চন্দ্রযান-৩: চন্দ্রপৃষ্ঠ অন্বেষণের জন্য ভারতের কম খরচের মিশন

ছবি -প্রতীকী

উত্তরাপথ: চন্দ্রযান-১ এবং চন্দ্রযান-২ -এর পর,চন্দ্রযান-৩ চন্দ্রপৃষ্ঠ অন্বেষণের জন্য ভারতের কম খরচের মিশন ভারতের মহাকাশ সংস্থা, ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন (ISRO), তার সম্প্রতি চন্দ্র অভিযান, চন্দ্রযান-৩ গত ১৪ জুলাই অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটা থেকে যাত্রা শুরু করে যা চাঁদে পৌঁছাতে সময় লাগবে ৪০ দিন।

এর আগে আমেরিকা অ্যাপেলো-১১ মিশনে উৎক্ষেপণের মাত্র ৪ দিনের থেকে একটু বেশী সময়ে চাঁদে পৌঁছে গিয়েছিল। রাশিয়ার লুনা-১ মিশনে চাঁদের কাছাকাছি পৌঁছতে সময় লেগেছিল মাত্র ৩৬ ঘণ্টা। ২০১০ সালে চিনের চন্দ্রযান চ্যাংই-২ চাঁদে পৌঁছতে সময় লেগেছিল ৪ দিন।এখন প্রশ্ন এর আগে তিনটি দেশ যেখানে এত কম সময়ে চাঁদে পৌঁছাতে পেরেছিল সেখানে ভারতের এত বেশী সময় লাগার কারণ কি?তাহলে চন্দ্রযান-৩ মিশনের এর সাফল্য কোথায়?

চন্দ্রযান-৩ চন্দ্রপৃষ্ঠ অন্বেষণের জন্য ভারতের কম খরচের মিশন আর সেই সাথে চন্দ্রপৃষ্ঠের আরও অন্বেষণ এবং অধ্যয়ন করা। চন্দ্রযান-৩ তার পূর্বসূরি চন্দ্রযান-২-এর আংশিক সাফল্যের প্রতিক্রিয়া হিসেবে এসেছে, যা দুর্ভাগ্যবশত অবতরণ পর্বের সময় সমস্যার মুখোমুখি হয়েছিল। মিশনের লক্ষ্য চন্দ্রযান-২-এর অর্জনের উপর ভিত্তি করে গড়ে তোলা এবং চন্দ্রপৃষ্ঠের ব্যাপক অনুসন্ধান করা।

চন্দ্রযান-৩ অভিযানের এর একটি উল্লেখযোগ্য দিক হল এর কম খরচের পদ্ধতি। অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিয়ে, ISRO মিশনের বৈজ্ঞানিক লক্ষ্যগুলির সাথে আপস না করে কম খরচে চাঁদে পাঠানোর  উদ্ভাবনী কৌশল তৈরি করেছে। পূর্ববর্তী মিশনের জন্য বিকশিত বিদ্যমান প্রযুক্তি এবং কাঠামো পুনঃব্যবহার করে, ISRO মিশনের খরচ উল্লেখযোগ্যভাবে কমিয়েছে,এবং এটিকে একটি অর্থনৈতিকভাবে লাভদায়ী প্রচেষ্টা করে তুলেছে।

এর আগে অ্যাপেলো-১১ মিশনে নাসা চাঁদে পৌঁছানোর জন্য ট্রান্সলুনার ইনজেকশন নামে পরিচিত একটি সরাসরি ট্র্যাজেক্টোরি ব্যবহার করেছিল। শক্তিশালী এই উৎক্ষেপণ বাহন অ্যাপোলো মহাকাশযানটিকে সরাসরি চাঁদের দিকে পাঠিয়ে দিয়েছিল । তারফলে খুব সময়ে এটি চাঁদে পৌঁছাতে পেরেছিল ।এই পুরো মিশনে খরচ হয়েছিল ৩৫৫ মিলিয়ন ডলার।

অন্যদিকে ভারতীয় মহাকাশ সংস্থা, চন্দ্রযান-৩ কে চাঁদে পৌঁছে দেবার  জন্য ভিন্ন গতিপথ অনুসরণ করে। এই মিশনটি ধীরে ধীরে মহাকাশযানের গতি বাড়াতে এবং এটিকে চাঁদে পাঠানোর জন্য পৃথিবীর কক্ষপথ এবং ইঞ্জিন বার্নের একটি সিরিজ নিয়োগ করে। এই পদ্ধতিটিতে তুলনামূলকভাবে কম শক্তিশালী লঞ্চ ভেহিকেল, জিওসিঙ্ক্রোনাস স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকল (GSLV) মার্ক-III ব্যবহার করা হয়। এই লঞ্চ যানবাহনের সীমাবদ্ধতার জন্য মিশনটিকে সম্পূর্ণ করার জন্য আরও ধীরে ধীরে এগানোর কৌশল বেছে নেওয়া হয়েছিল। এই পুরো মিশনে ভারতের খরচ হয় ৬৫০ কোটি টাকা।

চন্দ্রযান-৩-এর প্রাথমিক বৈজ্ঞানিক উদ্দেশ্য হল চন্দ্রপৃষ্ঠের ভূপ্রকৃতি, খনিজবিদ্যা এবং জলের অণুর উপস্থিতি সহ বিভিন্ন বিষয়গুলিতে গভীরভাবে অধ্যয়ন করা। মিশনের লক্ষ্য চাঁদের উৎপত্তি, বিবর্তন এবং মানবতার জন্য এর সম্ভাবনা সম্পর্কে আমাদের ধারনা বাড়ানো।সেইসাথে মহাকাশ অভিযানে ভারতের দক্ষতা প্রমান করা,কারণ এর আগে কোনও দেশ এত কম খরচে চাঁদে অবতরণ করতে পারেনি। চন্দ্রযান-৩ মিশন সফল হলে এটি আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে কাজ করবে ।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


রাতের ঘামের সমস্যা এবং এ সম্পর্কে আপনি কি করতে পারেন  

উত্তরাপথঃ রাতের ঘামের সমস্যা শরীরের কুলিং সিস্টেমের একটি স্বাভাবিক অংশ, তাপ মুক্তি এবং সর্বোত্তম শরীরের তাপমাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করে।তবে রাতের ঘাম একটি সাধারণ সমস্যা যা বিভিন্ন কারণে হতে পারে।এর  অস্বস্তিকর অনুভূতির জন্য ঘুম ব্যাহত হতে পারে, যার ফলে ক্লান্তি এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। আপনি যদি রাতে অতিরিক্ত ঘাম অনুভব করেন, তাহলে তার অন্তর্নিহিত কারণটি চিহ্নিত করা এবং এটি মোকাবেলার জন্য কিছু ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। এখানে রাতের ঘামের কিছু সম্ভাব্য কারণ নিয়ে আলোচনা করা হল।মেনোপজ: যে কেউ, বয়স বা লিঙ্গ নির্বিশেষে, রাতের ঘাম অনুভব করতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Roop Kishor Soni: একটি আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য তুলে ধরেছেন

উত্তরাপথঃ রাজস্থান মানেই ওজনদার রূপার গহনা ,আর তার উপর কারুকাজ। প্রচলিত এই ধারনা ভেঙ্গে আজ রূপোর গহনাকে আধুনিকতার সাথে শিল্পের এক অপূর্ব মেলবন্ধন ঘটিয়েছেন যে ব্যক্তি তিনি হলেন রূপ কিশোরী সোনী(Roop Kishor Soni)।তিনি ২০১৬ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির কাছ থেকে তার অসাধারণ শিল্প কর্মের জন্য জাতীয় পুরুস্কার পান। রাজস্থানের জয়সলমেরের শহরের এই শিল্পী ৩.৮ গ্রাম ওজনের ০.৯ সেমি চওড়া রৌপ্য আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য খোদাই করেছেন।এই ছোট রূপার আংটিতে শিল্পী তাজমহল, সিডনি অপেরা হাউস, স্ট্যাচু অফ লিবার্টি, চীনের গ্রেট ওয়াল, আইফেল টাওয়ার, বিগ বেন, পিসার হেলানো টাওয়ার এবং মিশরীয় পিরামিডের চিত্র এক সাথে ফুটিয়ে তুলেছেন।এছাড়াও তিনি আরও দুটি পৃথক ডিজাইনের অত্যাশ্চর্য আংটি  তৈরি করেছেন।৮.৬ গ্রাম ওজনের একটি রিংয়ে তিনি সূর্যাস্তের সময় ভারতীয় উট সাফারি সহ ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন ভারতীয় বিশেষত্ব ফুটিয়ে তুলেছেন,এবং অন্যটিতে বিভিন্ন হিন্দু দেব-দেবী ছবি এবং মন্দির খোদাই করেছিলেন। শিল্পী বলেছেন যে তিনি তার বাবার কাছ থেকে তার শৈল্পিক দক্ষতা উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছেন। সেই সাথে তিনি বলেন "আমার বাবাও একজন জাতীয় পুরুস্কার প্রাপ্ত শিল্পী ছিলেন। তিনি আমাকে শিল্পের এই দক্ষতা শিখিয়েছিলেন কারণ তিনি পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যে শিল্পের ফর্মটিকে বাঁচিয়ে রাখতে চেয়েছিলেন।" .....বিস্তারিত পড়ুন

প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে একটি নতুন দ্বীপের জন্ম হয়েছে

উত্তরাপথঃ হঠাৎ করেই একটি নতুন দ্বীপের জন্ম হয়েছে।২০২৩ এর ৩০ অক্টোবর  প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে একটি মৃত আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত একটি নতুন দ্বীপের জন্ম দিয়েছে। বিস্ফোরণের পর জাপানের ওগাসাওয়ারা দ্বীপ চেইনের কাছে বিশাল বিশাল পাথরের টুকরো দেখা গেছে। এ বিষয়ে জাপানি গবেষক বলেন, গত মাসে প্রশান্ত মহাসাগর জলের নিচে আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণের পর টোকিও থেকে প্রায় ১২০০ কিলোমিটার দক্ষিণে ইওটো দ্বীপের কাছে একটি ছোট নতুন দ্বীপের উদ্ভব হয়েছে।টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমিকম্প গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ফুকাশি মায়েনো জানিয়েছেন যে নতুন দ্বীপ, এখনও যার নাম নেই প্রশান্ত মহাসাগরের ইওটো দ্বীপ থেকে ১ কিলোমিটার দূরে ১০০ মিটার ব্যাসের একটি পাথুরে দ্বীপে একটি phreatomagmatic বিস্ফোরণ ঘটেছে। টোকিও থেকে প্রায় ১২০০ কিলোমিটার দক্ষিণে বিস্ফোরণটি দেখা গেছে। ভূপৃষ্ঠের নীচে জলের সাথে লাল গরম ম্যাগমা সংঘর্ষের কারণে প্রতি কয়েক মিনিটে বিস্ফোরণ ঘটে।গত ২১ অক্টোবর, ২০২৩-এ অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়েছিল, যা আগে ইও জিমা নামে পরিচিত ছিল এবং এটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অন্যতম রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের স্থান ছিল। প্রায় ১০ দিন ধরে অগ্ন্যুৎপাত চলার পর, আগ্নেয়গিরির উপাদান অগভীর সমুদ্রতলের উপর জমা হয় এবং প্রায় ১৬০ ফুট পর্যন্ত উচ্চতায় বড় বড় পাথরের আকারে সমুদ্র পৃষ্ঠের উপরে উঠে আসে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Fried rice syndrome: আগের দিনের রান্না করা ভাত খেলে হতে পারে এই বিশেষ অসুখটি

উত্তরাপথঃ আপনার কি বাসী ভাত বা পান্তা খাওয়ার অভ্যেস আছে? সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম (Fried rice syndrome) নিয়ে আমরা প্রায়ই অবশিষ্ট খাবার গরম করে আবার খাই। কিন্তু জানেন কি এই অভ্যাস আপনাকে অসুস্থ করে তুলতে পারে। অনেক সময় পর আগের রান্না করা  ভাত খাওয়ার ফলে পেট সংক্রান্ত সমস্যা হয়। কেউ কেউ মনে করেন যে খাবার পুনরায় গরম করলে এতে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া মারা যায়, কিন্তু তা নয়। যে খাবারেই স্টার্চ থাকে না কেন, এতে উপস্থিত টক্সিন তাপ প্রতিরোধী। অর্থাৎ খাবার গরম করার পরও ব্যাকটেরিয়া নষ্ট হয় না। ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম নামে এই সমস্যা সম্পর্কিত একটি অবস্থা রয়েছে। আজ আমরা এই ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম অবস্থার লক্ষণ, কারণ এবং প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করব। ভাত রান্না করার পর, যখন অবশিষ্ট ভাত কয়েক ঘন্টা বা সারারাত ঘরের তাপমাত্রায় রেখে দেওয়া হয় এবং তাতে ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে শুরু করে, তখন এই অবস্থার নাম দেওয়া হয়েছে ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top