২০৩৫ সালের মধ্যে মহাকাশ স্টেশন স্থাপন করার পথে ভারত

ISRO মহাকাশ স্টেশন স্থাপন model ছবিটি X-একাউন্ট থেকে গৃহীত

উত্তরাপথঃ ভারতের মহাকাশ সংস্থা মহাকাশে বিস্ময়কর কাজ করছে।  অগাস্ট মাসে চতুর্থ দেশ হিসেবে চাঁদে যায় ভারত।  চাঁদের দক্ষিণ মেরুর কাছাকাছি যাওয়া প্রথম দেশ ভারত।  কিন্তু এখন আরও দুটি বড় লক্ষ্য তৈরি করেছে ইসরো।  প্রধানমন্ত্রী মোদী মঙ্গলবার গগনযান মিশনের অবস্থা জানতে ISRO বিজ্ঞানীদের সাথে একটি উচ্চ পর্যায়ের পর্যালোচনা বৈঠক করেছেন এরপর  প্রধানমন্ত্রী মোদি বিজ্ঞানীদের ২০৩৫ সালের মধ্যে ভারতের মহাকাশ স্টেশন স্থাপন করার কথা বলেন।

এখন প্রশ্ন এই মহাকাশ স্টেশন কি?  একটি মহাকাশ স্টেশন হল একটি কৃত্রিম কাঠামো যা পৃথিবীর কক্ষপথে পাঠানো হয় এবং যা সেখানে থাকে।  আসলে মহাকাশে অনেক পরীক্ষা-নিরীক্ষা হয়।  এই পরীক্ষাগুলি পরিচালনা করার জন্য, বিজ্ঞানীদের জন্য একটি ল্যাব বা থাকার জায়গা তৈরি করতে হবে।  এর জন্য, মহাকাশে একটি ধাতব স্টেশন তৈরি করা হয়েছে যা ক্রমাগত পৃথিবীর চারপাশে ঘুরছে।  বর্তমানে, মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন (আইএসএস) এবং চীনের তিয়ানগং মহাকাশ স্টেশন মহাকাশে রয়েছে।

 চীনের তিয়ানগং মহাকাশ স্টেশনে তিনটি মডিউল রয়েছে।  তবে চীন আগামী বছরগুলিতে তিনটি নতুন মডিউল যুক্ত করতে চায় অন্যান্য দেশের মহাকাশচারীদের পৃথিবীর কাছাকাছি মিশনের জন্য একটি বিকল্প প্ল্যাটফর্ম দিতে।  আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনটি কয়েক বছরের মধ্যে অবসর নিলে চীন তার স্টেশন সম্প্রসারণ করতে চায়।  তিয়ানগং স্পেস স্টেশনের কথা বলতে গেলে, এর আয়ুষ্কাল হবে আগামী ১৫ বছর।  এটি ২০২২ থেকে সম্পূর্ণরূপে কার্যকরী।  এটি পৃথিবী থেকে ৪৫০ কিলোমিটার উচ্চতায় অবস্থিত। এতে সর্বোচ্চ তিনজন মহাকাশচারী থাকতে পারে।

২০৩৫ সালে ভারতের মহাকাশ স্টেশন নির্মাণের সিদ্ধান্ত ভারতের মহাকাশ কর্মসূচির জন্য একটি স্বাভাবিক অগ্রগতি। একটি মহাকাশ স্টেশন স্থাপনের মাধ্যমে, ভারতের লক্ষ্য মাইক্রোগ্রাভিটি, জ্যোতির্বিদ্যা, মানব দেহতত্ত্ব এবং উন্নত প্রযুক্তির উন্নয়ন সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অত্যাধুনিক গবেষণা পরিচালনা করা। মহাকাশ স্টেশনটি বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা, প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন এবং অন্যান্য দেশের সাথে সম্ভাব্য সহযোগিতার ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে।

ভারতীয় মহাকাশ স্টেশন স্থাপন দেশ এবং বিশ্বের বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়ের জন্য অনেক সুবিধা সৃষ্টি । এটি উন্নত গবেষণা এবং উন্নয়ন, উদ্ভাবন এবং প্রযুক্তিগত বৃদ্ধির জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম প্রদান করবে। উপরন্তু, মহাকাশ স্টেশনটি ভারতীয় মহাকাশচারীদের জন্য একটি প্রশিক্ষণের ক্ষেত্র হিসেবে কাজ করবে, যা চাঁদ, মঙ্গল গ্রহ এবং তার বাইরেও সম্ভাব্য মানব মিশনের পথ প্রশস্ত করবে। এটি মহাবিশ্বকে বোঝার ক্ষেত্রে অবদান রাখবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


দীপাবলির সময় কেন পটকা ফোটানো নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা যায় না ?

উত্তরাপথঃ দীপাবলির পরের দিন, যখন কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (CPCB) শহরের বায়ু মানের সূচকের তালিকা প্রকাশ করে,তখন  দেখা যায় রাজধানী দিল্লি বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দূষিত শহরের প্রথমেই রয়েছে। CPCB-এর মতে, ১২ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় দিল্লির বায়ু মানের সূচক ছিল ২১৮ যা ভোরের দিকে বেড়ে ৪০৭ এ পৌঁছায় । ৪০০ – ৫০০ AQI  এর স্তর সুস্থ ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। দীপাবলির সারা রাত, লোকেরা পটকা ফাটিয়ে দীপাবলি উদযাপন করে। ১৩ নভেম্বর বিকেল ৪ টায় কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ আবার তথ্য প্রকাশ করে এই তালিকায়, দিল্লির গড় বায়ু মানের সূচক ছিল ৩৫৮ যা 'খুব খারাপ' বিভাগে পড়ে।   বায়ু দূষণের এই পরিস্থিতি শুধু দিল্লিতেই সীমাবদ্ধ ছিল না।  নয়ডার বায়ু মানের সূচক ১৮৯ থেকে ৩৬৩ এ এবং রোহতক, হরিয়ানার ১৩৭ থেকে বেড়ে ৩৮৩ হয়েছে। দীপাবলির দুই দিন দিল্লি ,নয়ডা  ,কলকাতা, মুম্বাই সহ দেশের অন্যান্য শহরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এই দিনগুলিতে মানুষ বিষাক্ত বাতাসে শ্বাস নিতে বাধ্য হয়েছে। ২০১৮ সালে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জাতীয় রাজধানী দিল্লি এবং নয়ডায় সবুজ পটকা ছাড়া যে কোনও ধরণের আতশবাজি ফাটান সম্পূর্ণ রূপে নিষিদ্ধ। আদালত সবুজ পটকা পোড়ানোর সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছে রাত ৮টা থেকে ১০টা। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠছে সুপ্রিম কোর্টের এই আদেশের মানে কী?  আদালতের এই আদেশ কি এখন প্রত্যাহার করা উচিত?  পুলিশ কেন এই আদেশ কার্যকর করতে পারছে না?  এর জন্য কি পুলিশ দায়ী নাকি সরকারের উদাসীনতা রয়েছে এর পেছনে? .....বিস্তারিত পড়ুন

Bandna Festival: ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল পাঁচ দিন বাঁদনার আমেজে মশগুল থাকে

বলরাম মাহাতোঃ চিরাচরিত রীতি অনুযায়ী কার্তিক অমাবস্যার আগের দিন থেকে মোট পাঁচ দিন ব্যাপী বাঁদনার(Bandna Festival) আমেজে মশগুল থাকে ছোটনাগপুরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। অবশ্য, পরবের শুভ সূচনা হয় তারও কয়েকদিন আগে। আদিবাসী সম্প্রদায়ের সামাজিক শাসন ব্যবস্থার চূড়ামণি হিসাবে গাঁয়ের মাহাতো, লায়া, দেহরি কিম্বা বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তি নির্ধারণ করেন- ৩, ৫, ৭ বা ৯ ক’দিন ধরে গবাদি পশুর শিং-এ তেল মাখাবে গৃহস্বামী! রুখামাটির দেশের লোকেরা কোনোকালেই মাছের তেলে মাছ ভাজা তত্ত্বের অনুসারী নয়। তাই তারা গোরুর শিং-এ অন্য তেলের পরিবর্তে কচড়া তেল মাখানোয় বিশ্বাসী। কারণ কচড়া তেল প্রস্তুত করতে গোধনকে খাটাতে হয় না যে! কচড়া তেলের অপ্রতুলতার কারণে বর্তমানে সরষের তেল ব্যবহৃত হলেও, কচড়া তেলের ধারণাটি যে কৃষিজীবী মানুষের গবাদি পশুর প্রতি প্রেমের দ্যোতক, তা বলাই বাহুল্য! এভাবেই রাঢ বঙ্গে গোবর নিকানো উঠোনে হাজির হয়- ঘাওয়া, অমাবস্যা, গরইয়া, বুঢ়ি বাঁদনা ও গুঁড়ি বাঁদনার উৎসবমুখর দিনগুলি। পঞ্চদিবসে তেল দেওয়া, গঠ পূজা, কাঁচি দুয়ারি, জাগান, গহাইল পূজা, চুমান, চউক পুরা, নিমছান, গোরু খুঁটা, কাঁটা কাঢ়া প্রভৃতি ১১টি প্রধান পর্ব সহ মোট ১৬টি লোকাচারের মাধ্যমে উদযাপিত হয় বাঁদনা পরব(Bandna Festival )। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়-  রাজনৈতিক সহিংসতা ও আমাদের গণতন্ত্র

সেই দিনগুলো চলে গেছে যখন নেতারা তাদের প্রতিপক্ষকেও সম্মান করতেন। শাসক দলের নেতারা তাদের বিরোধী দলের নেতাদের কথা ধৈর্য সহকারে শুনতেন এবং তাদের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতেন।  আজ রাজনীতিতে অসহিষ্ণুতা বাড়ছে।  কেউ কারো কথা শুনতে প্রস্তুত নয়।  আগ্রাসন যেন রাজনীতির অঙ্গ হয়ে গেছে।  রাজনৈতিক কর্মীরা ছোটখাটো বিষয় নিয়ে খুন বা মানুষ মারার মত অবস্থার দিকে ঝুঁকছে। আমাদের দেশে যেন রাজনৈতিক সহিংসতা কিছুতেই শেষ হচ্ছে না।আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার চেয়ে রাজনৈতিক সংঘর্ষে বেশি মানুষ নিহত হচ্ছেন।  ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) অনুসারে, ২০১৪ সালে, রাজনৈতিক সহিংসতায় ২৪০০ জন প্রাণ হারিয়েছিল এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় ২০০০ জন মারা গিয়েছিল।  আমরা পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র হিসেবে আমাদের দেশের গণতন্ত্রের জন্য গর্বিত হতে পারি, কিন্তু এটা সত্য যে আমাদের সিস্টেমে অনেক মৌলিক সমস্যা রয়েছে যা আমাদের গণতন্ত্রের শিকড়কে গ্রাস করছে, যার জন্য সময়মতো সমাধান খুঁজে বের করা প্রয়োজন। .....বিস্তারিত পড়ুন

সেলফির উচ্চ রেটিং কি আপনাকে আরওপাতলা হতে উৎসাহিত করছে ?

উত্তরাপথঃ সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে সেলফি তোলা এবং নিজেকে পাতলা হিসাবে দেখানোর মধ্যে একটি সম্পর্ক থাকতে পারে। যুক্তরাজ্যের ইয়র্ক সেন্ট জন ইউনিভার্সিটির রুথ নাইট এবং ইউনিভার্সিটি অফ ইয়র্কের ক্যাথরিন প্রেস্টন সম্প্রতি PLOS ONE জার্নালে তাদের ফলাফল প্রকাশ করেছেন।সেখানে সেলফির উচ্চ রেটিং এবং আমাদের শরীরের গঠনের মধ্যে যোগসূত্র খোঁজার চেষ্টা করা হয়েছে।    বর্তমান সোশ্যাল মিডিয়ায় সেলফি হল এক জনপ্রিয় ছবি দেওয়ার ধরন। যিনি সেলফি তোলেন তিনি ক্যামেরাকে তাদের শরীর থেকে দূরে রেখে নিজেই নিজের ছবি তোলে। আগের গবেষণায় বলা হয়েছে সেলফিগুলি দেখার ফলে ছবির বিষয়গুলি সম্পর্কে দর্শকদের সিদ্ধান্ত প্রভাবিত হতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top