#Indian Astronomy: ভারতবর্ষ এবং জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চা

দ্বিতীয় পর্ব

ড. সায়ন বসু*

উত্তরাখণ্ড-এর নৈনিতালে অবস্থিত আর্যভট্ট পর্যবেক্ষণমূলক বৈজ্ঞানিক গবেষণা কেন্দ্র (ARIES)| ছবিটি ARIES- এর ওয়েবপেজ থেকে সংগৃহীত।

সিদ্ধান্তিক যুগের পরে ভারতীয় জ্যোতির্বিজ্ঞানে “যিজ যুগ”-এর শুরু হলেও পূর্ববর্তী যুগের প্রভাব থেকেই গেলো। যিজ হলো ইসলামিক জ্যোতির্বিজ্ঞানের একটি বই যেখানে সূর্য, চাঁদ এবং গ্রহদের অবস্থান গণনার পদ্ধতি সম্বন্ধে তথ্য দেওয়া আছে । “যিজ” শব্দটি এসেছে মধ্য-পারস্যের শব্দ “যিগ” (Zig) থেকে । বুননের সময় সুতো দিয়ে যে সারি (row) এবং স্তম্ভ (column) করা হয় তাকেই বলা হয় “যিগ” । সেখান থেকেই জ্যোতির্বিজ্ঞানের একটি বই যেখানে সূর্য, চাঁদ এবং গ্রহদের অবস্থান সারি (row) এবং স্তম্ভ (column)-এর আকারে বোঝানো হয়েছে তার নাম হয়ে যায় “যিজ”। যিজ-ই-সুলতানি প্রকাশিত হয় জ্যোতির্বিজ্ঞানী এবং তিমুরের সুলতান উলুঘ বেগ-এর হাত ধরে । মোগল সম্রাট হুমায়ুনও দিল্লীর কাছে একটি মানমন্দির তৈরি করেন ।

মোগল সাম্রাজ্যের পতনের পর আম্বেরের রাজা দ্বিতীয় জয় সিংহের হাত ধরে জ্যোতির্বিজ্ঞান আবার ফিরে এলো ভারতে| অষ্টদশ শতাব্দীতে রাজা জয় সিংহ বেশ কয়েকটি বড় বড় মানমন্দির তৈরি করেন যেগুলিকে যন্ত্র-মন্দির (বা যন্তর-মন্তর) বলা হয় । দিল্লী, জয়পুর, উজ্জয়ন, বেনারস, এবং মথুরাতে যন্তর-মন্তর দেখতে পাওয়া যায় । জয়পুরেই ১৯ টি বিভিন্ন জ্যোতির্বৈজ্ঞানিক গণক (astronomical calculator) আছে । জয় সিংহের তৈরি করা গণকগুলির মধ্যে বিখ্যাত হল “সম্রাট যন্ত্র” যেটি বিশ্বের সব থেকে বড় সূর্যঘড়ি । বলে রাখা ভালো যে, জয়পুরের যন্তর-মন্তরের গণকগুলি এখন সচল । 

অনেকেই জানলে অবাক হবেন যে ষোড়শ শতকে বেশ কয়েকজন ইউরোপীয় যাজক ভারতে টেলিস্কোপ নিয়ে এসেছিলেন সাথে এও বলে রাখা ভালো যে ১৬১৯ সালে গোয়ার একটি চার্চ থেকে এক ধূমকেতুও দেখা হয় টেলিস্কোপের সাহায্যে । ১৬১৯ অর্থাৎ গ্যালিলিওর টেলিস্কোপ ব্যবহারের ১০ বছর পরে| ঔপনিবেশিক ভারতে জ্যোতির্বিজ্ঞানের চর্চা পুরোদমে শুরু মোটামুটিভাবে ১৭৫০ সাল থেকে । ১৭৮৬ সালে মাদ্রাস মানমন্দির তৈরির পর থেকে বলা যায় জ্যোতির্বিজ্ঞান আমাদের দৈনন্দিন জীবনে ঢুকে পড়লো । মাদ্রাস মানমন্দিরকে ব্যবহার করা হতে থাকলো উপকূলবর্তী অঞ্চলের ভৌগোলিক জরিপ ইত্যাদির কাজে । ইউরোপের বাইরে প্রথম জনগণের জন্য মানমন্দিরটিও তৈরি হয় ভারতেই উইলিয়াম পেতিয়ার (১৮১৬)-এর হাত ধরে । বিখ্যাত জ্যোতির্বিজ্ঞানী নরমান রবার্ট পগসন মাদ্রাস মানমন্দিরের অধিকর্তার পদও সামলেছেন ১৮৬১ এবং ১৮৮৫ এর মধ্যে । এই সময়কালের মধ্যে তিনি পাঁচটি ছোট ছোট গ্রহ আবিষ্কারও করেন যাদের মধ্যে প্রথমটির নাম দেন “এশিয়া”। 

ইংরেজ শাসনে থাকাকালীনও ভারতবর্ষে জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চায় ভাটা পড়েনি বরং তা সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে আরও বিকশিত হয়েছে । প্রথিতযশা বিজ্ঞানী যেমন মেঘনাদ সাহা, হোমী ভাবা তার সাথে ইন্ডিয়ান ইন্সিটিউট অফ সায়েন্স (IISc)-এর মতো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়ে বিজ্ঞান চর্চা সাথে জ্যোতির্বিজ্ঞানের চর্চাও এগিয়ে চলছে দুর্বার গতিতে । পরবর্তীকালে ১৯৪৫ সালে হোমী ভাবা তৎকালীন বোম্বেতে প্রতিষ্ঠা করলেন টাটা ইন্সিটিউট অফ ফান্ডামেন্টাল রিসার্চ (TIFR) প্রতিষ্ঠান যা কিনা অসংখ্য প্রথিতযশা বিজ্ঞানী আজও উপহার দিয়ে যাচ্ছে দেশকে ।

হোমী ভাবা যাকে একপ্রকার ভারতবর্ষে জ্যোতির্বিজ্ঞান এবং পারমানবিক পদার্থবিদ্যায় (Nuclear Physics) গবেষণায় পথপ্রদর্শকই বলা যেতে পারে, তিনি মূলত মহাজাগতিক রশ্মি এবং “বেলুন এক্সপেরিমেন্ট”-এ আগ্রহী ছিলেন যেগুলি IISc এবং TIFR-এ করা হয়েছিল । পরবর্তীকালে ভাবাই বিক্রম সারাভাইকে উৎসাহিত করেন মহাকাশ গবেষণা শুরু এবং তা এগিয়ে নিয়ে যেতে যেখান থেকে ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন (ISRO)-এর পথ চলা শুরু । পরবর্তীকালে অধ্যাপক গোবিন্দ স্বরূপ (১৯২০ – ২০২০) এবং অন্যান্য অধ্যাপকগণ যখন বিশ্ববিদ্যালয়গুলি এবং রিসার্চ ইন্সিটিউটগুলিকে চিঠি লেখেন রেডিও অ্যাস্ট্রোফিজিক্স-এ গবেষণা শুরু করতে তখনও হোমী ভাবাই সেই উদ্যোগকে সমর্থন করেন । অধ্যাপক স্বরূপ এবং অন্যান্য গবেষকরা মিলে তৈরি করেন দুটি বিশ্ববিখ্যাত রেডিও টেলিস্কোপ – উটি রেডিও টেলিস্কোপ (১৯৭০) এবং Gaint Metrewave Radio Telescope (GMRT) (১৯৯৮)। সেই সময়ে ব্যাঙ্গালোর ছিল জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চার ভরকেন্দ্র তা মূলত শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলির জন্য| ৭০-এর দশকে অধ্যাপক ভাইনু বাপ্পু যিনি ইন্ডিয়ান ইন্সিটিউট অফ অ্যাস্ট্রোফিজিক্স (IIA)-এর প্রতিষ্ঠাতা তিনি আন্তর্জাতিক জ্যোতির্বিজ্ঞান পরিষদ (International Astronomical Union বা IAU)-এর সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হন । IIA ভারতের মাটিতে বেশকিছু অপ্টিকাল টেলিস্কোপ (যে টেলিস্কোপে আয়না লাগানো থাকে) বসিয়েছে তাদের মধ্যে তামিলনাড়ুর কাভালুরে অবস্থিত ভাইনু বাপ্পু মানমন্দির এবং লাদাখ-এর হ্যানলেতে অবস্থিত হিমালায়ান চন্দ্র টেলিস্কোপ উল্লেখযোগ্য । ভারতবর্ষে জ্যোতির্বিজ্ঞান নিয়ে গবেষণাতে কেন্দ্রীয় সরকার এবং রাজ্য সরকারগুলির অবদানও অস্বীকার করা যায় না । যেমন “উত্তরপ্রদেশ রাজ্য মানমন্দির” অনেক বছর ধরে উত্তরপ্রদেশ রাজ্য সরকার দ্বারা পরিচালিত ছিল । এই মানমন্দিরটিকে এখন আমরা আর্যভট্ট পর্যবেক্ষণমূলক বৈজ্ঞানিক গবেষণা কেন্দ্র (ARIES) যা উত্তরাখণ্ড-এর নৈনিতালে অবস্থিত এবং এখানে দেশের সবথেকে বড় অপ্টিকাল টেলিস্কোপটিও আছে যার নাম দেবস্থল অপ্টিকাল টেলিস্কোপ (DOP)। 

১৯৮৮ সালে University Grants Commission থেকে একটি বিশেষ প্রতিষ্ঠান তৈরি করা হয় যার নাম আন্তঃ-বিশ্ববিদ্যালয় জ্যোতির্বিজ্ঞান কেন্দ্র (Inter University Center for Astronomy and Astrophysics বা IUCAA) যার প্রথম অধিকর্তা ছিলেন অধ্যাপক জয়ন্ত নারলিকার । 

(বাম থেকে ডান)- আলবার্ট আইন্সটাইন, হেডেকী য়ুকাও, জন হুইলারের সাথে হোমী ভাবা | ছবিটি প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবপেজ থেকে সংগৃহীত ।

বর্তমানে ভারতবর্ষ জ্যোতির্বিজ্ঞান চর্চায় পৃথিবীতে যে নিজের জায়গা করে নিয়েছে তা বলাই যায় । বিশ্বের সব থেকে বড় রেডিও টেলিস্কোপ যা কিনা দক্ষিণ আফ্রিকা এবং অস্ট্রেলিয়াতে বসানো হচ্ছে তাতেও ভারতবর্ষের বেশ কিছু প্রথিতযশা গবেষণাকেন্দ্র অংশীদার হিসেবে কাজ করছে । সব মিলিয়ে বলাই যায় যে আর্যভট্ট, বরাহমিহির -এর হাত ধরে যিজ-যুগ পেরিয়ে বর্তমানে জ্যোতির্বিজ্ঞানচর্চা এবং গবেষণা যে জায়গায় দাঁড়িয়ে আছে তাতে করে ভারতবর্ষ ভবিষ্যতে পৃথিবীকে নতুন নতুন আবিষ্কার এবং মৌলিক গবেষণা উপহার দেবে এমন আশা করাই যায় ।

* লেখক বর্তমানে the University of Witwatersrand-এর Centre for Astrophysics-এ কর্মরত রেডিও অ্যাস্ট্রোনমির গবেষক । 

যোগাযোগ- sayan.basu@wits.ac.za

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


প্রাপ্তবয়স্কদের স্মৃতিশক্তি এবং চিন্তাভাবনা হ্রাস সমস্যার সমাধানের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিক

উত্তরাপথঃ সারা বিশ্বের জনসংখ্যার বয়স বৃদ্ধির সাথে স্মৃতিশক্তি এবং চিন্তাভাবনা হ্রাস এবং ডিমেনশিয়ার মতো নিউরোডিজেনারেটিভ রোগের প্রকোপ বাড়ছে৷ তাদের এই  সমস্যাগুলি যে কেবল তাদের একার সমস্যা তা নয় ,এটি ধীরে ধীরে পুরো পারিবারিক সমস্যার আকার নেয়।সম্প্রতি বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে মস্তিষ্কের কার্যকারিতাকে পুনরুদ্ধার করার জন্য গবেষকদের মধ্যে কার্যকর কৌশল খোঁজার আগ্রহ বাড়ছে।বর্তমানে বেশীরভাগ গবেষক মস্তিস্কের স্বাস্থ্য উদ্ধারের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিকের সম্ভাব্য ভূমিকা নিয়ে গবেষণা করছেন । এখন খুব স্বাভাবিকভাবেই একটি প্রশ্ন আসে প্রোবায়োটিক কি? কেনই বা গবেষকরা মস্তিস্কের স্বাস্থ্য উদ্ধারের ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিকের ভূমিকা নিয়ে গবেষণা করছেন । .....বিস্তারিত পড়ুন

রাতের ঘামের সমস্যা এবং এ সম্পর্কে আপনি কি করতে পারেন  

উত্তরাপথঃ রাতের ঘামের সমস্যা শরীরের কুলিং সিস্টেমের একটি স্বাভাবিক অংশ, তাপ মুক্তি এবং সর্বোত্তম শরীরের তাপমাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করে।তবে রাতের ঘাম একটি সাধারণ সমস্যা যা বিভিন্ন কারণে হতে পারে।এর  অস্বস্তিকর অনুভূতির জন্য ঘুম ব্যাহত হতে পারে, যার ফলে ক্লান্তি এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। আপনি যদি রাতে অতিরিক্ত ঘাম অনুভব করেন, তাহলে তার অন্তর্নিহিত কারণটি চিহ্নিত করা এবং এটি মোকাবেলার জন্য কিছু ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। এখানে রাতের ঘামের কিছু সম্ভাব্য কারণ নিয়ে আলোচনা করা হল।মেনোপজ: যে কেউ, বয়স বা লিঙ্গ নির্বিশেষে, রাতের ঘাম অনুভব করতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

সম্পাদকীয়-  রাজনৈতিক সহিংসতা ও আমাদের গণতন্ত্র

সেই দিনগুলো চলে গেছে যখন নেতারা তাদের প্রতিপক্ষকেও সম্মান করতেন। শাসক দলের নেতারা তাদের বিরোধী দলের নেতাদের কথা ধৈর্য সহকারে শুনতেন এবং তাদের সাথে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতেন।  আজ রাজনীতিতে অসহিষ্ণুতা বাড়ছে।  কেউ কারো কথা শুনতে প্রস্তুত নয়।  আগ্রাসন যেন রাজনীতির অঙ্গ হয়ে গেছে।  রাজনৈতিক কর্মীরা ছোটখাটো বিষয় নিয়ে খুন বা মানুষ মারার মত অবস্থার দিকে ঝুঁকছে। আমাদের দেশে যেন রাজনৈতিক সহিংসতা কিছুতেই শেষ হচ্ছে না।আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার চেয়ে রাজনৈতিক সংঘর্ষে বেশি মানুষ নিহত হচ্ছেন।  ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ডস ব্যুরো (এনসিআরবি) অনুসারে, ২০১৪ সালে, রাজনৈতিক সহিংসতায় ২৪০০ জন প্রাণ হারিয়েছিল এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় ২০০০ জন মারা গিয়েছিল।  আমরা পৃথিবীর বৃহত্তম গণতন্ত্র হিসেবে আমাদের দেশের গণতন্ত্রের জন্য গর্বিত হতে পারি, কিন্তু এটা সত্য যে আমাদের সিস্টেমে অনেক মৌলিক সমস্যা রয়েছে যা আমাদের গণতন্ত্রের শিকড়কে গ্রাস করছে, যার জন্য সময়মতো সমাধান খুঁজে বের করা প্রয়োজন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Electoral Bond এর গোপনীয়তা সরিয়ে রাজনৈতিক দলগুলিকে, জানাতে হবে প্রাপ্ত অনুদানের পরিমাণ

উত্তরাপথঃ বুধবার, নির্বাচনী বন্ড (Electoral Bond)প্রকল্পের আইনি বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে আবেদনের শুনানি হয়। শীর্ষ আদালত তার মন্তব্যে বলেছে, 'নির্বাচনী বন্ডগুলি রাজনৈতিক দলগুলিকে বেনামী অর্থ প্রদান করে, কারণ তাদের কেনাকাটা সম্পর্কিত রেকর্ডগুলি স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার কাছে উপলব্ধ যা শুধুমাত্র তদন্তকারী সংস্থাগুলি অ্যাক্সেস করতে পারে৷ এর আগে নির্বাচনী বন্ড’ (Electoral Bond) সংক্রান্ত মামলায় সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court) কেন্দ্র দাবি করেছিল, রাজনৈতিক দলগুলির আয়ের উৎস জানার অধিকার নেই জনতার।এবার সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে তৎপর হল নির্বাচন কমিশন (Election Commission of India)।বুধবার বিকেল ৫টার মধ্যে যাবতীয় হিসেব জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে কমিশনের তরফে।নির্বাচনী বন্ডের (Electoral Bond)মামলায় কেন্দ্রের আর্জি সত্বেও সুপ্রিম কোর্ট রাজনৈতিক দলগুলিকে আয়ের উৎস জানাতে বলেছিল। আদলত নির্দেশ দিয়েছিল, গত ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কোন রাজনৈতিক দল কত অনুদান মিলেছে, সেই তথ্য বন্ধ খামে জানাতে হবে।এর আগেও নির্বাচনী বন্ডের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে একাধিক মামলা হয়েছে শীর্ষ আদালতে। মামলাকারীরা অভিযোগ করেছিলেন, রাজনৈতিক দলগুলি এই নির্বাচনী বন্ডের মাধ্যমে অবৈধ অর্থ বিদেশ থেকে পেতে পারে এর ফলে গণতন্ত্র ধ্বংস হবে। যদিও কোনও রাজনৈতিক দলই এই দাবি মানতে চায়নি। ৩ অক্টোবর মামলার শুনানিতে প্রধান বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ নির্দেশ দেয়, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে সব তথ্য দিতে হবে নির্বাচন কমিশনকে। এই রায়ের পরেই তৎপর হল কমিশন। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top