Purulia Chhau: পুরুলিয়ার সংস্কৃতির প্রতীক “ছৌ “

প্রীতি গুপ্তা

আজকের আমাদের আলোচনার বিষয় “ছৌ “নৃত্য। “ছৌ “হল পূর্ব ভারতের একটি ঐতিহ্য মণ্ডিত নৃত্য যা মহাভারত, রামায়ণ সহ হিন্দু ধর্মের পৌরাণিক কাহিনীগুলিকে নৃত্যের বিষয়বস্তু হিসেবে তুলে ধরে। সন্ধ্যাবেলায় এই নৃত্যের আসর বসে কোনও ফাঁকা মাঠে বা শহরের কোনও অডিটোরিয়ামে, যেখানে স্থানীয় লোক ছাড়াও বহু দেশ বিদেশের বহু লোক ভিড় জমায় এই বিশেষ নিত্য শৈলী উপভোগ করার জন্য। বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়া জেলা ছাড়াও সেরাইকেল্লা ও ময়ূরভঞ্জ অঞ্চল এই নৃত্য শৈলীর জন্য বিখ্যাত। পুরুলিয়ায় এটি বসন্ত উৎসব ও চৈত্রপর্ব উদযাপনের সাথে বিশেষ ভাবে যুক্ত। এই নৃত্যের সাথে স্থানীয় লোকেদের আবেগ জড়িত যার দ্বারা পুরো একালার লোকেরা নিজেদের পরস্পরের সাথে সংযুক্ত মনে করে। এটি ঐতিহ্যবাহী শিল্পীদের পরিবারের পুরুষ নৃত্যশিল্পীদের দ্বারা পরিবেশিত হয়। এই বিশেষ নৃত্য শৈলীর জন্য কোনও গুরু বা ওস্তাদের (ওস্তাদদের) অধীনে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হওয়া একান্ত প্রয়োজন। এটি মার্শাল, উপজাতীয় এবং লোক ঐতিহ্যের সাথে একটি আধা শাস্ত্রীয় ভারতীয় নৃত্য শৈলীর অপূর্ব সংমিশ্রণ।এই নৃত্যের তিনটি শৈলী রয়েছে যা স্থানের নামানুসারে, যেমন সেরাকেল্লা ছৌ এবং ওড়িশার ময়ুরভঞ্জ ছৌ এবং বাংলার পুরুলিয়া ছৌ ৷ বিভিন্ন ধরনের বাদ্যযন্ত্র যেমন ঢোল (একটি নলাকার ড্রাম), ধুমসা (একটি বড় কেটলির ড্রাম) এবং খড়কা বা চাদ-চাদি সহ বিভিন্ন ধরণের ড্রাম এই নৃত্যের বাদ্যযন্ত্র হিসাবে ব্যবহার করা হয়।

মুখোশ পুরুলিয়া এবং সেরাইকেল্লা শৈলীতে ছৌ নৃত্যের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। উত্তর ওড়িশায় ময়ূরভঞ্জ অঞ্চলে ছৌ নাচের সময় শিল্পীরা মুখোশ ব্যবহার করে না, তবে তারা যখন শ্রোতাদের সাথে নিজেদের পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য মঞ্চে প্রথম উপস্থিত হয় তখন তারা মুখোশ ব্যবহার করে।পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়া জেলা হল মুখোশধারী ছৌ নাচের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী কেন্দ্র। পুরুলিয়ার চারিদা গ্রাম এই নৃত্যের কেন্দ্র হিসাবে পরিচিত ।এটিকে মুখোশ গ্রাম (‘মুখোশের গ্রাম’) হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ২০১০ সালে, “ছৌ”কে ইউনেস্কোর  সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় স্থান দেওয়া হয়েছিল এবং ভৌগলিক সনাক্তকরণ (GI) ট্যাগও দেওয়া হয়েছে “ছৌ”কে।

চরিদা গ্রামে প্রজন্মের পর প্রজন্ম নাটকীয় ছৌ মুখোশ তৈরিতে জড়িত। এখানে প্রতিটি বাড়ির সামনে প্রদর্শিত মুখোশ এবং হোম ওয়ার্কশপ দেখা যায়। প্রায় শতাধিক পরিবার ছৌ মাস্ক তৈরির সঙ্গে জড়িত। “ছৌ “মুখোশগুলি কাগজের সজ্জা, কাদা এবং কাদামাটি থেকে তৈরি করা হয়। চরিদা মুখোশ তৈরির কাজটি ইউনেস্কোর সাথে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগ এবং বস্ত্র বিভাগ দ্বারা লালনপালন করা হচ্ছে। ক্রমবর্ধমান শিল্পায়ন ও অর্থনৈতিক চাপ অনেক শিল্পীকে বিকল্প পেশা নির্বাচনে বাধ্য করছে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ব্যয় বৃদ্ধির কারণে বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম, প্রভাব রাজ্যেও

উত্তরাপথঃ বাংলাদেশ ও ইলিশ এই দুটি নাম একে অপরের পরিপূরক মনে হলেও বাস্তব কিন্তু বলছে অন্য কথা। সূত্র মাধ্যমে পাওয়া খবরে জানা যাচ্ছে  প্রকৃতির অপার দান হলেও শিকার থেকে শুরু করে বাজারজাত হওয়া পর্যন্ত ব্যয় বৃদ্ধির কারণেই বাড়ছে বাংলাদেশে ইলিশের দাম। এর সঙ্গে মধ্যস্বত্বভোগীদের লাভের অঙ্ক যোগ হয়ে তা চলে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।পরিস্থিতি এমন যে গরিব তো দূর থাক মধ্যবিত্তের পাতেও এখন আর জুটছে না ইলিশ। বুধবার বরিশালের পাইকারি বাজারে এক কেজি সাইজের ইলিশ বিক্রি হয় ৬০ হাজার টাকা মন দরে। ৪২ কেজিতে মন হিসাবে প্রতি কেজির দাম পড়ে প্রায় সাড়ে ১৪শ টাকা। খুচরা বাজারে গিয়ে যা বিক্রি হয় ১৬ থেকে ১৮শ টাকা। যে কারণে জাতীয় এই মাছ এখন শুধু বিত্তশালীদের খাদ্যে পরিণত হয়েছে। .....বিস্তারিত পড়ুন

চাকরি ছাড়ার পর ফেরত দিতে হলো অফিসে খাওয়া চায়ের দাম

উত্তরাপথঃ চা কে আমরা যতই বলি স্ট্রিট ফুড বলি না কেন আসলে এটি এমন একটি পানীয় যা বিশ্ব অর্থনীতির বিশ্বায়নকে চালিত করেছিল। দীর্ঘক্ষণ কাজ করার ফলে কর্মীদের মধ্যে ক্লান্তি কিংবা বিরক্তি কাজ করে, তা কাটাতেই প্রায় প্রতিটি সরকারি-বেসরকারি অফিসেই কম বেশি চা-কফি খাওয়ার সুযোগ থাকে। কিন্তু একটি প্রতিষ্ঠানের চাকরি ছাড়ার পর দুই কর্মীকে অফিসে যত কাপ চা খেয়েছেন, তার বিল পরিশোধ করতে হয়েছে। এই বিরল কাণ্ড ঘটেছে চীনে।ঘটনা চীনের আনহুই প্রদেশের। সেখানে দুই কর্মী চাকরি ছেড়েছিলেন। খুবই স্বাভাবিক ঘটনা, আমরা অনেকেই চাকরি ছেড়ে থাকি। কিন্তু পরের ধাপে যা ঘটলো, তা কোনভাবেই স্বাভাবিক নয়। .....বিস্তারিত পড়ুন

ভোরের শুকতারা

অনসূয়া পাঠকঃ বাস ছাড়তে তখনো কিছুটা সময় বাকি ছিলো, আমি মা বাবার সাথে বাসের ভেতরে জানালার দিকের সিটটায় বসে আছি। এমন সময় দেখি আমাদের পাশের সিটে বসে একজন রবীন্দ্রনাথের সঞ্জয়িতা পড়ছেন, বইটাকে দেখে আমার চোখের সামনে একটা সোনালী ফ্রেমের চশমা পরা মুখ ভেসে উঠলো, চন্দন স্যারের মুখ। বছর পাঁচেক আগের কথা, আমার বাবা তখন জঙ্গলমহল মেদিনীপুরের আমলাশুলির পোষ্টমাষ্টার। দু কিমি দূরেই আমার পিসীমার বাড়ি। ওখানেই আমার হাইস্কুলে পড়াশোনা শুরু। আর যে স্যার আমার মননে সদা জাগরুক , বাংলা সাহিত্যের বটবৃক্ষ বলা যায় যাকে , আমার গল্প যাঁকে নিয়ে সেই চন্দন স্যারকে ওখানেই পাওয়া। ফর্সা গায়ের রঙ, মাথায় ক়াঁচা পাকা চুল , সরু গোঁফ চোখে সোনালী ফ্রেমের চশমা, .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top