মতুয়া হওয়া সহজ নয়

ড. জীবনকুমার সরকার

মতুয়া আন্দোলনের ইতিহাস দু’শ বছরের। অখন্ড ভারতের ফরিদপুর জেলার সফলডাঙা ও ওড়াকান্দি গ্রাম থেকে তৎকালীন বাংলায় ছড়িয়ে পড়েছিলো এই আন্দোলন। এই আন্দোলনের ভয়ে ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে তৎকালীন দিল্লির ব্রাহ্মণ্যবাদী শাসক সোনার বাংলাকে ভেঙে দেন। ফলে বাঙালি জাতি হয়ে যায় সতীর দেহের মতো ছিন্নভিন্ন।

আমরা অনেকেই জানি না কেনো মতুয়া আন্দোলনের উদ্ভব হয়েছিলো। উদ্ভবের ইতিহাস না জানলে মোটেই বোঝা যাবে না মতুয়া কী ও কেন? মতুয়া আন্দোলনের মতো একটা বৃহৎ মানবতাবাদী আন্দোলনের ইতিহাসকে এতদিন চেপে রাখা হয়েছিলো। এই চেপে রাখার কাজটি করে এসেছেন ব্রাহ্মণ্যবাদী ইতিহাস লেখকেরা। কারণ, তারা মনে করতেন; জাতপাত বিরোধী এই আন্দোলনের কথা ইতিহাসে তুলে ধরলে জাতপাতের নামে প্রায় পাঁচ হাজার বছর ধরে উচ্চ বর্ণের হিন্দুরা যে সুযোগ সুবিধা নির্বিচারে ভোগ করে এসেছে, তার অবসান হয়ে যাবার সম্ভবনা আছে। তাই সুকৌশলে ইতিহাসবিদরা মতুয়া আন্দোলনের ইতিহাস এড়িয়ে গেছেন। কিন্তু এড়িয়ে যাবো বললেই তো আর সবকিছু এড়িয়ে যাওয়া যায় না। আজ নির্যাতিত নিপীড়িত জনগণের কণ্ঠ বহুমাত্রিক আলোয় উদ্ভাসিত। ধর্মের নামে যাদের অস্পৃশ্য বানিয়ে রাখা হয়েছে; তাদের লাঙল, শাবল, গাইতি, কোদাল, করাত, হাতুড়ি আজ কলমের আকার নিয়েছে। তাই ইতিহাস নতুন করে খনন হচ্ছে। এর ফলে ব্রাহ্মণ্যবাদীরা আবার একালেও ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছে। এমনকি আমাদের দেশের তথাকথিত সাম্যবাদীরাও মতুয়া বিরোধী। আরও গভীরে গিয়ে বলতে চাই, আমাদের দেশের সাম্যবাদীরা বাইরে বাইরে জাতপাত না মানলেও ভেতরে ভেতরে তারা বর্ণবাদী। তাই তফসিলি জাতি-উপজাতিদের( এরাই তো ভারতের প্রকৃত সর্বহারা) অগ্রগতি দেখলে সাম্যবাদীদেরও গাত্রাদাহন হয়। রাস্তাঘাটে এই ছবি আজও দেখার মতো।

এবারে লক্ষ করুন মতুয়া আন্দোলনের উদ্ভবের কারণ আসলে কী? আর্য আগমনের পূর্বে আমাদের দেশে জাতপাত ও বর্ণ বৈষম্যের মতো জঘন্য সমাজব্যবস্থার কথা জানা যায় না। পারস্য দেশের ঘোড়া ও লোহা ব্যবহারকারী একদল সাদা চামড়ার মানুষেরা খাইবার,বোলান প্রভৃতি গিরিপথ দিয়ে আমাদের দেশে ঢুকে পড়ে। ধীরে ধীরে প্রাচীন ভারতের প্রকৃতির উপাসক ও সরল সুন্দর সাম্যবাদী সমাজের মানুষকে পদানত করার নানা অভিসন্ধি তৈরি করতে থাকে। আর্যরা বুঝেছিলো এই বিপুল পরিমাণের জনগোষ্ঠীকে সরাসরি করায়ত্ত করা সম্ভব নয়। তাই তারা মগজ ধোলাইয়ের পথ নির্বাচন করে। যার পরিণতিতে আর্যরা নিজেদের আধিপত্য বজায় রাখার জন্য কৃত্রিম ধর্ম তৈরি করে এবং সেই ধর্মকে যাতে সকলেই অনুসরণ তার জন্য ভয়- ভীতি- লাভ- লালসা, স্বর্গ- নরক, আত্মা- পরমাত্মা ইত্যাদি অবৈজ্ঞানিক গালগল্প তৈরি করে বইপত্র লিখতে শুরু করে। যার যাত্রাপথ শুরু বেদ রচনা দিয়ে। আর ব্রাহ্মণ্যবাদের চূড়ান্ত নৃশংস বর্ণঘৃণা ও নির্যাতনের কুৎসিত রূপ রচিত হয়েছে মনুসংহিতায়।

কালক্রমে বহিরাগত যাযাবর ভারতে আগমনকারী আর্যরাই ব্রাহ্মণে রূপান্তরিত হয়েছে। এবং বেদ ও মনুসংহিতার বিধান অনুসারে দেশ চালিয়ে আসছিলো শতাব্দীর পর শতাব্দী। ফলে ভারতের প্রকৃত ভূমিপুত্ররা অসভ্য আর্যদের কাছে পরাজিত হয়ে পশুর চেয়ে নিকৃষ্ট জীবনযাপন করতে বাধ্য হয়। আর্য-ব্রাহ্মণরা প্রথমেই যে কাজটি সুচারুভাবে করতে পেরেছিলো, সেটা হলো অজস্র জাতিতে ভাগ( যেমন: বর্তমানে হিন্দু ধর্মের লোকেরা ৬৭৪৩ জাতিতে বিভক্ত) করে নিজেরা সবার শীর্ষে অবস্থান পাকা করে নিয়েছেন ঈশ্বরের দোহাই দিয়ে। আর কিছু মানুষকে গোলাম বানিয়েছিলেন নিজেদের প্রয়োজনে ( যেমন: ক্ষত্রিয়ও বৈশ্য। বাংলায় আছে যেমন বৈদ্য ও কায়স্থ)। বাকী সব মানুষদের শূদ্র বানিয়ে শিক্ষা থেকে বহিষ্কার করেছে। শূদ্রদের জীবনযাপন কেমন হবে, তার ভয়ঙ্কর বিবরণ লেখা আছে মানুসংহিতায়।

ভারতের সভ্যতা সংস্কৃতি নির্মাণকারী এইসব ব্রাত্য-অস্পৃশ্য শূদ্রদের হিন্দু ধর্মের ব্রাহ্মণ্যবাদী কারাগার থেকে মুক্তির জন্য ভারতবর্ষের বিভিন্ন প্রান্তে ব্রাহ্মণ্যবাদী হিন্দু ধর্মের থেকে মানবমুক্তির আকাঙ্ক্ষায় বিভিন্ন স্বতন্ত্র ধর্মের উদ্ভব হয়। তৎকালীন ভারতবর্ষের পুব প্রান্তের সবচেয়ে বড়ো ব্রাহ্মণ্যবাদ বিরোধী আন্দোলনের নাম মতুয়া আন্দোলন। যার পথিকৃৎ হলেন হরিচাঁদ ঠাকুর (১৮১২–১৮৭৮)। মহামানব গৌতম বুদ্ধের পর যিনি সোচ্চার করে বলে গেছেন —––

“কুকুরের উচ্ছিষ্ট প্রসাদ পেলে খাই

বেদবিধি শৌচাচার নাহি মানি তাই।।”

( শ্রীশ্রী হরিলিলামৃত, পৃ.১৩৮)

হরিচাঁদ ঠাকুরই ভারতের আধুনিক মানুষ, যিনি বেদের বিরুদ্ধে এমন করে স্পষ্ট ভাষায় বলেছেন। পতিত মুক্তির জন্য আরও বলেছেন –––
“জীবে দয়া নামে রুচি মানুষেতে নিষ্ঠা
ইহা ছাড়া আর যত সব ক্রিয়া ভ্রষ্টা।।”
(শ্রীশ্রী হরিলীলামৃত,পৃ.২৩)
মতুয়াদের প্রধান আরাধ্য মানুষ কিন্তু ইনিই। তাহলে আমাদের বুঝতে হবে, মতুয়া হওয়া কিন্তু সহজ ওতো ব্যাপার নয়। হরিচাঁদ ঠাকুরের এইসব বাণীতে গোটা বাংলা কেঁপে উঠেছিলো।

এরপর তাঁর সুযোগ্য পুত্র গুরুচাঁদ ঠাকুর আরও বেগবান গতিতে হিন্দু ধর্মের ব্রাত্য অস্পৃশ্য মানুষদের মুক্তির জন্য কাজ শুরু করে দেন। এই ধর্মে ভাববাদের কোনো জায়গা নেই। চিন্তাভাবনা সব বস্তুতান্ত্রিক। তাই গুরুচাঁদ ঠাকুর তাঁর বাবার মতো আরও কঠোর অবস্থানে মতুয়া আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন। তিনি শিক্ষাকে হাতিয়ার করলেন কঠোরভাবে। ব্রাহ্মণ্যবাদের বিপ্রতীপে দাঁড়িয়ে বহুজন মানুষের উদ্দেশে বলেন ––––

” সবাকারে বলি আমি যদি মান’মোরে

অবিদ্বান পুত্র যেনো নাহি থাকে ঘরে।।

খাও বা না খাও তা’তে কোনো দুঃখ নাই।।

ছেলেপিলে শিক্ষা দেও এই আমি চাই।।

(শ্রীশ্রী গুরুচাঁদ চরিত, পৃ.১৪৪)

এ শুধু কথার কথা নয়। তাঁর এই আহ্বান সাড়া দিলেন শত শত মানুষ। একক প্রচেষ্টায় তিনি প্রতিষ্ঠা করেন ১৮৩৬টি বিদ্যালয়। এই নাজির ভারতে নয় কেবল, সমগ্র বিশ্বে বিরল। গুরুচাঁদ ঠাকুরের প্রতিষ্ঠিত বিদ্যালয়ে পড়াশুনা তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতে অস্পৃশ্যরা সরকারি চাকরিতে যোগদান করেন এবং এমএলএ, নেতা- মন্ত্রী সবই হতে থাকেন। একদিকে ব্রাহ্মণ্যবাদ বিরোধী মতুয়া আন্দোলনের রসদ আর একদিকে ব্রিটিশদের সহযোগিতায় বাংলার অস্পৃশ্যরা রাজ ক্ষমতার দিকে হাঁটতে লাগলো। ইতিহাস সাক্ষী বাংলার মতুয়ারাই মহাপ্রাণ যোগেন্দ্রনাথ মণ্ডলের নেতৃত্বে আম্বেদকরকে নির্বাচিত করে দিল্লির কনস্টিউট অফ অ্যাসেম্ববিলিতেপাঠান। মতুয়াদের এই উত্থান দেখেই দিল্লি বাংলা ভেঙে খান খান করে।

দেশভাগের ফলে মতুয়ারা আজ

শতছিন্ন। এমন করে বাংলাকে ভাগ করা হয়েছিল যে, মতুয়া অধ্যষিত পুরো অঞ্চলগুলিকে পাকিস্তানের মধ্যে ফেলে চিরকালের মতো মতুয়াদের ভারত থেকে নির্বাসন দেওয়া হয়েছিলো। কিন্তু তারা পরবর্তীকালে পাকিস্তান ও বাংলাদেশের মাটি ছেড়ে ভারতে পাড়ি দেয়। আজ ভারতের ১৮টি রাজ্যে মতুয়াদের বাস। সারা ভারতে মতুয়াদের সংখ্যা প্রায় এখন পাঁচ কোটি মতো। যাদের প্রাণকেন্দ্র উত্তর ২৪ পরগনার ঠাকুরনগর। বাংলাদেশে যেমন আছে ওড়াকান্দি। বড়ো বেদনার কথা, আজ ওড়াকান্দি এবং ঠাকুরনগর ভয়ঙ্করভাবে ব্রাহ্মণ্যবাদে আক্রান্ত। মাতুরাও আজ পথভ্রষ্ট। বিভ্রান্ত। মতুয়া যে একটি স্বতন্ত্র ধর্ম ––– এই কথাটাই ভুলে গেছে মতুয়ারা। এর জন্য ওড়াকান্দি ও ঠাকুরনগরের ঠাকুরবাড়ি দায়ী। আজ যদি মতুয়া আন্দোলন পথভ্রষ্ট না হতো, তাহলে বাংলার মাটিতে কোনোদিন উত্তর ভারতের ব্রাহ্মণ্যবাদী জাতপাতের উপাসকরা মাথা তুলে দাঁড়াতে পারতো না। খুব সুকৌশলে রাজ্য এবং কেন্দ্রের ব্রাহ্মণ্যবাদীরা ঠাকুরবাড়িকে ঘিরে ধরেছে শেষ করবে বলে। বিভীষণ অনেক আগেই তৈরি করে ফেলেছে দিল্লি। ফলে কোটি কোটি মতুয়ারা নতুন করে অস্তিত্ব সংকটের মুখে পড়েছে। গুরুচাঁদ ঠাকুরের মতো যোগ্য নেতৃত্বের অভাবে মতুয়ারা আজ লক্ষ্যভ্রষ্ট। এই বাংলা যদি হিন্দুত্ববাদী শক্তি দখল নেয়, তাহলে মতুয়া ধর্ম বিলীন হতে পারে। এখনই তো মতুয়ারা হিন্দু হিন্দু করে দিনরাত মুখরিত করছে। অথচ, হিন্দু ধর্মের কারাগার থেকে মুক্তি দিতেই হরিচাঁদ ঠাকুর মতুয়া ধর্মের প্রবর্তন করেছিলেন। সুতরাং, ঠাকুরবাড়ির লোক মানেই মতুয়া নয়। মতুয়া হতে গেলে আগে হরিচাঁদ ঠাকুরের দ্বাদশ আজ্ঞা মেনে চলতে হবে এবং বেদ বিরোধী ও মনুবাদ বিরোধী হতে হবে সম্পূর্ণভাবে। জীবযাপন থেকে বাদ দিতে হবে ব্রাহ্মণ্যবাদী সব আচার সংস্কার। আজকের মতুয়ারা সে পথ থেকে বিচ্যুত।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


বৈধ নথি ছাড়া প্লেনে ওঠার চেষ্টা এটি কি নিছক কৌতুহল মেটানো

উত্তরাপথঃ এটি কি নিছক কৌতুহল না কি কিশোর দুস্ক্রিয়তা। সম্প্রতি বাংলাদেশ এর শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পাসপোর্ট, টিকিট বা বোর্ডিং পাশ কোনও কিছু ছাড়াই জুনায়েদ নামের ১২ বছরের এক শিশু বৈধ নথি ছাড়া বিনা বাধায় কুয়েত এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে উঠে পড়ে। তবে এবারই প্রথম নয়, এর আগেও প্লেনে চড়তে ব্যর্থ হয়ে বাড়িতে ফিরে গেছে। এবার কৌশল পালটে বিমানবন্দরে ঢোকে শিশুটি। এ ঘটনায় বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন ও সিকিউরিটি বিভাগের ১০ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে কারণ দর্শাতে বলা  হয়েছে। গঠন করা হয়েছে পাঁচ সদস্যের একটি উচ্চপর্যায়ের তদন্ত কমিটি। যে এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে এ ঘটনা ঘটে, সেই কুয়েত এয়ারলাইন্সকেও শোকজ করা হয়েছে।  বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান বলেছেন, ছেলেটি ব্রোকেন ফ্যামেলি .....বিস্তারিত পড়ুন

চাকরি ছাড়ার পর ফেরত দিতে হলো অফিসে খাওয়া চায়ের দাম

উত্তরাপথঃ চা কে আমরা যতই বলি স্ট্রিট ফুড বলি না কেন আসলে এটি এমন একটি পানীয় যা বিশ্ব অর্থনীতির বিশ্বায়নকে চালিত করেছিল। দীর্ঘক্ষণ কাজ করার ফলে কর্মীদের মধ্যে ক্লান্তি কিংবা বিরক্তি কাজ করে, তা কাটাতেই প্রায় প্রতিটি সরকারি-বেসরকারি অফিসেই কম বেশি চা-কফি খাওয়ার সুযোগ থাকে। কিন্তু একটি প্রতিষ্ঠানের চাকরি ছাড়ার পর দুই কর্মীকে অফিসে যত কাপ চা খেয়েছেন, তার বিল পরিশোধ করতে হয়েছে। এই বিরল কাণ্ড ঘটেছে চীনে।ঘটনা চীনের আনহুই প্রদেশের। সেখানে দুই কর্মী চাকরি ছেড়েছিলেন। খুবই স্বাভাবিক ঘটনা, আমরা অনেকেই চাকরি ছেড়ে থাকি। কিন্তু পরের ধাপে যা ঘটলো, তা কোনভাবেই স্বাভাবিক নয়। .....বিস্তারিত পড়ুন

ব্যয় বৃদ্ধির কারণে বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম, প্রভাব রাজ্যেও

উত্তরাপথঃ বাংলাদেশ ও ইলিশ এই দুটি নাম একে অপরের পরিপূরক মনে হলেও বাস্তব কিন্তু বলছে অন্য কথা। সূত্র মাধ্যমে পাওয়া খবরে জানা যাচ্ছে  প্রকৃতির অপার দান হলেও শিকার থেকে শুরু করে বাজারজাত হওয়া পর্যন্ত ব্যয় বৃদ্ধির কারণেই বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম। এর সঙ্গে মধ্যস্বত্বভোগীদের লাভের অঙ্ক যোগ হয়ে তা চলে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।পরিস্থিতি এমন যে গরিব তো দূর থাক মধ্যবিত্তের পাতেও এখন আর জুটছে না ইলিশ। বুধবার বরিশালের পাইকারি বাজারে এক কেজি সাইজের ইলিশ বিক্রি হয় ৬০ হাজার টাকা মন দরে। ৪২ কেজিতে মন হিসাবে প্রতি কেজির দাম পড়ে প্রায় সাড়ে ১৪শ টাকা। খুচরা বাজারে গিয়ে যা বিক্রি হয় ১৬ থেকে ১৮শ টাকা। যে কারণে জাতীয় এই মাছ এখন শুধু বিত্তশালীদের খাদ্যে পরিণত হয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়

বিশ্ব উস্নায়ন এবং তাকে কেন্দ্র করে জলবায়ু পরিবর্তন একবিংশ শতাব্দীর অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ। এটি  ধীরে ধীরে একাধিক উপায়ে মানব সমাজকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করছে এবং অদূর ভবিষ্যতে এটি প্রায় অনিয়ন্ত্রিত হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।ইতিমধ্যে এটি আমাদের পরিবেশ, অর্থনীতি এবং আমাদের জীবন যাত্রার উপর ব্যাপক ভাবে প্রভাব দেখাতে শুরু করেছে ।সদ্য হয়ে যাওয়া হিমাচল প্রদেশের বন্যা আমাদের সামনে বেশ কিছু প্রশ্ন তুলে দিল । এবছর হিমাচল প্রদেশে বর্ষাকালে রেকর্ড পরিমাণে বৃষ্টিপাত হয়েছে ,যা বিগত কয়েক বছরের তুলনায় বহু গুণ বেশী।  ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, হিমাচল প্রদেশে ১ জুলাই থেকে ১২ জুলাই পর্যন্ত গড় বৃষ্টিপাত হয়েছে ২৪৯.৬ মিমি যা স্বাভাবিক গড় ৭৬.৬ মিমি থেকে প্রায় ৭০% বেশী .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top