ক্ষতিগ্রস্ত হৃৎপিণ্ডের পুনর্জন্মকে কার্যকর করার উপায়

ছবি -প্রতীকী

উত্তরাপথ: হার্ট অ্যাটাক বিশ্বব্যাপী  মানুষের  মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ। অনুমান প্রায় ১৮ মিলিয়ন মানুষের শুধুমাত্র হার্ট অ্যাটাকের কারণে মৃত্যু হয়েছে। Hubrecht ইনস্টিটিউট থেকে Jeroen Bakkers নেতৃত্বে গবেষকদের একটি দল ক্ষতিগ্রস্ত হৃৎপিণ্ডের পুনর্জন্মকে কার্যকর করার উপায় খুঁজে বের করার পিছনে একটি প্রক্রিয়ার উপর আলোকপাত করেছে। এই নিবন্ধে হৃৎপিণ্ডের পুনর্জন্মকে ঘিরে বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার নিয়ে আলোচনা করব।

লিভার এবং ত্বকের তুলনায়, হৃৎপিণ্ডের নিজেকে ঠিক (Auto renewal) করার ক্ষমতা অনেক সীমিত । হৃদপিন্ডের পেশী যখন ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তখন এটি সাধারণত দাগ টিস্যু গঠন করে, যা সঠিকভাবে হৃৎপিণ্ডের কাজ করার ক্ষমতাকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। গবেষণায় দেখা গেছে যে কিছু প্রাণী, যেমন জেব্রাফিশ এবং নবজাত ইঁদুর, তাদের হৃদয়কে সম্পূর্ণরূপে নিজেরাই ঠিক করতে পারে।

বিজ্ঞানীরা সম্প্রতি হৃদপিণ্ডের পুনর্জন্মের পেছনের প্রক্রিয়া বোঝার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছেন। নেচার জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় প্রকাশ করা হয়েছে যে মনোনিউক্লিয়ার ডিপ্লয়েড কার্ডিওমায়োসাইটস (এমএনডিসিএম) নামক একটি নির্দিষ্ট ধরণের হার্ট সেল পুনর্জন্ম প্রক্রিয়ায় একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এই কোষগুলির পূর্বের স্বাস্থ্যকর অবস্থায় ফিরে যাওয়ার ক্ষমতা রাখে, ক্ষতিগ্রস্ত টিস্যু গুলিকে বিভক্ত এবং প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে।

গবেষণায় দেখা গেছে যে হিপ্পো সিগন্যালিং পাথওয়ের সক্রিয়করণ, হৃদপিণ্ডের আকার এবং টিস্যু পুনর্জন্ম নিয়ন্ত্রণ করে, যা হার্টের পুনর্জন্মের জন্য অপরিহার্য। এই পদ্ধতির মাধ্যমে , গবেষকরা প্রাপ্তবয়স্ক ইঁদুরের হৃদয়ের পুনর্জন্মের ক্ষমতা উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নত করতে সক্ষম হয়েছেন।

হৃৎপিণ্ডের পুনর্জন্মের পিছনে মূল প্রক্রিয়ার আবিষ্কার ক্ষতিগ্রস্ত হৃৎপিণ্ড মেরামত করার জন্য চিকিৎসা বিজ্ঞানের নতুন সম্ভাবনা উন্মুক্ত করে। এমএনডিসিএম এবং হিপ্পো সিগন্যালিং এর ভূমিকা বোঝার মাধ্যমে, বিজ্ঞানীরা মানুষের  হৃদপিণ্ডের পুনর্জন্মকে উদ্দীপিত করতে পারে।

হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্য পুনরুদ্ধারের ক্ষেত্রে পুনর্জন্ম প্রদানকারী ওষুধের দুর্দান্ত কার্যকারীতা রয়েছে। গবেষকরা স্টেম সেল থেরাপি, টিস্যু ইঞ্জিনিয়ারিং এবং জিন থেরাপি সহ হার্টের পুনর্জন্মকে উন্নত করতে এবং এর কার্যকারিতাকে পুনরুদ্ধার করার জন্য বিভিন্ন পদ্ধতির উপর গবেষণা করছেন। হিপ্পো সিগন্যালিং পাথওয়ে এবং MNDCMs হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্য পুনরুদ্ধারের  জন্য থেরাপির বিকাশের ক্ষেত্রে মূল্যবান তথ্য প্রদান করে যা ক্ষতিগ্রস্ত হৃদয়ের স্বাস্থ্য পুনরুদ্ধার করতে পারে।

সাম্প্রতিক আবিষ্কারগুলি চমকপ্রদ হলেও, এই ফলাফলগুলিকে  চিকিৎসা ক্ষেত্রে কার্যকর করার ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি চ্যালেঞ্জ রয়েছে। প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের হৃদয়ে হিপ্পো সিগন্যালিং পাথওয়েকে কীভাবে কার্যকরীভাবে সক্রিয় করা যায় এবং হৃদপিণ্ডের টিস্যুর নিরাপদ ও নিয়ন্ত্রিত পুনর্জন্ম নিশ্চিত করা যায় তা গবেষকদের নির্ধারণ করতে হবে। উপরন্তু, সম্ভাব্য জটিলতা এড়াতে চিকিৎসার উপযুক্ত সময় এবং ডোজ বোঝা গুরুত্বপূর্ণ।

হৃৎপিণ্ডের পুনর্জন্ম সম্পর্কে আমাদের মধ্যে আরও সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন শাখার বিজ্ঞানী, চিকিৎসক এবং গবেষকদের মধ্যে সহযোগিতা প্রয়োজন। সেইসাথে হৃদপিন্ডের পুনর্জন্মের জটিলতাগুলি সম্পূর্ণরূপে উন্মোচন করার জন্য ক্রমাগত গবেষণা প্রচেষ্টা প্রয়োজন এবং দরকার গবেষণার জন্য তহবিল এবং সহায়তা ,যা এই ক্ষেত্রের অগ্রগতি ত্বরান্বিত করতে পারে এবং আমাদের ক্ষতিগ্রস্থ হৃৎপিণ্ডের পুনর্জন্ম সম্পর্কে কার্যকর চিকিৎসার কাছাকাছি নিয়ে যেতে পারে।

হৃৎপিণ্ডের পুনর্জন্মের পিছনে মূল প্রক্রিয়ার উদ্ঘাটন, বিশেষ করে এমএনডিসিএম এবং হিপ্পো সিগন্যালিং পাথওয়ের ভূমিকা, ক্ষতিগ্রস্থ হৃৎপিণ্ডগুলি মেরামত করার ক্ষেত্র এক নতুন পথ দেখায়। গবেষণায় প্রাপ্ত এই নতুন উপলব্ধিগুলি পুনর্জন্মমূলক ঔষধ পদ্ধতির বিকাশের পথ প্রশস্ত করে , কার্ডিয়াক কেয়ারে বিপ্লব ঘটাতে পারে। যদিও এক্ষেত্রে অনেক চ্যালেঞ্জ এবং আরও গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে, ক্ষতিগ্রস্ত হৃৎপিণ্ড মেরামত এবং পুনর্জন্ম প্রদান করার সম্ভাবনা একটি দুর্দান্ত সম্ভাবনা যা বিশ্বব্যাপী হৃদরোগে আক্রান্ত লক্ষ লক্ষ মানুষকে আবার তাদের পুরাতন জীবন ফিরিয়ে দিতে পারে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


টাইফুন ইউন-ইউং এর আজ জাপানের টোকাই অঞ্চলে প্রত্যাশিত ল্যান্ডফল

উত্তরাপথঃ জাপানের জনগণ টাইফুন নং ১৩ যা ইউন-ইউং নামে পরিচিত যা শুক্রবার বিকেলের দিকে টোকাই অঞ্চলে ল্যান্ডফল করবে বলে আশা করা হচ্ছে, যেখানে নাগোয়া অবস্থিত। জাপান ইতিমধ্যে এর আগমনের জন্য নিজেদের আগাম প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। প্রসঙ্গত গত কয়েকদিন ধরে ক্রমশ তীব্রতর হচ্ছিল টাইফুন ১৩। জাপানের আবহাওয়া সংস্থা বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার টোকাই এবং কান্টো অঞ্চলে ভারী বৃষ্টিপাতের সতর্কতা জারি করছে, যা পরিবহন ব্যবস্থাকে প্রভাবিত করতে পারে।আবহাওয়া দপ্তরের মতে শুক্রবার সকাল ৬ টা নাগাদ ২৪ঘন্টা বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ইজু দ্বীপপুঞ্জে ২৫০ মিলিমিটার, টোকাই অঞ্চলে ১৫০ মিলিমিটার এবং কান্টো-কোশিন অঞ্চলে ১০০ মিলিমিটার হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। জাপানের আবহাওয়া সংস্থা (জেএমএ) .....বিস্তারিত পড়ুন

চম্পারন মাটন রাজনীতি কি কোনও নতুন সমীকরণ তৈরি করবে

উত্তরাপথঃ সামনে ২০২৪ এর লোকসভা নির্বাচন ,আর সেই নির্বাচনকে ঘিরে তৈরি হয়েছে INDIAজোট। মুম্বাইতে বিরোধী INDIA জোটের (ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্টাল ইনক্লুসিভ অ্যালায়েন্স) তৃতীয় বৈঠকের একদিন পরে, কংগ্রেস শনিবার রাহুল গান্ধীর লালু প্রসাদ যাদব এবং তার পরিবারের সদস্যদের সাথে দিল্লিতে দেখা করার একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে যেখানে তাদের চম্পারন মাটন দিয়ে রান্না এবং রাজনীতি নিয়ে আড্ডা দিতে দেখা যাচ্ছে।ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, রাহুল গান্ধী প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর জন্যও মাটন চাইছেন যা প্রিয়াঙ্কা বাড়িতে উপভোগ করেন এবং সন্দেহ করেছিলেন যে রাহুল সত্যিই মাটন রান্না করেছেন কিনা। "সবাই করেছে। আমি রান্না করেছি, লালুজি রান্না করেছে, মিসা রান্না করেছে," রাহুল বলল। .....বিস্তারিত পড়ুন

এক নজরে টি-টোয়েন্টিতে বিশ্বের এক নম্বর ব্যাটসম্যান সূর্যকুমার যাদব

উত্তরাপথঃ  টি-টোয়েন্টিতে বিশ্বের এক নম্বর ব্যাটসম্যান সূর্যকুমার যাদব আজ তার ৩৩তম জন্মদিন উদযাপন করছেন।  তিনি বর্তমানে টিম ইন্ডিয়ার সাথে শ্রীলঙ্কায় রয়েছেন এবং এশিয়া কাপ খেলছেন।  সূর্য, যাকে ৩৬০ ডিগ্রি ব্যাটসম্যান বলা হয়, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দেরিতে প্রবেশ করেছিলেন, কিন্তু অল্প সময়ের মধ্যেই তিনি এমন সব কিছু অর্জন করেছিলেন যা অনেক ক্রিকেটার দীর্ঘ সময় ধরে খেলেও স্বপ্নেও দেখতে পারেন না।  চলুন জেনে নেওয়া যাক তার সবচেয়ে বিশেষ ৫টি রেকর্ড সম্পর্কে- T-20 আন্তর্জাতিকে দ্রুততম ১২টি ম্যান অফ দ্য ম্যাচের পুরস্কার সূর্যকুমার যাদবকে টি-টোয়েন্টির সবচেয়ে ধ্বংসাত্মক ব্যাটসম্যান হিসেবে বিবেচনা করা হয়।  একই বলে অনেক শট খেলতে পারেন তিনি। তাঁর ৫৩ টি ম্যাচে .....বিস্তারিত পড়ুন

চাকরি ছাড়ার পর ফেরত দিতে হলো অফিসে খাওয়া চায়ের দাম

উত্তরাপথঃ চা কে আমরা যতই বলি স্ট্রিট ফুড বলি না কেন আসলে এটি এমন একটি পানীয় যা বিশ্ব অর্থনীতির বিশ্বায়নকে চালিত করেছিল। দীর্ঘক্ষণ কাজ করার ফলে কর্মীদের মধ্যে ক্লান্তি কিংবা বিরক্তি কাজ করে, তা কাটাতেই প্রায় প্রতিটি সরকারি-বেসরকারি অফিসেই কম বেশি চা-কফি খাওয়ার সুযোগ থাকে। কিন্তু একটি প্রতিষ্ঠানের চাকরি ছাড়ার পর দুই কর্মীকে অফিসে যত কাপ চা খেয়েছেন, তার বিল পরিশোধ করতে হয়েছে। এই বিরল কাণ্ড ঘটেছে চীনে।ঘটনা চীনের আনহুই প্রদেশের। সেখানে দুই কর্মী চাকরি ছেড়েছিলেন। খুবই স্বাভাবিক ঘটনা, আমরা অনেকেই চাকরি ছেড়ে থাকি। কিন্তু পরের ধাপে যা ঘটলো, তা কোনভাবেই স্বাভাবিক নয়। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top