Parthenium: ভারতে ৩৫ লক্ষ মিলিয়ন হেক্টর জমি পার্থেনিয়াম দখল করেছে

উত্তরাপথঃ বিশ্বের সবচেয়ে বিপজ্জনক সাতটি আগাছার মধ্যে পার্থেনিয়াম (Parthenium) আমাদের জীবন ও পরিবেশকে বিষাক্ত করে তুলছে। এটি বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে বিপজ্জনক আগাছা বলে বিবেচিত হয়। এই আগাছাটি ১৯৫৫ সালে আমেরিকা থেকে ভারতে এসেছিল। তারপর থেকে আজ অবধি গত ছয় দশকে ধীরে ধীরে আজ পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে যে আমেরিকা থেকে আমদানি করা এর বীজগুলি ভারতে ৩৫ লক্ষ মিলিয়ন হেক্টর জমি দখল করেছে। যে গতিতে এই আগাছাটি বংশ বিস্তার করছে তাতে  আগামী তিন থেকে চার দশকের মধ্যে এটি সমগ্র ভারতকে দখল করে নেবে। চাঁদের আলোর মতো সবুজ ও উজ্জ্বল দেখতে এই পার্থেনিয়াম প্রাণ দেওয়ার বদলে প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে। গত ছয় দশকে, এটি সহজেই গৃহস্থ বাড়ি থেকে, অফিস, খেলার মাঠ, খালি জমি, রাস্তার দুপাশ, রেললাইন সহ সারা ভারতের চাষযোগ্য জমিতে শিকড় গেড়েছে। শুধু তাই নয়, এই গাছটি তার আশেপাশের অঞ্চলের জমির উর্বরতাকে অনেক কমিয়ে দেয় ,তারফলে জমি অনুর্বর হয়ে ওঠে। সেই সাথে পার্থেনিয়াম মানুষ পশুপাখি, পরিবেশ ও ফসলের ক্ষতি করে। সবচেয়ে বিপজ্জনক বিষয় হল এর গন্ধ বাতাসে ছড়াচ্ছে যা মানুষের বিশেষ করে শিশুদের মধ্যে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত অনেক মারাত্মক রোগের কারণ হচ্ছে। এর ফুলে যে পরাগ থাকে তা বাতাসের সাথে মিশে আমাদের ফুসফুসে চলে যায়,এছাড়াও এই উদ্ভিদের সংস্পর্শে এলেও সংক্রমণ ঘটে।

পার্থেনিয়াম গাছের পরিবার কিভাবে বৃদ্ধি পায় এবং এটি কত দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে? একটি পার্থেনিয়াম গাছ এক সময়ে প্রায় ২০ থেকে ২৫ হাজার বীজ উৎপন্ন করে। এটি বাতাস এবং জলের সাথে বৃদ্ধি পায়।বছরে তিনবার জন্ম নেয়। জুন থেকে আগস্টের মধ্যে এর সর্বাধিক বৃদ্ধি ঘটে। গ্রীষ্মকালে এর বৃদ্ধি কম হয়।

পার্থেনিয়ামের প্রভাব রোধে করণীয়

১।গাছে ফুল ফোটার আগে সেগুলোকে উপড়ে ফেলুন এবং মাটিতে পুঁতে দিন।

২। এক লিটার জলে ১০০ গ্রাম লবণ মিশিয়ে স্প্রে করুন।

৩। জমি খালি রাখবেন না, চাষ করতে থাকুন।

৪। বৃষ্টিনির্ভর এলাকায় দ্রুত বর্ধনশীল ফসল যেমন ভুট্টা, বাজরা, জোয়ার ইত্যাদি রোপণ করুন।

৫। এছাড়াও পার্থেনিয়াম নির্মূলের জন্য আপনি একজন কৃষি বিজ্ঞানীর পরামর্শ নিতে পারেন।

কী করবেন না

১। এই গাছে ফুল ফুটে যাওয়ার পরে, এটি ফেলে দেবেন না বরং এক জায়গায় একটি গর্ত করুন এবং এটি পুঁতে দিন।

২। শিশু এবং বয়স্ক ব্যক্তিদের পার্থেনিয়াম গাছে কাছে খেলতে বা ঘুমাতে দেবেন না।

৩। প্লাস্টিক এবং গ্লাভস ছাড়া এটি স্পর্শ করবেন না।

রোগগুলো কি কি?

চুলকানি, একজিমা, অ্যালার্জি, ফুসফুসের সংক্রমণ, হাঁপানি, শ্বাসতন্ত্রের রোগ, দাঁতের প্রদাহ ইত্যাদি রোগ পার্থেনিয়ামের প্রভাবে হয়। তাই শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যায় আক্রান্ত বা ঘনঘন ত্বকের সমস্যায় অক্রান্ত ব্যক্তিদের সবসময় পার্থেনিয়াম গাছ থেকে দূরে রাখবেন।  

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলো কি

পার্থেনিয়াম(Parthenium) মানুষের চর্মরোগ, একজিমা, অ্যালার্জি, হাঁপানি, জ্বর ইত্যাদি রোগ সৃষ্টি করে। প্রভাব অতিরিক্ত হলে, এটি একজন ব্যক্তির মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।পার্থেনিয়াম অন্যান্য প্রাণীদের জন্যও অত্যন্ত বিষাক্ত। বর্তমানে পার্থেনিয়ামের দ্রুত বিস্তারের কারণে, অন্যান্য দরকারী গাছপালা ধ্বংস হতে শুরু করেছে।এটি জীববৈচিত্র্যের জন্যও বড় হুমকি হয়ে উঠছে ।

গত ছয় দশকে আন্দামান ও কেরালা ছাড়া দেশের ৩৫ মিলিয়ন হেক্টর জমিতে পার্থেনিয়াম ছড়িয়ে পড়েছে।১৯৫৫-৫৬ সালে, এটি PL ৪৮০ চুক্তির অধীনে আমেরিকা থেকে ভারত গম আমদানি করে,  গমের সাথে পার্থেনিয়ামের বীজও ভারতে আসে। আজ তা দেশের প্রতিটি এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে।এমনকি আমেরিকাতেও পার্থেনিয়াম সমস্যা মারাত্মক আকার ধারন করেছে। সেখানেও ম্যানুয়াল অপসারণ, ভেষজনাশক দিয়ে নিয়ন্ত্রণের প্রচেষ্টা চলছে।

খবরটি শেয়ার করুণ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন


ফ্লিম রিভিউ -ওপেনহাইমার

উত্তরাপথ: বিখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা ক্রিস্টোফার নোলান দ্বারা পরিচালিত”ওপেনহাইমার” একটি মাস্টারপিস মুভি। ছবিতে জে. রবার্ট ওপেনহেইমার, এক নামকরা পদার্থবিজ্ঞানী, যিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় পারমাণবিক বোমার বিকাশে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন।এই সিনেমায় ওপেনহাইমার এর জটিল জীবনকে বর্ণনা করা হয়েছে। সেই হিসেবে 'ওপেনহাইমার'কে বায়োপিক বলা যেতে পারে।  কারণ এটি একজন মানুষের গল্প। এই ছবির গল্প তিনটি পর্যায়ে বিভক্ত।ছবির শুরুতে পারমাণবিক বোমা তৈরির আবেগের কথা বলা হয়েছে।  যেখানে নায়ক কিছু না ভেবে নিবেদিতপ্রাণভাবে এমন একটি অস্ত্র তৈরিতে নিয়োজিত থাকে যা বিশ্বকে ধ্বংস করতে পারে।  অস্ত্র তৈরি হওয়ার পর দ্বিতীয় পর্যায়ে নায়ক তার কাজের ফলাফল দেখে অপরাধবোধে পূর্ণ হয়।  এবং তৃতীয় পর্যায়টি হল রাজনীতি  যা ওপেনহাইমারকে মোকাবেলা করতে হয়েছে।  পুরো সিনেমাটি রঙিন হলেও রাজনৈতিক অংশ সাদা-কালো রাখা হয়েছে।  এই তিনটি সময়কালে যা কিছু ঘটছে, তা সবই একে অপরের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত। .....বিস্তারিত পড়ুন

রাতের ঘামের সমস্যা এবং এ সম্পর্কে আপনি কি করতে পারেন  

উত্তরাপথঃ রাতের ঘামের সমস্যা শরীরের কুলিং সিস্টেমের একটি স্বাভাবিক অংশ, তাপ মুক্তি এবং সর্বোত্তম শরীরের তাপমাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করে।তবে রাতের ঘাম একটি সাধারণ সমস্যা যা বিভিন্ন কারণে হতে পারে।এর  অস্বস্তিকর অনুভূতির জন্য ঘুম ব্যাহত হতে পারে, যার ফলে ক্লান্তি এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। আপনি যদি রাতে অতিরিক্ত ঘাম অনুভব করেন, তাহলে তার অন্তর্নিহিত কারণটি চিহ্নিত করা এবং এটি মোকাবেলার জন্য কিছু ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। এখানে রাতের ঘামের কিছু সম্ভাব্য কারণ নিয়ে আলোচনা করা হল।মেনোপজ: যে কেউ, বয়স বা লিঙ্গ নির্বিশেষে, রাতের ঘাম অনুভব করতে পারে। .....বিস্তারিত পড়ুন

প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে একটি নতুন দ্বীপের জন্ম হয়েছে

উত্তরাপথঃ হঠাৎ করেই একটি নতুন দ্বীপের জন্ম হয়েছে।২০২৩ এর ৩০ অক্টোবর  প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে একটি মৃত আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত একটি নতুন দ্বীপের জন্ম দিয়েছে। বিস্ফোরণের পর জাপানের ওগাসাওয়ারা দ্বীপ চেইনের কাছে বিশাল বিশাল পাথরের টুকরো দেখা গেছে। এ বিষয়ে জাপানি গবেষক বলেন, গত মাসে প্রশান্ত মহাসাগর জলের নিচে আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণের পর টোকিও থেকে প্রায় ১২০০ কিলোমিটার দক্ষিণে ইওটো দ্বীপের কাছে একটি ছোট নতুন দ্বীপের উদ্ভব হয়েছে।টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমিকম্প গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ফুকাশি মায়েনো জানিয়েছেন যে নতুন দ্বীপ, এখনও যার নাম নেই প্রশান্ত মহাসাগরের ইওটো দ্বীপ থেকে ১ কিলোমিটার দূরে ১০০ মিটার ব্যাসের একটি পাথুরে দ্বীপে একটি phreatomagmatic বিস্ফোরণ ঘটেছে। টোকিও থেকে প্রায় ১২০০ কিলোমিটার দক্ষিণে বিস্ফোরণটি দেখা গেছে। ভূপৃষ্ঠের নীচে জলের সাথে লাল গরম ম্যাগমা সংঘর্ষের কারণে প্রতি কয়েক মিনিটে বিস্ফোরণ ঘটে।গত ২১ অক্টোবর, ২০২৩-এ অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়েছিল, যা আগে ইও জিমা নামে পরিচিত ছিল এবং এটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অন্যতম রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের স্থান ছিল। প্রায় ১০ দিন ধরে অগ্ন্যুৎপাত চলার পর, আগ্নেয়গিরির উপাদান অগভীর সমুদ্রতলের উপর জমা হয় এবং প্রায় ১৬০ ফুট পর্যন্ত উচ্চতায় বড় বড় পাথরের আকারে সমুদ্র পৃষ্ঠের উপরে উঠে আসে। .....বিস্তারিত পড়ুন

Roop Kishor Soni: একটি আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য তুলে ধরেছেন

উত্তরাপথঃ রাজস্থান মানেই ওজনদার রূপার গহনা ,আর তার উপর কারুকাজ। প্রচলিত এই ধারনা ভেঙ্গে আজ রূপোর গহনাকে আধুনিকতার সাথে শিল্পের এক অপূর্ব মেলবন্ধন ঘটিয়েছেন যে ব্যক্তি তিনি হলেন রূপ কিশোরী সোনী(Roop Kishor Soni)।তিনি ২০১৬ সালের ৯ ডিসেম্বর প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির কাছ থেকে তার অসাধারণ শিল্প কর্মের জন্য জাতীয় পুরুস্কার পান। রাজস্থানের জয়সলমেরের শহরের এই শিল্পী ৩.৮ গ্রাম ওজনের ০.৯ সেমি চওড়া রৌপ্য আংটিতে বিশ্বের আটটি আশ্চর্য খোদাই করেছেন।এই ছোট রূপার আংটিতে শিল্পী তাজমহল, সিডনি অপেরা হাউস, স্ট্যাচু অফ লিবার্টি, চীনের গ্রেট ওয়াল, আইফেল টাওয়ার, বিগ বেন, পিসার হেলানো টাওয়ার এবং মিশরীয় পিরামিডের চিত্র এক সাথে ফুটিয়ে তুলেছেন।এছাড়াও তিনি আরও দুটি পৃথক ডিজাইনের অত্যাশ্চর্য আংটি  তৈরি করেছেন।৮.৬ গ্রাম ওজনের একটি রিংয়ে তিনি সূর্যাস্তের সময় ভারতীয় উট সাফারি সহ ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন ভারতীয় বিশেষত্ব ফুটিয়ে তুলেছেন,এবং অন্যটিতে বিভিন্ন হিন্দু দেব-দেবী ছবি এবং মন্দির খোদাই করেছিলেন। শিল্পী বলেছেন যে তিনি তার বাবার কাছ থেকে তার শৈল্পিক দক্ষতা উত্তরাধিকারসূত্রে পেয়েছেন। সেই সাথে তিনি বলেন "আমার বাবাও একজন জাতীয় পুরুস্কার প্রাপ্ত শিল্পী ছিলেন। তিনি আমাকে শিল্পের এই দক্ষতা শিখিয়েছিলেন কারণ তিনি পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যে শিল্পের ফর্মটিকে বাঁচিয়ে রাখতে চেয়েছিলেন।" .....বিস্তারিত পড়ুন

Scroll to Top