Municipal Recruitment Scam: রেট চার্ট মেনেই নাকি বিক্রি হতো পুরসভার চাকরি- ইডি

উত্তরাপথ

একেবারে শিক্ষক নিয়োগের মডেলেই চাকরি বিক্রি হয়েছে রাজ্যের বিভিন্ন পুরসভায়৷ প্রতিটি পদের চাকরির জন্য নির্দিষ্ট ছিল রেট চার্ট৷ নিজের রিপোর্টে তেমনটাই দাবি করেছে ইডি৷ শুধু তাই নয়, ইডির কাছে যাবতীয় এজেন্ট এবং ভুয়ো চাকরিপ্রার্থীর পূর্ণাঙ্গ তালিকা রয়েছে বলে জানিয়েছে তারা৷ গত ৭ জুনই সল্টলেকের পুর দফতরের অফিস থেকে শুরু করে রাজ্যের ১৪টি পুরসভায় তল্লাশি চালায় সিবিআই৷ বুধবার সকাল থেকেই দক্ষিণ দমদম পুরসভা থেকে শুরু করে দমদম, পানিহাটি, হালিশহর, টিটাগড়, নিউ ব্যারাকপুর, শান্তিপুর, কৃষ্ণনগর টাকি সব পুরসভাতেই পৌঁছয় সিবিআইয়ের আলাদা আলাদা দল৷ প্রত্যেকটি জায়গাতেই বিভিন্ন নথিপত্র ঘেঁটে দেখেন তাঁরা৷ এখানেই শেষ নয়, সল্টলেকের পুর ও নগোরন্নয়ন দফতরেও হানা সিবিআইয়ের৷ ইডির রিপোর্ট অনুযায়ী, ঝাড়ুদার,পিওন, অ্যাম্বুল্যান্স অ্যাটেন্ড্যান্ট, গাড়ির চালক, রাজমিস্ত্রি, ডাম্পার চালক৷ এই সমস্ত কাজের জন্য রেট ছিল ৪ লক্ষ টাকা৷ কেরানি, পুরসভার স্কুলের শিক্ষক, পাইপলাইন ইনস্পেক্টর, অ্যাসিস্ট্যান্ড ক্যাশিয়ারের চাকরির জন্য নেওয়া হতো ৫ লক্ষ টাকা এবং সাব অ্যাসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ারের জন্য রেট ছিল ৬ লক্ষ টাকা৷ কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট বা ইডি-র দাবি, পুর নিয়োগ দুর্নীতি কাণ্ডে নাকি এই রেট চার্ট মেনেই নাকি হতো চাকরি বিক্রি ।

পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন পুরসভার নিয়োগ দুর্নীতির খবর প্রকাশ্যে আসতেই রাজ্য বিজেপির পক্ষ থেকে অমিত মালব্য, মমতা ব্যানার্জি কে “দুর্নীতির রানী ‘ বলে সম্বোধন করেছেন।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


বেতন, মাসে ৩০,০০০ আর সম্পত্তির মালিকানা ৭ কোটির বেশী

উত্তরাপথ: এ এক দুর্নীতির অনন্য নজির যা পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিবিদদের দুর্নীতি কে লজ্জায় ফেলবে । দুর্নীতির এই অভিযোগটি উঠেছে মধ্যপ্রদেশ পুলিশ হাউজিং কর্পোরেশনের সহকারী প্রকৌশলী ইনচার্জ হেমা মীনার বিরুদ্ধে।মধ্যপ্রদেশের সরকারি কর্মকর্তা দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের পর হেমা মীনা প্রচার মাধ্যমের নজরে আসে । এখন প্রশ্ন কে এই হেমা মীনা ? মধ্যপ্রদেশ পুলিশ হাউজিং কর্পোরেশনের চুক্তির ভিত্তিতে নিয়োজিত সহকারী প্রকৌশলী ইনচার্জ যিনি মাসে ৩০,০০০ টাকা আয় করেন । দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে তার বাড়ি থেকে সাতটি বিলাসবহুল গাড়ি, ২০,০০০ বর্গফুট .....বিস্তারিত পড়ুন

পশ্চিমবঙ্গে 'দ্য কেরালা স্টোরি'সিনেমাটির ভাগ্য সুপ্রিম কোর্টের হাতে

উত্তরাপথ: 'দ্য কেরালা স্টোরি' সিনেমাটি পশ্চিমবঙ্গে নিষিদ্ধ হওয়ায় সিনেমাটির সিনেমার নির্মাতারা বাংলার নিষেধাজ্ঞাকে সুপ্রিম কোর্টে চ্যালেঞ্জ করেছিলেন। তাদের দাবী ছিল নিষেধাজ্ঞার ফলে প্রতিদিন তাদের আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে । নির্মাতাদের আবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিম কোর্ট আজ 'দ্য কেরালা স্টোরি' সিনেমাটি পশ্চিমবঙ্গে নিষিদ্ধ হওয়ার পিছনে যুক্তি জানতে চেয়েছে । প্রধান বিচারপতির একটি বেঞ্চ পর্যবেক্ষণ করেছে, যখন এটি কোনও সমস্যা ছাড়াই সারা দেশে চলছে।পশ্চিমবঙ্গের সিনেমাটি কেন নিষিদ্ধ করা উচিত? এটি একই রকম জনসংখ্যার সংমিশ্রণ রয়েছে এম .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top