২০৩৫ সালের মধ্যে মহাকাশ স্টেশন স্থাপন করার পথে ভারত

ISRO মহাকাশ স্টেশন স্থাপন model ছবিটি X-একাউন্ট থেকে গৃহীত

উত্তরাপথঃ ভারতের মহাকাশ সংস্থা মহাকাশে বিস্ময়কর কাজ করছে।  অগাস্ট মাসে চতুর্থ দেশ হিসেবে চাঁদে যায় ভারত।  চাঁদের দক্ষিণ মেরুর কাছাকাছি যাওয়া প্রথম দেশ ভারত।  কিন্তু এখন আরও দুটি বড় লক্ষ্য তৈরি করেছে ইসরো।  প্রধানমন্ত্রী মোদী মঙ্গলবার গগনযান মিশনের অবস্থা জানতে ISRO বিজ্ঞানীদের সাথে একটি উচ্চ পর্যায়ের পর্যালোচনা বৈঠক করেছেন এরপর  প্রধানমন্ত্রী মোদি বিজ্ঞানীদের ২০৩৫ সালের মধ্যে ভারতের মহাকাশ স্টেশন স্থাপন করার কথা বলেন।

এখন প্রশ্ন এই মহাকাশ স্টেশন কি?  একটি মহাকাশ স্টেশন হল একটি কৃত্রিম কাঠামো যা পৃথিবীর কক্ষপথে পাঠানো হয় এবং যা সেখানে থাকে।  আসলে মহাকাশে অনেক পরীক্ষা-নিরীক্ষা হয়।  এই পরীক্ষাগুলি পরিচালনা করার জন্য, বিজ্ঞানীদের জন্য একটি ল্যাব বা থাকার জায়গা তৈরি করতে হবে।  এর জন্য, মহাকাশে একটি ধাতব স্টেশন তৈরি করা হয়েছে যা ক্রমাগত পৃথিবীর চারপাশে ঘুরছে।  বর্তমানে, মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন (আইএসএস) এবং চীনের তিয়ানগং মহাকাশ স্টেশন মহাকাশে রয়েছে।

 চীনের তিয়ানগং মহাকাশ স্টেশনে তিনটি মডিউল রয়েছে।  তবে চীন আগামী বছরগুলিতে তিনটি নতুন মডিউল যুক্ত করতে চায় অন্যান্য দেশের মহাকাশচারীদের পৃথিবীর কাছাকাছি মিশনের জন্য একটি বিকল্প প্ল্যাটফর্ম দিতে।  আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনটি কয়েক বছরের মধ্যে অবসর নিলে চীন তার স্টেশন সম্প্রসারণ করতে চায়।  তিয়ানগং স্পেস স্টেশনের কথা বলতে গেলে, এর আয়ুষ্কাল হবে আগামী ১৫ বছর।  এটি ২০২২ থেকে সম্পূর্ণরূপে কার্যকরী।  এটি পৃথিবী থেকে ৪৫০ কিলোমিটার উচ্চতায় অবস্থিত। এতে সর্বোচ্চ তিনজন মহাকাশচারী থাকতে পারে।

২০৩৫ সালে ভারতের মহাকাশ স্টেশন নির্মাণের সিদ্ধান্ত ভারতের মহাকাশ কর্মসূচির জন্য একটি স্বাভাবিক অগ্রগতি। একটি মহাকাশ স্টেশন স্থাপনের মাধ্যমে, ভারতের লক্ষ্য মাইক্রোগ্রাভিটি, জ্যোতির্বিদ্যা, মানব দেহতত্ত্ব এবং উন্নত প্রযুক্তির উন্নয়ন সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অত্যাধুনিক গবেষণা পরিচালনা করা। মহাকাশ স্টেশনটি বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা, প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন এবং অন্যান্য দেশের সাথে সম্ভাব্য সহযোগিতার ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে।

ভারতীয় মহাকাশ স্টেশন স্থাপন দেশ এবং বিশ্বের বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়ের জন্য অনেক সুবিধা সৃষ্টি । এটি উন্নত গবেষণা এবং উন্নয়ন, উদ্ভাবন এবং প্রযুক্তিগত বৃদ্ধির জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম প্রদান করবে। উপরন্তু, মহাকাশ স্টেশনটি ভারতীয় মহাকাশচারীদের জন্য একটি প্রশিক্ষণের ক্ষেত্র হিসেবে কাজ করবে, যা চাঁদ, মঙ্গল গ্রহ এবং তার বাইরেও সম্ভাব্য মানব মিশনের পথ প্রশস্ত করবে। এটি মহাবিশ্বকে বোঝার ক্ষেত্রে অবদান রাখবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


রাজা মহম্মদ ও সি সেল মিউজিয়াম

প্রিয়াঙ্কা দত্তঃ রাজা মহম্মদ, এমন একজন মানুষের নাম, যার ব্যাক্তিগত ইচ্ছার কাছে হেরে যায় সব বাধা। ইচ্ছার চেয়ে বলা ভালো নেশা। সামুদ্রিক প্রাণীদের খোল সংগ্রহের নেশা। যা তাঁকে ছোটবেলা থেকেই ছুটিয়ে নিয়ে বেরিয়েছে প্রায় তিরিশ বছর ধরে। আর সেই দীর্ঘ পথের শেষে , তিনি সম্পূর্ন ব্যক্তিগত উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন এশিয়ার বৃহত্তম ও পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম ব্যাক্তিগত সংগ্রহশালা। তাঁর প্রতিষ্ঠিত সি সেল মিউজিয়ামটি বর্তমানে চেন্নাইয়ের মহাবলিপূরম মন্দিরের সন্নিকটে অবস্থিত একটি জনপ্রিয় ট্যুরিস্ট স্পট। রাজা মহম্মদ ছোট্ট বেলা থেকেই  সমুদ্র তট থেকে সংগ্রহ করতেন বিভিন্ন সামুদ্রিক প্রাণীর দেহাংশ। কুড্ডালোর থেকে রামেশ্বরম এর সমুদ্রতট, সেখান থেকে জাপান, ইন্দোনেশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, ফিলিপিন্স প্রভৃতি দেশে গিয়েছেন ব্যাক্তিগত উদ্যোগে। সংগ্রহ করেছেন অসাধারণ সব সামুদ্রিক .....বিস্তারিত পড়ুন

সুপার পটেটোর অনুসন্ধান - বিজ্ঞানীরা আলু সুপার প্যানজেনোম তৈরি করেছেন

উত্তরাপথঃ আলু বহু শতাব্দী ধরে রান্নার বহুমুখীতা এবং উচ্চ পুষ্টির মানের জন্য খাদ্যের একটি প্রধান উৎস। আলু আজ বিশ্বের প্রায় প্রতিটি কোণে উৎপাদিত হয়, যা আলুকে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং গুরুত্বপূর্ণ ফসলগুলির মধ্যে একটি করে তুলেছে । বছরের পর বছর ধরে, বিজ্ঞানীরা আলুর ফলন, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং পুষ্টি উপাদান উন্নত করার জন্য এবং আরও ভাল আলুর জাত প্রজননের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলেছেন। আলুর জিন সম্পাদনা প্রযুক্তি ব্যবহার করে গবেষকরা আলু সুপার প্যানজেনোম তৈরি করেছেন যা আলু গবেষণা এবং প্রজননে একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক চিহ্নিত হবে বলে বিজ্ঞানীদের আশা । .....বিস্তারিত পড়ুন

শূন্য বর্জ্য নীতি গ্রহনে জাপান আজ বিশ্বগুরু

উত্তরাপথঃ পূর্ব এশিয়ার দ্বীপ শহর জাপান । সম্প্রতি তার শূন্য বর্জ্য নীতি-এর কারণে খবরের শিরোনামে । Zero Waste বা শূন্য বর্জ্য হল- অযথা খরচকে ন্যূনতম রেখে উৎপাদিত আবর্জনা কমানোর প্রচেষ্টা। ১৯৯৬ সালে , অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী শহর ক্যানবেরা বিশ্বের প্রথম শূন্য-বর্জ্য শহরের শিরোপা অর্জন করে।এরপর Zero Waste ধারণাটি সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে, উদাহরণস্বরূপ কানাডার টরন্টো এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকো নিজেদের শূন্য-বর্জ্য শহর হিসাবে ঘোষণা করে । পরিবেশ সচেতনতার ক্ষেত্রে নিউজিল্যান্ডের প্রায় ৭০% পৌরসভা নিজেদের শূন্য-বর্জ্য পৌরসভা হিসাবে ঘোষণা করেছে।এদিকে ২০২২ সালের জানুয়ারী পর্যন্ত, জাপানের পাঁচটি শহর নিজেদের শূন্য বর্জ্য শহর হিসেবে ঘোষণা করেছে।জাপানের তোকুশিমা প্রিফেকচারের কামিকাতসু টাউন প্রথম নিজেদের শূন্য বর্জ্য  শহর হিসেবে ঘোষণা করার পর, ধারণাটি পুরো জাপানে ছড়িয়ে পড়ে। .....বিস্তারিত পড়ুন

লোকসংস্কৃতির আলোকে মালদার শতাব্দী প্রাচীন গম্ভীরা  

মৈত্রেয়ী চৌধুরীঃ পশ্চিমবঙ্গের উত্তরের একটি জেলা মালদা। আমের জন্য এই জেলাটি পরিচিতি লাভ করলেও এই জেলা আর ও একটি কারণে বিখ্যাত, তা হল গম্ভীরা । মালদার নিজস্ব লোকসংস্কৃতি।গম্ভীরা শব্দটি প্রকোষ্ট, গৃহ বা মন্দির অর্থের সঙ্গে আভিধানিক মিল থাকলেও এই অনুষ্ঠানটি উন্মুক্ত আকাশের নিচে বা কোথাও চাঁদোয়া বা ত্রিপল  দিয়ে ঢেকে অনুষ্ঠিত হয়। এই উৎসবের মূল কেন্দ্রবিন্দু হলেন স্বয়ং দেবাদিদেব। এই উৎসবের তিনি 'নানা' নামে পরিচিত।একজন শিবের সাজে থাকেন, আর দেবাদিদেবের চেলার মতো কিছু সংখ্যক সেই নানার ভক্ত হয়ে খোল, করতাল হাতে উনার সঙ্গী হন। বাস্তব জগতের এবং পারিপার্শ্বিক যা মা সমস্যা থাকে তা  চেলার নানার কাছে অভিযোগ জানান, যেন নানা সেই অভিযোগ শুনে তার সমাধান করেন।শিশু থেকে বৃদ্ধ সকলেই ভিড় করে জমায়েত .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top