেগুলিকে পরের দিনে খেলার জন্য বালির মধ্যে ঢাকিয়ে রাখতো।এরপর একদিন তারা দেখল পুতে রাখা বীজটা অংকুর হয়ে গেছে এবং এখান থেকেই তাদের চাষের পদ্ধতির আবিষ্কার হল।

এইভাবে অংকুর হওয়ার জন্য তাদের মনে যে আনন্দ হইলো সেখান থেকেই তারা এই জাওয়া পাতিয়ে তাকে ঘিরে নাচ-গান করে নাচতে শুরু করলো। প্রাচীনকালের অনেকেরই এই ধারণা যে বীজের এই অঙ্কুরোদগম প্রক্রিয়া থেকেই কৃষি সভ্যতার সূচনা ও বিকাশ এর জন্য মেয়েদের কৃতিত্ব রয়েছে। কারণ মেয়েরাই এটা প্রথম শুরু করেছিল বীজ থেকে অঙ্কুরোদগমের প্রক্রিয়া এবং কৃষিকাজের সূচনা।সেই থেকেই তার সেলিব্রেশন করা হয় এই জাওয়া গানের মধ্য দিয়ে। তাই এই জাওয়া পরবকে বলা হয় সেলিব্রেশন অফ জার্মিনেশন।প্রাচীনকাল থেকেই পরবের মধ্যে দিয়ে কৃষিকাজের সূচনাকে একটা সংস্কৃতি রূপে পালন করা হয়ে আসছে।বর্তমানে করম উৎসব বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্কুল কলেজেও পালন করা হচ্ছে এবং রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে এই দিনটিকে পূর্ণ ছুটির ঘোষণা করা হয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


উত্তর ভারত জুড়ে প্রবল বৃষ্টি ও ভূমিধস

উত্তরাপথ: উত্তর ভারত জুড়ে প্রবল বৃষ্টিতে অন্তত ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে, এই অঞ্চলে ভূমিধস এবং আকস্মিক বন্যা হয়েছে, যা কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত বলে সরকারি রিপোর্টে বলা হয়েছে। সপ্তাহান্তে জাতীয় রাজধানীতে ভারী বৃষ্টিপাতের পরে দিল্লির স্কুলগুলি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, এবং হিমাচল প্রদেশ এবং উত্তরাখণ্ডে রাজ্যের লোকেদের প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বের না হতে বলেছে কর্তৃপক্ষ। হিমাচল প্রদেশ, উত্তরাখণ্ড, উত্তর প্রদেশ, জম্মু ও কাশ্মীর এবং পাঞ্জাব রাজ্যের উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্যগুলিতে বন্যা ও ভূমিধসে অন্তত .....বিস্তারিত পড়ুন

Gond Tribe: মধ্য প্রদেশে গোন্ড উপজাতির সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ

গার্গী আগরওয়ালা মাহাতো: গোন্ড উপজাতি(Gond tribe) বিশ্বের বৃহত্তম উপজাতি গোষ্ঠীগুলির মধ্যে একটি। এটি ভারতের বৃহত্তম উপজাতি । এদের গায়ের রং কালো, চুল কালো, ঠোঁট মোটা, নাক বড় ও ছড়ানো। তারা অলিখিত ভাষা গোন্ডি ভাষাতে কথা বলে, যা দ্রাবিড় ভাষার সাথে সম্পর্কিত। গোন্ড উপজাতির একটি দীর্ঘ এবং সমৃদ্ধ ইতিহাস রয়েছে, বিশ্বাস করা হয় যে তাদের শিকড় প্রাক-আর্য যুগে্র । গোন্ডদের সবচেয়ে গৌরবময় রাজা ছিলেন সংগ্রাম শাহ এবং দলগত শাহ, যারা ম্ধ্যপ্রদেশের গন্ডয়ানা রাজ্যের  বিস্তীর্ণ এলাকায় অনেকগুলি দুর্গ তৈরি করেছিলেন। মাত্র ৩০ বছর বয়সে দলগত .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top