২০২৪ কি গণতন্ত্রের সবচেয়ে বড় বছর হতে চলেছে ?

উত্তরাপথঃ ২০২৪ কি গণতন্ত্রের সবচেয়ে বড় বছর হতে চলেছে ?এটি মানব ইতিহাসের একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক হতে চলেছে। এই বছর চার বিলিয়নেরও বেশি মানুষ ৪০টিরও বেশি দেশে নির্বাচনে অংশ নেবে যা বিশ্বের জনসংখ্যার অর্ধেকেরও বেশি । যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, রাশিয়া, পাকিস্তান, তাইওয়ান, মেক্সিকো এবং দক্ষিণ আফ্রিকায় জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে (বাংলাদেশে সদ্য শেষ হয়েছে ২০২৪ এর নির্বাচন)। নির্বাচনের এই ব্যস্ত ক্যালেন্ডারে ইউরোপীয় ইউনিয়নও নির্বাচনে অংশ নেবে।

আধুনিক বিশ্বে জনগণকে শাসন করার জন্য প্রভাবশালী সাংগঠনিক নীতি হিসাবে গণতন্ত্রের  কথা বলা হলেও ভালো করে বিবেচনা করলে দেখা যাবে গণতন্ত্র অনেক ক্ষেত্রেই ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের জন্য ভারতীয় রাজনীতিতে একটি শব্দ বার বার উঠে আসছে তা হল ‘হিন্দুত্ব’। এই একটি শব্দ যাকে প্রায় জাতীয়তাবাদের সমর্থক শব্দ হিসাবে প্রচার করা হচ্ছে। হিন্দুত্ব, একটি আদর্শ হিসাবে, ২০ শতকের গোড়ার দিকে আবির্ভূত হয় এবং রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস) এবং এর রাজনৈতিক শাখা ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ও  শিবসেনার  মতো সংগঠনগুলির প্রচেষ্টার মাধ্যমে ‘হিন্দুত্ব’ ভারতীয় রাজনীতিতে প্রধান্য লাভ করে।

বিগত ২০১৪ ও ২০১৯ সালে ভারতে নির্বাচনী ফলাফল গঠনে ‘হিন্দুত্ব’ একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।ভারতের সিংহভাগ বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দল নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে বিজেপির নির্বাচনী সাফল্যের জন্য হিন্দুত্বকে প্রধান কারণ হিসেবে দেখছেন।তাই তারাও অন্তত আংশিকভাবে হলেও, হিন্দুত্ব নীতির ভিত্তিতে জন সমর্থন জোগাড়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন। এই প্রচেষ্টার অঙ্গ হিসেবে গত ২২ জানুয়ারি যখন নরেন্দ্র মোদীকে অযোধ্যায় রাম মন্দির উদ্বোধনে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেল সেই একই দিনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কলকাতায় কালিঘাট মন্দিরে পূজা দিয়ে “সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি সমাবেশ”নিয়ে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেল।একইভাবে, উদ্ধব ঠাকরে এবং তার দলের নেতারা ২২ জানুয়ারী নাসিকের কালারাম মন্দিরে পূজা দেন এবং কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী, তার ভারত জোড়ো ন্যায় যাত্রার মাঝেই আসামের একটি মন্দিরে পূজা দিতে যান। AAP আহ্বায়ক এবং দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল জাতীয় রাজধানীতে ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন।

ভারতীয় রাজনীতিতে বর্তমানে হিন্দুত্ব একটি স্থায়ী বিষয় হিসাবে উঠে আসার পিছনে মূল কারণ হল ভারতের সংখ্যা গরিষ্ঠ জনগণ  হিন্দু।দেশে বিজেপির সাংগঠনিক শক্তি এবং সোশ্যাল মিডিয়ার কার্যকর ব্যবহার হিন্দুত্বের বর্ণনাকে ব্যাপক ভাবে জনগণের মধ্যে ছড়িয়ে দিয়েছে। পরিস্থিতি এখন এমন পর্যায়ে গেছে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে হিন্দুত্বকে একটি উল্লেখযোগ্য ফ্যাক্টর হিসাবে মনে করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে বিজেপি ধারাবাহিকভাবে হিন্দুত্বের নীতির সঙ্গে নিজেকে যুক্ত করেছে।

তবে এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে হিন্দুত্বের প্রভাব সারা দেশে সমান নয়।দেশের তথাকথিত হিন্দি বলয়ে ‘হিন্দুত্ব’ ইস্যুটি  শক্তিশালী সমর্থন লাভ করলেও, এটি অন্য অংশে প্রতিরোধ এবং সংশয়ের সম্মুখীন । যদিও বর্তমানে বিজেপি বিরোধী অনেক দল, বিজেপির হিন্দুত্ববাদী রাজনীতিকে মোকাবেলা করতে নিজেরাও নরম হিন্দুত্বের লাইন গ্রহণ করছেন একটা বড় অংশের ভোটারদের কাছে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা তুলে ধরতে।

ভারতের রাজনীতিতে হিন্দুত্বের অব্যাহত প্রভাব দেশের ধর্মনিরপেক্ষ কাঠামো এবং ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের অধিকার সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন উত্থাপন করে। সমালোচকরা যুক্তি দেখান যে উন্নয়নের রাজনীতি থেকে দূরে সরে হিন্দুত্বের উপর জোর দেওয়া মানে ধর্মীয় মেরুকরণের ভিত্তিতে একটি সুরক্ষিত ভোট ব্যাঙ্ক  তৈরি করা । কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় আমাদের দেশের রাজনৈতিক দলগুলি দেশের চলতে থাকা প্রধান সমস্যা যেমন বেকারত্ব, আর্থিক মন্দা, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি সহ একাধিক বিষয় নিয়ে একেবারে নির্লিপ্ত কারণ কোনও রাজনৈতিক দলই তা সে কেন্দ্রেরই হউক বা রাজ্যের তারা কেউই এই সমস্যাগুলির সমাধান করতে পারেনি। তাই ২০২৪ এর নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে, ভারতীয় গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ গঠনে হিন্দুত্বের ভূমিকা ততই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


 সম্পাদকীয়

পশ্চিমবঙ্গের ছোট-বড় যে কোনও নির্বাচন মানেই রাজনৈতিক হিংসা । সদ্য অনুষ্ঠিত পঞ্চায়েত নির্বাচনও তার ব্যতিক্রম নয়।রাজনৈতিক হিংসা যাতে না হয় নির্বাচনে তার জন্য যাবতীয় উদ্যোগ গ্রহণ করার পরও হিংসা অব্যাহত থাকল, সারা রাজ্যজুরে ঘটল তেরোটি মৃত্যুর ঘটনা ।পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে  ঘট হিংসা রাজ্যের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া সহ নাগরিকদের ভোটাধিকার নিয়ে আমাদের সামনে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে। আমাদের রাজ্যে চলতে থাকা রাজনৈতিক হিংসার পেছনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ একাধিক কারণ থাকলেও বেকারত্ব সহ দুর্বল গ্রামীন অর্থনীতি এর প্রধান কারণ । দুর্বল গ্রামীন অর্থনীতির কারণে বেশীরভাগ গ্রামীন এলাকার মানুষদের অর্থনৈতিক উপার্জনের সুযোগ খুব কম। বিশেষত স্বল্প শিক্ষিত সেই সব মানুষদের যারা না পায় সরকারি চাকুরি না পারে ঠিকা শ্রমিকের কাজ করতে, গ্রামীন অর্থনীতিতে বিশাল সংখ্যক মানুষ এই শ্রেনীর অন্তর্গত .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top