সাবধান! স্কিন-লাইটনিং দ্রব্য আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে

উত্তরাপথ; শ্যামলা বর্ণের ব্যক্তিদের বিশেষ করে মহিলাদের মধ্যে স্কিন-লাইটনিং এক প্রবণতা রয়েছে ।Northwestern Medicine Study অনুসারে বেশির ভাগ ব্যবহারকারী এই পণ্যগুলির ঝুঁকি সম্পর্কে পুরোপুরি সচেতন না হয়ে এগুলি ব্যবহার করে।সমীক্ষাটি আরও প্রকাশ করে যে এই অভ্যাসগুলি প্রায় বর্ণবাদের দ্বারা উজ্জীবিত । অনেক সংস্কৃতিতে, ফর্সা ত্বক দীর্ঘকাল ধরে সৌন্দর্য এবং সামাজিক মর্যাদার সাথে জড়িত, যা হালকা ত্বকের টোনের জন্য ব্যাপক আকাঙ্ক্ষার দিকে মানুষকে পরিচালিত করে। মানুষের এই আকাঙ্ক্ষা ত্বক-উজ্জ্বল করার পণ্যগুলির জনপ্রিয়তাকে বাড়িয়ে দিয়েছে।

সমীক্ষায় আরও বলা হয়েছে কাউন্টারে ক্রয় করা পণ্যগুলির উপাদানগুলি সম্পর্কে এবং তাদের সম্ভাব্য ক্ষতিকারক প্রভাব সম্পর্কে সচেতনতার অভাব রয়েছে ব্যবহারকারীদের মধ্যে। ডাঃ রূপল কুন্ডু , নর্থ ওয়েস্টার্ন মেডিসিন সেন্টার ফর এথনিক স্কিন অ্যান্ড হেয়ারের প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক এর মতে,এই পণ্যগুলি মুদি দোকান, সম্প্রদায়-ভিত্তিক স্টোর বা এমনকি অনলাইন থেকে কেনা হয় এবং একটি বড়-চেইন স্টোর বা প্রেসক্রিপশন পণ্যগুলির মতো একই ধরণের নিয়ন্ত্রণের মধ্য দিয়ে যায় না।“

এবার দেখাযাক স্কিন-লাইটেনিং এর দ্রব্যগুলি কিভাবে আমাদের ক্ষতি করে।

অনেক স্কিন-লাইটনিং পণ্যে ঘন করা রাসায়নিক থাকে যা ত্বকের প্রাকৃতিক প্রতিরক্ষামূলক বাধাকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহারের ফলে ত্বক পাতলা হতে পারে, সংবেদনশীলতা বৃদ্ধি পায় যার ফলে ত্বকে ফুসকুড়ি, লালভাব বা জ্বালা হতে পারে।

স্কিন-লাইটনিং পণ্যগুলিতে পাওয়া কিছু উপাদান, যেমন হাইড্রোকুইনোন এবং পারদ, ত্বকের ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়। এই পদার্থগুলির দীর্ঘায়িত এক্সপোজার ডিএনএকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে সেই সাথে এটি ম্যালিগন্যান্ট কোষের বিকাশ ঘটায়।

হাস্যকর হলেও এটি সত্যি,যে কিছু কিছু স্কিন-লাইটিং প্রোডাক্টের অত্যধিক এবং দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার বিপরীত প্রভাবের দিকে নিয়ে যেতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহার রিবাউন্ড হাইপারপিগমেন্টেশনের কারণ হতে পারে,যা ত্বককে কালো করে তোলে এবং ত্বকে একটি অসম রঙ্গের স্তর স্তৈরি করে।

কিছু স্কিন-লাইটেনিং পণ্যে পারদের মতো বিষাক্ত পদার্থ থাকে, যা রক্ত ​​​​প্রবাহে শোষিত হতে পারে এবং লিভার এবং কিডনির মতো অঙ্গগুলিতে জমা হতে পারে। এছাড়াও ফর্সা ত্বকের আকাঙ্খা একজন ব্যক্তির মানসিক স্বাস্থ্যের উপরও প্রভাব ফেলতে পারে ।

স্কিন-লাইটেনিং পণ্যগুলির সাথে সম্পর্কিত সম্ভাব্য ঝুঁকিগুলির কথা মাথায় রেখে, বেশ কয়েকটি দেশ ক্ষতিকারক উপাদানগুলির ব্যবহার সীমাবদ্ধ করার জন্য বেশ কিছু পণ্যকে অবৈধ ঘোষণা করেছে৷ কিন্তু আজও অনেক পণ্য অবৈধভাবে বা যথাযথ লেবেল ছাড়াই বাজারে বিক্রি করা অব্যাহত রয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে একমাত্র শিক্ষায় পারে মানুষের মনে সত্যিকারের সৌন্দর্য ,স্বাস্থ্য এবং আত্মবিশ্বাসের ধারনা তৈরি করতে।যা একজন ব্যক্তির স্ব-গ্রহণযোগ্যতা বাড়াতে সাহায্য করবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


মিশন ইম্পসিবল ডেড রেকনিং পার্ট ওয়ান রিভিউ: ৬১ বছর বয়সী টম ক্রুজের আবারও অনবদ্য

উত্তরাপথঃ মিশন ইম্পসিবল দর্শকদের একটি রোমাঞ্চকর যাত্রায় নিয়ে যায়। যেখানে সিনেমাটি  তিন ঘণ্টা দেখা অতিক্রান্ত হওয়ার পরও দর্শক এটি দেখতে চান। আর এটিই টম ক্রুজ এবং পরিচালক ক্রিস্টোফার ম্যাককোয়ারির আসল সাফল্য।গত বছর হলিউড সুপারস্টার টম ক্রুজ 'টপ গান ম্যাভেরিক' দিয়ে দর্শকদের মন্ত্রমুগ্ধ করার পর, এখন টম ক্রুজ এজেন্ট হান্টের চরিত্রে শক্তিশালী অ্যাকশন নিয়ে দর্শকদের সামনে এসেছেন। টম ক্রুজের 'মিশন ইম্পসিবল' ফিল্ম সিরিজের সপ্তম কিস্তি 'মিশন ইম্পসিবল- ডেড রেকনিং পার্ট ওয়ান' সদ্য ভারতে মুক্তি পেয়েছে । টম ক্রুজ এই ছবিতে তার জনপ্রিয় ইমেজ ধরে রেখেছেন এবং এই ছবিতে দর্শকদের অ্যাকশনের একটি বড় অংশ উপহার দিয়েছেন। মিশন ইম্পসিবল মুভিগুলি শুধুমাত্র টম ক্রুজের জন্য দেখা হয় এবং এই মুভিটি দেখা আবশ্যকও বটে৷ .....বিস্তারিত পড়ুন

ব্যয় বৃদ্ধির কারণে বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম, প্রভাব রাজ্যেও

উত্তরাপথঃ বাংলাদেশ ও ইলিশ এই দুটি নাম একে অপরের পরিপূরক মনে হলেও বাস্তব কিন্তু বলছে অন্য কথা। সূত্র মাধ্যমে পাওয়া খবরে জানা যাচ্ছে  প্রকৃতির অপার দান হলেও শিকার থেকে শুরু করে বাজারজাত হওয়া পর্যন্ত ব্যয় বৃদ্ধির কারণেই বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম। এর সঙ্গে মধ্যস্বত্বভোগীদের লাভের অঙ্ক যোগ হয়ে তা চলে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।পরিস্থিতি এমন যে গরিব তো দূর থাক মধ্যবিত্তের পাতেও এখন আর জুটছে না ইলিশ। বুধবার বরিশালের পাইকারি বাজারে এক কেজি সাইজের ইলিশ বিক্রি হয় ৬০ হাজার টাকা মন দরে। ৪২ কেজিতে মন হিসাবে প্রতি কেজির দাম পড়ে প্রায় সাড়ে ১৪শ টাকা। খুচরা বাজারে গিয়ে যা বিক্রি হয় ১৬ থেকে ১৮শ টাকা। যে কারণে জাতীয় এই মাছ এখন শুধু বিত্তশালীদের খাদ্যে পরিণত হয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

ঘোষণা হল ভারতের শীর্ষ বিজ্ঞান পুরস্কার শান্তি স্বরূপ ভাটনগর প্রাপকদের নাম  

উত্তরাপথঃ এটি আশ্চর্যজনকভাবে ২০২২ সালে, প্রথমবারের মতো, বিজ্ঞানে ভারতের শীর্ষ বার্ষিক পুরস্কার ঘোষণা করা হয়নি।এক বছর স্থগিত রাখার পর, সোমবার ২০২২ সালের শান্তি স্বরূপ ভাটনগর পুরস্কার ঘোষণা করা হয়, যেখানে ১২ জন তরুণ বিজ্ঞানীকে ভারতের শীর্ষ বিজ্ঞান পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত করা হয়েছে।ভাটনগর পুরষ্কার, CSIR-এর প্রথম মহাপরিচালক শান্তি স্বরূপ ভাটনাগরের নামানুসারে, প্রতি বছর সাতটি বৈজ্ঞানিক শাখায় গবেষকদের অসামান্য কৃতিত্বের জন্য দেওয়া হয়। জীববিজ্ঞান, রসায়ন, গণিত, পদার্থবিদ্যা, চিকিৎসা, প্রকৌশল এবং পৃথিবী, বায়ুমণ্ডল, মহাসাগর এবং গ্রহ বিজ্ঞান - এর অধীনে ৪৫ বছর পর্যন্ত অসামান্য গবেষকদের নির্বাচন করা হয়। পুরস্কারে ৫ লক্ষ টাকা নগদ ও একটি প্রশংসাপত্র দেওয়া হয়। .....বিস্তারিত পড়ুন

বিক্রম সারাভাই: ভারতীয় মহাকাশ গবেষণার একজন দূরদর্শী পথিকৃৎ

উত্তরাপথঃ ডঃ বিক্রম সারাভাই ছিলেন ভারতের অন্যতম সেরা বিজ্ঞানী। তিনি একজন বিজ্ঞানী, উদ্ভাবক, শিল্পপতি এবং স্বপ্নদর্শীর ভূমিকা সমন্বিত, ভারতীয় মহাকাশ কর্মসূচির জনক হিসাবে বিখ্যাত।তাঁর নিরলস প্রচেষ্টায় ভারত মহাকাশ অনুসন্ধানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন (ISRO) এর প্রতিষ্ঠা ছিল তার অন্যতম সেরা সাফল্য। তিনি রাশিয়ান স্পুটনিক উৎক্ষেপণের পর ভারতের মতো একটি উন্নয়নশীল দেশের জন্য মহাকাশ কর্মসূচির গুরুত্ব সম্পর্কে সরকারকে সফলভাবে বোঝান।এরপর ডঃ হোমি জাহাঙ্গীর ভাভা, যিনি ভারতের পারমাণবিক বিজ্ঞান কর্মসূচির জনক হিসাবে পরিচিত, ভারতে প্রথম রকেট উৎক্ষেপণ কেন্দ্র স্থাপনে ডঃ সারাভাইকে সমর্থন করেছিলেন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top