কেন রাখিবন্ধন উৎসব?  জানুন এর সাংস্কৃতিক এবং ঐতিহাসিক গুরুত্ব

উত্তরাপথঃ রাখিবন্ধন যা রক্ষা বন্ধন নামেও পরিচিত, এটি ভারতের বিভিন্ন অংশে এবং সারা বিশ্বের প্রবাসী ভারতীয়দের মধ্যে পালিত একটি পবিত্র উৎসব। এটির অপরিসীম সাংস্কৃতিক এবং ঐতিহাসিক তাৎপর্য রয়েছে আমাদের ভারতীয় সংস্কৃতিতে। এটি ভাইবোনদের মধ্যে ভালবাসা এবং সুরক্ষার বন্ধনের প্রতীক। আমাদের দেশে রাখির ইতিহাস আরও কয়েক শতাব্দী আগের , বিভিন্ন কিংবদন্তি এবং ঐতিহাসিক ঘটনা এর সঙ্গে যুক্ত।

রাখিবন্ধন সাথে যুক্ত একটি জনপ্রিয় কিংবদন্তি হল মেওয়ারের রানী কর্ণাবতী এবং সম্রাট হুমায়ুন। ১৬ শতকে, যখন মেওয়ার গুজরাটের বাহাদুর শাহের কাছ থেকে আসন্ন আক্রমণের মুখোমুখি হয়েছিল, তখন রানী কর্ণাবতী সম্রাট হুমায়ুনের কাছে একটি রাখি পাঠিয়েছিলেন, তাঁর সাহায্য ও সুরক্ষার জন্য। অন্যদিকে  হুমায়ূন তাকে তার বোন মনে করে সাথে সাথে তার সাহায্যে এগিয়ে আসেন। এই ঐতিহাসিক ঘটনাটিকে প্রায়ই রাখি দ্বারা প্রতীকী বন্ধন এবং সুরক্ষার উদাহরণ হিসাবে উল্লেখ করা হয়।

আরেকটি কিংবদন্তি হল যমুনার, মৃত্যুর দেবতা যমের বোন। এটা বিশ্বাস করা হয় যে যমুনা যমের কব্জিতে একটি পবিত্র সুতো বেঁধেছিলেন, যা তাকে (যম) অমরত্ব দিয়েছিলেন।এরপর যম ঘোষণা করেছিলেন যারা তাদের বোনের কাছ থেকে রাখী গ্রহণ করবে সে সুরক্ষা এবং সৌভাগ্য পাবে।

রাখি শুধুমাত্র ভাইবোনের মধ্যে বন্ধনের উদযাপনই নয়, ইতিহাসেও একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। ভারতে স্বাধীনতা সংগ্রামের সময়, রাখি ব্রিটিশ শাসনের বিরুদ্ধে ঐক্য ও প্রতিরোধের প্রতীক হিসেবে কাজ করেছিল। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, ভারতীয়দের মধ্যে ভ্রাতৃত্ব ও ঐক্যের বোধ জাগানোর উপায় হিসাবে রাখি বাঁধার এই উৎসবটিকে উৎসাহিত করেছেন।

আজ, রাখিবন্ধন উৎসব ভারত জুড়ে অত্যন্ত উৎসাহ এবং আনন্দের সাথে পালিত হয়। আজও বোনেরা তাদের ভাইদের হাতে রঙিন এবং আলংকারিক রাখি বেঁধে, তাদের ভালবাসা, সম্মান এবং ভাই এর দীর্ঘায়ু কামনা করেন, বিনিময়ে, ভাইরা উপহার দেয় এবং সারা জীবন তাদের বোনদের রক্ষা করার শপথ নেয়।এছাড়া রাখি রক্তের সম্পর্কের সীমানা অতিক্রম করে  ঘনিষ্ঠ বন্ধু এবং এমনকি প্রতিবেশীদেরও ভালবাসা, ঐক্যের বন্ধনে আবদ্ধ করে ।

রাখির ইতিহাস প্রাচীন পৌরাণিক কাহিনী, কিংবদন্তি এবং ঐতিহাসিক ঘটনার গভীরে নিহিত। সময়ের সাথে সাথে এটি একটি লালিত উৎসবে পরিণত হয়েছে যা ভাইবোনের মধ্যে বন্ধন দৃঢ় করে এবং  সমাজের সমস্ত মানুষের মধ্যেঐক্য ও সুরক্ষা বিস্তার করে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


কার্বন নিঃসরণ দ্রুত শেষ করার জন্য G7 ঐক্যমত

উত্তরাপথ: বিশ্বের সাতটি ধনী দেশের শক্তি ও পরিবেশ মন্ত্রীরা সম্প্রতি  জ্বালানি এবং পরিবেশগত ইস্যুতে উত্তর জাপানের শহর সাপোরোতে বৈঠক করেন।  G-7 বৈঠকে জড়ো হওয়া বিভিন্ন দেশের আধিকারিকরা তাদের প্রতিশ্রুতির রূপরেখা দিয়ে একটি কমিউনিক জারি করেছে। বৈঠকে বর্তমান সঞ্চিত জ্বালানি সংকট এবং ভবিষ্যৎ অর্থনৈতিক উন্নয়নকে সমান গুরুত্ব দিয়ে, আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে নেট-জিরো গ্রিনহাউস গ্যাস (GHG) নির্গমনের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। সমস্ত নেতারা দক্ষ, সাশ্রয়ী মূল্যের এবং দূষণ মুক্ত শক্তির উৎস সন্ধানের গুরুত্বকে স্বীকৃতি দিয়েছে। এর আগেও .....বিস্তারিত পড়ুন

শালডিহা কলেজের ছাত্রীদের জন্য বিশেষ সার্টিফিকেট কোর্স

উত্তরাপথঃ বাঁকুড়া জেলার শালডিহা কলেজের রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডঃ সমীর কুমার মণ্ডল এর উদ্যোগে এবং Mahindra Group - এর Mahindra Pride Classroom ও Naandi Foundation -এর যৌথ উদ্দগ্যে শুধু মাত্র ছাত্রীদের জন্য ৭ দিনের (৪০ ঘন্টা) একটি সার্টিফিকেট course -এর আয়োজন করা হয়েছিল। বিভিন্ন রকম স্কিল নিয়ে বিশদে শিক্ষা দেওয়া হয়েছিল। যার মধ্যে হল communication skill, soft skill, life skill, presentaion skill ও interview skill ইত্যাদি। Mohindra Educator -এর ভূমিকাই আসেন সরোজ রাই। তিনি মনে করেন, এই জাতীয় প্রশিক্ষণ শালডিহার মতো প্রান্তিক কলেজের মেয়েরা খুবই উপকৃত হবে। কলেজ কর্তৃপক্ষ আশা করে ভবিষ্যতে মাহিন্দ্রা গ্রুপ এই কলেজে ক্যাম্পাসিং এর .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top