Plastic eating bacteria: প্লাস্টিক খাওয়া ব্যাকটেরিয়া

উত্তরাপথঃ সাম্প্রতিক বছরগুলিতে প্লাস্টিক দূষণ একটি বৈশ্বিক সংকটে পরিণত হয়েছে, লক্ষ লক্ষ টন প্লাস্টিক বর্জ্য বিশ্বজুড়ে ল্যান্ডফিল এবং মহাসাগরগুলিতে জমা হচ্ছে৷ প্লাস্টিক, যা পচতে শত শত বছর সময় নিতে পারে, পরিবেশ এবং বন্যপ্রাণীর জন্য একটি উল্লেখযোগ্য হুমকি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।এই ধারাবাহিকতায়, বিজ্ঞানীরা এমন একটি প্লাস্টিক তৈরি করেছেন যা স্ব-ধ্বংস করবে।  এতে দূষণ কমবে বলে আশা করা হচ্ছে।  ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়া, সান দিয়েগোর বিজ্ঞানী হ্যানসোল কিম পলিউরেথেন প্লাস্টিকে একটি ব্যাকটেরিয়া যোগ করেছেন।  এই ব্যাকটেরিয়া প্লাস্টিক খায় যাকে বিজ্ঞানীরা প্লাস্টিক খাওয়া ব্যাকটেরিয়া বলছেন।

ফলে প্লাস্টিক নিজেই ভেঙে পড়ে।এই প্লাস্টিকটির বিশেষ বিষয় হল যতক্ষণ এটি ব্যবহার করা হয় ততক্ষণ এতে মিশ্রিত ব্যাকটেরিয়া নিষ্ক্রিয় থাকে।  যখন এটি আবর্জনার মধ্যে ফেলে দেওয়া হয়, তখন এটি আবর্জনার মধ্যে উপস্থিত উপাদানগুলির সংস্পর্শে আসে এবং সক্রিয় হয়ে প্লাস্টিক খেতে শুরু করে।এই প্লাস্টিকের মধ্যে মেশানো ব্যাকটেরিয়াটির নাম ‘ব্যাসিলাস সাবটিলিস’।  এই ব্যাকটেরিয়া খাবারে প্রোবায়োটিক হিসেবে ব্যবহৃত হয়।  কিন্তু প্রাকৃতিক আকারে এটি প্লাস্টিকের সাথে মেশানো যায় না।  এটি জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের সাহায্যে প্রস্তুত করা হয়, যাতে এটি প্লাস্টিক তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা সহ্য করতে পারে।তবে এই নতুন ধরনের প্লাস্টিক নিয়ে এখনও পরীক্ষাগারে পরীক্ষা করা হচ্ছে।

এই ব্যাকটেরিয়া প্লাস্টিককে ক্ষয় করার পদ্ধতি হল এনজাইম উৎপাদনের মাধ্যমে, বিশেষ করে PETase এবং MHETase, যা প্লাস্টিকের পলিমারের রাসায়নিক বন্ধন ভেঙে দেয়। এই এনজাইমগুলি ব্যাকটেরিয়াকে প্লাস্টিককে খাদ্য উৎস হিসাবে বিপাক করার অনুমতি দেয়, এটি কার্বন ডাই অক্সাইড এবং জলে রূপান্তর করে। বায়োডিগ্রেডেশন নামে পরিচিত এই প্রক্রিয়াটি প্লাস্টিক বর্জ্য নির্মূল করার একটি প্রাকৃতিক এবং পরিবেশ বান্ধব উপায়।

২০২১ সালে, ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল বিজ্ঞানী প্লাস্টিক উৎপাদন প্রক্রিয়ার তাপমাত্রা সহ্য করার জন্য এই ব্যাকটেরিয়া বিকাশে সফল হন। তা সত্ত্বেও, অনেক বিশেষজ্ঞ মনে করেন যে প্লাস্টিকের ব্যবহার কমানোর উপর জোর দেওয়া উচিত।একটি হিসাব অনুযায়ী, ২০৫০ সাল নাগাদ প্লাস্টিকের ব্যবহার তিন গুণ বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।তাই প্লাস্টিক রিসাইকেল করার ওপর জোর দেওয়া দরকার।

মানব জীবনযাত্রার অপরিহার্য অংশ হয়ে ওঠা প্লাস্টিক পরিবেশ সংকটের পাশাপাশি মানবজীবনের জন্য বড় হুমকি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।বর্তমানে প্লাস্টিক কণা সমগ্র পৃথিবীতে একমাত্র কণা যা পৃথিবী, আকাশ ও জল সর্বত্র বিরাজমান।’এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি’ জার্নালে প্রকাশিত গবেষণায় বলা হয়েছে, একজন মানুষের শরীরে যে প্লাস্টিকের কণা প্রবেশ করে তার সংখ্যা নির্ভর করে সে কোন পরিবেশে থাকে এবং সে কী খায় তার ওপর।

গবেষণা চলাকালীন, কানাডিয়ান বিজ্ঞানীরা মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতি সম্পর্কে শত শত তথ্য বিশ্লেষণ করেছেন এবং আমেরিকান নাগরিকদের খাওয়ার শৈলীর সাথে তুলনা করেছেন। প্লাস্টিক মুক্ত করার লক্ষে বিভিন্ন অভিযান চালানো সত্ত্বেও, প্লাস্টিকের ব্যাগে প্যাক করা আবর্জনা শহর এবং গ্রামের বসতিগুলির কোণে এবং কোণে জমা হতে দেখা যায়।  এই অবশিষ্ট বর্জ্য ড্রেন, নদী, নালা এবং পুকুর দিয়ে প্রবাহিত হয় এবং সমুদ্রে পৌঁছায়।  গবেষণা জার্নাল ‘অ্যাডভান্স’-এ প্রকাশিত একটি গবেষণায় বলা হয়েছে যে আর্কটিক সাগরের জলে বর্তমানে ১০০ থেকে ১২০০ টন প্লাস্টিক থাকতে পারে।আবার, জেআর জ্যাম ব্যাক দাবি করেছে যে সমুদ্রের তলদেশে ৫ ট্রিলিয়ন প্লাস্টিকের টুকরো জমা রয়েছে।  এ কারণেই এই টুকরোগুলো শুধু সমুদ্রের জলেই নয়, মাছের পেটেও পাওয়া যাচ্ছে।  এই টুকরোগুলো আমিষ খাবার ও পানীয় জলের মাধ্যমে মানুষের পেটে প্রবেশ করছে।  অতএব, প্লাস্টিক পরিত্রাণ জন্য ব্যবস্থা প্রয়োজন।

এই কারণে প্লাস্টিক-খাওয়া ব্যাকটেরিয়ার আবিষ্কার। এর সম্ভাব্য অ্যাপ্লিকেশনগুলি বিশাল। এই ব্যাকটেরিয়াগুলি ল্যান্ডফিলগুলিতে প্লাস্টিক বর্জ্য বায়োডিগ্রেড করতে ব্যবহার করা যেতে পারে, যা পরিবেশে জমে থাকা প্লাস্টিক দূষণের পরিমাণ হ্রাস করে। এগুলি প্লাস্টিককে আরও দক্ষতার সাথে পুনর্ব্যবহার করতে সাহায্য করে।বর্তমানে, প্লাস্টিক খাওয়া ব্যাকটেরিয়া আবিষ্কার গবেষকদের নতুন বায়োডিগ্রেডেবল প্লাস্টিক তৈরি করতে অনুপ্রাণিত করেছে যা এই ব্যাকটেরিয়া দ্বারা আরও সহজে ভেঙে ফেলা যায়।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


আগামী ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে কি সলমন খানকেও দেখা যাবে কলকাতায় ?

উত্তরাপথ: একেই বলে রথ দেখা কলা বেচা। এলেন ইস্ট বেঙ্গল ক্লাবের শতবর্ষ উদযাপনের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে,আর বাড়তি পাওনা হিসেবে পেয়ে গেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে একান্ত সাক্ষাতের সুযোগ।  কালো টয়োটা এসইউভি ডব্লিউবি০২এএন৬৬৪৯ গাড়িতে করে বিকেল ৪টে ২০ মিনিটে পৌঁছেযান মুখ্যমন্ত্রীর কালীঘাটের বাড়িতে। অবশ্য রাস্তায় উপচে পড়া ভিড়ের জন্য দু'বার দাঁড়াতে হয়েছিল গাড়িতে থাকা সুপারস্টারকে। পুলিশি নিরাপত্তার ঘেরাটোপে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে ঢোকে সলমন খান। আগেই নিজের টালির চালার বাড়ির সামনে আটপৌড়ে শাড়িতে অপেক্ষায় .....বিস্তারিত পড়ুন

AFC এশিয়ান কাপ ২০২৩: সুনীলদের Blue Tiger অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি

উত্তরাপথ: অস্ট্রেলিয়া, উজবেকিস্তান এবং সিরিয়ার পাশাপাশি এএফসি এশিয়ান কাপ ২০২৩-এর বি গ্রুপে সুনীলদের Blue টাইগাররা। Blue টাইগাররা ১৩ জানুয়ারী, ২০২৪-এ আহমেদ বিন আলী স্টেডিয়ামে গ্রুপ পর্বের তাদের প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে।ভারতীয় পুরুষ ফুটবল দল এএফসি এশিয়ান কাপ কাতার ২০২৩-এ ১৩ জানুয়ারি আহমদ বিন আলি স্টেডিয়ামে গ্রুপ বি-তে প্রাক্তন চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করবে। এশিয়ার শীর্ষ ২৪ টি দল দোহার কাটরা অপেরা হাউসে তাদের গ্রুপ পর্বে অংশ গ্রহণ করেছে। এএফসি এশিয়ান কাপ কাতার ১২ জানুয়ারী .....বিস্তারিত পড়ুন

প্রয়াত "কালবেলা"-র স্রষ্টা সাহিত্যিক সমরেশ মজুমদার

উত্তরাপথ: সাহিত্য একাডেমি পুরুষ্কার প্রাপ্ত প্রখ্যাত সাহিত্যিক সমরেশ মজুমদার কলকাতার এক বেসরকারী হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৯ বছর।বেশ কিছুদিন ধরে তিনি ফুসফুস ও শ্বাসনালীর সংক্রামণের কারনে তিনি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। ১৯৪২ সালে উত্তরবঙ্গের গয়েরকাটায় জন্ম এই বিখ্যাত লেখকের।ষাটের দশকের গোড়ায় তিনি কলকাতায় এসেছিলেন। ভর্তি হয়েছিলেন স্কটিশ চার্চ কলেজের বাংলা (সাম্মানিক) স্নাতক বিভাগে৷ এর পর স্নাতকোত্তর  সম্পন্ন করেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। সমরেশ মজুমদারের উল্লেখযোগ্য .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top