বিজ্ঞানীরা এবার বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিক কণার উপস্থিতি খুঁজে পেলেন

মাইক্রোপ্লাস্টিক কণা সমুদ্র থেকে বায়ুমণ্ডলে। ছবি – উত্তরাপথ

উত্তরাপথঃ সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিক কণার উপস্থিতি সম্পর্কে উদ্বেগ জনক তথ্য প্রকাশ করেছেন।মাইক্রোপ্লাস্টিক, ৫ মিমি-এর কম আকারের প্লাস্টিকের ছোট টুকরা, পরিবেশের উপর তাদের বিরূপ প্রভাব এবং মানব স্বাস্থ্যের উপর সম্ভাব্য প্রভাবের কারণে একটি ক্রমবর্ধমান উদ্বেগ হয়ে উঠেছে। বিজ্ঞানীদের মতে সামুদ্রিক বায়ুমণ্ডলে তো অবশ্যই, এমনকি বিশ্বের সবচেয়ে বিচ্ছিন্ন অঞ্চলের বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিক কণার উপস্থিতি রয়েছে।  জার্মান এবং নরওয়েজিয়ান গবেষকদের সহযোগিতায় ওল্ডেনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডক্টর বারবারা স্কোলজ-বোটচারের নেতৃত্বে একটি সমীক্ষা অনুসারে, এই ক্ষুদ্র কণাগুলি ভূমি থেকে উৎপন্ন হয় তবে সমুদ্র থেকে বায়ুমণ্ডলে ফিরে আসে।  দলটি আর্কটিক মহাসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত নরওয়েজিয়ান উপকূলের বিভিন্ন স্থান থেকে বায়ুর নমুনা অধ্যয়ন করেছে।  তাদের  গবেষণার ফলাফল সম্প্রতি নেচার কমিউনিকেশন জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

বিজ্ঞানীদের দলটি বাতাস থেকে নমুনা সংগ্রহের জন্য বেঁছে নিয়েছিল সবচেয়ে উত্তরের বিয়ার দ্বীপ, এবং স্যাভালবার্ড দ্বীপপুঞ্জের সবচেয়ে দক্ষিণের দ্বীপ যা মূল ভূখণ্ড এবং দ্বীপপুঞ্জের বৃহত্তম দ্বীপ স্পিটসবার্গেনের মাঝখানে অবস্থিত। এই দলটি বাতাসের নমুনা সংগ্রহ করতে দুটি ভিন্ন ডিভাইস ব্যবহার করেছে।ডিভাইসগুলি সক্রিয়ভাবে বাতাসে পাম্প করা হয়েছিল এবং বারো মিটার উচ্চতায় গবেষণার জন্য বাতাসের নমুনা সংগ্রহ করেছিল।

বিজ্ঞানীরা পাইরোলাইসিস-গ্যাস ক্রোমাটোগ্রাফি-মাস স্পেকট্রোমেট্রি ব্যবহার করে বাতাসের নমুনাগুলি বিশ্লেষণ করেছেন। এই পদ্ধতির সাহায্যে, তারা বিশ্লেষণের মাধ্যমে বায়ুমণ্ডলে বিভিন্ন ধরণের প্লাস্টিক সনাক্ত করতে এবং পরিমাণ নির্ধারণ করতে সক্ষম হয়েছে। গবেষকরা প্রতি ঘনমিটার বাতাসে মাইক্রোপ্লাস্টিকের ৩৭.৫ ন্যানোগ্রাম (এক ন্যানোগ্রাম = এক গ্রামের এক বিলিয়ন ভাগ) ঘনত্ব পরিমাপ করেছেন।

বায়ুমণ্ডলের এই দূষণকে সর্বব্যাপী বলে চিহ্নিত করেছে বিজ্ঞানীরা কারণ তারা দূরবর্তী মেরু অঞ্চলের বায়ু মণ্ডলেও মাইক্রোপ্লাস্টিকের অস্তিত্ব খুঁজে পেয়েছেন।গবেষণায় আরও প্রকাশ করা হয়েছে যে আবহাওয়ার অবস্থা এবং বায়ুর ধরণগুলি মাইক্রোপ্লাস্টিকের বিচ্ছুরণে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ঝড় এবং শক্তিশালী বাতাস সমুদ্রের পৃষ্ঠ থেকে মাইক্রোপ্লাস্টিকগুলিকে তুলতে পারে এবং তাদের দীর্ঘ দূরত্বে পরিবহন করতে পারে, যা প্রত্যন্ত অঞ্চলের বায়ুতে প্রভাব ফেলতে পারে।

বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিক কণার উপস্থিতি মানুষের শ্বাস – প্রশ্বাসের সম্পর্কে উদ্বেগ বাড়ায়। বায়ুবাহিত মাইক্রোপ্লাস্টিক শ্বাস-প্রশ্বাসের সাথে আমাদের শরীরে প্রবেশ করার ফলে শ্বাসকষ্ট এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। অতিরিক্তভাবে, ফসল এবং খাদ্যের উৎসগুলিতে মাইক্রোপ্লাস্টিক জমা হওয়া আমাদের স্বাস্থ্য সম্পর্কে প্রশ্ন উত্থাপন করে।

বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিকগুলিও জলবায়ু পরিবর্তনের উপর প্রভাব ফেলতে পারে। এই কণাগুলি মেঘ গঠনের জন্য নিউক্লিয়াস হিসাবে কাজ করতে পারে, যা সম্ভাব্যভাবে মেঘের বৈশিষ্ট্য এবং বৃষ্টিপাতের ধরণগুলিকে প্রভাবিত করে।তবে এই প্রভাবের সম্পূর্ণ পরিমাণ এখনও তদন্তাধীন।  

বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিক নিঃসরণ বাস্তুতন্ত্র এবং বন্যপ্রাণীর জন্য একটি নতুন হুমকি তৈরি করে।বায়ুমণ্ডলে মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতি আমাদের প্লাস্টিক দূষণ মোকাবেলার জরুরিতার উপর জোর দেয়। উন্নত বর্জ্য ব্যবস্থাপনা গ্রহণ এবং আমাদের প্লাস্টিকের বিকল্পের সন্ধানের দিকে পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে।

এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যে প্লাস্টিক বর্জ্য কমাতে, পুনর্ব্যবহারকে উৎসাহিত করতে এবং এই বৈশ্বিক সমস্যা মোকাবেলায় উদ্ভাবনী সমাধান বিকাশের জন্য অবিলম্বে পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরী । শুধুমাত্র সম্মিলিত প্রচেষ্টার মাধ্যমে আমরা আমাদের মহাসাগরকে রক্ষা করতে পারি, আমাদের বাস্তুতন্ত্রকে রক্ষা করতে পারি এবং গ্রহ এবং নিজেদের উভয়ের জন্য একটি স্বাস্থ্যকর ভবিষ্যত সুরক্ষিত করতে পারি।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


Renewable Energy: জাপানি প্রধানমন্ত্রী সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে নবায়নযোগ্য শক্তি প্রযুক্তির প্রস্তাব করেছেন

উত্তরাপথ: সম্প্রতি জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগা, সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) সাথে নবায়নযোগ্য শক্তিতে (Renewable Energy) দেশের উন্নত প্রযুক্তি ভাগ করার প্রস্তাব করেছেন। মূলত  জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমিত করার এবং জীবাশ্ম জ্বালানীর উপর নির্ভরতা হ্রাস করার ক্ষেত্রে এই পদক্ষেপ বলে মনে করা হচ্ছে । সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত দীর্ঘদিন ধরে তাদের তেল এবং প্রাকৃতিক গ্যাসের বিশাল মজুদের জন্য পরিচিত, যা তাদের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ও উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। বর্তমানে উভয় দেশ তাদের কার্বন পদচিহ্ন (Carbon Emission) কমাতে এবং পরিবর্তিত পরিস্থিতির সাথে খাপ খাইয়ে নিতে তাদের শক্তির উৎসগুলির পরিবর্তনে আগ্রহী .....বিস্তারিত পড়ুন

 সম্পাদকীয়

পশ্চিমবঙ্গের ছোট-বড় যে কোনও নির্বাচন মানেই রাজনৈতিক হিংসা । সদ্য অনুষ্ঠিত পঞ্চায়েত নির্বাচনও তার ব্যতিক্রম নয়।রাজনৈতিক হিংসা যাতে না হয় নির্বাচনে তার জন্য যাবতীয় উদ্যোগ গ্রহণ করার পরও হিংসা অব্যাহত থাকল, সারা রাজ্যজুরে ঘটল তেরোটি মৃত্যুর ঘটনা ।পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে  ঘট হিংসা রাজ্যের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া সহ নাগরিকদের ভোটাধিকার নিয়ে আমাদের সামনে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে। আমাদের রাজ্যে চলতে থাকা রাজনৈতিক হিংসার পেছনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ একাধিক কারণ থাকলেও বেকারত্ব সহ দুর্বল গ্রামীন অর্থনীতি এর প্রধান কারণ । দুর্বল গ্রামীন অর্থনীতির কারণে বেশীরভাগ গ্রামীন এলাকার মানুষদের অর্থনৈতিক উপার্জনের সুযোগ খুব কম। বিশেষত স্বল্প শিক্ষিত সেই সব মানুষদের যারা না পায় সরকারি চাকুরি না পারে ঠিকা শ্রমিকের কাজ করতে, গ্রামীন অর্থনীতিতে বিশাল সংখ্যক মানুষ এই শ্রেনীর অন্তর্গত .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top