জাপানি বিজ্ঞানীরা তৈরি করেছেন, সম্পূর্ণ রিচার্জেবল এয়ার ব্যাটারি

রিচার্জেবল এয়ার ব্যাটারি-র প্রক্রিয়া। গ্রাফিকঃ উত্তরাপথ

উত্তরাপথঃ একটি যুগান্তকারী উন্নয়নে, জাপানি বিজ্ঞানীদের একটি দল একটি অভিনব, শক্ত, রিচার্জেবল এয়ার ব্যাটারি তৈরি করে ব্যাটারি প্রযুক্তির ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি ঘটিয়েছে ৷ এই উদ্ভাবনের সাফল্য শক্তির সঞ্চয় ব্যবস্থায় বিপ্লব ঘটানোর সম্ভাবনা তৈরি করেছে । এই ব্যাটারি বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রয়োগে আরও দীর্ঘস্থায়ী এবং উন্নত পরিষেবা প্রদান করবে ।

প্রচলিত ব্যাটারি প্রযুক্তি তরল বা জেল ইলেক্ট্রোলাইটের উপর নির্ভর করে, যা ক্ষমতার দিক থেকে সীমিত এবং নিরাপত্তা  বিষয়ে অনেক ক্ষেত্রে উদ্বেগ তৈরি করতে পারে। এরপর ১৯৮৬ তে সলিড-স্টেট ব্যাটারির বিকাশ এই সীমাবদ্ধতাগুলি অনেকটা কাটিয়ে উঠেছে। এখন, জাপানি বিজ্ঞানীরা সফলভাবে একটি কঠিন, রিচার্জেবল এয়ার ব্যাটারি তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে যা পার্শ্ববর্তী বায়ু থেকে অক্সিজেনকে এর একটি বিক্রিয়াক হিসেবে ব্যবহার করবে।জাপানের এয়ার ব্যাটারির আবিস্কার শক্তির সঞ্চয় ব্যবস্থায় একটি উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ।

নতুন বিকশিত সলিড-স্টেট এয়ার ব্যাটারিতে একটি অ্যানোড এবং ক্যাথোডের মধ্যে স্যান্ডউইচ করা সলিড-স্টেট ইলেক্ট্রোলাইট রয়েছে। সলিড-স্টেট ইলেক্ট্রোলাইট আয়নগুলির সঞ্চালনের অনুমতি দেয়, যখন বিক্রিয়কগুলির মিশ্রণ রোধ করে। এই নকশাটি একটি তরল বা জেল ইলেক্ট্রোলাইটের প্রয়োজনীয়তা দূর করে, ব্যাটারিকে নিরাপদ, আরও স্থিতিশীল  করার প্রবণতা তৈরি করে।

ব্যাটারির ক্যাথোড বায়ুমণ্ডল থেকে অক্সিজেন ব্যবহার করে, যা অ্যানোডের সাথে বিক্রিয়া করে বিদ্যুৎ উৎপাদন করে। এই অনন্য বৈশিষ্ট্যটি সাধারণত ঐতিহ্যবাহী ব্যাটারিতে ব্যবহৃত ভারী এবং ভারী ধাতু অক্সাইড যৌগের প্রয়োজনীয়তা দূর করে। বিক্রিয়াক হিসেবে বায়ুর ব্যবহার ব্যাটারির শক্তির ঘনত্ব উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করে, এর সামগ্রিক কর্মক্ষমতা বাড়ায়।

এই  রিচার্জেবল এয়ার ব্যাটারির বিকাশ বর্তমানে আমাদের ব্যবহৃত ব্যাটারি প্রযুক্তির তুলনায় বেশ কিছু সুবিধা প্রদান করে:

 যেহেতু এই নতুন প্রযুক্তির ব্যাটারিতে তরল বা জেল ইলেক্ট্রোলাইট ব্যবহার করা হয়নি তাই এটি ব্যাটারির সামগ্রিক নিরাপত্তা এবং স্থিতিশীলতা বাড়ায়, বিস্ফোরন হওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস করে।

পার্শ্ববর্তী বায়ু থেকে অক্সিজেন ব্যবহার করে, ব্যাটারি উচ্চ শক্তির ঘনত্ব অর্জন করে, সেই করনে এটি দীর্ঘস্থায়ী এবং আরও শক্তি সঞ্চয় করার ক্ষমতার সম্ভাবনা রয়েছে।

 সলিড-স্টেট এয়ার ব্যাটারি তৈরিতে ক্ষতিকারক ভারী ধাতুগুলি ব্যবহার করা হয় না,যা এটিকে শক্তি সঞ্চয়ের জন্য আরও টেকসই বিকল্প করে তোলে।

অভিনব ব্যাটারিতে বৈদ্যুতিক যানবাহন, বহনযোগ্য ইলেকট্রনিক্স, পুনর্নবীকরণযোগ্য শক্তি স্টোরেজ সিস্টেম এবং গ্রিড-স্তরের শক্তি সঞ্চয় সহ বিস্তৃত সম্ভাব্য অ্যাপ্লিকেশন রয়েছ।

যদিও একটি সলিড-স্টেট এয়ার ব্যাটারির বিকাশ, ব্যাটারি তৈরির জগতে এক উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি। তবু এর বাণিজ্যিকীকরণ এবং ব্যাপকভাবে এটিকে গ্রহণের আগে এখনও এই নতুন প্রযুক্তির সামনে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ রয়েছে। বিজ্ঞানীরা বর্তমানে ব্যাটারির কর্মক্ষমতাকে আরও উন্নত করার জন্য কাজ করছেন, যেমন এর শক্তি দক্ষতা এবং সাইকেল লাইফ বাড়ানো।

সেই সাথে ভবিষ্যতে বিভিন্ন শিল্পের চাহিদা মেটাতে উৎপাদন প্রক্রিয়াকে অপ্টিমাইজ করতে, খরচ কমাতে এবং উৎপাদন বাড়াতে আরও গবেষণা প্রয়োজন। এই প্রতিশ্রুতিশীল প্রযুক্তির বিকাশ এবং বাণিজ্যিকীকরণ চালানোর জন্য একাডেমিয়া, শিল্প এবং নীতিনির্ধারকদের মধ্যে সহযোগিতা গুরুত্বপূর্ণ ।

বিস্তারিত জানতেঃ Angew. Chem.Int. Ed. 2023, 62, e2023043.

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


NASA Carbon Emission: পৃথিবী কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করার চেয়ে বেশি নির্গত করছে

উত্তরাপথঃ কার্বন নির্গমন (NASA Carbon Emission) সম্পর্কে নাসার সর্বশেষ আবিষ্কার পৃথিবীর জন্য এক সতর্কতা সংকেত। মহাকাশ সংস্থার মতে, পৃথিবী কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করার চেয়ে বেশি নির্গত করছে, যার ফলে গ্রিনহাউস গ্যাসের বায়ুমণ্ডলীয় ঘনত্ব উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। NASA এর এই আবিষ্কারটি জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য কারণ হিসাবে দেখা যেতে পারে, সেইসাথে কার্বন নিঃসরণ কমানোর জন্য জরুরি পদক্ষেপের প্রয়োজনীয়তার উপর আলোকপাত করেছে।নাসার সর্বশেষ গবেষণায় যে তথ্য উঠে এসেছে তাতে পৃথিবীর মহাসাগর এবং ভূমি-ভিত্তিক বাস্তুতন্ত্র আগের চেয়ে কম কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করছে। গবেষণায় দেখা গেছে যে গত এক দশকে ভূমি এবং মহাসাগর দ্বারা শোষিত কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ ৫% হ্রাস পেয়েছে, যার ফলে গ্যাসের বায়ুমণ্ডলীয় ঘনত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

সেলফির উচ্চ রেটিং কি আপনাকে আরওপাতলা হতে উৎসাহিত করছে ?

উত্তরাপথঃ সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে সেলফি তোলা এবং নিজেকে পাতলা হিসাবে দেখানোর মধ্যে একটি সম্পর্ক থাকতে পারে। যুক্তরাজ্যের ইয়র্ক সেন্ট জন ইউনিভার্সিটির রুথ নাইট এবং ইউনিভার্সিটি অফ ইয়র্কের ক্যাথরিন প্রেস্টন সম্প্রতি PLOS ONE জার্নালে তাদের ফলাফল প্রকাশ করেছেন।সেখানে সেলফির উচ্চ রেটিং এবং আমাদের শরীরের গঠনের মধ্যে যোগসূত্র খোঁজার চেষ্টা করা হয়েছে।    বর্তমান সোশ্যাল মিডিয়ায় সেলফি হল এক জনপ্রিয় ছবি দেওয়ার ধরন। যিনি সেলফি তোলেন তিনি ক্যামেরাকে তাদের শরীর থেকে দূরে রেখে নিজেই নিজের ছবি তোলে। আগের গবেষণায় বলা হয়েছে সেলফিগুলি দেখার ফলে ছবির বিষয়গুলি সম্পর্কে দর্শকদের সিদ্ধান্ত প্রভাবিত হতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Fried rice syndrome: আগের দিনের রান্না করা ভাত খেলে হতে পারে এই বিশেষ অসুখটি

উত্তরাপথঃ আপনার কি বাসী ভাত বা পান্তা খাওয়ার অভ্যেস আছে? সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড় ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম (Fried rice syndrome) নিয়ে আমরা প্রায়ই অবশিষ্ট খাবার গরম করে আবার খাই। কিন্তু জানেন কি এই অভ্যাস আপনাকে অসুস্থ করে তুলতে পারে। অনেক সময় পর আগের রান্না করা  ভাত খাওয়ার ফলে পেট সংক্রান্ত সমস্যা হয়। কেউ কেউ মনে করেন যে খাবার পুনরায় গরম করলে এতে উপস্থিত ব্যাকটেরিয়া মারা যায়, কিন্তু তা নয়। যে খাবারেই স্টার্চ থাকে না কেন, এতে উপস্থিত টক্সিন তাপ প্রতিরোধী। অর্থাৎ খাবার গরম করার পরও ব্যাকটেরিয়া নষ্ট হয় না। ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম নামে এই সমস্যা সম্পর্কিত একটি অবস্থা রয়েছে। আজ আমরা এই ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম অবস্থার লক্ষণ, কারণ এবং প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করব। ভাত রান্না করার পর, যখন অবশিষ্ট ভাত কয়েক ঘন্টা বা সারারাত ঘরের তাপমাত্রায় রেখে দেওয়া হয় এবং তাতে ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে শুরু করে, তখন এই অবস্থার নাম দেওয়া হয়েছে ফ্রাইড রাইস সিনড্রোম। .....বিস্তারিত পড়ুন

Roop Kishor Soni: একটি আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য তুলে ধরেছেন

উত্তরাপথঃ রাজস্থান মানেই ওজনদার রূপার গহনা ,আর তার উপর কারুকাজ। প্রচলিত এই ধারনা ভেঙ্গে আজ রূপোর গহনাকে আধুনিকতার সাথে শিল্পের এক অপূর্ব মেলবন্ধন ঘটিয়েছেন যে ব্যক্তি তিনি হলেন রূপ কিশোরী সোনী(Roop Kishor Soni)।তিনি ২০১৬ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির কাছ থেকে তার অসাধারণ শিল্প কর্মের জন্য জাতীয় পুরুস্কার পান। রাজস্থানের জয়সলমেরের শহরের এই শিল্পী ৩.৮ গ্রাম ওজনের ০.৯ সেমি চওড়া রৌপ্য আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য খোদাই করেছেন।এই ছোট রূপার আংটিতে শিল্পী তাজমহল, সিডনি অপেরা হাউস, স্ট্যাচু অফ লিবার্টি, চীনের গ্রেট ওয়াল, আইফেল টাওয়ার, বিগ বেন, পিসার হেলানো টাওয়ার এবং মিশরীয় পিরামিডের চিত্র এক সাথে ফুটিয়ে তুলেছেন।এছাড়াও তিনি আরও দুটি পৃথক ডিজাইনের অত্যাশ্চর্য আংটি  তৈরি করেছেন।৮.৬ গ্রাম ওজনের একটি রিংয়ে তিনি সূর্যাস্তের সময় ভারতীয় উট সাফারি সহ ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন ভারতীয় বিশেষত্ব ফুটিয়ে তুলেছেন,এবং অন্যটিতে বিভিন্ন হিন্দু দেব-দেবী ছবি এবং মন্দির খোদাই করেছিলেন। শিল্পী বলেছেন যে তিনি তার বাবার কাছ থেকে তার শৈল্পিক দক্ষতা উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছেন। সেই সাথে তিনি বলেন "আমার বাবাও একজন জাতীয় পুরুস্কার প্রাপ্ত শিল্পী ছিলেন। তিনি আমাকে শিল্পের এই দক্ষতা শিখিয়েছিলেন কারণ তিনি পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যে শিল্পের ফর্মটিকে বাঁচিয়ে রাখতে চেয়েছিলেন।" .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top