বিজ্ঞানীরা এবার বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিক কণার উপস্থিতি খুঁজে পেলেন

মাইক্রোপ্লাস্টিক কণা সমুদ্র থেকে বায়ুমণ্ডলে। ছবি – উত্তরাপথ

উত্তরাপথঃ সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিক কণার উপস্থিতি সম্পর্কে উদ্বেগ জনক তথ্য প্রকাশ করেছেন।মাইক্রোপ্লাস্টিক, ৫ মিমি-এর কম আকারের প্লাস্টিকের ছোট টুকরা, পরিবেশের উপর তাদের বিরূপ প্রভাব এবং মানব স্বাস্থ্যের উপর সম্ভাব্য প্রভাবের কারণে একটি ক্রমবর্ধমান উদ্বেগ হয়ে উঠেছে। বিজ্ঞানীদের মতে সামুদ্রিক বায়ুমণ্ডলে তো অবশ্যই, এমনকি বিশ্বের সবচেয়ে বিচ্ছিন্ন অঞ্চলের বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিক কণার উপস্থিতি রয়েছে।  জার্মান এবং নরওয়েজিয়ান গবেষকদের সহযোগিতায় ওল্ডেনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডক্টর বারবারা স্কোলজ-বোটচারের নেতৃত্বে একটি সমীক্ষা অনুসারে, এই ক্ষুদ্র কণাগুলি ভূমি থেকে উৎপন্ন হয় তবে সমুদ্র থেকে বায়ুমণ্ডলে ফিরে আসে।  দলটি আর্কটিক মহাসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত নরওয়েজিয়ান উপকূলের বিভিন্ন স্থান থেকে বায়ুর নমুনা অধ্যয়ন করেছে।  তাদের  গবেষণার ফলাফল সম্প্রতি নেচার কমিউনিকেশন জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

বিজ্ঞানীদের দলটি বাতাস থেকে নমুনা সংগ্রহের জন্য বেঁছে নিয়েছিল সবচেয়ে উত্তরের বিয়ার দ্বীপ, এবং স্যাভালবার্ড দ্বীপপুঞ্জের সবচেয়ে দক্ষিণের দ্বীপ যা মূল ভূখণ্ড এবং দ্বীপপুঞ্জের বৃহত্তম দ্বীপ স্পিটসবার্গেনের মাঝখানে অবস্থিত। এই দলটি বাতাসের নমুনা সংগ্রহ করতে দুটি ভিন্ন ডিভাইস ব্যবহার করেছে।ডিভাইসগুলি সক্রিয়ভাবে বাতাসে পাম্প করা হয়েছিল এবং বারো মিটার উচ্চতায় গবেষণার জন্য বাতাসের নমুনা সংগ্রহ করেছিল।

বিজ্ঞানীরা পাইরোলাইসিস-গ্যাস ক্রোমাটোগ্রাফি-মাস স্পেকট্রোমেট্রি ব্যবহার করে বাতাসের নমুনাগুলি বিশ্লেষণ করেছেন। এই পদ্ধতির সাহায্যে, তারা বিশ্লেষণের মাধ্যমে বায়ুমণ্ডলে বিভিন্ন ধরণের প্লাস্টিক সনাক্ত করতে এবং পরিমাণ নির্ধারণ করতে সক্ষম হয়েছে। গবেষকরা প্রতি ঘনমিটার বাতাসে মাইক্রোপ্লাস্টিকের ৩৭.৫ ন্যানোগ্রাম (এক ন্যানোগ্রাম = এক গ্রামের এক বিলিয়ন ভাগ) ঘনত্ব পরিমাপ করেছেন।

বায়ুমণ্ডলের এই দূষণকে সর্বব্যাপী বলে চিহ্নিত করেছে বিজ্ঞানীরা কারণ তারা দূরবর্তী মেরু অঞ্চলের বায়ু মণ্ডলেও মাইক্রোপ্লাস্টিকের অস্তিত্ব খুঁজে পেয়েছেন।গবেষণায় আরও প্রকাশ করা হয়েছে যে আবহাওয়ার অবস্থা এবং বায়ুর ধরণগুলি মাইক্রোপ্লাস্টিকের বিচ্ছুরণে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ঝড় এবং শক্তিশালী বাতাস সমুদ্রের পৃষ্ঠ থেকে মাইক্রোপ্লাস্টিকগুলিকে তুলতে পারে এবং তাদের দীর্ঘ দূরত্বে পরিবহন করতে পারে, যা প্রত্যন্ত অঞ্চলের বায়ুতে প্রভাব ফেলতে পারে।

বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিক কণার উপস্থিতি মানুষের শ্বাস – প্রশ্বাসের সম্পর্কে উদ্বেগ বাড়ায়। বায়ুবাহিত মাইক্রোপ্লাস্টিক শ্বাস-প্রশ্বাসের সাথে আমাদের শরীরে প্রবেশ করার ফলে শ্বাসকষ্ট এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। অতিরিক্তভাবে, ফসল এবং খাদ্যের উৎসগুলিতে মাইক্রোপ্লাস্টিক জমা হওয়া আমাদের স্বাস্থ্য সম্পর্কে প্রশ্ন উত্থাপন করে।

বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিকগুলিও জলবায়ু পরিবর্তনের উপর প্রভাব ফেলতে পারে। এই কণাগুলি মেঘ গঠনের জন্য নিউক্লিয়াস হিসাবে কাজ করতে পারে, যা সম্ভাব্যভাবে মেঘের বৈশিষ্ট্য এবং বৃষ্টিপাতের ধরণগুলিকে প্রভাবিত করে।তবে এই প্রভাবের সম্পূর্ণ পরিমাণ এখনও তদন্তাধীন।  

বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিক নিঃসরণ বাস্তুতন্ত্র এবং বন্যপ্রাণীর জন্য একটি নতুন হুমকি তৈরি করে।বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতি আমাদের প্লাস্টিক দূষণ মোকাবেলার জরুরিতার উপর জোর দেয়। উন্নত বর্জ্য ব্যবস্থাপনা গ্রহণ এবং আমাদের প্লাস্টিকের বিকল্পের সন্ধানের দিকে পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে।

এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যে প্লাস্টিক বর্জ্য কমাতে, পুনর্ব্যবহারকে উৎসাহিত করতে এবং এই বৈশ্বিক সমস্যা মোকাবেলায় উদ্ভাবনী সমাধান বিকাশের জন্য অবিলম্বে পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরী । শুধুমাত্র সম্মিলিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে আমরা আমাদের মহাসাগরকে রক্ষা করতে পারি, আমাদের বাস্তুতন্ত্রকে রক্ষা করতে পারি এবং গ্রহ এবং নিজেদের উভয়ের জন্য একটি স্বাস্থ্যকর ভবিষ্যত সুরক্ষিত করতে পারি।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


আমন্ত্রণপত্রে, বর ও কনের নামের সাথে আইআইটি লেখায় বিতর্ক সোশ্যাল মাধ্যমে  

উত্তরাপথঃ বিবাহের সময়, অভিনব এবং ডিজাইনার আমন্ত্রণ কার্ডগুলি সর্বদা সকলের আলোচনায় পরিণত হয়। কিছু আমন্ত্রণ পত্র বিলাসবহুল চকোলেটের সাথে কাস্টমাইজ করে বানানো হয়,আবার কোনও কোনও ক্ষেত্রে পরিবেশের কথা মাথায় রেখে বায়োডিগ্রেডেবল কার্ডের সাথে  উপহার হিসাবে গাছ দেওয়া হয়।  সম্প্রতি, একটি পুরাতন বিবাহের আমন্ত্রণপত্র ইন্টারনেটে ভাইরাল হচ্ছে যা বর এবং কনের শিক্ষাগত যোগ্যতা গুলিকে হাইলাইট করে বানানো হয়েছে । অর্থাৎ কার্ডে বর ও কনের নামের সাথে তাদের পড়াশোনার ডিগ্রিকেও যুক্ত করা হয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

এক নজরে টি-টোয়েন্টিতে বিশ্বের এক নম্বর ব্যাটসম্যান সূর্যকুমার যাদব

উত্তরাপথঃ  টি-টোয়েন্টিতে বিশ্বের এক নম্বর ব্যাটসম্যান সূর্যকুমার যাদব আজ তার ৩৩তম জন্মদিন উদযাপন করছেন।  তিনি বর্তমানে টিম ইন্ডিয়ার সাথে শ্রীলঙ্কায় রয়েছেন এবং এশিয়া কাপ খেলছেন।  সূর্য, যাকে ৩৬০ ডিগ্রি ব্যাটসম্যান বলা হয়, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দেরিতে প্রবেশ করেছিলেন, কিন্তু অল্প সময়ের মধ্যেই তিনি এমন সব কিছু অর্জন করেছিলেন যা অনেক ক্রিকেটার দীর্ঘ সময় ধরে খেলেও স্বপ্নেও দেখতে পারেন না।  চলুন জেনে নেওয়া যাক তার সবচেয়ে বিশেষ ৫টি রেকর্ড সম্পর্কে- T-20 আন্তর্জাতিকে দ্রুততম ১২টি ম্যান অফ দ্য ম্যাচের পুরস্কার সূর্যকুমার যাদবকে টি-টোয়েন্টির সবচেয়ে ধ্বংসাত্মক ব্যাটসম্যান হিসেবে বিবেচনা করা হয়।  একই বলে অনেক শট খেলতে পারেন তিনি। তাঁর ৫৩ টি ম্যাচে .....বিস্তারিত পড়ুন

গ্লোবাল ওয়ার্মিং রিপোর্ট: ২০২৩ বৈশ্বিক উষ্ণতা নিয়ে উদ্বেগজনক প্রতিবেদন

উত্তরাপথঃ সারা বিশ্ব যখন বিশ্ব উষ্ণায়নের কেন্দ্র করে শুরু হওয়া জলবায়ু সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে সেই সময়, ২০২৩ বৈশ্বিক উষ্ণতা নিয়ে একটি উদ্বেগজনক প্রতিবেদন আমাদের সামনে নিয়ে এসেছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের জলবায়ু পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র ৮ আগস্ট যে পরিসংখ্যান আমাদের সামনে তুলে ধরেছেন,তাতে আগামী দিনের ভয়াবহ পরিণতির জন্য বিশ্ববাসীকে সতর্কবাণী শুনিয়েছেন।এখনও পর্যন্ত সারা বিশ্বে তাপ তরঙ্গ এবং দাবানলের জন্য ২০১৯ সালের জুলাই মাসটিকে চিহ্নিত করা হত । কিন্তু এবছর জুলাই মাসের তাপমাত্রা গত ২০১৯ সালের থেকেও ০.৩৩ সেন্টিগ্রেড বেশি ছিল EU-এর কোপার্নিকাস ক্লাইমেট চেঞ্জ সার্ভিসের ডেপুটি ডিরেক্টর সামান্থা বার্গেস বলেছেন, "গত ১২০,০০০ বছর ধরে পর্যবেক্ষণমূলক রেকর্ড এবং প্যালিওক্লাইমেট রেকর্ড এক সাথে সমন্বয় করে বিশ্লেষণ করলেও এত গরম ছিল না।" .....বিস্তারিত পড়ুন

পোল্ট্রি শিল্পে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে চলেছে নতুন জিন প্রযুক্তি

উত্তরাপথ - পোল্ট্রি শিল্পে পুরুষ ছানা মারার অভ্যাস দীর্ঘকাল ধরে নৈতিক উদ্বেগের বিষয়।পরিসংখ্যানে প্রকাশ প্রতি বছর পোলট্রিগুলিতে ৭ বিলিয়ন পুরুষ ছানাকে হত্যা করা হয়।কারণ পুরুষ ছানারা ডিম দিতে পারে না সেই সাথে তারা  মাংসের জন্যও উপযুক্ত না হওয়ার কারণে,তারা অর্থনৈতিকভাবে অলাভজনক বলে বিবেচিত হয় । সেই কারণে ডিম ফোটার পরপরই তাদের euthanized করা হয়।এবার এই সমস্যা সমাধানে মধ্য ইস্রায়েলের Yuval Cinnamon এর গবেষণাগারে এক নতুন প্রযুক্তি আবিষ্কার করা হয় যার দ্বারা সমস্ত ছানাই মহিলা হবে।এক্ষেত্রে পুরুষ ছানাগুলিকে সম্পূর্ণভাবে ডিম থেকে বেরোনোর আগেই তাদের বাঁধা দেওয়া হবে। এই নতুন প্রযুক্তির আবিষ্কার মুর্গীর পুরুষ ছানাগুলিকে প্রায়শই ম্যাসারেশন বা গ্যাসিং পদ্ধতির মাধ্যমে হত্যা করার মত অমানবিক কাজ বন্ধ করতে সাহায্য করবে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top