Diabetes Treatment: রক্তে শর্করা স্থিতিশীল করতে ডালিয়া ফুলের নির্যাস কার্যকর

উত্তরাপথঃ ডায়াবেটিস নিয়ে গবেষণার ক্ষেত্রে একটি উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে।সম্প্রতি গবেষণায় ওটাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের (University of Otago)নেতৃত্বে বিজ্ঞানীরা ক্লিনিকাল ট্রায়ালের মাধ্যমে আবিষ্কার করেছে যে ডালিয়া ফুলের পাপড়ির নির্যাস ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের রক্তে শর্করা স্থিতিশীল করতে সাহায্য করতে পারে।

সেন্টার ফর নিউরোএন্ডোক্রিনোলজির একজন সহযোগী অধ্যাপক আলেকজান্ডার টুপসের( Alexander Tups) নির্দেশনায়, দলটি খুঁজে পেয়েছে যে, উদ্ভিদের একটি অণু, যা মস্তিষ্কে কাজ করে এবং রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রন করার জন্য শরীরের ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে।প্রসঙ্গত ডায়াবেটিস হল একটি দীর্ঘস্থায়ী বিপাকীয় ব্যাধি যা অপর্যাপ্ত ইনসুলিন উৎপাদনের কারণে রক্তে শর্করার মাত্রা অত্যাধিক বেড়ে যায়। এটি বিশ্বব্যাপী লক্ষ লক্ষ মানুষকে প্রভাবিত করে চলেছে এবং অনিয়ন্ত্রিত থাকলে গুরুতর শারীরিক জটিলতা হতে পারে।

পরবর্তী কালে Alexander Tups এর গবেষকদলটি ডালিয়া ফুল থেকে বায়োঅ্যাকটিভ যৌগগুলি বের করেন এবং রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণের উপর এর প্রভাব মূল্যায়নের জন্য পরীক্ষাগারে পরীক্ষা করেন। ফলাফল উল্লেখযোগ্য ছিল. ডালিয়া ফুলের নির্যাসে রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা স্থিতিশীল করার এক অসাধারণ ক্ষমতা রয়েছে।  

এরপর গবেষকদলটি Aotearoa-এর প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যার উপর একটি সমীক্ষা চালায়,তাতে দেখা যায় যে জনসংখ্যার প্রায় ২৫ শতাংশের প্রিডায়াবেটিস রয়েছে । প্রিডায়াবেটিস হল এমন একটি অবস্থা যেখানে রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা সামান্য বেড়ে যায়, যা নির্দেশ করে যে একজন ব্যক্তির টাইপ 2 ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে।এরপর কোনও রকম চিকিৎসা না হলে এদের প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষ পরবর্তী জীবনে টাইপ 2 ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়।

 প্রিডায়াবেটিস বা টাইপ 2 ডায়াবেটিসে আক্রান্ত অংশগ্রহণকারীদের উপর একটি এলোমেলো নিয়ন্ত্রিত ক্রস-ওভার ক্লিনিকাল ট্রায়ালে, গবেষকরা দেখেন যে ডালিয়ার নির্যাস,মস্তিষ্কে হরমোন ইনসুলিনের সংবেদনশীলতা উন্নত করতে এবং রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রনে যথেষ্ট সহায়ক।

২০১৫ সালে শুরু হওয়া এই গবেষণাটি দীর্ঘ আট বছর ধরে চলার পর বিজ্ঞানীরা ডালিয়া ফুলের মধ্যে  এমন তিনটি যৌগ খুঁজে পান যা রক্তে শর্করার মাত্রা শর্করার মাত্রা স্থিতিশীল করার ও নিয়ন্ত্রণের সহায়ক । প্রযুক্তিটি ইতিমধ্যে পেটেন্ট করা হয়েছে কিন্তু তা ব্যাপক ভাবে জনসাধারণের ব্যবহারে আনার জন্য গবেষক দল ওটাগো ইনোভেশন লিমিটেড (OIL) বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের সাথে কাজ করছে বাজারে এই প্রাকৃতিক ডালিয়া-এক্সট্রাক্ট সাপ্লিমেন্ট আনার লক্ষ্যে,যা রক্তে শর্করা এবং ইনসুলিনের মাত্রা স্থিতিশীল রাখবে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


আগামী ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে কি সলমন খানকেও দেখা যাবে কলকাতায় ?

উত্তরাপথ: একেই বলে রথ দেখা কলা বেচা। এলেন ইস্ট বেঙ্গল ক্লাবের শতবর্ষ উদযাপনের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে,আর বাড়তি পাওনা হিসেবে পেয়ে গেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে একান্ত সাক্ষাতের সুযোগ।  কালো টয়োটা এসইউভি ডব্লিউবি০২এএন৬৬৪৯ গাড়িতে করে বিকেল ৪টে ২০ মিনিটে পৌঁছেযান মুখ্যমন্ত্রীর কালীঘাটের বাড়িতে। অবশ্য রাস্তায় উপচে পড়া ভিড়ের জন্য দু'বার দাঁড়াতে হয়েছিল গাড়িতে থাকা সুপারস্টারকে। পুলিশি নিরাপত্তার ঘেরাটোপে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িতে ঢোকে সলমন খান। আগেই নিজের টালির চালার বাড়ির সামনে আটপৌড়ে শাড়িতে অপেক্ষায় .....বিস্তারিত পড়ুন

রাষ্ট্রীয় নৈশভোজে ২২ জুন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যাবেন মোদী

উত্তরাপথ: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আগামী মাসের ২২ তারিখে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যাচ্ছেন একটি রাষ্ট্রীয় নৈশভোজে যোগ দিতে।এই নৈশভোজে মোদীকে রাষ্ট্রপতি জো বিডেন এবং ফার্স্ট লেডি জিল বিডেন আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।এই সফরে মূলত দ্বিপাক্ষিক কৌশলগত সম্পর্কের ক্রমবর্ধমান গুরুত্বের উপর জোর দেওয়া হবে এবং একটি মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।   MEA বলেছে যে মোদী এবং বিডেন G20 সহ প্লুরি-পার্শ্বিক এবং বহুপাক্ষিক ফোরামে ভারত-মার্কিন সহযোগিতা জোরদার করার উপায়গুলিও .....বিস্তারিত পড়ুন

যুক্তিবাদী আন্দোলনের পথিকৃৎ প্রবীর ঘোষও আমি

ড. জীবনকুমার সরকার: ৭ এপ্রিল ২০২৩ প্রয়াত হলেন যুক্তিবাদী আন্দোলনের পথিকৃৎ প্রবীর ঘোষ। তাঁর প্রয়াণে দেশ ভারাক্রান্ত। যুক্তিবাদীরা চরম মর্মাহত। আমিও। তাঁর সঙ্গে কীভাবে জড়িয়েছিলাম সে এক ইতিহাস। ১৯৯৪ সালে মাধ্যমিক পাস করে গাজোল হাইস্কুলে সবে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছি। নতুন বইয়ের মধ্যে ডুবে আছি। আর নিয়মিত ক্লাস করছি। এইভাবে পুজোর ছুটি এসে যায়। পুজোর ছুটির আগের দিন অর্থাৎ যেদিন স্কুল হয়ে এক মাসের জন্য বন্ধ থাকবে স্কুল, সেইদিন আমি আর রাজেন লাইব্রেরীতে যাই। রাজেন আমার ছাত্রজীবনের সেরা বন্ধু। দুজনে কী বই নেবো, কী ধরনের বই নিয়ে .....বিস্তারিত পড়ুন

মানুষে মানুষে ঐক্য কীভাবে সম্ভব

দিলীপ গায়েন: হিন্দু,মুসলমান,ব্রাহ্মণ,তফসিলি।সকলেই মানুষ।কিন্তু এদের মধ্যে যে ব্যবধান তা হলো ধর্ম ও সাংস্কৃতিক। এই ব্যবধান মুছতে পারলে একাকার হওয়া সম্ভব। যারা বলছে আর্থিক সমতা প্রতিষ্ঠা হলে ব্যবধান মুছে যাবে, তাদের কথাটি বোধ হয় সঠিক নয়।তার প্রমাণ গরিব ও শ্রমিক শ্রেণীর মধ্যে আর্থিক ব্যবধান নেই। অথচ জাতিভেদ রয়ে গেছে। তেমনি কিছু ব্যতিক্রমী ঘটনা ব্যতীত ধনী ও শিক্ষিত সমাজে আর্থিক সচ্ছলতা থাকলেও জাতিভেদ রয়ে গেছে। একমাত্র হাসপাতালে বা চিকিৎসা ব্যবস্থায় জাতিভেদ নেই।কারণ সেখানে তো প্রচলিত ধর্মজাত প্রভেদ বা পরিচয় নেই। আছে মেডিসিন, যা সম্পূর্ণ বিজ্ঞান। কারোর ধর্ম বা জাত দেখে প্রেসক্রিপশন হয় কি? এখানে মানুষের একমাত্র এবং শেষ পরিচয় সে মানুষ। .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top