গবেষকদের দ্বারা সাহুরার পিরামিডের গোপন রহস্য উন্মোচন

উত্তরাপথঃ রহস্যময় পিরামিড নিয়ে অনেক কিংবদন্তি রয়েছে ।সাহুরার পিরামিড মিশরের উল্লেখযোগ্য পিরামিডগুলির মধ্যে একটি । এটি ৪,৪০০ বছর আগে অর্থাৎ খ্রিস্টপূর্ব ২৬ থেকে ২৫ শতকের শেষের দিকে   পঞ্চম রাজবংশের দ্বিতীয় মিশরীয় ফারাও সাহুরাকে সম্মান জানাতে নির্মিত হয়েছিল।বর্তমানে জুলিয়াস-ম্যাক্সিমিলিয়ানস-ইউনিভার্সিটি অফ ওয়ার্জবার্গ (জেএমইউ) এর মিশরবিজ্ঞান বিভাগের মিশরবিজ্ঞানী ডক্টর মোহাম্মদ ইসমাইল খালেদের নেতৃত্বে মিশরীয় এবং জার্মান বিশেষজ্ঞদের দ্বারা একটি যৌথ প্রচেষ্টায়, সাহুরার পিরামিডের ভিতরে একটি যুগান্তকারী আবিষ্কার করা হয়েছে। এই আবিষ্কারটি প্রাচীন মিশরীয় ইতিহাস সম্পর্কে আমাদের বোঝার জন্য অত্যন্ত তাৎপর্য বহন করে।

গবেষকদের দলটি তাদের অন্বেষণের সময় পিরামিডের মধ্যে থাকা বেশ কয়েকটি স্টোরেজ রুম আবিস্কার করেছে। এই নতুন আবিষ্কার সাহুরার পিরামিডের ডিজাইন সম্পর্কে নতুন তথ্য দিয়েছে।২৪০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে পঞ্চম রাজবংশের দ্বিতীয় রাজা সাহুরা ছিলেন আবুসিরে শায়িত প্রথম রাজা।সাহুরার পিরামিডের অভ্যন্তরে সংরক্ষণ ও পুনরুদ্ধার প্রকল্প, ২০১৯ সালে শুরু হয়েছিল এবং আমেরিকান রিসার্চ সেন্টার ইন ইজিপ্ট (ARCE) এর অ্যান্টিকুইটিজ এন্ডোমেন্ট ফান্ড (AEF) দ্বারা সমর্থিত, যার লক্ষ্য সাহুরার পিরামিডের অবকাঠামো রক্ষা করা।গবেষক দলের লক্ষ্য ছিল অভ্যন্তরীণ কক্ষগুলি পরিষ্কার করা, পিরামিডকে ভিতর থেকে স্থিতিশীল করা এবং আর যেন কোনও ক্ষতি না হয় তা রোধ করা।

 পুনরুদ্ধারের কাজ চলাকালীন, দলটি পিরামিডের কাঠামোর মূল অংশটি আবিষ্কার করেছিল এবং সেই সাথে অ্যান্টেচেম্বারের ফ্লোর প্ল্যানটি উন্মোচন করতে সক্ষম হয়েছিল, যা সময়ের সাথে সাথে খারাপ হয়ে গিয়েছিল। সেইসাথে, ধ্বংস হওয়া দেয়ালগুলিকে নতুন ধরে রাখার দেয়াল দিয়ে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল।  অ্যান্টেচেম্বারের পূর্ব প্রাচীরটি খারাপভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল এবং শুধুমাত্র উত্তর-পূর্ব কোণ এবং পূর্ব প্রাচীরের প্রায় ৩০ সেন্টিমিটার সেই সময় অবশিষ্ট ছিল।

এর আগে ১৮৩৬ সালে একটি খননের সময় জন পেরিং ইতিমধ্যেই লক্ষ্য করেছিলেন  একটি নিম্ন গিরিপথের চিহ্ন। সেই সময় এই পথটি ধ্বংসাবশেষ এবং আবর্জনা দ্বারা পরিপূর্ণ ছিল এবং ক্ষয়ের কারণে এটি চলাচলের অযোগ্য ছিল।  ব্রিটিশ ইজিপ্টোলজিস্ট সন্দেহ করেছিলেন যে এটি স্টোরেজ রুম হতে পারে।  এরপর মিশরীয়-জার্মান দলের সন্ধান,প্রমাণ করে যে পেরিংয়ের অনুসন্ধানের সময় করা পর্যবেক্ষণগুলি সঠিক ছিল। গবেষকদের এই পর্বে  এ পর্যন্ত আটটি স্টোররুম আবিষ্কৃত হয়েছে।যদিও এই কাঠামোর উত্তর ও দক্ষিণ অংশ বিশেষ করে ছাদ এবং মূল মেঝে খারাপভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, তবুও মূল দেয়ালের অবশিষ্টাংশ এবং মেঝের কিছু অংশ এখনও রয়েছে।

প্রতিটি স্টোরেজ রুমের ভেতরে করা যত্ন সহকারে ডকুমেন্টেশন প্রাচীন মিশরীয়দের দ্বারা নিযুক্ত নির্মাণ কৌশলগুলির গভীরতা বুঝতে সাহায্য করে।যেহেতু সাহুরার পিরামিড ফারাওদের সমাধিস্থল হিসাবে পরিচিত ছিল এবং এর মধ্যে পাওয়া অনুসন্ধানগুলি প্রাচীন মিশরীয়দের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া এবং তাদের আধ্যাত্মিক বিশ্বাসের এক অনন্য নজির প্রস্তুত করে।

ডক্টর মোহাম্মদ ইসমাইল খালেদের নেতৃত্বে মিশরীয় এবং জার্মান বিশেষজ্ঞদের মধ্যে যৌথ প্রচেষ্টা সাহুরার পিরামিডের সম্পর্কে অনেক অজানা অথ্য আবিষ্কার করেছে। গবেষকদের এই  আবিষ্কারটি প্রাচীন মিশরীয় নির্মাণ কৌশল, অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া, শৈল্পিক অভিব্যক্তি এবং সামাজিক মূল্যবোধ সম্পর্কে নতুন অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করে এবং ভবিষ্যতের অন্বেষণ এবং গবেষণার পথ প্রশস্ত করে।এটি একটি প্রাচীন সভ্যতার রহস্য উদঘাটনের চলমান প্রচেষ্টা যা মানব ইতিহাস এবং সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সম্পর্কে আমাদের বোঝাপড়াকে সমৃদ্ধ করে চলেছে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


বিজ্ঞানীদের মতে, বিশ্ব উষ্ণায়নের প্রভাবে কিছু মাছের প্রজাতি সঙ্কুচিত হচ্ছে

উত্তরাপথঃ আমাদের গ্রহে বিশ্ব উষ্ণায়নের প্রভাব ক্রমশ স্পষ্ট হয়ে উঠছে, ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রা আমাদের পরিবেশের বিভিন্ন দিককে প্রভাবিত করছে।সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন যে কিছু মাছের প্রজাতি সঙ্কুচিত হচ্ছে এর প্রভাবে। বিজ্ঞানীদের করা এই গবেষণাটি আমাদের মহাসাগরের উষ্ণায়নের প্রত্যক্ষ পরিণতি বলে মনে করা হচ্ছে। গবেষকদের একটি আন্তর্জাতিক দল দ্বারা পরিচালিা সাম্প্রতিক এই গবেষণায় বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে মাছের জনসংখ্যা পরীক্ষা করা হয়েছে। বিজ্ঞানীরা দেখেছেন যে কড এবং হ্যাডকের মতো বাণিজ্যিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ সহ অসংখ্য প্রজাতির আকার গত কয়েক দশক ধরে হ্রাস পাচ্ছে। আকারের এই হ্রাস সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্র এবং মৎস শিল্প উভয় ক্ষেত্রে ভবিষ্যতে উদ্বেগের কারণ হতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

মানব-চালিত রোবট ARCHAX এর সাথে দেখা করুন

উত্তরাপথঃসাম্প্রতিক বছরগুলিতে, প্রযুক্তিগত অগ্রগতি আমাদের এক ধাপে অনেকটা এগিয়ে নিয়ে এসেছে, আজ রোবটগুলি আমাদের দৈনন্দিন জীবনের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। স্বয়ংক্রিয় সহকারী থেকে স্ব-ড্রাইভিং গাড়ি পর্যন্ত,সর্বত্র আজ রোবটের অবাধ উপস্থিতি। ARCHAX মানব-চালিত এই রোবট  এমনই এক উদ্ভাবন যা বিজ্ঞানী এবং সাধারণ জনগণ উভয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে । অটোনোমাস রোবোটিক কম্প্যানিয়ন উইথ হিউম্যান অ্যাসিসট্যান্সের সংক্ষিপ্ত আর্ক্যাক্স, এর একটি যুগান্তকারী সৃষ্টি যা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার (AI) বুদ্ধিমত্তাকে একজন মানব অপারেটরের দক্ষতা এবং সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতার সাথে একত্রিত করে তৈরি করা হয়েছে।জাপানের Tsubame Industries ARCHAX তৈরি করেছে।এটি একটি মানুষের আকারের ককপিট সহ একটি বিশাল ট্রান্সফরমার রোবট। .....বিস্তারিত পড়ুন

লোকসংস্কৃতির আলোকে মালদার শতাব্দী প্রাচীন গম্ভীরা  

মৈত্রেয়ী চৌধুরীঃ পশ্চিমবঙ্গের উত্তরের একটি জেলা মালদা। আমের জন্য এই জেলাটি পরিচিতি লাভ করলেও এই জেলা আর ও একটি কারণে বিখ্যাত, তা হল গম্ভীরা । মালদার নিজস্ব লোকসংস্কৃতি।গম্ভীরা শব্দটি প্রকোষ্ট, গৃহ বা মন্দির অর্থের সঙ্গে আভিধানিক মিল থাকলেও এই অনুষ্ঠানটি উন্মুক্ত আকাশের নিচে বা কোথাও চাঁদোয়া বা ত্রিপল  দিয়ে ঢেকে অনুষ্ঠিত হয়। এই উৎসবের মূল কেন্দ্রবিন্দু হলেন স্বয়ং দেবাদিদেব। এই উৎসবের তিনি 'নানা' নামে পরিচিত।একজন শিবের সাজে থাকেন, আর দেবাদিদেবের চেলার মতো কিছু সংখ্যক সেই নানার ভক্ত হয়ে খোল, করতাল হাতে উনার সঙ্গী হন। বাস্তব জগতের এবং পারিপার্শ্বিক যা মা সমস্যা থাকে তা  চেলার নানার কাছে অভিযোগ জানান, যেন নানা সেই অভিযোগ শুনে তার সমাধান করেন।শিশু থেকে বৃদ্ধ সকলেই ভিড় করে জমায়েত .....বিস্তারিত পড়ুন

আগামী ৩ বছরে শূন্য বর্জ্য হওয়ার পথে রাজস্থানের প্রথম গ্রাম

উত্তরাপথঃ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের একটি প্রকল্পের আওতায় আঁধি গ্রামে এই পরিবর্তন করা হচ্ছে।জয়পুর থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত আন্ধি গ্রাম।আগামী তিন বছরে এই গ্রাম শূন্য বর্জ্য হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে ।আন্ধি গ্রামের এই সম্পূর্ণ রূপান্তরটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের একটি প্রকল্পের অধীনে করা হচ্ছে।  এই প্রকল্পটি সবুজ প্রযুক্তির হস্তক্ষেপ ব্যবহার করে আন্ধি গ্রামকে জিরো ওয়েস্ট মডেলে রূপান্তরিত করার কাজ চলছে ।  এই প্রকল্পটি ২১ মার্চ ২০২২ এ শুরু হয়েছে,  প্রকল্প পরিচালক বলেন, এ গ্রামের অবস্থা আগে খুবই খারাপ ছিল।আগে এই গ্রামের লোকেদের কঠিন বর্জ্য আলাদা করার কোনও ধারনা ছিল না । .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top